আল ফাতাত

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
আল ফাতাত
বিভাগনারী বিষয়ক ম্যাগাজিন
প্রকাশনা সময়-দূরত্বমাসিক
প্রতিষ্ঠাতাহিন্দ নওফাল
প্রথম প্রকাশনভেম্বর ৩০, ১৮৯২
সর্বশেষ প্রকাশ১৮৯৪
দেশমিশর
ভিত্তিআলেকজান্দ্রিয়া
ভাষাআরবি

আল ফাতাত (আরবি: الفتاة‎‎/এএলএ-এলসি: al-Fatāt, অর্থ "অল্প বয়সী নারী") আলেকজান্দ্রিয়া, মিশরে প্রকাশিত একটি নারী বিষয়ক ম্যাগাজিন। ম্যাগাজিনটি ছিল প্রথম আরব নারী বিষয়ক ম্যাগাজিন।[১][২] শুধু তাই নয়, এটি ছিল তৎকালীন মিশরের সবচেয়ে প্রাচীন পত্রিকা বা ম্যাগাজিনগুলোর মধ্যে একটি।[৩] এটি ১৮৯২ সাল থেকে ১৮৯৪ সাল পর্যন্ত প্রকাশিত হয়েছিল বলে জানা যায়। এটি সেসময় নারীদের কাছে তুমুল জনপ্রিয়তা অর্জন করে।

নামকরণ[সম্পাদনা]

হিন্দ নওফাল তার এই নারী বিষয়ক ম্যাগাজিনের নাম দেন আল ফাতাত। এই নামটি একটি আরবি নাম। এই নামের অর্থ হচ্ছে, দ্য ইয়ং ওম্যান[৪] নারীদের নিয়ে ম্যাগাজিনটি তৈরি হওয়ায় এরকম নাম দেয়া হয়।

ইতিহাস ও আলোচনা[সম্পাদনা]

১৮৯২ সালে আলেকজান্দ্রিয়ায় হিন্দ নওফাল,[১] নামক লেবানিজ খ্রিস্টান মহিলা দ্বারা "আল ফাতাত" নামের এই ম্যাআজিনটি চালু করা হয়েছিল।[৫][৬][৭] নওফালের বাবা এবং বোনও পত্রিকাটি প্রতিষ্ঠায় অবদান রেখেছিলেন বলেও জানা যায়।[৮] এই ম্যাগাজিনটির প্রথম সংখ্যা ১৮৯২ সালের ৩০ নভেম্বর প্রকাশিত হয়েছিল।[৯] এলিজাবেথ কেন্ডাল বলেছিলেন যে, "নওফালের পত্রিকাটি রাজনৈতিক ও সাহিত্যের অগ্নি সংযোগ অর্জন করেছে।"[১০]

আল ফাতাত দুই বছর ধরে নওফাল এর মাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছিল।[১][১১][১২] জানা যায় যে, তিনি এই ম্যাগাজিনটির জন্য সম্পাদকীয়ও লিখেছিলেন,[১২] যা প্রাথমিক পর্যায়ে প্রতি মাসেই প্রকাশিত হয়েছিল।[১] পরবর্তীতে আল ফাতাত এর ক্রমবর্ধমান জনপ্রিয়তার কারণে প্রতি মাসে দুইবার প্রকাশিত হতে শুরু করে। অর্থাৎ মাসিক থেকে এই ম্যাগাজিনটি পাক্ষিক ম্যাগাজিনে রূপান্তরিত হয়।

দেশের[৯] এমনকি আরব বিশ্বের[৮] প্রথম নারী বিষয়ক ম্যাগাজিন হিসেবে আল ফাতাত মিশরে মহিলাদের সাংবাদিকতার ঐতিহ্যের সূচনা করেছিল।[১৩] পত্রিকাটি নারীদের প্রতি সংবাদের পাশাপাশি উল্লেখযোগ্য ব্যক্তিত্বের জীবনী অন্তর্ভুক্ত করেছে। উপরন্তু, এটি বই পর্যালোচনা, কবিতা এবং ফ্যাশন নিবন্ধ অন্তর্ভুক্ত।[৫] আল ফাতাত জনজীবন ও বিতর্কে নারীদের অংশগ্রহণকে উৎসাহিত করেছিল এবং নারীদের জন্য পশ্চিমা আদর্শের পক্ষে ছিল।[৯] অর্থাৎ, এটি ধর্মনিরপেক্ষ বিষয়বস্তু সরবরাহ করেছিল এবং এটি একটি নারীবাদী পত্রিকা ছিল।[১৩]

"আল ফাতাত" ১৮৯৪ সালে এই ম্যাগাজিনের প্রকাশ বন্ধ হয়ে যায় যখন এর প্রতিষ্ঠাতা ও প্রকাশক নওফাল বিয়ে করেন এবং পত্রিকার সাথে কাজ বন্ধ করে দেন।[১] ম্যাগাজিনটির সম্পূর্ণ আর্কাইভ মিশরের উইমেন অ্যান্ড মেমোরি ফোরাম পুনরায় প্রকাশ করেছে। [১১]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Fruma Zachs (২০১৪)। "Cross-Glocalization: Syrian Women Immigrants and the Founding of Women's Magazines in Egypt"। Middle Eastern Studies50 (3): 353–369। ডিওআই:10.1080/00263206.2013.863757 
  2. Anchi Hoh (২১ মার্চ ২০১৭)। "Her Magazine, Her Voice: Foremothers of Women's Journals in Africa and the Middle East"। Library of Congress। সংগ্রহের তারিখ ২৯ আগস্ট ২০২১ 
  3. Marilyn Booth (মে ২০০১)। "Woman in Islam. Men and the "Women's Press" in Turn-of-the-20th-Century Egypt"। International Journal of Middle East Studies23 (2): 171–201। জেস্টোর 259561ডিওআই:10.1017/S002074380100201X 
  4. Elsadda, Hoda (২০০৬)। "Gendered Citizenship: Discourses on Domesticity in the Second Half of the Nineteenth Century"। Hawwa4 (1): 1–28। ডিওআই:10.1163/156920806777504562 
  5. Boutheina Khaldi (২৪ ডিসেম্বর ২০১২)। Egypt Awakening in the Early Twentieth Century: Mayy Ziydah's Intellectual Circles। Palgrave Macmillan। পৃষ্ঠা 46। আইএসবিএন 978-1-137-23530-5 
  6. Mona Russell (২০০৪)। Creating the New Egyptian Woman: Consumerism, Education, and National Identity, 1863-1922। Palgrave Macmillan। পৃষ্ঠা 58। আইএসবিএন 978-1-4039-7961-2 
  7. Earl L. Sullivan (১ জানুয়ারি ১৯৮৬)। Women in Egyptian Public Lifeবিনামূল্যে নিবন্ধন প্রয়োজন। Syracuse University Press। পৃষ্ঠা 172আইএসবিএন 978-0-8156-2354-0 
  8. Werner Ende; Udo Steinbach (২০১০)। Islam in the World Today: A Handbook of Politics, Religion, Culture, and Society। Cornell University Press। পৃষ্ঠা 639। আইএসবিএন 978-0-8014-6489-8 
  9. Mervat F. Hatem (২০১১)। Literature, Gender, and Nation-Building in Nineteenth-Century Egypt: The Life and Works of 'A'isha Taymur। Palgrave Macmillan। পৃষ্ঠা 114। আইএসবিএন 978-0-230-11860-7 
  10. এলিজাবেথ কেন্ডাল. (২০০২). "রাজনীতি এবং সাহিত্যের মধ্যে: উনিশ শতকের শেষের দিকে আলেকজান্দ্রিয়া এবং ইস্তাম্বুলের জার্নাল" (অধ্যায় ১৫)। ইন: লায়লা তারাজি ফাওয়াজ ও সিএ বেইলি (এডস.) এবং রবার্ট ইলবার্ট (সহযোগিতায়)। আধুনিকতা ও সংস্কৃতি: ভূমধ্যসাগর থেকে ভারত মহাসাগর পর্যন্ত. কলম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয় প্রেস। আইএসবিএন ০২৩১১১৪২৭৩, 9780231114271. Start: p. 330. সাইটেশন: p.340.
  11. "Al Fatat Magazine"The Women and Memory Forum। ২৯ অক্টোবর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৩ 
  12. Bouthaina Shaaban (মে–জুন ১৯৯৩)। "The Hidden History of Arab Feminism"Ms. Magazine: 76–77। ২ অক্টোবর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৩ 
  13. Nabila Ramdani (২০১৩)। "Women in the 1919 Egyptian Revolution: From Feminist Awakening to Nationalist Political Activism"Journal of International Women's Studies14 (2): 39–52।