জাস্টিন মার্টারের দ্বিতীয় কৈফিয়ত

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

জাস্টিন মার্টারের দ্বিতীয় কৈফিয়ত বা সেকেন্ড অ্যাপোলজি লেখা হয়েছিল সম্ভবত জাস্টিন মার্টারের প্রথম কৈফিয়তের একটি পরিপূরক হিসেবে। এই রচনার কিছু বিষয় যা রোম নগরীর প্রিফেক্ট হিসেবে লোলিয়াস আর্বিকাসের দায়িত্বে থাকার সময় ঘটেছিল, যা থেকে মনে হয় এই রচনাটি খ্রিস্টীয় ১৫০ থেকে ১৫৭ অব্দে লেখা হয়। এই কৈফিয়তটি রোমান সিনেটকে সম্বোধন করে লেখা হয়।

লেখার উদ্দেশ্য[সম্পাদনা]

দ্বিতীয় কৈফিয়তের উদ্দেশ্য ছিল সমসাময়িক সাম্প্রতিককালের আর্বিকাসের দ্বারা খ্রিস্টানদের উপর নির্যাতনের প্রকৃত কারণকে প্রকাশ করা। এটি খ্রিস্টানদের বিরুদ্ধে ছড়িয়ে দেয়া অভিযোগ ও প্রচারের অযৌক্তিকতাও প্রকাশ করার চেষ্টা করেছিল।

আর্বিকাসের অধীনে খ্রিস্টানদের উপর নির্যাতন[সম্পাদনা]

জাস্টিন একটি নির্দিষ্ট নারীর গল্পের বর্ণনা করেছেন যিনি যিশুর শিক্ষা শুনে এবং খ্রিস্টান হয়ে গিয়ে তার স্বামীর অনৈতিক আচরণ অনুসরণ করতে অস্বীকার করেছিলেন। মতবিরোধগুলি তীব্র হওয়ার কারণে তিনি বিবাহ বিচ্ছেদের বিষয়ে আকাঙ্ক্ষিত হয়েছিলেন, কিন্তু তা করতে উত্সাহিত না হওয়ায় তিনি এই সম্পর্কটি অব্যাহত রেখেছিলেন। কিন্তু একদিন তা নৈতিকভাবে অসহনীয় হয়ে যায় এবং তিনি তার স্বামীকে বিবাহ বিচ্ছেদের বিল প্রদান করেন। স্বামী সম্রাটের সামনে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ এনে পাল্টা জবাব দিলেন। কিন্তু যখন তিনি তার বিরুদ্ধে কিছু করতে পারেন নি, তখন তিনি খ্রিস্টান নেতাদের বিরুদ্ধে যান, যাদেরকে প্রিফেক্ট আর্বিকাস কঠোরভাবে নির্যাতন শুরু করেন।

বিশ্বের উপর দানবীয় নিয়ন্ত্রণ[সম্পাদনা]

জাস্টিনের মতে পতিত এঞ্জেল ও দানবরাই (Demon) ঈশ্বরের পুত্র ও ঈশ্বরের বাক্যের প্রতি সাড়া দেয়া ঈশ্বরের লোকদের বিরুদ্ধে এরকম ঘৃণাকে জাগিয়ে তোলে। এই দৃষ্টিভঙ্গি বুক অফ এনোকের (১ এনোক) সাথে সঙ্গতিপূর্ণ যাকে জাস্টিন ধর্মগ্রন্থ হিসেবে দেখতেন। এই দানবরা হ'ল তাদের আত্মা যারা প্রলয়ের পূর্বে পতিত এঞ্জেল এবং নারীদের মিলনের মধ্য দিয়ে জন্মগ্রহণ করেন এবং যারা বন্যা বা প্রলয়ের ফলে ধ্বংস হয়েছিল। তারা যাদুকরী শিল্প, তর্পন এবং এরকম ভয়ঙ্কর ব্যবস্থার মাধ্যমে মানুষকে নিয়ন্ত্রণ করে যা মানুষকে দাসত্বের বন্ধনে আবদ্ধ করে। খ্রিস্টানরা যীশুর নামে তাদের থেকে এই দানবদের বহিষ্কার করে (exorcism)। যাদের মধ্যে ঈশ্বরের বাণী রয়েছে তাদেরকে ঘৃণা করা হয়, যেমন হেরাক্লিটাস এবং মুসোনিয়াস।

প্রোপাগান্ডার বিরুদ্ধে কৈফিয়ত[সম্পাদনা]

খ্রিস্টানদের উপর নরমাংস ভক্ষণ এবং যৌন অনৈতিকতার অভিযোগ আনা হয়েছিল। জাস্টিন জিজ্ঞাসা করেছেন যে যদি এটিই হয় এবং খ্রিস্টানরা যদি আনন্দ উপভোগের দ্বারাই তাড়িত হয়ে থাকে, তাহলে তারা কেন কেন মৃত্যুর ভয় পায়না, এবং তারা যা বিশ্বাস করে তার প্রতি বিশ্বস্ত থাকে। মৃত্যুর মুখে খ্রিস্টের প্রতি তাদের বিশ্বস্ততা প্রমাণ করে যে তারা আনন্দের সন্ধানকারী নয়। বিপরীতে, অভিযোগকারীরা এমন ধর্ম ব্যবস্থাকে অনুসরণ করেন যেখানে উচ্চবংশজাত পুরুষরা স্যাটার্নের মতো দেবতাদের উদ্দেশ্যে মানুষকে বলি দেয় এবং যেখানে লজ্জা ছাড়াই প্রকাশ্যে যৌন অনৈতিক আচরণ করা হয়। তিনি চিৎকার করে বলেন:

তবে এখনও যদি কেউ একটি উচ্চ বেদিতে উঠে চিৎকার করে বলত, "তোমরা লজ্জা কর, লজ্জা কর! তোমরা নিরপরাধদেরকে সেই দোষে অভিযুক্ত করছ যা তোমরাই প্রকাশ্যে করে থাকো, নিজের এবং এই নিরপরাধদের উপর সেই সব বিষয় আরোপ করো যা নিজেদের উপর ও নিজেদের দেবদেবীদের উপর আরোপ কর। তোমরা ধর্মান্তরিত হও; বুদ্ধিমান হন। "

আবেদন[সম্পাদনা]

তিনি খ্রিস্টানদের চিত্রিত করেছেন এমন মানুষ হিসেবে যারা ঈশ্বর ও তার বাক্যকে (যীশু খ্রীষ্ট) ভালবাসেন। তার ইচ্ছা এই যে যাতে পৃথিবীর খ্রিস্টানদের বিরুদ্ধে কুসংস্কারাচ্ছন্ন না হবার তার আবেদনটি প্রকাশ করা হয়। তিনি এই কথাগুলো বলে শেষ করেন:

সচেতন বিচার অনুযায়ী আমাদের মতবাদগুলি লজ্জাস্কর নয়, বরং এটি অন্যান্য যেকোন মানব দর্শনের তুলনায় উচ্চতর; এবং যদি তা না হয় তাহলে তারা সটাডিস্ট, ফিলিনিডীয়, নৃত্যশিল্পী এবং এপিকিউরিয়ানদের এবং এরকম অন্যান্য কবিদের শিক্ষার মত নয়, যেগুলো অনুসারে কাজ করা ও লেখালিখি করা অনুমোদিত। আর তাই এখন থেকে আমরা চুপ করে থাকব, আমরা যতটা সম্ভব করেছি, সেই সাথে প্রার্থনা করি যাতে সকল মানুষ সত্যের জন্য যোগ্য হয়ে ওঠে। এবং আপনারাও নিজেদের জন্যই দর্শন ও দয়ার সাথে ন্যায়বিচার করুন!

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃস্থ সূত্র[সম্পাদনা]