গ্রেট ব্রিটেন সাম্রাজ্য

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

১লা মে ১৭০৭ থেকে ১লা জানুয়ারি ১৮০১ পর্যন্ত পশ্চিম ইউরোপের অখন্ড রাষ্ট্র ছিল গ্রেট ব্রিটেন সম্রাজ্য বা গ্রেট ব্রিটেন । ১৭০৬ সালের ঐক্যচুক্তি দ্বারা এই সম্রাজ্য অস্তিত্ব লাভ করে যেটা ১৭০৭ সালের ঐক্য আইন দ্বারা অনুমোদিত হয়। আইল অফ ম্যান এবং চ্যানেল দীপপুঞ্জ ব্যতীত ইংল্যান্ডের (ওয়েলস সহ) এবং স্কটল্যান্ড এবং সমগ্র গ্রেট ব্রিটেন সহ এদের পার্শ্ববর্তী দ্বীপ গুলো একত্রে একটি মাত্র সম্রাজ্য গঠিত হয়। ওয়েস্টমিনিস্টারের ওপর ভিত্তি করে একটি্মাত্র সংসদ এবং সরকার দ্বারাই একক রাজ্য পরিচালিত হত। ১৬০৩ সালে রাণী প্রথম এলিযাবেথ এর মৃত্যুর পর স্কটল্যান্ডের ষষ্ঠ জেমস ইংল্যান্ড এবং আয়ারল্যান্ডের রাজা হলে এটি তার ব্যক্তিগত ইউনিয়নে পরিনত হয় যেটা পরবর্তিতে মুকুট ইউনিয়নে আনেন। ১৭১৪ সালে প্রথম জর্জ গ্রেট ব্রিটেনের সিংহাসনে বসলে ইলেকটরেট অফ হ্যানোভার সহ এটি একক সম্রাজ্যে পরিনত হয় ।
সম্রাজ্যের প্রথম বছরগুলির মধ্যে উল্লেখযোগ্য ছিল জ্যাকোবাইটের উত্থান যা ১৭৪৬ সালে কুলোডেন যুদ্ধে স্টুয়ার্টের হারের কারনে সমাপ্ত হয়। ১৭৬৩ সালে, সপ্তবর্ষী যুদ্ধ জয়ের ফলে ব্রিটিশ রাজত্বের কর্তৃত্বে পরিনত হয়। যার ফলে ব্রিটিশ সম্রাজ্য সর্বপ্রথম বৈশ্বিক শক্তিতে পরিনত হয় এবং ধীরে ধীরে ইতিহাসের বৃহত্তম সম্রাজ্যে পরিণত হয়।

১৮০০ সালের ইউনিয়ন আইনের মাধ্যমে ১৮০১ সালের ১লা জানুয়ারি গ্রেট ব্রিটেন সম্রাজ্য গ্রেট ব্রিটেন এবং আয়ারল্যান্ড যুক্তরাজ্যে পরিণত হয়।

ব্যুৎপত্তি[সম্পাদনা]

গ্রেট ব্রিটেন দ্বীপপুঞ্জের Britain শব্দের উৎপত্তি ল্যাটিন শব্দ Britania বা Brittania থেকে ।প্রাচীন ফ্রেঞ্চ Bretaigne(যার আধুনিক ফ্রেঞ্চ Bretagne) এবং ইংরেজী Bretayne , Breteyne থেকেই আসে the land of Britons। Great Britain শব্দটি আনুষ্ঠানিক ভাবে প্রথম ব্যবহার হয় ১৪৭৪ সালে।

ইউনিয়ন চুক্তি এবং পরবর্তি ইউনিয়ন আইন অনুযায়ী ইংল্যান্ড এবং স্কটল্যান্ড একত্রে একটি সম্রাজ্যে পরিনত হয় যার অফিসিয়াল নাম হয় "গ্রেট ব্রিটেন"।এছাড়াও "গ্রেট ব্রিটেন সংসদ" নামও ব্যবহৃত হত।উভয় আইন এবং চুক্তি বর্ণিত "একক রাজ্য" এবং "যুক্ত রাজ্য" নাম হয় যেটা ১৮০১ সালে কার্যকর হয়।স্কটিশ সংসদের ওয়েবসাইট, বিবিসি, এবং অন্যান্য,ঐতিহাসিক সংঘ সহ, অনুযায়ী ১লা মে ১৭০৭ সালে গ্রেট ব্রিটেন যুক্তরাজ্য গঠিত হয়। অষ্টাদশ শতাব্দীতে সম্রাজ্যটিকে বোঝাতে "যুক্তরাজ্য" শব্দটি ব্যবহৃত হত যদিও এটি তার নাম ছিল না।


রাজনৈতিক কাঠামো



ইংল্যান্ড এবং স্কটল্যান্ড উভয় সম্রাজ্য নবম শতাব্দী থেকে১৭০৭ খৃষ্টাব্দ পর্যন্ত পৃথক ছিল(ষোড়শ শতাব্দীতে ওয়েলস ইংল্যান্ডের অন্তর্ভূক্ত হয়)। যাই হোক,১৬০৩ অব্দে তারা ব্যক্তিগত ইউনিয়নে পরিনত হয় যখন সপ্তম জেমস স্কটল্যান্ডের রাজা হন। হাউজ অফ স্টুয়ার্ট অধীনে মুকুট সম্রাজ্য সমগ্র গ্রেট ব্রিটেন দ্বীপপুঞ্জ এক জন শাসকের অধীনেই শাসিত হত যে ইংরেজ মুকুট বলে আয়ারল্যান্ড সম্রাজ্য অ শাসন করত। আইল অফ ম্যান এবং চ্যানেল দ্বীপ সহ আরো অনেক ক্ষুদ্র দ্বীপ ছিল রাজার অধীনে।

এই অবস্থার পরিবর্তন হয় নাটকীয়ভাবে যখন ঐক্য আইন ১৭০৭ বলবৎ হয়ে একক গ্রেট ব্রিটেন সম্রাজ্যে এবং একক পার্লামেন্টের অধীনে যায়। ঐক্য আইন ১৮০০ এর আগ পর্যন্ত আয়ারল্যন্ড আনুষ্ঠানিক ভাবে তার পার্লামেন্ট সহ পৃথক থাকে। ১৭০৭ সালের ঐক্য প্রতিষ্টিত হয় ১৭০১ সালের বন্দোবস্ত আইন দ্বারা ;বরং স্কটল্যান্ডের ১৭০৪ সালের নিরাপত্তা আইন যেটাকে প্রশমিত করে। নিরাপত্তা আইন অনুযায়ী ইংরেজ সিংহাসনের উত্তরাধীকারি হবে ইলেক্ট্রেস সোফিয়া অফ হ্যানোভার এর উত্তরপুরুষ এবং ক্যাথলিক হতে পারবে না; যার ফলে ১৭১৪ সালে হ্যানোভারের পরম্পরা শুরু হয়।

আইনী ক্ষমতা গ্রেট ব্রিটেনের সংসদে ন্যস্ত হয়েছিল, যা ইংল্যান্ডের সংসদ এবং স্কটল্যান্ডের সংসদ উভয়কেই প্রতিস্থাপন করেছিল। বাস্তবে এটি ইংলিশ সংসদের ধারাবাহিকতা ছিল, ওয়েস্টমিনস্টারে একই জায়গায় বসে স্কটল্যান্ডের প্রতিনিধিত্ব অন্তর্ভুক্ত করার জন্য এটি প্রসারিত হয়েছিল। ইংল্যান্ডের প্রাক্তন সংসদ এবং যুক্তরাজ্যের আধুনিক সংসদের মতো গ্রেট ব্রিটেনের সংসদ আনুষ্ঠানিকভাবে তিনটি উপাদান নিয়ে গঠিত হয়েছিল: হাউস অফ কমন্স, হাউস অফ লর্ডস এবং ক্রাউন।ইংরেজ অভিজাতদের হাউস অফ লর্ডসে বসার অধিকার অপরিবর্তিত ছিল, অন্যদিকে অপ্রতিরোধ্যভাবে বড় স্কটিশ অভিজাতদের প্রত্যেক সংসদে তাদের থেকে নির্বাচিত মাত্র ১৬ জন প্রতিনিধি পাঠানোর অনুমতি ছিল, । একইভাবে, পূর্ববর্তী ইংলিশ হাউস অফ কমন্সের সদস্যরা ব্রিটিশ হাউস অফ কমন্সের সদস্য হিসাবে অব্যাহত ছিলেন , তবে দুই দেশের আপেক্ষিক কর ঘাঁটির প্রতিচ্ছবি হিসাবে স্কটিশ প্রতিনিধিদের সংখ্যা কমিয়ে ৪৫ করা হয়েছিল। পিয়ারেজে নতুনভাবে তৈরি অভিজাতদের গ্রেট ব্রিটেনের লর্ডসে বসার স্বয়ংক্রিয় অধিকার দেওয়া হয়েছিল। স্কটল্যান্ডের পৃথক সংসদ বিলুপ্ত হওয়া সত্ত্বেও, এটি তার নিজস্ব আইন ও আদালত ব্যবস্থা বজায় রেখেছিল। নিজস্ব প্রতিষ্ঠিত প্রেসবিটারিয়ান গির্জা এবং তার নিজস্ব বিদ্যালয়ের উপর তাদের নিয়ন্ত্রণ ছিল। সামাজিক কাঠামো অত্যন্ত শ্রেণিবদ্ধ ছিল, এবং 1707 এর পরে একই অভিজাতদের নিয়ন্ত্রণে ছিল। স্কটল্যান্ডের নিজস্ব চমৎকার বিশ্ববিদ্যালয় ছিল, এবং শক্তিশালী বুদ্ধিজীবী সম্প্রদায়, বিশেষ করে এডিনবার্গের সাথে, স্কটল্যান্ড এনলাইটেনমেন্টের ব্রিটিশ, আমেরিকান এবং ইউরোপীয় চিন্তাভাবনার উপর একটি বড় প্রভাব ছিল।