অহংকার

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ব্ল্যাক-ফিগার মৃৎপাত্র (550 খ্রিস্টপূর্বাব্দ) প্রমিথিউসকে তার সাজা ভোগ করে, একটি কলামে বাঁধা।

অহংকার (দাম্ভিকতা বা ঔদ্ধত্যও বলা হয়ে থাকে) বলতে বোঝায় অতিমাত্রায় গর্ব করা বা নিজেকে চরমভাবে অতিরিক্ত গুরুত্ব প্রদান করার আচরণ। আরও সুস্পষ্টভাবে, এটি হল বাস্তবতার সাথে সম্পর্কহীনতা আর নিজের প্রতিদ্ধন্দিতা বা সক্ষমতাকে অতিমূল্যায়ন করা।[১]

কারও প্রতি ভদ্রতা ও ভালোবাসার ওভাবের ফলেও অহংকার তৈরি হয়ে থাকে। এর উদাহরণ হল নিজেকে অন্যান্যদের তুলনায় অনেক বেশি গুরুত্ব দেওয়া ও নিজেকে আলাদা ভাবা। অহংকারী পরিবেশে বেড়ে ওঠা শিশুরা নিজেরাও অহংকারী হয়ে উঠতে পারে।[২]

অহংকার সাধারণত মানুষের ক্ষতি করে আর এটি নেতিবাচক মানসিকতার সংস্কৃতির বিকাশ ঘটায়।[৩]

অহংকার হল আত্মবিশ্বাস থেকে আলাদা একটি জিনিস। নিরাপত্তাহীনতা থেকেও অনেক সময় অহংকার জন্ম নিতে পারে। আর আত্মবিশ্বাস হল মূলত নিজের দুর্বলতাকে যাচাই করা ও তা কাটিয়ে ওঠার প্রক্রিয়া।[৪]

আরোও পড়ুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Arrogance"। Merriam-Webster's Dictionary। সংগ্রহের তারিখ জানুয়ারি ৯, ২০১৪ 
  2. "Arrogance Defined"। Human Solutions। মার্চ ৪, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ জানুয়ারি ৯, ২০১৪ 
  3. "Arrogance and its Negative Effects"। Matrix of Mnemosyne। সেপ্টেম্বর ২, ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ জানুয়ারি ৯, ২০১৪ 
  4. "Arrogance is Not Confidence"। The Slideshare। সংগ্রহের তারিখ জানুয়ারি ৯, ২০১৪