অল ইন্ডিয়া ডেমোক্র্যাটিক স্টুডেন্টস অর্গানাইজেশন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

সর্বভারতীয় গণতান্ত্রিক ছাত্র সংগঠন বা অল ইন্ডিয়া ডেমোক্র্যাটিক স্টুডেন্টস অর্গানাইজেশন ভারতের একমাত্র বিপ্লবী ছাত্র সংগঠন।[১] ২৮ ডিসেম্বর ১৯৫৪ সালে প্রভাস ঘোষ এই সংগঠনটি প্রতিষ্ঠা করেন।[১] এটি সোশ্যালিস্ট ইউনিটি সেন্টার (কমিউনিস্ট)-এর ছাত্র সংগঠন। সংগঠনটি সমস্ত ছাত্রছাত্রীকে শিক্ষা-সংস্কৃতি-মনুষ্যত্ব রক্ষার আহ্বান জানায়।[২][৩][৪][৫][৬][৭]

মৌলিক দৃষ্টিভঙ্গি[সম্পাদনা]

সর্বভারতীয় গণতান্ত্রিক ছাত্র সংগঠনের লক্ষ্য অন্যায়, নিপীড়ন এবং শোষণের বিরুদ্ধে লড়াই করা এবং সামাজিক রূপান্তর প্রচার করা।

লক্ষ্য এবং উদ্দেশ্য[সম্পাদনা]

একজন AIDSO কর্মী একটি জনসমাবেশে ভাষণ দিচ্ছেন৷

AIDSO-এর প্রাথমিক উদ্দেশ্য হল কেন্দ্রীয় ও রাজ্য সরকারের পাশাপাশি সংশ্লিষ্ট অন্যান্য কর্তৃপক্ষের শিক্ষা বিরোধী নীতির বিরুদ্ধে ছাত্র আন্দোলন সংগঠিত করা এবং "একটি বৈজ্ঞানিক, ধর্মনিরপেক্ষ, গণতান্ত্রিক শিক্ষা ব্যবস্থার প্রতিষ্ঠা"।[৮][৯]

আন্দোলন ও প্রতিবাদ[সম্পাদনা]

AIDSO গঠিত হয়েছিল ২৮ ডিসেম্বর ১৯৫৪ সালে, তিনি করেছিলেন বর্তমানের এসইউসিআই পার্টির সাধারণ সম্পাদক প্রভাস ঘোষ। পঞ্চাশের দশকের শেষের দিকে, পশ্চিমবঙ্গে আসন সীমাবদ্ধতার বিরুদ্ধে একটি বৃহৎ ছাত্র আন্দোলন গড়ে ওঠে। AIDSO এই আন্দোলনে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে। ১৯৭৪ সালে, AIDSO কটক সম্মেলন আয়োজন করে যেখানে সংগঠনটি ৮টি রাজ্যের প্রতিনিধিত্ব সহ একটি সর্বভারতীয় চরিত্রের সাথে একটি নতুন রূপে আবির্ভূত হয়।

১৯৭৫-৭৬ সালের জরুরি অবস্থার সময় ১৯৮০-এর দশকে পশ্চিমবঙ্গে বাস ও ট্রামের ভাড়া বৃদ্ধির প্রতিবাদে AIDSO এর বেশ কয়েকজন সদস্য জড়িত ছিলেন। মানিক বর্মণ, একজন স্কুল ছাত্র এবং AIDSO কর্মী, এবং রবি ঘোষ, একজন প্রধান AIDSO সংগঠক, গুরুতর বুলেটে আহত হয়েছইলো। পুরুলিয়ায় হাবুল রাজাক একজন AIDSO কর্মী এবং সোভারাম মোদক পুলিশের গুলিতে মারা গিয়েছিলো।

কেরালায়, এআইডিএসও ডিপিইপির বিরুদ্ধে একটি দীর্ঘ আন্দোলনে সংগঠনটি ভালো ভূমিকা পালন করেছিলো।

সম্প্রতি AIDSO শিক্ষার বাণিজ্যিকীকরণ, শিক্ষাকে GATS-এর আওতায় আনা, স্কুল পর্যায়ে যৌন শিক্ষা প্রবর্তন এবং এসইজেড (SEZ, Special Economic Zone) নীতির বিরুদ্ধে একটি জাতীয় আন্দোলন সংগঠিত করেছিলো।[১০]

AIDSO ভিটিইউ শিক্ষার্থীদের পুরাতন স্কিম অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীদের সমালোচনামূলক আন্দোলনকে সক্রিয়ভাবে সমর্থন করেছিলো। রাজ্যব্যাপী VTU কলেজগুলির স্বেচ্ছাসেবী বন্ধ ছাত্রদের কাছ থেকে ব্যতিক্রমীভাবে ভাল সাড়া পেয়েছে এবং ১৬০টিরও বেশি ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ সম্পূর্ণরূপে বন্ধ হয়ে গেছে। ব্যাঙ্গালোরের মহীশূর ব্যাংক সার্কেলের কাছে ছাত্ররা ব্যাপক বিক্ষোভ করেছিল।

AIDSO দ্বারা প্রতিবাদ[সম্পাদনা]

AIDSO সেমিস্টার সিস্টেম এবং পছন্দ ভিত্তিক ক্রেডিট সিস্টেম (CBCS) এর বিরুদ্ধে দেশ পর্যায়ে প্রতিবাদের আয়োজন করেছে। [১১]

নেতৃত্ব[সম্পাদনা]

সভাপতি - ভিএন রাজশেখর

সাধারণ সম্পাদক - সৌরভ ঘোষ

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "About -" (ইংরেজি ভাষায়)। ২০২১-০৪-১৭। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১২-১৭ 
  2. "University of Calcutta : COVID অতিমারীর কারণে পড়ুয়াদের সব ফি মকুব CU-র"Aaj Tak বাংলা। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৭-০৯ 
  3. http://# (২০২২-০২-০১)। "প্রাথমিক স্কুল খোলার দাবিতে আন্দোলনে ডিএসও"Uttarbanga Sambad | Latest news and happening about North Bengal today (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৭-০৯ 
  4. সংবাদদাতা, নিজস্ব। "বাড়তি টাকা ফেরাচ্ছে স্কুল"www.anandabazar.com। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৭-০৯ 
  5. "উচ্চমাধ্যমিকের ফলাফল নিয়ে কোচবিহারে আন্দোলন অব্যাহত ছাত্রছাত্রীদের, পথে নামল ছাত্র সংগঠন ডিএসও। - Sob Khobor | DailyHunt Lite"Dailyhunt (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৭-০৯ 
  6. "কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের ফি মকুব ও 18 ঊর্ধ্ব পড়ুয়াদের টিকাকরণের দাবিতে বিক্ষোভ ডিএসও-র"ETV Bharat News। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৭-০৯ 
  7. Bangla, TV9 (২০২১-০৭-৩১)। "DSO: ১১ কর্মীর নিঃশর্ত মুক্তি চেয়ে অবস্থান, মহিলা কর্মীদের চুলের মুঠি ধরে প্রিজন ভ্যানে তোলার অভিযোগ পুলিশের বিরুদ্ধে"TV9 Bangla। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৭-০৯ 
  8. "চতুর্থ কেন্দ্রীয় সম্মেলনে অল ইন্ডিয়া ডি এস ও-র"Socialist Party of Bangladesh (Marxist) (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৬-০৪-০৩। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৭-০৯ 
  9. "অঙ্গীকার যাত্রা ডিএসও-র"Dailyhunt (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৭-০৯ 
  10. "AIDSO activists stage demonstration"The Hindu (ইংরেজি ভাষায়)। Special Correspondent। ২০২১-০১-২২। আইএসএসএন 0971-751X। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১২-১৭ 
  11. "सीबीसीएस सिस्टम का विरोध" 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]