একীভূতকরণের দলিল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
প্রাচ্যের ব্রিটিশ সাম্রাজ্য, ১৯১৯, রাজপুত্রগুলিকে রঙিন সবুজ দেখায়। ব্রিটিশদের দ্বারা নিয়ন্ত্রিত অঞ্চলগুলি সরাসরি রঙিন লাল।

ইন্সট্রুমেন্ট অফ অ্যাক্সেশন একটি আইনি দলিল যা প্রথম ভারত সরকার আইন ১৯৩৫ দ্বারা প্রবর্তিত হয়েছিল। ১৯৪৭ সালে ব্রিটিশদের সার্বভৌমত্বের অধীনে থাকা প্রতিটি দেশীয় শাসককে ভারত বা পাকিস্তানের নতুন রাজ্যগুলির একটিতে যোগ দেবার জন্য ব্যবহৃত হয়েছিল যা ব্রিটিশ দ্বারা ভারত বিভাজন নামে পরিচিত।

দেশীয় রাজা দ্বারা এই একীভূতকরণের দলিল টি ঠিকঠাক ভাবে ভারত বা পাকিস্তানে অংশগ্রহণ বিষয়ে কার্যকরী হয়েছিল । মূলত তিনটি বিষয় ছিলঃ- প্রতিরক্ষা, বিদেশ মন্ত্রক, যোগাযোগ ব্যবস্থা ।

পটভূমি[সম্পাদনা]

ব্রিটিশ শাসনামলে ভারতবর্ষে ৫৬৫ টি দেশীয় রাজ্যের অস্তিত্ব ছিল। এগুলি যথাযথভাবে ব্রিটিশ ভারতের অংশ ছিল না, ব্রিটিশ মুকুটের সম্পত্তিতে পরিণত হয় নি, তারা অধীনতামূলক মিত্রতা নীতিতে

চুক্তিবদ্ধ ছিল।

ভারত সরকার আইন ১৯৩৫ সালে এই একীভূতকরণের ধারনাটি প্রবর্তন করেন , যেখানে কোনও একজন দেশীয় রাজ্য এর শাসক তার রাজ্যকে 'ফেডারেশন অফ ইন্ডিয়া'তে প্রবেশ করাতে পারেন। ফেডারেশন ধারণাটি প্রথমে ভারতীয় রাজকুমারদের দ্বারা বিরোধিতা করা হয়েছিল, তবে এটি বিশ্বাস করা হয় যে তারা দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের শুরুতে এর স্বীকৃতি লাভ করেছিল।

১৯৪৭ সালে ব্রিটিশরা ভারত ত্যাগের জন্য তাদের পরিকল্পনা চূড়ান্ত করে এবং তাদের ভবিষ্যতের প্রশ্নটি দোদুল্যমান হয়ে দাঁড়ায়।তারা যেহেতু ব্রিটিশ চিল না তাই তাদের ভারত ও পাকিস্তান এই দুটি রাষ্ট্রে বিভক্ত করতে পারেনি । ভারতীয় স্বাধীনতা আইন ১৯৪৭ এর বিধান অনুসারে দেশীয় রাজ্যগুলির উপর ব্রিটিশের কর্তৃত্ব ১৫ ই আগস্ট ১৯৪৭ এর পর থেকেই বাতিল হয়ে যাবে । এর ফল্র দেশীয় রাজারা সম্পূর্ণ ভাবে স্বাধীন হয়ে যাবে যদিও তাদের প্রতিরক্ষা,অর্থ এবং অন্যান্য পরিকাঠামোগুলির জন্য পুরোপুরি ভারত সরকারের উপর নির্ভরশীল ছিল ।স্বাধীনতার পাশাপাশি তাদের এটাও সিদ্ধান্ত নেবার প্রয়োজন হয়ে পড়ে যে তারা ভারত না পাকিস্তানের সাথে যুক্ত হবে না স্বাধীন থাকবে ।

নতুন ডোমিনিয়নে রাজ্যগুলির সংযোজন[সম্পাদনা]

একীভূতকরনের দলিল টি হল এক প্রকার আইনি নথি যাতে এই একীভূতকরনটি ঠিক কোন বিষয়ে হবে সেই বিষয়ে । এটি ভারত সরকার দ্বারা কার্যকর হয়েছিল যার একদিকে ছিল ভারত সরকার আর অন্য দিকে চিল দেশীয় রাজ্য গুলি ।

এদের মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ টি ছিল ২৬ শে অক্টোবর ,১৯৪৭ সালে মহারাজা হরি সিং এর সাথে কাশ্মীর সংযুক্তকরন বিষয়ে ।এই চুক্তি ভারতকে জম্মু ও কাশ্মীরের নিয়ন্ত্রণ প্রদান করেছিল । এটি ২৭ শে অক্টোবর ,১৯৪৭ সালে গৃহীত হয়েছিল বার্মার লর্ড মাউন্টব্যাটেন,ভারতের গভর্নর জেনারেল দ্বারা । এর মূল অংশ টি নিম্নরূপ(তফসিল বাদে উল্লিখিত তৃতীয় পয়েন্টে);- [১]   ভারতীয় স্বাধীনতা আইন ১৯৪৭-এর মতে, ১৯৪৭ সালের আগস্টের পনেরো তারিখ থেকে ভারত নামে পরিচিত একটি স্বতন্ত্র আধিপত্য রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করা হবে এবং ভারত সরকার আইন, ১৯৩৫ অনুসারে এধরনের বাদ, সংযোজন, অভিযোজন এবং গভর্নর-জেনারেল হিসাবে পরিবর্তনগুলি আদেশ দ্বারা নির্দিষ্ট করে, ভারতের আধিপত্যের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হতে পারে।

এবং যেখানে গভর্নর-জেনারেল কর্তৃক ভারত সরকার আইন, ১৯৩৫ অনুসারে রূপান্তরিত হয়েছিল, তাতে বলা হয়েছে যে কোনও ভারতীয় দেশীয় রাজ্য এর শাসক দ্বারা এই একীভূতকরনের দলিল কার্যকর করতে পারবে ।

সুতরাং ,এখন, আমি শ্রীমান ইন্দ্র মহান্দার রাজরাজেশ্বর মহারাজধীরাজ শ্রী হরি সিংজি, জম্মু ও কাশ্মীরের জম্মু ও কাশ্মীর রাজ্যের শাসক নরেশ তথা তিব্বতাদি দেশাদিপতি, আমার সার্বভৌমত্বের অনুশীলনে এবং আমার বক্তব্য অনুযায়ী আমার রাজ্য এইভাবে আমার এই রাজ্যপালনের ব্যবস্থা গ্রহণ করছি এবং

  1. আমি এই মর্মে ঘোষণা করছি যে,আমি ডোমিনিয়ন অফ ইন্ডিয়ার সাথে সম্মত হইলাম যে, গভর্নর-জেনারেল, ডোমিনিয়ন আইনসভা, ফেডারেল কোর্ট এবং ডোমিনিয়ানের উদ্দেশ্যে প্রতিষ্ঠিত অন্য যে কোনও কর্তৃপক্ষ, আমার এই চুক্তির দ্বারা এই অধিগ্রহণ গ্রহণ করবে । তবে সর্বদা এর শর্তাদি সাপেক্ষে এবং শুধুমাত্র ডোমিনিয়নের উদ্দেশ্যে, জম্মু ও কাশ্মীর রাজ্যের সাথে সম্পর্কিত (যার পরে "এই রাজ্য" হিসাবে উল্লেখ করা হয়) এর দ্বারা বা এর অধীনে এগুলি ন্যস্ত করা যেতে পারে যা ১৯৪৭ ​​সালের ১৫ ই আগস্ট, ভারত ডোমিনিয়ন আইন অনুসারে ভারত সরকার আইন, ১৯৩৫, (যে আইনটি পরবর্তীকালে "আইন" হিসাবে অভিহিত হয়)।
  2. আমি এইভাবে এটি নিশ্চিতকরন করছি যে, এই রাজ্যটির মধ্যে আইনটির বিধানগুলিতে যথাযথ প্রভাব থাকবে ।যেগুলি এই একূভূতকরনের দলিলে প্রযোজ্য ।
  3. আমি তফসিলে উল্লিখিত বিষয়গুলি ডোমিনিয়ন আইনসভা এই রাজ্যের জন্য আইন তৈরি করতে পারে সেই বিষয়ে বিবেচনা করছি ।
  4. আমি এখানে এই ঘোষণা দিয়েছি যে ,গভর্নর জেনারেল এবং এই রাজ্যের শাসকের মধ্যে যদি কোনও চুক্তি হয়, যার অধীনে ডোমিনিয়ন আইনসভার কোনও আইনের এই রাজ্যে প্রশাসনের সাথে সম্পর্কিত যে কোনও কার্য সম্পাদন করা হবে এই নিশ্চয়তার ভিত্তিতে আমি ভারতের আধিপত্যকে স্বীকার করেছি। এই রাষ্ট্রের শাসক দ্বারা প্রয়োগ করা, তারপরে এই জাতীয় কোনও চুক্তি এই উপকরণটির অংশ গঠনের জন্য বিবেচিত হবে এবং এটি নির্ধারিত হবে এবং তদনুসারে কার্যকর হবে।
  5. আমার এই চুক্তির শর্তাবলী আইন বা ভারতীয় স্বাধীনতা আইন, ১৯৪৭ এর কোন সংশোধনীর দ্বারা পরিবর্তিত হবে না যতক্ষণ না এই চুক্তির সংশোধনী আমার দ্বারা গৃহীত হয়।
  6. এই শর্তের দ্বারা ডমিনিয়ন আইনসভাকে এই রাজ্যের জন্য কোনও উদ্দেশ্যে জমি অধিগ্রহণের জন্য বাধ্যতামূলক অধিগ্রহণের অনুমোদন দেওয়ার জন্য কোনও আইন করার ক্ষমতা দেবে না, তবে আমি এই ব্যবস্থা গ্রহণ করব যা এই রাজ্যে প্রযোজ্য ডোমিনিয়ন আইনের উদ্দেশ্যে করা উচিত। বা ডোমিনিয়ন যদি এটি প্রয়োজনীয় মনে করে যে কোনও জমি অধিগ্রহণ করুন, আমি তাদের অনুরোধে তাদের ব্যয়ে জমি অধিগ্রহণ করব বা যদি জমিটি আমার মালিকানাধীন হয় তবে এই শর্তে তাদের কাছে এই চুক্তি হস্তান্তরিত হতে পারে, বা চুক্তির ডিফল্টে একজন সালিশকারী কর্তৃক নিযুক্ত হওয়ার জন্য নির্ধারিত থাকবে ভারতের প্রধান বিচারপতি ।
  7. এই চুক্তির কোনও কিছুইই আমাকে ভবিষ্যতের জন্য ভারতীয় সংবিধানের স্বীকৃতি দেওয়ার জন্য বা এই জাতীয় ভবিষ্যতের কোন সংবিধানের অধীনে ভারত সরকারের সাথে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য আমার বিবেচনার প্রতিশ্রুতিবদ্ধ বলে মনে করা হবে না।
  8. এই চুক্তির কোনও কিছুইই এই রাজ্যে বা তার রাজ্যের উপরে আমার সার্বভৌমত্বের ধারাবাহিকতাকে প্রভাবিত করে না, বা এই চুক্তির দ্বারা বা এর অধীনে প্রদত্ত যে কোনও ক্ষমতা, কর্তৃত্ব এবং অধিকারের অনুশীলন এখন এই রাষ্ট্রের শাসক হিসাবে আমার দ্বারা উপভোগ করা হয়েছে বা কোনওটির বৈধতা এই রাজ্যে বর্তমানে আইন প্রয়োগ।
  9. আমি এখানে এই ঘোষণা দিয়েছি যে এই রাজ্যের পক্ষে আমি এই উপকরণটি কার্যকর করি এবং আমার বা রাজ্যের শাসকের কাছে এই উপকরণের কোনও রেফারেন্স আমার উত্তরাধিকারী ও উত্তরসূরীদের অন্তর্ভুক্ত হিসাবে গণ্য করা উচিত ।

আমার হাতে আজকের এই ২৬শে অক্টোবর ১৯৪৭ সালের এই দিনটিতে

হরি সিং

জম্মু ও কাশ্মীরের মহারাজাধিরাজ

——————————————————————————————————————————

আমি এই একীভূতকরনের দলিল টিতে স্বাক্ষর করলাম ,আজকের দিন ২৭ শে অক্টোবর ১৯৪৭

(বার্মার মাউন্টব্যাটেন,ভারতের গভর্নর জেনারেল )

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Instrument of Accession executed by Maharajah Hari Singh on October 26, 1947"। ২৬ অক্টোবর ১৯৪৭। সংগ্রহের তারিখ ২৬ আগস্ট ২০১২ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]