আসবাবপত্র

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
আসবাবপত্র

আসবাবপত্র বলতে সেই সব বস্তুকে বোঝায় যা মানুষের বিভিন্ন কাজে (যেমন: শোয়া, বসা) সাহায্য করে ও আরামদায়ক করে।

তাছাড়া বিশেষ কিছু কাজ (যেমন:লেখা, পড়া) করার জন্য কোনো কিছুকে আনুভূমিক উচ্চতায় আনতে কিছু আসবাব সাহায্য করে।আবার ঘরের নানা সামগ্রি সাজিয়ে রাখতে আসবাব ব্যবহার করা হয় । কাঠ ,বাশ ,প্লাস্টিক ইত্যাদি উপাদান আসবাবপত্র তৈরি করতে প্রয়োজন। কারুকাজ এর মাধ্যমে আসবাবপত্র কে সুন্দর ও মনোরম করা হয়।[১]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

একটি গবেষণায় বলা হয়েছে প্রায় ত্রিশ হাজার বছর আগ থেকে মানুষ কাঠ ,পাথর ইত্যাদির সাহায্য আসবাব তৈরি শিখেছে। স্কটল্যান্ডের ৫ হাজার বছর পুরোতন সভ্যতায় নানা ধরনের পাথরের আসবাব পাওয়া গেছে।প্রাচীন মিশরীয়রা যে নানারকম আসবাবপত্র ব্যবহার করত তার প্রমাণ পাওয়া গেছে।

আসবাবপত্রের প্রকার[সম্পাদনা]

সাধারণ আসবাবপত্র[সম্পাদনা]

  • বিছানা - মানুষের ঘুমানর জন্য তৈরি একটা আসবাব।এতে জাজিম বা তোষক দিয়ে তার উপর চাদর দিয়ে শোয়া হয় ।
  • চেয়ার - বসার জন্য এ আসবাব তৈরি হয়েছে।বর্তমানে কাঠ ও প্লাস্টিক দিয়ে চেয়ার তৈরি হয়।[২]
  • টেবিল - লেখা, পড়া, খাওয়া ইত্যাদি কাজের জন্য টেবিল তৈরি হয়েছে। কাজের সুবিধার জন্য এটি কোনো কিছু কে আনুভূমিক উচ্চতায় আনতে সাহায্য করে।

দেশি আসবাবপত্র[সম্পাদনা]

বাংলাদেশ বা বাংলা অঞ্চলে আসবাব বলতে সাধারণত বাংলার গ্রাম দেশের মানুষের নিজেদের জন্য তৈরি আসবাব। যেমন: খাট,বিছানা(কারুকাজ মণ্ডিত )এগুলো বাংলার মানুষের সংস্কৃতির সঙ্গে জড়িয়ে থাকে।

কাঠের প্রকার[সম্পাদনা]

বিভিন্ন প্রকার উপাদান আসবাব তৈরিতে ব্যবহৃত হলেও কাঠই প্রধান উপাদান। প্রায় সব রকমের কাঠ আসবাব তৈরিতে ব্যবহার হয় । শক্ত ও নরম উভয় প্রকার কাঠ ব্যবহার উপযোগি। তবে শক্ত কাঠ বেশি ভাল । ওক, মেহগনি, চেরি ইত্যাদি গাছে শক্ত কাঠ পাওয়া যায়।[৩]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]