অ্যানা পেত্রোনেলা ফন হিরডেন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

অ্যানা পেত্রোনেলা ফন হিরডেন (১৮৮৭-১৯৭৫) ছিলেন প্রথম আফ্রিকানার মহিলা যিনি মেডিকেল ডাক্তার হিসেবে যোগ্যতা অর্জন করেন।[১] ১৯২৩ সালে ডক্টরেট অর্জনের জন্য আফ্রিকান্সে লেখা তার গবেষণামূলক প্রবন্ধ এই ভাষার প্রথম মেডিকেল নিবন্ধ ছিল।[২] তিনি গাইনোকোলজিস্ট হিসেবে অনুশীলন করেছিলেন এবং ১৯৪২ সালে অবসর গ্রহণ করেন। তিনি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় দক্ষিণ আফ্রিকার মেডিকেল কর্পসেও কাজ করেছিলেন।[৩]

শিক্ষা এবং কর্মজীবন[সম্পাদনা]

ভ্যান হিরডেন ১৮৮৭ সালের ২৬ এপ্রিল দক্ষিণ আফ্রিকার বেথলেহেমে জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবা-মা ছিলেন ফ্রাঙ্কোইস উইলেম ভ্যান হিরডেন এবং জোসেফিন রাইনেভা বেক হোরাক। তিনি পিতা-মাতার মধ্যম সন্তান ছিলেন, বড় ভাই আলেকজান্ডার চার্লস এবং ছোট ভাই ফ্র্যাঙ্কির সাথে।

তিনি ওয়েলিংটনের হুজিনট সেমিনারি এবং স্টেলেনবোশের ভিক্টোরিয়া কলেজে শিক্ষালাভ করেন। তিনি ১৯০৮ থেকে ১৯১৫ সাল পর্যন্ত আমস্টারডাম বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা করেন যেখানে তিনি তার মেডিকেল ডিগ্রি সম্পন্ন করেন। ভ্যান হিরডেন ১৯১৬ সালে ব্লোমফন্টেইনের ভলকশুইশোস্পিটালের ইন্টার্ন হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন এবং ১৯১৭ সাল থেকে হ্যারিস্মিথে তার নিজস্ব অনুশীলন ছিল। পিএইচডি সম্পন্ন করার জন্য আমস্টারডামে ফিরে আসার আগে তিনি ১৯২১ সাল থেকে লন্ডনে স্ত্রীরোগ বিদ্যায় বিশেষজ্ঞ ছিলেন।[৪] ১৯২৩ সালে ডাই সোগেনামডে এডেনিওমা ভ্যান ডাই ওভারিয়াম (ইংরেজিতে: ডিম্বাশয়ের তথাকথিত অ্যাডেনোমা) শিরোনামে একটি থিসিস সহ ডক্টরেট অর্জনের পর তিনি কেপ টাউনে চলে যান যেখানে তিনি স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞ হিসেবে অনুশীলন করেন। ভ্যান হিরডেন দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় দক্ষিণ আফ্রিকার মেডিকেল কর্পসে কাজ করেন এবং ১৯৪২ সালে তিনি তার অনুশীলন থেকে অবসর নেন।

অন্যান্য স্বার্থ[সম্পাদনা]

রাজনীতি[সম্পাদনা]

তিনি ১৯২৪ সালে কেপ ন্যাশনাল পার্টির প্রধান কমিটিতে দায়িত্ব পালন করেন এবং জাতীয় পতাকা নিয়ে বিরোধে সক্রিয় ভূমিকা পালন করেন। তিনি মহিলাদের ভোটাধিকারের জন্যও প্রচারণা করেছিলেন।[৫]

প্রত্নতত্ত্ব[সম্পাদনা]

১৯৩১ সালে ভ্যান হিরডেন প্যালেস্টাইনের মাউন্ট কারমেলের ওয়াদি এল মাঘরায় খননকার্যে অংশ নেন যার নেতৃত্বে ছিলেন ডরোথি গারোয়ড।

প্রকাশনা[সম্পাদনা]

ভ্যান হিরডেন দুটি আত্মজীবনীমূলক গ্রন্থ প্রকাশ করেন, কের্স্নুইৎসেলস (১৯৬২) (ক্যান্ডেল স্নাফিংস) এবং ডাই সেস্টিয়েন্ডে কোপ্পি (১৯৬৫) (ষোড়শ কাপ),[১] এবং অন্যান্য কাজ, যার মধ্যে রয়েছে: ওয়ারোম এক 'এন সোসিয়ালিস ইজ (১৯৩৮) (কেন আমি এত সমাজতান্ত্রিক), গেসল্যাগসরেজিস্টার ভ্যান ডাই ফামিলি ভ্যান হিরডেন (১৯৬৯) (ভ্যান হিরডেন পরিবারের বংশলতিকা) এবং ষোড়শ ডেমস (১৯৬৯) (ষোড়শ মহিলা )।

ভ্যান হিরডেনের স্মৃতিকথা ২০০০ সালের আগে পর্যন্ত খুব কম শিক্ষাবিদের মনোযোগ পেয়েছিল। তারপর থেকে তার সীমিত কাজ নিয়ে কিছু গবেষণা করা হয়েছে। লিজেল স্মিট ২০১৫ সালে "দক্ষিণ আফ্রিকান নারী জীবন লিখন" বিষয়ে একটি মাস্টার প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন এবং এই গবেষণায় আচ্ছাদিত ভ্যান হিরডেন সম্পর্কিত কিছু বিষয় হল: ১) সেই সময়ের আফ্রিকান-তরুণদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলি পৌঁছে দেওয়ার জন্য আত্মজীবনীমূলক বিষয়বস্তুর তার সূক্ষ্ম হেরফের; ২) নারীবাদী বিষয় এবং তার লেসবিয়ান যৌন পরিচয় তার পরিবর্তিত উপস্থাপনা, বিশেষ করে এই সত্যের আলোকে যে দক্ষিণ আফ্রিকা ভ্যান হির্ডেনের জীবনের বেশিরভাগ সময় লেসবিয়ানদের অস্তিত্ব গ্রহণ করেনি; এবং ৩) লিঙ্গ বৈষম্য সম্পর্কে তার সমালোচনা।[৬]

পরবর্তী জীবন[সম্পাদনা]

ভ্যান হিরডেন অবসরগ্রহণের পরে তার পরবর্তী জীবনের কিছু সময় একটি খামারে কাজ করে কাটিয়েছিলেন যেখানে তিনি গবাদি পশু পালন করেছিলেন। তাকে প্রায়শই গবাদি পশুর নিলামে দেখা যেত, সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করতে, যা সেই সময় দক্ষিণ আফ্রিকার একজন মহিলার পক্ষে কেউ ভাবতে পারতনা।[১] ভ্যান হিরডেন কখনও বিয়ে করেননি এবং তিনি ১৯৭৫ সালের ১০ জানুয়ারি কেপ টাউনে মারা যান।[১]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Viljoen, Louise (২০০৮)। "Nationalism, gender and sexuality in the autobiographical writing of two Afrikaner women"Social Dynamics (ইংরেজি ভাষায়)। Scholar.sun.ac.za। 34 (2): 186–202। ডিওআই:10.1080/02533950802280063। সংগ্রহের তারিখ ২৩ মার্চ ২০১৫ 
  2. Women Marching Into the 21st Century: Wathint' Abafazi, Wathint' Imbokodo (ইংরেজি ভাষায়)। HSRC Press। ২০০০। পৃষ্ঠা 206–। আইএসবিএন 978-0-7969-1966-3 
  3. Jean van der Poel (৫ এপ্রিল ২০০৭)। Selections from the Smuts Papers: Volume VII, August 1945-October 1950 (ইংরেজি ভাষায়)। Cambridge University Press। পৃষ্ঠা 446–। আইএসবিএন 978-0-521-03370-1 
  4. pubmeddev; FB, Lammes (১০ অক্টোবর ২০১৩)। "Van Heerden: the first female doctor in South Africa. - PubMed"। Nederlands Tijdschrift voor Geneeskunde (ওলন্দাজ ভাষায়)। 157 (41): A5421। পিএমআইডি 24103131 
  5. Smit, Lizelle (মার্চ ২০১৫)। "Narrating (Her)Story: South African Women's Life Writing (1854-1948)" (PDF)Scholar.sun.ac.za (ইংরেজি ভাষায়)। পৃষ্ঠা 38। সংগ্রহের তারিখ ২৯ অক্টোবর ২০১৯ 
  6. Smit, Lizelle (২৮ এপ্রিল ২০১৭)। "'Speaking' and 'silence' in the memoirs of Petronella van Heerden"। Literator (ইংরেজি ভাষায়)। AOSIS। 38 (1)। আইএসএসএন 2219-8237ডিওআই:10.4102/lit.v38i1.1298অবাধে প্রবেশযোগ্য 
উদ্ধৃতি ত্রুটি: <references>-এ সংজ্ঞায়িত "Vrystaat Confessions" নামসহ <ref> ট্যাগ পূর্ববর্তী লেখায় ব্যবহৃত হয়নি।