খুলা তালাক

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(খুলা থেকে পুনর্নির্দেশিত)
ALFiqh.png

খুলা’ হলো স্বামী স্ত্রীর কাছ থেকে বা অন্যের কাছ থেকে নির্দিষ্ট শব্দ ব্যবহার করে যে ক্ষতিপূরণ নিয়ে বিবাহ বিচ্ছেদ করে তার নাম। এ তালাকের পর স্বামী স্ত্রীর কাছে ফিরে আসতে পারে না। এটাকে এ কারণে খুলা‘ বলা হয়, একজন নারী তার হাত থেকে স্বামীকে সরিয়ে দেয় যেমন একটি আংটি হাতের আঙুল থেকে সরিয়ে নেয়া হয়।[১] আল্লাহ বলেন

هن لباس لكم وانتم لباس لهن

অর্থ: নারীরা পুরুষের অঙ্গ স্বরূপ এবং পুরুষরা নারীর অঙ্গ স্বরূপ। তিনি আরও বলেন যে,

فإن خفتم ألا يقيما حدود الله فلا جناح عليهما فيما افتدت به

অর্থ: তোমরা ভয় করো যে উভয়ের মাঝে ন্যায়বিচার করতে পারবে না, তাহলে উভয়ে সমজোতার ভিত্তিতে যে বিচার হবে তাতে কোনো পাপ নেই।

নবী মুহাম্মাদ বলেন: "যে কোন মহিলা তার স্বামীকে বিনা কারণে তালাক চায়, তার জন্য জান্নাতের সুবাস হারাম।"[২]

হায়েজের সময় এবং পবিত্রতার সময় হলেও দোষ নেই। কেননা মুহাম্মাদ খুলাপ্রাপ্ত নারীকে তার শারীরিক অবস্থা সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করেননি।"[৩]

আইনগত ভিত্তি

২০০০ সালের ১ নং আইনের ২০ নং ধারা হল 'খুলা’ পদ্ধতির আইনি ভিত্তি। অনুচ্ছেদ ৬ এবং ২৪ এ এর বিবরণ দেয়া হয়েছে। এটা শরীয়া আদালতের একটি আইন। এ আইনের অনুচ্ছেদ ১৮, অনুচ্ছেদ ২ এবং অনুচ্ছেদ ১৯, অনুচ্ছেদ ১, ২ এর বিস্তারিত বিবরণ আছে।

কারণ লিপিবদ্ধ করা[সম্পাদনা]

দেওয়ানি আইনের ক্ষেত্রে, মামলায় স্ত্রীকে খুলা তালাকের কারণগুলি উল্লেখ করার প্রয়োজন নেই। তবে খুলার প্রয়োজনীয় ক্ষতির কারণের কারণগুলি তালিকাভুক্ত করতে হয়। যেমন স্ত্রী যদি দাম্পত্য বা বৈবাহিক জীবন চলার কোন উপায় না থাকে এবং সে ভয় করে যে সে আল্লাহর হক প্রতিষ্ঠা করতে পারবে না। তখন সে নারী খুলা তালাক চা্যইতে পারে।অন্যায় ভাবে কোন নারী খুলা তালাক চাইলে “সে জান্নাতের ঘ্রাণ পাবে না।” যে আদালতে খুলার মামলা চলবে তার বিচারক সুনির্দিষ্ট আইন বা আইনি কারণ বা সীমিত ক্ষতির দিকে নজর দিবে না। সে বিবাহ টিকে রাখার জন্য চেষ্টা চালাবে। স্বামী/স্ত্রী, যদি এটি ব্যর্থ হয় এবং বিবাহবিচ্ছেদের শর্ত পূরণ করা হয়, তাহলে তার বিচার করা হবে। তবে স্বামী -স্ত্রী তালাকের ব্যাপারে সম্মত হলে এবং বিবাহবিচ্ছেদ চুক্তির মাধ্যমে সংঘটিত হলে খুলা হবে। যা ২০০০ সালের ১ নং আইন এর ২০ নং অনুচ্ছেদে উল্লেখ করা হয়েছে। স্বামী যদি তালাক সম্পূর্ণ করতে অস্বীকার করে, তাহলে স্ত্রী তালাকের মামলা করতে পারে। উক্ত আদালতে আবেদন করবে এবং মামলাটি ইসলামিক আইন অনুযায়ী নয়, বরং আবেদনমূলক আইনের নিয়ম অনুসারে পরিচালিত হবে। কার্যক্রম নিম্নলিখিত পদ্ধতিতে পরিচালিত হয়-

মহর পরিশোধ[সম্পাদনা]

স্ত্রী তার স্বামীর কাছ থেকে প্রাপ্ত মহর ফের দিবে। এটা হলো প্রথম শর্ত। কিন্তু যদি স্বামী তার চেয়ে বেশি অর্থ প্রদান করে, তাহলে স্ত্রীকে সেটাও ফেরৎ দিতে হবে। অথবা আদালত বিয়ের দলিলে যতি আরও কিছু লেখা থাকে সেটা স্ত্রীকে ফেরৎ দিতে হবে না। এভাবে (১) বিবাহের উপহার সামগ্রীও ফেরৎ দিতে হবে না। কেননা তা মহর নয়। (২) বৈবাহিক অস্থাবর সম্পত্তিও মহর নয়, সেটাও ফেরৎ দিতে হবে না যতক্ষণ না স্ত্রী তার অর্থ ফেরত দিতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হয়। স্ত্রীর মহর ফেরত বা মহর আদালতে ফেরৎ আইনি উপস্থাপনের মাধ্যমে সম্পন্ন হয়, এবং এটি যুক্তি দ্বারা বা আইনের দ্বারা প্রমাণিত হয়।

আর্থিক অধিকার মওকুফ[সম্পাদনা]

স্ত্রীর তার আর্থিক অধিকার মওকুফ করা বা স্বামীর কাছ থেকে তার সন্তানদের অধিকার ছাড়া বা তার হেফাজতে থাকা এবং খুলার স্বীকৃতি চাওয়া সবকিছু স্ত্রীর উপর নির্ভর করে। স্বামী তার সমস্ত আর্থিক ও আইনগত অধিকার মওকুফ করতে পারে, যদি সে বিলম্বে মহর গ্রদান করে বা ইদ্দতকালে থাকে। আর এটা সে উপস্থিত লোকদের হাতে অথবা বিচারকের সামনে পেশ করবে। আর এটা উভয়ের বিচ্ছেদের পরে করবে। তবে ছোট সন্তানের হেজানত বা তাদের দেখাশোনার জন্য ব্যয় করা অর্থের ক্ষেত্রে হবে না।

মীমাংসার প্রস্তাব[সম্পাদনা]

স্বামী -স্ত্রীর মধ্যে মীমাংসার মাধ্যমে বিরোধের অবসান ঘটাতে আদালতকে অবশ্যই হস্তক্ষেপ করতে হবে। আদালতের হস্তক্ষেপ অবশ্যই স্বামী -স্ত্রীর মধ্যে বোঝাপরার মাধ্যমে পুনর্মিলনের ব্যবস্থা করবে। এই মীমাংসার বাধ্যবাধকতা হচ্ছে ছেলেমেয়ের ভবিষ্যত রক্ষা করার জন্য। যা জনশৃঙ্খলার সাথে সম্পর্কিত। আদালত তাদের মধ্যে দুইবার সমঝোতার প্রস্তাব দিতে বাধ্য, যা ত্রিশ দিনের কম নয় এবং ষাট দিনের বেশি নয়, যাতে পরিবারকে রক্ষা করা যায়।

দুই মীমাংসাকারীর নিয়োগ[সম্পাদনা]

স্বামীর পরিবার থেকে একজন এবং স্ত্রীর পরিবার থেকে একজন মোট দু’জন বিচারক নিয়োগ করবে। তারা স্বামী-স্ত্রীর দ্বন্দ্ব মীমাংসা করে পরিবারটাকে রক্ষা করবে। এটা কুরআনের বিধান, যা আল-আজহার বিশ্ববিদ্যালয়ের ফতওয়া বিভাগ বাস্তবায়ন করেছিল। ফলে এরকম একটি খুলা মামলার সমাধান হয়েছিল। যেহেতু এটা স্ত্রীর পক্ষ থেকে হয় বা খুলার মামলাটি স্বামীর দ্বারা সৃষ্ট ত্রুটি বা ক্ষতির উপর ভিত্তি করে নয়, বরং এটি স্বামীর মনস্তাত্ত্বিক বিদ্বেষ এবং স্ত্রীর সমাপ্তির আকাঙ্ক্ষার উপর ভিত্তি করে। আর বিবাহিত জীবন. স্বামী -স্ত্রীর স্বার্থে এবং শিশুদের স্বার্থে স্বল্প সময়ের মধ্যে সমাধান করার জন্য দুই সালিশকারীকে অবশ্যই তিন মাসের বেশি সময়ের মধ্যে স্বামীদের পুনর্মিলনের চেষ্টায় তাদের ভূমিকা শেষ করতে হয় এবং এটা বিবাহবিচ্ছেদ মামলার বিশেষ প্রকৃতি।

আদালতের সামনে স্ত্রীর ঘোষণা দেবে যে সে তার বৈবাহিক জীবন চালিয়ে নিতে ইচ্ছুক নয়।

স্ত্রী স্বামীর সাথে তার জীবন বিদ্বেষের স্বীকারুক্তি দেবে। এই স্বীকারোক্তিটি বিচারিক আদালতের সামনে বিবাহ বিচ্ছেদ মামলা হিসাবে হবে। বিচারক তদন্তের শেষ মামলাটি বিচারের জন্য সংরক্ষিত করবে। স্ত্রীর এ ঘোষণা প্রমাণ করবে যে সে স্বামীর সাথে সংসার করতে অপারগ।

মামলাটি যখন পূর্ণ হয় তখন বিচারের জন্য সংরক্ষণ করা[সম্পাদনা]

যখন আদালত পূর্ববর্তী সমস্ত পদ্ধতি বা পর্যায় সমাপ্ত করে, তখন সে রায়কে স্থগিত করার সিদ্ধান্ত নেবে। খুলার শর্ত পূরণ হলে বিবাহ বিচ্ছেদের রায় এড়ানো যায় না। যদি আদালতের বিশ্বাস এবং তার দৃঢ় বিশ্বাসের মধ্যেও থাকে যে আসামী স্বামী ভুল করেনি এবং কোন ক্ষতি করেনি তার স্ত্রীর উপর। ডিভোর্স কেস একটি প্রক্রিয়াগত মামলা, যার মধ্যে আদালতের ভূমিকা তার উপাদানগুলি প্রমাণ করার মধ্যে সীমাবদ্ধ। তাই যখন স্ত্রীকে স্বামীর কাছে ফেরত দেওয়া হয় তখন মহর পরিশোধ করতে হয়। এটা ঐ সময় হয় যখন উক্ত বিচারকদ্বয় বা অন্যকোন উপায়ে মীমাংসা করা সম্ভব না হয়।

ডিভোর্স মামলায় চূড়ান্ত রায়[সম্পাদনা]

ডিভোর্স মামলায় জারি করা রায় চূড়ান্ত বলে বিবেচিত হয়, কোন আফিল চলে না। বিবাহ বিচ্ছেদ কার্যকর হয়।

খুলার কারণে স্ত্রীর জন্য ব্যয় থাকে না[সম্পাদনা]

বিবাহবিচ্ছেদের মামলা দায়ের করে স্ত্রীর বিবাহিত জীবন শেষ করার অধিকার কার্য়কর হওয়ার পর তার স্বামীর কাছ থেকে নেওয়া মহর ফেরত দিবে। ফলে স্বামীকে আর স্ত্রীকে কোন খরচ দেবেনা। মোটা অংকের অর্থও দাবি করতে পারবে না।

ইসলামে খুলা তালাকের বিধান[সম্পাদনা]

বিবাহ এবং তালাক একটি ধর্মীয় চুক্তি বা এটি একটি আইনি চুক্তি। উদাহরণস্বরূপ, তালাক একটি নিছক শব্দ দিয়ে সংঘটিত হয়, যা স্বামী লিখিতভাবে জানাবে। তবে খুলার বিধান ইসলামে অনেক গুরুত্তপূর্ণ।

খুলার শরয়ী বিধান[সম্পাদনা]

হাম্বলী চিন্তাধারায়: হাম্বলী মতে কোন স্ত্রী তার স্বামীর কাছ থেকে ডিভোর্স চাইলে সে তার কাছ থেকে বিবাহ বিচ্ছেদ গ্রহণ করার জন্য নির্ধারিত হয়।[৪] তাদের দলিল হলো সাবিত বিন কাইসের স্ত্রীর ঘটনা। কিন্তু পর্যাপ্ত কারণ না থাকলে হবে না। কেননা নবী স বলেছেন, যে নারী বিনা কারণে স্বামীর কাছে তালাক চায় তার জন্য বেহেশতের সুবাস হারাম।

ক্ষতিপূরণের ক্ষেত্রে, যদি স্বামী তার স্ত্রীর থেকে বিচ্ছিন্নতার কারণ হয় তবে স্বামীর পক্ষে এটি গ্রহণ করা অপছন্দনীয়।আর যদি বিষয়টি স্ত্রীর নিজের বিচ্ছিন্নতার কারণে হয়, তবে স্বামীর জন্য মহরের চেয়ে বেশি গ্রহণ করাকে ঘৃণা করেন। আর বিষয়টির অন্যদিক হলে বেশি গ্রহণ করা জায়েজ, কারণ সর্বশক্তিমানের উক্তি: “এতে কোন দোষ নেই সে তার বিনিময়ে যা মুক্তিপণ দিয়েছিল "আল-বাকারাহ: ২২

আর স্বামীর আচরণের কারণে যদি স্ত্রী খুলা তালাকে বাধ্য হন তাহলে অতিরিক্ত কিছু দিতে হবে না।[৫] তারা এটিকে সর্বশক্তিমানের উক্তি দ্বারা প্রমাণ হিসেবে উল্লেখ করেছে: ((এবং তাদেরকে আপনি যা দিয়েছেন তা থেকে কিছু নিতে নিষেধ করবেন না)) [আন-নিসা: 19]।

শাফিরা একেবারে খুলকে ঘৃণা করেন। তারা এর থেকে দুটি ব্যতিক্রম কথা বলেন:[৬]

  1. স্ত্রী ভয় পায় যে, আল্লাহ স্বামীর উপর আরোপিত অধিকার পালন করতে পারবে না। অথবা মহিলা তার স্বামীকে অস্বীকার করে, সে তার উপর তার অধিকার পূরণ করতে পারে না।
  2. একজন পুরুষ তার স্ত্রীকে তিন তালাক দেয়ার শফৎ করে তালাক না দিয়ে আবার একসাথে থাকতে চায় এবং তাকে খাওয়ায়, পান করায়। তখন এ স্ত্রী লোকটি খুলা তালাকা চাইতে পারে।

মালেকীরা খুলাকে জায়েজ করেছে (এটা সুন্নাহ বা অপছন্দ নয়)। এ শর্তে যে যদি স্ত্রীর সম্মতিতে থাকে, যদি এটি তার বাধ্যবাধকতায় হয়, তাহলে তালাক কার্যকর করা হয়।[৭]

খুলার সময়[সম্পাদনা]

তালাকের নির্দিষ্ট সময় আছে।একজন পুরুষ হায়েজের সময় তার স্ত্রীকে তালাক দেবে না, তবে খুলাতে কোন দোষ নেই।[৮]

খুলার শর্ত[সম্পাদনা]

খুলার শর্ত হচ্ছে-[৯]

  1. এটা স্বামীর সম্মতিতে হতে হবে।
  2. স্বামীর ক্ষমতা যার মাধ্যমে বিবাহ বিচ্ছেদ হতে পারে: সে একজন বিবেকবান প্রাপ্তবয়স্ক।
  3. বিবাহ চুক্তি অবশ্যই বৈধ হতে হবে। সহবাস হোক বা না হোক।
  4. স্ত্রী অর্থের সঠিকভাবে ব্যবহারকারিনি হবে। সেই সাথে একজন প্রাপ্তবয়স্কা, বুদ্ধিমতি, অক্ষম, দাসী, মূর্খ, বা অসুস্থ হবে না। উদাহরণস্বরূপ, বোকার খুলা হয় না।
  5. খুলার বিনিময় হালার অর্থে হবে যাতে এটি একটি মহর হতে পারে। উদাহরণস্বরূপ, ওয়াইন বা শুয়োরের মাংস দিয়ে খুলা হয় নযা।
  6. অবৈধ বস্তু দিয়ে খুলা হয় না।[৭]
  7. স্ত্রীর সম্মতিতে খুলা হবে। এতে স্বামীর সম্মতি থাকবে।

খুলার বিনিময়[সম্পাদনা]

হাম্বালীদের মতে, স্বামী তার স্ত্রীর থেকে বিচ্ছিন্ন হলে খুলার ক্ষতিপূরণ নেওয়া অপছন্দনীয়। যদিও এটি স্ত্রীকে বিচ্ছিন্ন করার কারণেদিতে হয়। তবে স্ত্রীর মহরের পরিবর্তে স্বামী গ্রহণ করতে পারে, তবে এর চেয়ে বেশিও নিতে পারে। কেননা আল্লাহ পাক বলেছেন, কোনো ক্ষতি নাই।﴾[১০]

খুলা এমনও হতে হবে যে এটি মহর হিসাবে প্রদান করা যেতে পারে। ফকীহগণ উপকার ও অধিকারের বিনিময়ে খুলার অনুমতি দিয়েছেন, যেমন কোনো রোগের চিকিৎসা বা নির্দিষ্ট সময়ের জন্য জমি চাষ করা বা তাদের সন্তানকে বুকের দুধ খাওয়ানো, বা এর পেছনে খরচ করা, অথবা ইদ্দতকালের ব্যয় রহিত করা।

শরীয়তে খুলার প্রভাব[সম্পাদনা]

  1. তালাকে বায়েন :এটি দ্বারা এক তালাক বায়েন হয়।
  2. খুলা দ্বারা তালাকের সংখ্যা হ্রাস পায় না:। কেননা আল্লাহ প্রথমে তালাকের কথা বলেছেন পরে খুলার কথা বলেছেন।
  3. বিচারকের রায় কার্যকর হওয়ার শর্ত নয়।
  4. যদি খুলের কিছু শর্ত নষ্ট হয়ে যায়, তাহলে খুল 'অবৈধ হয় না।
  5. স্ত্রীর জন্য খুলার অর্থ প্রদান করা বাধ্যতামূলক।
  6. বিবাহ বিচ্ছেদ হয়।
  7. খুলা হলেআবার স্ত্রীকে ফেরৎ নেয়া যায় না। তবে হিলা বিবাহের পর নেয়া যাবে।
  8. খুলা হওয়ার পর ঝগড়া করা যাবেনা।
  9. মহরের পরিমাণ নিয়ে বিতর্ক যাবে না।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. حاشية الروض المربع ، عبدالرحمن بن قاسم ، 6 / 459 .
  2. صححه الألباني في صحيح أبي داود ،(2226).
  3. منار السبيل في شرح الدليل
  4. كشاف القناع: 237/ 5.
  5. كشاف القناع: 238/ 5.
  6. مغني المحتاج: 262/ 3.
  7. القوانين الفقهية، ص. 232.
  8. الدر المختار ورد المحتار: 768/ 2.
  9. الفقه الإسلامي وأدلته، الزحيلي، 9/7022.
  10. البقرة: 228