ই-কমার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ই-কমার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ
সংক্ষেপেই-ক্যাব
গঠিত১০ নভেম্বর ২০১৪; ৭ বছর আগে (10 November 2014)
প্রতিষ্ঠাতারাজিব আহমেদ
ধরনবাণিজ্যিক সমিতি
আইনি অবস্থাসক্রিয়
উদ্দেশ্যবাংলাদেশ ই-কমার্স খাতের উন্নয়ন
সদরদপ্তরঢাকা
যে অঞ্চলে
বাংলাদেশ
সদস্যপদ (১ বছর)
হ্যাঁ
সভাপতি
শমী কায়সার

ই-কমার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (সংক্ষেপে ই-ক্যাব) বাংলাদেশের ই-কমার্স খাতের সমস্যা নিরসন করার জন্য প্রতিষ্ঠিত একটি সংস্থা। ২০১৪ সালে ই-ক্যাব তাদের যাত্রা শুরু করে। সংস্থাটি পোস্ট অফিস এবং বাংলাদেশ সরকারের এটুআই কর্মসূচীর মাধ্যমে সারা দেশে ই-কমার্সের পণ্যকে পৌঁছাবার লক্ষ্যে কাজ করে।[১][২]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

বাংলাদেশ ই-কমার্স খাতের উন্নয়ন, সমস্যা নিরসন ও এখাতের উদ্যোক্তাদের একত্র করণের লক্ষ্য নিয়ে ২০১৪ সালের ২৮ অক্টোবর রাজিব আহমেদ মাত্র ১০০ জন তরুণকে নিয়ে ই-কমার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ নামে ফেসবুক গ্রুপ প্রতিষ্ঠা করেন। গ্রুপে ই-কমার্স খাতের বিভিন্ন দিক নিয়ে আলোচনা ও স্কাইপে অনলাইন আড্ডা দেওয়ার মাধ্যমে ই-কমার্স খাতের প্রচারণা ও এসোসিয়েশন প্রতিষ্ঠার দাবি জোরালো হয়। ২০১৪ সালের নভেম্বরে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় থেকে দ্য ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির অধীনে রেজিস্ট্রেশন পায় সংস্থাটি।[৩]

প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি হয় রাজিব আহমেদ। প্রতিষ্ঠার দিন ঢাকা, চট্টগ্রাম এবং সিলেটের প্রায় ৭০টি প্রতিষ্ঠান ই-ক্যাবের সদস্য হয়েছে।[৪] বর্তমান সভাপতি শমী কায়সার[৫]

কার্যক্রম[সম্পাদনা]

ই-কমার্স খাতের উদ্যোক্তাদের সংঙ্ঘবদ্ধ করার মাধ্যমে ভোক্তাদের আস্থা ও ভরসার জায়গা তৈরি করা। শিল্পের বিকাশ ঘটানো এবং দেশের প্রত্যন্ত গ্রামে ই-কমার্সের সুফল পৌছে দেওয়ার জন্য কাজ করে ই-ক্যাব। সরকারি-বেসরকারি সহযোগীতায় সংস্থাটি ই-কমার্স উদ্যোক্তাদের প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ দিয়ে থাকে।[৬]

সদস্যপদ[সম্পাদনা]

এমএলএম, রিক্রুটিং এজেন্সি বাদে সব ধরনের অনলাইন ব্যবসায়ীরা ই-ক্যাবের সদস্য হতে পারে। প্রতি অর্থবছরে নির্ধারিত ফি প্রদান সাপেক্ষে মেম্বারশিপ সচল রাখতে হয়। বর্তমানে সংস্থাটির সদস্য সংখ্যা ১ হাজার তিন’শ।[৭]

সভাপতির তালিকা
ক্রমিক নং নাম সময়কাল মন্তব্য
০১ রাজিব আহমেদ ২০১৪-২০১৮
০২ শমী কায়সার ২০১৮-বর্তমান

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. প্রতিবেদক, নিজস্ব (২ জানুয়ারি ২০১৮)। "ই-ক্যাবের নতুন সভাপতি"দৈনিক প্রথম আলো। সংগ্রহের তারিখ ১৭ মে ২০২১ 
  2. "e-CAB members can now remit abroad ad fees"দ্য ডেইলি স্টার (ইংরেজি ভাষায়)। ২ মে ২০২১। সংগ্রহের তারিখ ১৭ মে ২০২১ 
  3. "যাত্রা শুরু করল ই-কমার্স উদ্যোক্তাদের সংগঠন"দৈনিক প্রথম আলো। ১০ নভেম্বর ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০২১ 
  4. "যাত্রা শুরু করল ই-ক্যাব"দৈনিক কালের কন্ঠ। ০৯ নভেম্বর ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০২১  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ= (সাহায্য)
  5. "ই-ক্যাবের সভাপতি শমী কায়সার, সম্পাদক আব্দুল ওয়াহেদ"দৈনিক কালের কন্ঠ। ২ জানুয়ারি ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০২১ 
  6. "নবীন ই-কমার্স উদ্যোক্তাদের প্রশিক্ষণ দিচ্ছে ই-ক্যাব"দৈনিক প্রথম আলো। ৫ সেপ্টেম্বর ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০২১ 
  7. "ই-কমার্স খাতে প্রতিমাসে ক্ষতি ৬৬৬ কোটি"সময় নিউজ টিভি। ১৩ মে ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০২১ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]