আফটার ডার্ক, মাই সুইট

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
আফটার ডার্ক, মাই সুইট
আফটার ডার্ক, মাই সুইট চলচ্চিত্রের পোস্টার.jpg
প্রেক্ষাগৃহে মুক্তিকালীন পোস্টার
পরিচালকজেমস ফলে
প্রযোজকরিক কিডনি
রবার্ট রেডলিন
চিত্রনাট্যকারজেমস ফলি
রবার্ট রেডলিন
উৎসজিম থমসন কর্তৃক 
আফটার ডার্ক, মাই সুইট উপন্যাস
শ্রেষ্ঠাংশে
সুরকারমরিশ জার
চিত্রগ্রাহকমার্ক প্লামার
সম্পাদকহাওয়ার্ড ই. স্মিথ
প্রযোজনা
কোম্পানি
অ্যাভেনিউ পিকচার্স
পরিবেশকঅ্যাভেনিউ পিকচার্স
মুক্তি
  • ১৭ মে ১৯৯০ (1990-05-17) (ক্যান ফিল্ম মার্কেট)
  • ২৪ আগস্ট ১৯৯০ (1990-08-24) (মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র)
দৈর্ঘ্য১১৪ মিনিট
দেশমার্কিন যুক্তরাষ্ট্র
ভাষাইংরেজি
নির্মাণব্যয়$ ৬ মিলিয়ন
আয়$ ২.৭ মিলিয়ন[১]

আফটার ডার্ক, মাই সুইট (ইংরেজি: After Dark, My Sweet) হল ১৯৯০ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত একটি নব্য-নোয়া চলচ্চিত্র। ছবিটি পরিচালনা করেন জেমস ফলে এবং এটিতে মুখ্য ভূমিকায় অভিনয় করেন জেসন প্যাট্রিক, ব্রুস ডার্নরাশেল ওয়ার্ড। ছবিটি নির্মিত হয়েছিল ১৯৫৫ সালে জিম থমসনের লেখা একই নামের একটি উপন্যাস অবলম্বনে।[২]

কাহিনি-সারাংশ[সম্পাদনা]

প্রাক্তন বক্সার কেভিন "কিড" কলিনস একজন যাযাবর। তিনি মানসিক হাসপাতাল থেকে পালিয়ে এসেছিলেন। এমতাবস্থায় ফে আন্ডারসন নামে এক বিধবা মহিলার সঙ্গে তার দেখা হল। ফে তাকে রাজি করান তার প্রাক্তন স্বামীর রেখে যাওয়া অবহেলিত এস্টেটটিকে গুছিয়ে তুলতে তাকে সাহায্য করার জন্য। "আঙ্কল বাড" একটি বড়লোকের ছেলেকে মুক্তিপণের জন্য অপহরণ করতে তাদের সাহায্য করেন। তখন সেই প্রাক্তন বক্সারকে এমন এক পরিস্থিতিতে পড়তে হয় যেখানে সে তার আনুগত্য না সত্য কাকে বেশি গুরুত্ব দেবে তা বুঝতে পারে না।

প্রতিক্রিয়া[সম্পাদনা]

গ্রেট ফিল্মস সমালোচনায় রজার এবার্ট এই ছবিটি সম্পর্কে লেখেন, "আফটার ডার্ক, মাই সুইট এমন এক চলচ্চিত্র যা দর্শকদের রুচি পরিহার করে চলে; ছবিটি তিনশো মিলিয়নেরও কম বাণিজ্য করেছে, লোকে এটির কথা প্রায় ভুলেই গেছে, আর এই ছবিটি শুধু রয়ে গেছে আধুনিক ফিল্মস নয়ারের বিশুদ্ধতম ও সর্বাপেক্ষা আপোষহীন একটি চলচ্চিত্র হয়ে। সর্বোপরি এই ছবি চরিত্রগুলির একাকী নিঃশেষিত জীবনকথাকে ধরে রেখেছে।"[৩] লেখক ডেভিড এম মেয়ার্স চিত্রনাট্যের প্রশংসা করে লেখেন, " চিত্রনাট্যটি জিম থম্পসনের হৃদয়হীন উপন্যাসটি খোদাই করে তৈরি করা হয়েছে। এটি লক্ষ্যনীয়ভাবে ঘনপিনদ্ধ ও সুসংগঠিত।"[৪]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

পাদটীকা[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]