জল ময়ূর

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
জল ময়ূর
Pheasant tailed jacana 2016.jpg
প্রজননকারী পাখির মাথা, গলা ও ডানার পালক-ঢাকনি সাদা থাকে। ঘাড় সোনালি-হলুদ, পিঠ গাঢ় বাদামি, বুক-পেট কালচে-বাদামি ও লেজ কালচে।
বৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস e
অপরিচিত শ্রেণী (ঠিক করুন): হাইড্রোফাসিয়ানো
প্রজাতি: হ. চিরুরগাস
দ্বিপদী নাম
হাইড্রোফাসিয়ানো চিরুরগাস
(জিওভ্যানি আন্তোনিও স্কোপোলি, ১৭৮৬)
Hydrophasianus chirurgus map.png
প্রতিশব্দ

পাররা চিনেনসিস
পাররা লুজানেনসিস
ত্রিঙ্গা চিরুরগাস[২]

জল ময়ূর (ইংরেজি: Pheasant-tailed jacana) (যা নেউ, নেউপিপি, পদ্মপিপি বা মেওয়া নামেও পরিচিত) দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার পাখি। লম্বালেজী অনিন্দ্য সুন্দর পাখিটি বাংলাদেশের দুর্লভ আবাসিক পাখি ‘জল ময়ূর’। ''যাকানিদাকে'' পরিবারভুক্ত পাখিটির বৈজ্ঞানিক নাম: ''হায়দফাসিয়ানো চিরুরগাস''।[৩]

বর্ণনা[সম্পাদনা]

২৫ সেন্টিমিটার লম্বা লেজসহ পাখির দেহের দৈর্ঘ্য দাঁড়ায় ৩৯ থেকে ৫৮ সেন্টিমিটার। ওজনে পুরুষ ১১৩ থেকে ১৩৫ গ্রাম। স্ত্রী প্রজাতির পাখি ২০৫ থেকে ২৬০ গ্রাম হয়। জল ময়ূর হাওর, বিল, হ্রদ এবং মিঠাপানির জলাভূমিতে বাস করে।[৪] দেশের প্রায় সব বিভাগেই দেখা যায় এ পাখিটি। [৫]

গ্রীষ্মকালে একাকী বা জোড়ায় ও শীতকালে ঝাঁক বেঁধে বিচরণ করে।[৬] ভাসমান পাতার ওপর হেঁটে হেঁটে জলজ উদ্ভিদে থাকা পোকা-মাকড় ও অমেরুদণ্ডী প্রাণী, জলজ উদ্ভিদের কচি পাতা, অংকুর ও বীজ খায়।[৭][৮]

আচার-আচরণ[সম্পাদনা]

Pheasant-tailed Jacana (Hydrophasianus chirurgus) (27955219999).jpg

প্রজননকালে জল ময়ূর অত্যন্ত সুন্দর হয়ে ওঠে। প্রজননকারী পাখির মাথা, গলা ও ডানার পালক সাদা থাকে। ঘাড় সোনালি-হলুদ, পিঠ গাঢ় বাদামি, বুক-পেট কালচে-বাদামি ও লেজ কালচে হয়।[৯] একটি কালচে-খয়েরি রেখা মাথা ও ঘাড়-গলার সাদা ও সোনালি-হলুদ রংকে পৃথক করেছে। ঠোঁট নীলচে হয়। চোখ বাদামি ও পা নীলাভ-কালো। [১০]

স্ত্রী-পুরুষ দেখতে একই রকম।[১১] প্রজননকালে পুরুষ শাপলা ও পদ্মপাতা বা এ জাতীয় ভাসমান কোনো উদ্ভিদের পাতার ওপর বাসা বানায়। স্ত্রী এতে চারটি জলপাই-বাদামি চকচকে ডিম পেড়ে চলে যায়। পুরুষ একাই ডিমে ২৩ থেকে ২৬ দিন তা দিয়ে বাচ্চা ফোটায়। ডিম থেকে ফোটার সঙ্গে সঙ্গেই হাঁটতে, সাঁতরাতে ও ডুব দিতে পারে। প্রায় দুই মাস পর্যন্ত বাবার তত্ত্বাবধানে থাকে।[১২]

মিউটেশন বা জাত[সম্পাদনা]

এ পাখির তিন ধরনের প্রজাতি রয়েছে। নেউ, নেউপিপি এবং পদ্মপিপি বা মেওয়া নামেও পরিচিত।[১৩]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "হাইড্রোফাসিয়ানো চিরুরগাস"বিপদগ্রস্ত প্রজাতির আইইউসিএন লাল তালিকা। সংস্করণ 2013.2প্রকৃতি সংরক্ষণের জন্য আন্তর্জাতিক ইউনিয়ন। ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ২৬ নভেম্বর ২০১৩ 
  2. Viscount Walden, Arthur (১৮৭৭)। "A list of the bird known to inhabit the Philippine Archipelago"Transactions of the Zoological Society of London9: 125–252। doi:10.1111/j.1096-3642.1875.tb00238.x 
  3. Ali, Salim; Ripley, S. Dillon (১৯৮০)। Handbook of the Birds of India and Pakistan. Volume 2. Megapodes to Crab Plover. (2 সংস্করণ)। Oxford University Press। পৃষ্ঠা 199–200। 
  4. Whistler, Hugh (১৯৪৯)। Popular handbook of Indian birds (4 সংস্করণ)। Gurney and Jackson। পৃষ্ঠা 457–459। 
  5. Stunkard, H.W.; Nigrelli, R.F. (১৯৫৮)। "The morphology of Renicola philippinensis, n. sp., a digenetic trematode from the pheasant-tailed Jacana, Hydrophasianus chirurgus (Scopoli)": 105–113। 
  6. Shufeldt, R.W. (১৯১৯)। "The Osteology of the giant gallinule of the Philippines, Porphyrio pulverulentus Temminck with notes on the osteology of Tachybaptus philippensis (Bonnaterre) and Hydrophasianus chirurgus (Scopoli)": 87–104। 
  7. Hoffmann, Alfred (১৯৫০)। "Zur Brutbiologie des polyandrischen Wasserfasans Hydrophasianus chirurgus": 119–126। 
  8. Sonnerat, Pierre (১৭৭৬)। Voyage à la Nouvelle Guinée : dans lequel on trouve la description des lieux, des observations physiques & morales, & des détails relatifs à l'histoire naturelle dans le regne animal & le regne végétal। Chez Ruault। পৃষ্ঠা 82–84। 
  9. Scopoli, Giovanni Antonio (১৭৮৭)। Deliciae florae et faunae Insubricae. Pars II (PDF)। পৃষ্ঠা 92। ৩ এপ্রিল ২০১৯ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুন ২০১৯ 
  10. Thong-aree, Siriporn; Khobkhet, Obas (১৯৯৫)। "Breeding biology of Pheasant-tailed Jacana Hydrophasianus chirurgus in central Thailand" (PDF): 289–302। 
  11. Blanford, W.T. (১৮৯৮)। The Fauna of British India. Birds. Volume IV.। Taylor and Francis। পৃষ্ঠা 219–221। 
  12. Baker, E.C. Stuart (১৯২৯)। The Fauna of British India. Birds. Volume VI. (2 সংস্করণ)। Taylor and Francis। পৃষ্ঠা 42–43। 
  13. Emerson, K.C.; Elbel, R.E. (১৯৬১)। "A new species of Rallicola (Mallophaga) from southeast Asia.": 130–132।