আর্মেনিয়া–পর্তুগাল সম্পর্ক

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
আর্মেনিয়া—পর্তুগাল সম্পর্ক
মানচিত্র Armenia এবং Portugal অবস্থান নির্দেশ করছে

আর্মেনিয়া

পর্তুগাল

আর্মেনিয়া—পর্তুগাল সম্পর্ক হল আর্মেনিয়াপর্তুগাল রাষ্ট্রদ্বয়ের মধ্যকার দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক। কোনো দেশেরই স্থায়ী দূতাবাস নেই। ইতালির রোমে অবস্থিত দূতাবাসের মাধ্যমে আর্মেনিয়া পর্তুগালের কাজ পরিচালনা করছে। অনুরূপে মস্কোতে অবস্থিত দূতাবাসের মাধ্যমে পর্তুগাল আর্মেনিয়ায় নিজেদের প্রতিনিধিত্ব করছে। এছাড়াও ইয়েরেভেনেরর নালবানদিয়ান স্ট্রীটে পর্তুগালের কনস্যুলেট অফিস রয়েছে। বর্তমানে মিস্টার স্যামুয়েল স্যামুয়েলিয়ান কনস্যুল হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৯২০ সালের ১০ই আগস্ট আনুষ্ঠানিকভাবে আর্মেনিয়াকে স্বীকৃতি দেয় পর্তুগাল। স্বীকৃতিপত্রে পর্তুগাল উল্লেখ করে যে এ স্বীকৃতিপ্রদানের মাধ্যমে "সম্মানের দৃঢ় বন্ধনেই শুধু যুক্ত হওয়া নয়, বরং বাহ্যিক আগ্রাসনের বিরুদ্ধে আত্মরক্ষা এবং আঞ্চলিক ঐক্য ও আর্মেনিয়ার রাজনৈতিক স্বাধীনতা প্রদান করা হয়েছে..."[১]

প্রবাসী[সম্পাদনা]

পর্তুগালে বসবাসকারী উল্লেখযোগ্য আর্মেনিয় ব্যক্তিত্ব হলেন ক্যালোউস্তে গুলবেনকিয়ান। তিনি একজন বিত্তবান আর্মেনিয় ব্যবসায়ী ছিলেন। ব্যবসার সাথে সাথে মানবহিতৈষি কাজের সাথেও তিনি যুক্ত ছিলেন। লিসবনে তিনি নিজের ব্যবসার সদর দপ্তর স্থাপন করেন। তিনি একটি আন্তর্জাতিক চ্যারিটি প্রতিষ্ঠান গঠন করেন। লিসবনে অবস্থিত সংগঠনটির নাম ক্যালোউস্তে গুলবেনকিয়ান ফাউন্ডেশন। তিনি মুসে ক্যালোউস্তে গুলবেনকিয়ানও স্থাপন করেন।[২][৩]

রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক সম্পর্ক[সম্পাদনা]

আর্মেনিয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী ভারদান অসকানিয়ান ২০০০ সালের নভেম্বর মাসে লিসবন সফর করেন। সেখানে তিনি পর্তুগিজ রাষ্ট্রপতি জর্জ স্যামপাইও, পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাইমে গামার সাথে সাক্ষাৎ করেন।[৪] ২০০১ সালের ১০ই জুলাই রাষ্ট্রপতি রবার্ট কোচারিয়ান বলেন যে আর্মেনিয়া পর্তুগালের সাথে সম্পর্কোন্নয়ন করাকে সর্বাধিক গুরুত্ব প্রদান করা হয়।[৫] আর্মেনিয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী ভারদান ওসকানিয়ান দ্বিপাক্ষিক অর্থনৈতিক সম্পর্ক উন্নয়নের লক্ষ্যে ২০০১ সালের ১১ই জুলাই পর্তুগিজ ডেলিকেটের সাথে সাক্ষাৎ করেন।[৬] পর্তুগিজ পার্লামেন্টের স্পিকার জোয়া বস্কো মোতা আমারাল ২০০২ সালের ১৯শে জুন আর্মেনিয় রাষ্ট্রদূতের সাথে আর্মেনিয়-পর্তুগিজ আন্তঃপার্লামেন্টারি সম্পর্ক দৃঢ়করণ বিষয়ে কথা বলেন।[৭]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. The New Armenia, Volumes 13-14 (The New Armenia Pub. Co., 1921), 61.
  2. "Calouste Gulbenkian Dies at 86. One of the Richest Men in the World. Oil Financier, Art Collector Lived in Obscurity, Drove in Rented Automobile."New York Times। জুলাই ২১, ১৯৫৫। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-০৫-০৭ 
  3. "Solid Gold Scrooge"Time magazine। জুলাই ২৩, ১৯৫৮। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-০৫-০৭Gulbenkian was an Armenian, but he did not rise from rugs to riches. His father, Sarkis, was a prosperous kerosene importer in suburban Constantinople ... 
  4. "Armenian minister discusses ties with Portuguese officials, signs documents" ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১৩ মে ২০১৯ তারিখে, Mediamax news agency, 15 November 2000.
  5. "Armenian president notes importance of developing ties with Portugal" ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১৩ মে ২০১৯ তারিখে, Mediamax news agency, 10 July 2001.
  6. "Armenian, Portuguese foreign ministers discuss economic relations" ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১৩ মে ২০১৯ তারিখে, Mediamax news agency, 11 July 2001.
  7. "Armenian envoy, Portuguese labour minister discuss illegal immigration" ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১৩ মে ২০১৯ তারিখে, Mediamax news agency, 24 June 2002.

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

টেমপ্লেট:আর্মেনিয়ার বৈদেশিক সম্পর্ক টেমপ্লেট:পর্তুগালের বৈদেশিক সম্পর্ক