এস্কেপ রুম (চলচ্চিত্র)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এস্কেপ রুম
এস্কেপ রুম (চলচ্চিত্র).png
প্রেক্ষাগৃহে মুক্তিপ্রাপ্ত পোস্টার
Escape Room
পরিচালকঅ্যাডাম রবিটেল
প্রযোজক
রচয়িতাব্রাগি এফ. স্কাট
চিত্রনাট্যকার
  • ব্রাগি এফ. স্কাট
  • মারিয়া মেলনিক
কাহিনীকারব্রাগি এফ. স্কাট
শ্রেষ্ঠাংশে
সুরকার
চিত্রগ্রাহকমার্ক স্পাইসার
সম্পাদকস্টিভ মারকভিক
প্রযোজনা
কোম্পানি
পরিবেশকসনি পিকচার্স রিলিজিং
মুক্তি
  • ৪ জানুয়ারি ২০১৯ (2019-01-04) (যুক্তরাষ্ট্র)
দৈর্ঘ্য১০০ মিনিট[১]
দেশযুক্তরাষ্ট্র
কানাডা
ভাষাইংরেজি
নির্মাণব্যয়$৯ মিলিয়ন [২]
আয়$১৫৪.৯ মিলিয়ন[২][৩]

এস্কেপ রুম হল ২০১৯ সালের একটি মানসিক ভুতুরে চলচিত্র [৪] যা ব্রাজি এফ. শ্যাট ও মারিয়া মেলনিক কর্তৃক রচিত এবং অ্যাডাম রবিটেল কর্তৃক পরিচালিত। চলচ্চিত্র তারকা, টেইলর রাসেল, লোগান মিলা, ডেবোরাহ আন উল, টাইলার ল্যাবিন, জয় এলিস এবং নিক দোদানি এবং এক দল অনুসারী লোক যাদেরকে এস্কেপ রুম নেভিগেট করতে পাঠানো হয় আর সেটাই প্রতীয়মান করতে চায়, সঠিক সময়ের মধ্যে পরাজিত করতে পারে বা নাই পারে তারা ভাগ্যের হাতে বন্দী।

চলচ্চিত্রটি তৈরি শুরু হয়েছিল ২০১৭ সালের আগস্ট মাসে, তারপর দ্য মেইজ শিরোনামে কাস্টিং প্রক্রিয়া শুরু হয়। চলচ্চিত্রটির চিত্রায়ন শুরু হয় ২০১৭ সালের জানুয়ারীর শেষের দিকে এবং চলে ২০১৮ এর জানুয়ারী পর্যন্ত।

এস্কেপ রুম সনি পিকচার্স এন্টারটেইনমেন্ট-এর মাধ্যমে ২০১৯ সালের ৪ জানুয়ারী যুক্তরাজ্যে মুক্তি পায় এবং ব্যবসা সফল চলচ্চিত্র হিসাবে বিশ্বব্যাপী ১৫৪ মিলিয়ন ডলারেরও বেশী উপার্জন করে। সমালোচকদের কাছ থেকে মিশ্র প্রতিক্রিয়া পায়, কেউ কেউ চলচ্চিত্রের আবয়ব ও চলচ্চিত্রশিল্পীদের উচ্চসিত প্রশংসা করেছেন এবং কেউ কেউ একই ধাচের চলচ্চিত্র বলে সমালোচনা করে যার কারণে চলচ্চিত্রটি তার প্রতিজ্ঞার পুরো কৃতিত্ব তুলতে ব্যর্থ হয় কিয়দংশে। ২০২০ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর এর আরো একটি ধারাবাহিক মুক্তির পরিকল্পনা করা হয়েছে।

কাহিনী[সম্পাদনা]

শিকাগো, ইলিনয়স, পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্র জোয়, স্টকবয় বেন, ডেট্রেডার জেসন, ওয়ার ভেটেরান আমান্দা, ট্রাকার মাইক এবং এস্কেপ রুমের অতি উৎসাহী ড্যানি দ্যা মাইনস এস্কেপ রুম ফ্যাসিলিটি খেলার আমন্ত্রণ পায় যাতে ১০,০০০ ডলার জেতার সুযোগ রয়েছে।

যখন সবাই আসে এবং ফ্যাসিলিটি'স অপেক্ষা কক্ষে জড়ো হয়, পরে সবাই বুঝতে পারে তারা কক্ষটিতে বন্দী হয়ে গেছে আর এভাবেই খেলার সূত্রপাত হয়। সবাই বেরিয়ে যাওয়ার জন্য সূত্র খুজতে থাকে, জোয় অজানাভাবেই গরম ফাঁদ সক্রিয় করে ফেলে; তাপ তীব্রতর হতে শুরু করে। জোয় পানীয় কোস্টারসকে ঠেলে কোনরকম বাতাস চলাচলের পথ সক্রিয় করে। প্রত্যেক খেলোয়াড় তাদের পথে চলছে, আমান্দা'র স্মৃতিতে এখন ভাসছে কিভাবে আইইডি'র আক্রমনের পর ছত্রভঙ্গ হয়েছিল। কক্ষটিকে আগুনের তীব্র উত্তাপে গ্রাস করার পূর্ব মূহুর্তে সবাই বেরিয়ে যেতে সক্ষম হয়।

তারা তাদেরকে একটি শৈত্য কেবিনে দেখতে পায়, যার দরজাটি বন্ধ ছিল সাতটি অক্ষরের সংমিশ্রণে এবং সুত্রে উল্লেখ "আপনি ইতিহাসের নিচে যাবেন"। ঘরের সূত্র বেন কে অতীতের স্মৃতিচারণে নিয়ে যায়, যাতে সে বন্ধুদের সাথে মাদকাসক্ত হয়ে গাড়ী চালায় এবং "রুডলফ দ্যা রেড নোজড রিইনডিন" গাইতে থাকে তার গাড়ীটি বিপর্যস্ত হওয়ার পূর্ব পর্যন্ত। সে রুডলফ পরামর্শ করে এবং তাতে দরজাটি খোলে যায় এবং তারা হিমায়িত হৃদের অনুরূপ একটি কক্ষে চলে যায়। তারা দেখতে পায় বেরিয়ে যাওয়ার রাস্তাটি তালাবদ্ধ এবং একটি মাত্র লাল কোট। মাছ ধরার কঞ্চি ও চুম্বর ব্যবহার করে একটি বরফের ব্লকে প্রবেশ করানো চাবিটি পুনরুদ্ধার করে দরজা খুলতে হবে। ড্যানি চেষ্টা করতে গিয়ে বরফের মধ্যে পড়ে ডুবে গেছে, বাকীরা তাদের শরীরের তাপমাত্রার সাহায্য বরফটিকে গলানোর সজোর চেষ্টা করছে চাবিটি মুক্ত করতে। জেসন-এর লালকোট পড়া কোন একজনের পাশে হিমায়িত হয়ে জমে যাওয়ার স্মৃতিচারন করতেই বরফের পাথরটি ফেটে যায়, চাবিটি নেওয়ার সাথে সাথে আবার বন্ধ হয়ে যায়। বেরিয়ে যাওয়ার রাস্তাটি তারা খুলে নেয়।

পাঁচজন খেলোয়াড় একটি উল্টো-নীচ বিলিয়ার্ড বারে প্রবেশ করে এবং "ডাউনটাউন" গানটি পুনরাবৃত্তিতে চলতে থাকে। মিউজিক্যাল চেয়ার খেলার মত করে যখনই গানটি বন্ধ হয় তখনি তলদেশের একটি অংশ দুরে চলে যায় এবং দীর্ঘ একটি লিফট শাফট প্রকাশ পায়। তারা একটি বন্ধ সুরক্ষা বাক্স পায় এবং ৮ বলের অনুপস্থিতি সনাক্ত করতে সক্ষম হয়, বুঝতে পারে এটিই তাদের কক্ষের চাবি। জোয়'র একটি বিমান দুর্ঘটনার স্মৃতিচারণ আছে এবং সেটি থেকে সে বুঝতে পারে ধাঁধার সূত্রটি এর উল্টোদিকে। আমান্দা সুরক্ষা বাক্স থেকে ৮ বলটি উদ্ধার করে, কিন্তু দুর্ঘটনাবশতঃ এটি পরে যায়। আমান্দা নিজেকে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিয়ে বলটি রক্ষা করে এবং জেসনের দিকে ছুড়ে দেয়।

অবশিষ্ট চার খেলোয়াড় একটি হাসপাতালের ওয়ার্ডে প্রবেশ করে যেখানে ছয়টি বিছানা এবং তারা বুঝতে পারে বেচে থাকার কথা। জোয় একটি বিমান দুর্ঘটনায় বেঁচে যান; জেসন তার কক্ষমেটের সাথে একটি নৌকা দুর্ঘটনায়; বেন, একটি গাড়ী ক্র্যাশে; মাইক একটি খনির গুহা থেকে, ড্যানি বিষাক্ত কার্বন-মনোঅক্সাইডের বিষাক্ততা; এবং আমান্দা একটি আইইডি বিস্ফোরণ। তারা বুঝতে পারে, সমস্ত খেলাটাই সাজানো হয়েছে তাদের জীবনে ঘটে যাওয়া সত্য ঘটনার উপর। পরে তারা অনুমান করল ইকেজি মেশিনই তাদের পরবর্তী কক্ষের দরজা খুলে দেবে। জেসন অসাবধানতাবশত ডিফিব্রিলেটর দিয়ে দরজাটি খুলতে গিয়ে মাইককে খুন করে ফেলে। পুরো কক্ষটি গ্যাসে ভরা ছিল, জেসন নিজেকে ইকেজি মেশিন পর্যন্ত নিজেকে নিয়ে যায় যাথে গ্যাসের কারণে তার হৃদস্পন্দন কম হয় এবং একটি সরুপথ খুলে দেয়। জেসন এবং বেন বেঁচে যায়, কিন্তু জোয় চালিয়ে যেতে অসম্মতি জানা এবং ধ্বসে পড়ে।

অপটিক্যাল বিভ্রম এবং স্ট্রব লাইটে আচ্ছাদিত একটি কক্ষে প্রবেশ করে তারা। বেন জেসনকে তার অপর সাথীদের প্রতি স্বার্থপরতার ধিক্কার দেয়, জেসনও বুঝতে পারে সে তার কক্ষমেটকে নৌকা দুর্ঘটনার সময় বেঁচে থাকার লড়াইয়ে খুন করেছিল শুধু মাত্র তার কোটটির জন্য। তারা মেঝেতে একটি হ্যাচ খুজে পায় এবং খোলে, ইতিমধ্যে ড্রাগের কারণে হ্যালুসিনোজেনে আক্রান্ত হয় পড়ে এবং স্ট্রাগলিং করতে থাকে কক্ষ ঘুর্ণন প্রভাবের সাথে। বেন উহার এন্ট্রিডোট খুঁজে পান, এবং এর জন্য সংগ্রাম করতে গিয়ে তার পা ভেঙ্গে যায় ও জেসনকে খুন করে ফেলে। বেন নিজেই নিজেকে ইনজেকশন দেয় এবং হ্যাচের মধ্য দিয়ে একটি বিশাল গবেষণা কক্ষে গিয়ে পৌছে। দেয়ালগুলি বন্ধ হতে শুরু করে, চূর্ণবিচুর্ণ হওয়ার ঠিক পূর্ব মুহুর্তে তিনি ধাঁধার সমাধান করে ফেলেন।

হাসপাতালের ঘরে ফিরে আসেন, সশস্ত্র মাইনস কর্মচারী হাসপাতালের ঘরে বিপজ্জনক লোকার চাকা নিয়ে প্রবেশ করে সমস্ত প্রমাণ ধ্বংস করতে। জোয় বেঁচে গেছে, তাদেরকে অক্ষম করে দিয়ে একটি বন্দুক হাতিয়ে নেয় এবং একটি রক্ষণাবেক্ষন এলাকায় পালিয়ে যায়।

এরপর বেন গেম মাস্টারের সাথে দেখা করল, যিনি পরিকল্পিত ধাঁধা তৈরির মাধ্যমে গেমটি নিয়ন্ত্রণ করেছেন। তিনি প্রতিযোগিতার প্রকৃত প্রকৃতি ব্যাখ্যা করেন- খেলোয়াড়েরা আসে: কলেজ অ্যাথলেটস, সভ্য, একাকী বেঁচে থাকা, সেলিব্রিটি ইত্যাদি- যারা বেঁচে থাকার জন্য প্রতারণা করে, তাদেরকে একত্রিত করে সম্মিলিত অভিজ্ঞতায় যে বেচে যায় তার উপর দর্শকরা জোয়া লাগায়। অতঃপর গেম মাস্টার বেনকে হত্যার চেষ্টা করে, কিন্তু তখনি জোয় সেখানে চলে আসে এবং দুজনে মিলে গেম মাস্টারকে হত্যা করে এবং পালিয়ে যায়। যখন সুস্থ হয়ে আসেন তখন জোয় সহ পুলিশকে বুঝাতে চেষ্টা করে, কিন্তু ততক্ষণে সকল প্রমানাদি অদৃশ্য হয়ে যায়।

ছয়মাস পরে, জোয়, বেনকে দেখায় যে, অন্যান্য খেলোয়াড়দের মৃত্যু প্রতিদিন বিভিন্ন দুর্ঘটনার আয়োজন করে দেখানো হচ্ছে। বেনও রাজী হয়ে যায় জোয় এর সাথে মাইনস কোম্পানীকে থামাতে একই ফ্লাইটে নিউইয়র্ক যাবার জন্য। কিন্তু ততক্ষণে, মাইনস ও রহস্যময় ধাঁধা তৈরীকারীরা আরেকটি মারাত্মক মরণাত্মক নতুন খেলা তৈরীর জন্য তাদের ফ্লাইট প্রস্তুত করে রেখেছে।

চরিত্রায়ন[সম্পাদনা]

  • জোয় ডেভিস চরিত্রে টেইলর রাসেল
  • বেন মিলার চরিত্রে লোগান মিলার
  • আমান্দা হার্পার চরিত্রে ডেবোরাহ আন উল
  • মাইক নোলান চরিত্রে টাইলার লাবিন
  • জেসন ওয়াকার চরিত্রে জয় এলিস
  • ড্যানি খান চরিত্রে নিক দোদানি
  • ডিটেক্টিভ লি চরিত্রে কেনেথ ফক
  • গেইম মাস্টার চরিত্রে ইয়রিক ভ্যান ওয়াজেনিনজেন

নির্মাণ[সম্পাদনা]

৯ আগস্ট, ২০১৭ তারিখে ঘোষণা করা হয়েছিল যে, চলচ্চিত্রটি 'দ্যা মেজ' নামে এর কাস্টিং শুরু করেছে।[৫] ২০১৭ সালের শেষের দিকে দক্ষিণ আফ্রিকায় এর চিত্রায়ন শুরু করা হয়েছিল।[৬] ২০১৮ সালের জানুয়ারিতে পরিচালক রবিটেল সাইফাই কে বলেন চলচ্চিত্রটি নির্মাণকাজ গুটিয়ে আনা হয়েছে এবং তখন চলচ্চিত্রটি ২০১৮ এর সেপ্টেম্বরে মুক্তি পাবার কথা ছিল।[৭]

ব্রায়ান টেইলর এবং জন কেরি ছবির জন্য স্কোর রচনা করেন। সনি মিউজিক এন্টারটেইনমেন্ট সাউন্ডট্র্যাকটি প্রকাশ করে এবং পূর্ণ স্কোর অন্তর্ভূক্তিসহ ম্যাডসনিক দ্বারা নয়েজ মুক্ত একটি এস্কেপ রুম থিম রিমিক্স প্রকাশ করে।

মুক্তি[সম্পাদনা]

২০১৮ সালের মে মাসে ঘোষণা করা হয় যে চলচ্চিত্রটি এস্কেপ রুম নামে পুনঃনামকরণ করা হয়েছে এবং এটি ৩০ নভেম্বর ২০১৮-এ মুক্তি হবে।[৮] একমাস পরে, চলচ্চিত্রটি ১ ফেব্রুয়ারী ২০১৯ এ মুক্তির ঘোষনা দেয়[৯] এবং পরে ৪ জানুয়ারী ২০১৯ এর জন্য পুনঃনির্ধারণ করা হয়েছিল।[১০]

পোল্যান্ডে, ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল পিকচারর্স ঘোষণা করেছে যে, কসযালিন এ অবরুদ্ধ কক্ষের আগুনে সম্প্রতি মারা যাওয়া পাঁচজন কিশোরীর প্রতি সম্মান প্রদর্শনের জন্য চলচ্চিত্রটি মুক্তি পেতে কিছুটা বিলম্ব হবে।[১১]

প্রতিক্রিয়া[সম্পাদনা]

বক্স অফিস[সম্পাদনা]

৯ মিলিয়ন মার্কিন ডলার বাজেটের বিপরীতে, ১৪ এপ্রিল ২০১৯ মোতাবেক, এস্কেপ রুম, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং কানাডায় ৫৭ মিলিয়ন এবং অন্যান্য অঞ্চলে ৯৭.৪ মিলিয়নসহ মোট ১৫৪.৩ মিলিয়ন মার্কিন ডলার আয় করে।[১২][১৩]

যুক্তরাষ্ট্রে এবং কানাডায়, প্রথম সপ্তাহান্তে ২৭১৭টি থিয়েটার থেকে চলচ্চিত্রটির আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১০-১৪ মিলিয়ন মার্কিন ডলার।[৪] বৃহস্পতিবারের রাতের প্রাকদর্শন থেকে আসা ২.৩ মিলিয়ন মার্কিন ডলার সহ, এটি প্রথম দিনেই তুলে নেয় ৭.৭ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। সপ্তাহান্তে ১৮.২ মিলিয়ন মার্কিন ডলার নিয়ে দ্বিতীয় সপ্তাহ শুরু করে অ্যাকুয়াম্যানকে পিছনে ফেলে দেয়।[১৪] দ্বিতীয় সপ্তাহে ৫১% নিচে নেমে যায় এবং ৮.৯ মিলিয়ন মার্কিন ডলার নিয়ে ৫ম স্থানে থেকে দ্বিতীয় সপ্তাহ শেষ করে।[১৫]

সমালোচনামূলক প্রতিক্রিয়া[সম্পাদনা]

পর্যালোচনাকারী গোষ্ঠী রটেন টমাটোস-এ চলচ্চিত্রটি ১৩৯টি পর্যালোচনার উপর ভিত্তি করে ৪৮% অনুমোদন রেটিং পায় এবং ৫.১ / ১০ এর গড় রেটিং অনুমোদন করে। ওয়েবসাইটটির সমালোচনামূলক পর্যালোচনা এরকম "এস্কেপ রুম তার ক্ষেত্রের বেশিরভাগ সম্ভাব্য সম্ভাবনা উন্মুক্ত করতে ব্যর্থ হয়েছে, তবে যা করেছে তাই একজন দ্বিধাগ্রস্থ দর্শককে তীব্র রোমাঞ্চকর রোমাঞ্চের জগতে নিয়ে যেতে যথেষ্ট।[১৬] মেটাক্রাইটিকে চলচ্চিত্রটির ২৪টি পর্যালোচনার উপর ভিত্তি করে ১০০ তে ৪৮ স্কোর অর্জন করে, যা মিশ্র বা গড় পর্যালোচনা নির্দেশ করে।[১৭] সিনেমাস্কোর দ্বারা জরিপ করা দর্শকরা এটিকে এ+ থেকে এফ স্কেলে বি গড় গ্রেড দিয়েছে।[১৪]

পরিণাম ক্রম[সম্পাদনা]

২৫শে ফেব্রুয়ারী, ২০১৯-এ চলচ্চিত্রটির একটি ক্রম ঘোষণা করা হয়, যাতে পরিচালক অ্যাডাম রবিটেল, চিত্রনাট্যকার ব্রাগী এফ. স্কট এবং প্রযোজক নেইল এইচ. মরিটজ একসাথে ফিরে আসবে। এটি ১৭ এপ্রিল ২০২০ সালে মুক্তির জন্য নির্ধারণ করা হয়েছে।[১৮]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Escape Room" (ইংরেজি ভাষায়)। AMC Theatres। সংগ্রহের তারিখ ডিসেম্বর ৩০, ২০১৮ 
  2. "Escape Room (2019)"বক্স অফিস মোজো (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ এপ্রিল ২১, ২০১৯ 
  3. "Escape Room (2019)"The Numbers (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ এপ্রিল ২৩, ২০১৯ 
  4. Rubin, Rebecca (জানুয়ারি ৩, ২০১৯)। "'Box Office: 'Escape Room' No Match for 'Aquaman'"Variety (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ জানুয়ারি ৩, ২০১৯ 
  5. Jr, Mike Fleming (২০১৭-০৮-০৯)। "Logan Miller, Deborah Ann Woll, Taylor Russell Enter 'The Maze'"Deadline (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০১-১৩ 
  6. "Deborah Ann Woll, Logan Miller to Star in Sony's 'The Maze'"The Hollywood Reporter (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০১-১৩ 
  7. Wax, Alyse (২০১৮-০১-০৫)। "How a new director helped Insidious: The Last Key change up the franchise"Syfy (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০১-১৩ 
  8. Pedersen, Erik। "'Peter Rabbit 2' Gets Sony Greenlight; 2020 Release Date Set"ডেডলাইন হলিউড (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ মে ৮, ২০১৮ 
  9. Sony Dates Jason Reitman’s ‘The Front Runner’, Untitled James Gunn Horror Pic & ‘Escape Room’
  10. "Sony Moves 'Escape Room' Up By A Month & 'Miss Bala' By A Week"ডেডলাইন হলিউড (ইংরেজি ভাষায়)। অক্টোবর ১২, ২০১৮। 
  11. Scislowska, Monika (২০১৯-০১-০৭)। "Victims of poland escape room fire to be buried together"The Associated Press (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০১-০৯ 
  12. "Escape Room (2019) - Box Office Mojo"www.boxofficemojo.com (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৪-২৩ 
  13. "Escape Room (2019) - Financial Information"The Numbers (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৪-২৩ 
  14. D'Alessandro, Anthony (জানুয়ারি ৬, ২০১৮)। "'Aquaman' Still The Big Man At The B.O. With $30M+; 'Escape Room' Packs In $17M+ – Early Sunday Update"ডেডলাইন হলিউড (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ জানুয়ারি ৬, ২০১৯ 
  15. D'Alessandro, Anthony (জানুয়ারি ১৩, ২০১৮)। "'Upside' Set To Be STX's First No. 1 Opener With $19M+; 'Aquaman' Flips Over $1B WW; Keanu Reeves Hits B.O. Low With 'Replicas'"ডেডলাইন হলিউড (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ জানুয়ারি ১৬, ২০১৯ 
  16. "Escape Room (2019)" (ইংরেজি ভাষায়)। রটেন টম্যাটোস। সংগ্রহের তারিখ এপ্রিল ২৩, ২০১৯ 
  17. "Escape Room Reviews" (ইংরেজি ভাষায়)। মেটাক্রিটিক। সংগ্রহের তারিখ জানুয়ারি ২৯, ২০১৮ 
  18. Anthony D'Alessandro (ফেব্রুয়ারি ২৫, ২০১৯)। "'Escape Room 2' Construction Underway At Sony For 2020 Bow – Update"ডেডলাইন হলিউড (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রুয়ারি ২৫, ২০১৯ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]