আনুশেহ্‌ আনাদিল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
আনুশেহ আনাদিল
Bangla (536298873).jpg
২০০৭ সালের ৭ জুন জার্মানির রোস্টক শহরে বাংলা ব্যান্ডের সরাসরি সংগীতানুষ্ঠানে আনুশেহ্‌
প্রাথমিক তথ্য
স্থানীয় নামআনুশেহ আনাদিল
উদ্ভবঢাকা, বাংলাদেশ
ধরনলোক সঙ্গীত, লালন গীতি
পেশাসুরকার, গায়ক, গীতিকার, সাংস্কৃতিক কর্মী, উদ্যোক্তা[১]
বাদ্যযন্ত্রসমূহকন্ঠ
কার্যকাল১৯৯৮-বর্তমান
সহযোগী শিল্পীবাংলা (ব্যান্ড)

আনুশেহ্‌ আনাদিল একজন বাংলাদেশি শিল্পী, সংস্কৃতিকর্মী ও উদ্যোক্তা।[২][৩] তিনি লোক সঙ্গীত ব্যান্ড বাংলা এর প্রধান কণ্ঠশিল্পী।[৪]

শৈশব ও ক্যারিয়ার[সম্পাদনা]

আনুশেহ্‌ ওস্তাদ সগীরুদ্দীন খানের অধীনে উত্তর ভারতীয় ক্লাসিকাল সঙ্গীতের প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন। তারপর তিনি লোক সঙ্গীত গাওয়া শুরু করেন। তিনি লোক সঙ্গীত ব্যান্ড “বাংলা” –র সাথে সঙ্গীত পরিবেশোনা করছেন ১৯৯৮ সালে থেকে। তিনি জোনাস হেলবর্গের সাথে কাজ করেন। তার গাওয়া গান সুশিলা রমনের “মিউজিক ফর ক্রোকোডাইল” –এ অন্তর্ভুক্ত হয়। আনুশেহ্‌ “ইন্ডিয়ান ওশান” ব্যান্ডের সাথে অভীক মুখোপাধ্যায়ের “ভূমি” সিনেমার জন্য একটি গান রেকর্ড করেছেন। তিনি তন্ময় বোসের সাথে “বাউল এবং বেয়ন্ড” নামে একটি গানের প্রকল্পেও কাজ করেন। তিনি কল্পনা দত্তের তত্ত্বাবধানে ক্লাসিকাল সঙ্গীত শিখা চালিয়ে যান। আনুশেহ্‌ মাভেরিক চলচ্চিত্র-নির্মাতা Q's এর সিনেমা “তাসের দেশ” এর জন্য গান রেকর্ড করেন, যা অনেক প্রসংশিত হয়। [৫]

পুরস্কার[সম্পাদনা]

  • দ্য মিউজিকাল জার্নালিস্টস পুরস্কার, ২০০৬
  • অনন্যা’র শ্রেষ্ঠ ১০ নারী, ২০০৭
  • মিতু মেমোরিয়াল পুরস্কার, ২০০৯[৬]
  • দৈনিক প্রতিদিন পুরস্কার, ২০১১। জি-বাংলা সুবর্ণলতা’র প্রধান গানের জন্য।[৭]

লিঙ্ক টেলিভিশন চ্যানেলেও তার উপস্থিতি লক্ষ্য করা যায়।[৮]

ব্যবসায়িক কর্মকাণ্ড[সম্পাদনা]

আনুশেহ্‌ তার নিজের একটি কারুশিল্পের দোকান “যাত্রা- এ জার্নি ইন্টু ক্রাফট ইন ঢাকা” পরিচালনা করেন। তার প্রতিষ্ঠানে ১০০ জন কারু শিল্পী কাজ করে।[১]

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

আনুশেহ্‌ দুই সন্তানের জননী।[১] তিনি ভালোবেসে বিয়ে করেছিলেন বাংলা ব্যান্ড দলের সদস্য বুনোকে। বুনোর সঙ্গে বিচ্ছেদ হয় সাত বছর আগে। দুই সন্তান আরাশ ও রাহাকে নিয়ে একাই ছিলেন এতোদিন। ২০১৬ সালের ১৬ ডিসেম্বর তিনি পুনরায় বিয়ে করেন গায়ক ও গিটার বাদক পান্ডুকে। পুরো নাম সেথ পান্ডুরাঙা ব্লুমবার্গ, আমেরিকার মিশিগানের মিউজিশিয়ান। পান্ডুর সঙ্গে ঢাকায় আনুশেহ গড়ে তোলেন ‘যাত্রা বিরতি’ নামের একটি মিউজিক্যাল রেস্তোরাঁ। আরও গড়েছেন ‘বাহক’ নামের ব্যান্ড।[৯]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "সংরক্ষণাগারভুক্ত অনুলিপি"। ২৭ অক্টোবর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৬ নভেম্বর ২০১৮ 
  2. রাসেল মাহমুদ (৬ মে ২০২০)। "এই দোষ দেওয়ার খেলা থামানো উচিত"prothomalo.com। সংগ্রহের তারিখ মে ১২, ২০২০ 
  3. Bergman, David"The Bangladeshi Women Making Rural Mystic Music Cool"। AsiaCalling.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৩-০৬-১৪ 
  4. "Bangla - An alternative folk music band"। ২০১২-০৭-১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-১১-১৪ 
  5. "সংরক্ষণাগারভুক্ত অনুলিপি"। ৩১ আগস্ট ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  6. "The Awardees of 2009"। Meeto Memorial Award। ২০১৩-১০-২৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-০২-১৯ 
  7. "Anusheh song wins Zee Bangla Gourav Award"। The Daily Star। সংগ্রহের তারিখ ৮ নভেম্বর ২০১১ 
  8. "Anusheh: The Secret Words"। Link TV। ২০১২-০১-৩০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-০২-১৯ 
  9. আবার বিয়ে করলেন আনুশেহ, জাগো নিউজ টুয়েন্টি ফোর ডটকম, ১৭ ডিসেম্বর ২০১৬

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]