একবর্ষজীবী উদ্ভিদ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
সবুজ মটরশুঁটি, একটি উৎকৃষ্ট একবর্ষজীবী উদ্ভিজ্জের উদাহরন

একবর্ষজীবী উদ্ভিদ হল সেই শ্রেণীভুক্ত উদ্ভিদসমূহ যাদের অঙ্কুরোদগম থেকে শুরু করে দৈহিক বৃদ্ধি, ফল বা নতুন বীজ উৎপাদন ইত্যাদি সম্পূর্ণ জীবনচক্রের বিভিন্ন ধাপ এক বছরের মধ্যে সমাপন হয়। ভৌগোলিক স্থানভেদে গাছপালা বৃদ্ধির মরসুম এবং সময়কালয়ে প্রভেদ লক্ষ্য করা যায় এবং এই সময়কাল প্রথাগত চার ঋতুর বিভাজনের সঙ্গে সম্পর্কিত হয়না। ঋতুভেদের সাথে সামঞ্জস্য রেখে একবর্ষজীবী উদ্ভিদকে প্রধানত গ্রীষ্মকালীন উদ্ভিদ এবং শীতকালীন উদ্ভিদ এই দুইভাগে বিভক্ত করা হয়। গ্রীষ্মকালীন উদ্ভিদের অঙ্কুরোদগম সাধারনতঃ বসন্তের সময় বা গ্রীষ্মের প্রথম দিকে হয় এবং সেই একই বছরকালের শরত ঋতুর সময় তারা পূর্ণতা পায়। শীতকালীন উদ্ভিদের অঙ্কুরোদগম শরত ঋতুর সময় হয় এবং ক্যালেন্ডার অনুযায়ী পরের বছরের বসন্তকালে বা গ্রীষ্মের প্রথম দিকে তারা পূর্ণতা পায়।[১]

কিছু কিছু প্রজাতির অঙ্কুরোদগম থেকে বীজ উৎপাদন অবধি সময়কাল বা বীজের জীবন চক্র এক মাসের মধ্যে সমাপ্ত হয়ে যায় আবার কিছু কিছু প্রজাতির ক্ষেত্রে তা বেশ কয়েক মা অবধি চলতে থাকে। প্রতিপ্রভ আলোর উপস্থিতিতে তৈলবীজ রাপার বীজের জীবন চক্র পাঁচ সপ্তাহ অবধি চলতে থাকে। শ্রেণীকক্ষে শিক্ষাদানের সময় প্রায়শই এই উদাহারনটি পরীক্ষাগত ভাবে প্রদর্শন করা হয়। মরুভূমির একবর্ষজীবী উদ্ভিদ সাধারনত থেরোফাইট [২] প্রকৃতির হয়। কারণ তাদের বীজ থেকে বীজ জীবন চক্রটি মাত্র এক সপ্তাহ চলে এবং এই গাছের বীজগুলিকে বছরের বেশীরভাগ সময় শুকনো মরসুমে কাটাতে হয়।

চাষাবাদ[সম্পাদনা]

কৃষিকার্যে ব্যবহৃত বেশীরভাগ প্রচলিত খাদ্যশস্য সাধারণত একবর্ষজীবী উদ্ভিদ -এর গোত্রের অন্তর্ভুক্ত। স্থানীয় জলবায়ুতে চাষের উপযুক্ত না হলেও কিছু বিশেষ দ্বিবার্ষিক ও বহুবর্ষজীবী উদ্ভিদকে একবর্ষজীবী উদ্ভিদ হিসাবে কৃত্রিম উদ্যানে ও বাগানে রোপণ করে প্রতিপালন করা হয়। গাজর, সেলারি এবং পার্সলে সাধারণত দ্বিবর্ষজীবী উদ্ভিদ কিন্তু প্রধানত এদের ভোজ্য মূল, বৃন্ত এবং পাতার জন্য স্থানীয় অঞ্চলে এদের একবর্ষজীবী উদ্ভিদ হিসাবে পালন করা হয়। টমেটো, মিষ্টি আলু এবং বেল মরিচ সাধারণত কোমল বহুবর্ষজীবী উদ্ভিদ যা একবর্ষজীবী উদ্ভিদ হিসাবে প্রতিপালিত হয়। ইম্প্যাটিয়েনস, মীরাবিলিস, ওয়াক্স বেগোনিয়া, স্ন্যাপড্রাগন, পেরারগনিয়াম, কোলিয়াস এবং পেটুনিয়া -এই উদ্ভিদগুলি বহুবর্ষজীবী উদ্ভিদ যা একবর্ষজীবী উদ্ভিদ হিসাবে প্রতিপালন করা হয়। সত্যিকারের একবর্ষজীবী উদ্ভিদ -এর উদাহরণের মধ্যে রয়েছে ভুট্টা, গম, চাল, লেটুস, মটর, তরমুজ, শিম, জিনিয়া এবং গাঁদা।

গ্রীষ্মকালীন উদ্ভিদ[সম্পাদনা]

গ্রীষ্মকালীন উদ্ভিদগুলিতে সাধারণত বছরের উষ্ণ মরসুমের মধ্যে অঙ্কুরোদ্গম, ফুল ফোটা, বীজ উত্পাদন এবং মৃত্যু হয়। লন ওয়েড ক্র্যাবগ্রাস একটি গ্রীষ্মকালীন উদ্ভিদের উদাহরন।

শীতকালীন উদ্ভিদ[সম্পাদনা]

শীতকালীন উদ্ভিদগুলিতে সাধারণত শরতকালে বা শীতের সময় অঙ্কুরোদ্গম হয়, শীতের সময় তাদের বৃদ্ধি হয় এবং শীতের শেষের দিকে বা বসন্তকালে এতে ফুল ফোটে।

শীতকালীন উদ্ভিদের অঙ্কুরোদ্গম হয় শীতের সময় যখন অন্যান্য একবর্ষজীবী উদ্ভিদের বীজ অঙ্কুরোদ্গমের জন্য তাদের অনুকূল পরিবেশ অর্থাৎ উষ্ণ ঋতুর অপেক্ষা করে। সাধারণত ফুল ফোটা এবং তদুপরি বীজ উতপাদনের পর শীতকালীন উদ্ভিদের মৃত্যু হয়। শরৎকালে বা শীতের সময় যখন মাটির তাপমাত্রা কম থাকে তখন এই শীতকালীন উদ্ভিদের অঙ্কুরোদ্গম হয়।

পূর্ণ বৃদ্ধির পর শীতকালীন উদ্ভিদের আকার ও সর্ব‌োচ্চ উচ্চতা অপেক্ষাকৃত কম ও মাটির কাছাকাছি হয়। শীতের রাতে তাপমাত্রা অত্যন্ত হ্রাস পায় এবং কিছু কিছু অঞ্চলে বরফপাত হয়, -এই শীতল আবহাওয়া ও বরফপাতের হাত থেকে রক্ষা পেতে মাটির আশ্রয় নেয় এবং সেই কারনে এদের উচ্চতা মাটির কাছাকাছি থাকে। শীতকালে যখন আবহাওয়া সামান্য উষ্ণ থাকে এবং মাটিতে জমা বরফ গলে যায় সেই সময়কালকে সাধারণত তারা বৃদ্ধির জন্য ব্যবহার করে। কিছু সাধারণ শীতকালীন একবর্ষজীবী উদ্ভিদের উদাহরন হল হেনবিট, ডেডনেটল, চিকুইড এবং শীতের ক্রেস।

শীতকালীন একবর্ষজীবী উদ্ভিদ পরিবেশগতভাবে গুরুত্বপূর্ণ, কারন শীত এবং বসন্তের প্রথম দিকে যখন অন্যান্য উদ্ভিদের আকাল দেখা যায় তখন একমাত্র এই উদ্ভিদ মাটির ক্ষয় রোধ করে এবং তৃণভোজী প্রাণী ও পক্ষীকূলকে খাদ্য সরবরাহ করে। এই জাতীয় বেশিরভাগ উদ্ভিদকে বাগানের আগাছা হিসাবে বিবেচনা করা হলেও এদের গুরুত্ব কিছু কম নয়। সাধারণত বসন্তের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত যখন পরিবেশের উষ্ণতা ধীরে ধীরে বাড়তে থাকে তখন এই প্রকার উদ্ভিদ সাধারণত মৃত্যুবরণ করে। অন্যন্য কোন উদ্ভিদের কোন প্রকার বৃদ্ধি, এমনকি পাতাও এই সময় বেরোয়না।

কখনো কখনো শীতকালীন উদ্ভিদ কৃষিকার্যের ক্ষেত্রে ক্ষতিকারক হিসাবে বিবেচিত হয় কারন তারা ক্ষতিকারক ছত্রাক এবং কীটপতঙ্গের আশ্রয় হিসাবে কাজ করে যা চাষের সময় ফসলকে আক্রমন করতে পারে। এই উদ্ভিদ মাটিকে শুকিয়ে যেতে দেয়না যা বাণিজ্যিক কৃষিতে সমস্যাযুক্ত হতে পারে।

আণবিক প্রজননবিদ্যা[সম্পাদনা]

২০০৮ সালে গবেষণার মাধ্যমে আবিস্কার হয় যে বহুবর্ষজীবী উদ্ভিদের দুটি বিশেষ জীনের পরিবর্তন ঘটালে তারা একবর্ষজীবী উদ্ভিদে উদ্ভিদে পরিবর্তিত হয়।[৩] গবেষকরা আরবিডোপসিস থালিয়ানা নামক উদ্ভিজ্জের ফুল ফোটার সময় নিয়ন্ত্রিত করতে তার এস ও সি ওয়ান এবং ফুল নামক দুটি জীনের পরিবর্তন ঘটান। এই পরিবর্তনের ফলে এই বহুবর্ষজীবী উদ্ভিজ্জে বিশেষ কিছু নতুন বৈশিষ্ট‌্য, যেমন কাষ্ঠল অংশের উদ্ভব ইত্যাদি লক্ষ্য করা যায়।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Definitions of Botanical Terminology"Illinoiswildflowers.info। সংগ্রহের তারিখ ১৭ মে ২০১৮ 
  2. Collinson, A. S. (১৯৮৮)। Introduction to world vegetation। London: Unwin Hyman। পৃষ্ঠা 23আইএসবিএন 978-0-04-581031-4 
  3. Melzer, S; Lens, F; Gennen, J; Vanneste, S; Rohde, A; Beeckman, T (২০০৮)। "Flowering-time genes modulate meristem determinacy and growth form in Arabidopsis thaliana"Nature Genetics40 (12): 1489–92। এসটুসিআইডি 13225884ডিওআই:10.1038/ng.253পিএমআইডি 18997783