অবতারম (চলচ্চিত্র)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
অবতারম
অবতারম (চলচ্চিত্র) পোস্টার.jpg
পরিচালককোডি রামকৃষ্ণ
প্রযোজকএম. যুগান্দার রেড্ডি
রচয়িতাকোডি রামকৃষ্ণ
শ্রেষ্ঠাংশেরাধিকা কুমারস্বামী
ভানুপ্রিয়া
রিচার্ড ঋষি
সত্য প্রকাশ
পৃথ্বীরাজ বালিরেড্ডি
অন্নপূর্ণা
সুরকারঘান্তাদি কৃষ্ণ
চিত্রগ্রাহকশ্রী ভেঙ্কট
সম্পাদকহরি নন্দামুরি
মুক্তি১৮ এপ্রিল ২০১৪
দেশভারত
ভাষাতেলুগু
নির্মাণব্যয়আইএনআর ৮০,০০০,০০০ (আনুমানিক)

অবতারম (অনু. Incarnation) তেলুগু ভাষায় নির্মিত ২০১৪ মুক্তিপ্রাপ্ত কোডি রামকৃষ্ণ রচিত ও পরিচালিত একটি ভক্তিমূলক চলচ্চিত্র। এটিই ছিল ২০১৯ সালে তাঁর মৃত্যুর আগে তৈরি তাঁর শেষ তেলুগু ছবি। এম. যুগান্দার রেড্ডি প্রযোজিত এই চলচ্চিত্রে রাধিকা কুমারস্বামী, ভানুপ্রিয়া, এবং রিচার্ড ঋষি প্রধান চরিত্রে, সত্য প্রকাশ, পৃথ্বীরাজ বালিরেড্ডি, এবং অন্নপূর্ণা সহায়ক চরিত্রে অভিনয় করেছেন। সংগীত পরিচালনায় ঘান্তাদি কৃষ্ণ, সিনেমাটোগ্রাফিতে শ্রী ভেঙ্কট ছিলেন এবং সম্পাদনা করেছিলেন হরি নন্দামুরি।

ছবিটি সিংহ রাশির লোকদের নিয়ে দেবী আক্কাম্মা কীভাবে অন্য একটি দানবকে পরাস্ত করেছিলেন তা নিয়ে গড়ে উঠেছে।[১][২] সিনেমাটি ১৮ এপ্রিল ২০১৪ সালে মুক্তি পায়। তামিল ভাষায় মিনডাম আম্মান নামে এবং হিন্দিতে দি পাওয়ার অবতারাম নামে মুক্তি পেয়েছিল।

পটভূমি[সম্পাদনা]

রাজেশ্বরীর (রাধিকা কুমারস্বামী) রাশি সিংহ (লিও)। সে মাতা দেবী আক্কাম্মার (ভানুপ্রিয়া) ঐশ্বরিক ক্ষমতার প্রতি বিশ্বাস রাখে। এই নিয়েই কাহিনী আবর্তিত হয়। অপরদিকে কারকোটাকুডু (সত্য প্রকাশ)) এক অসুর। ধ্বংস করার জন্য পৃথিবীতে তার অবতরণ। চলচ্চিত্রে ব্যাকস্টোরিতে দেখায় যে বিশ্বকে রক্ষার জন্য আক্কাম্মা নিজেই একটি অতিপ্রাকৃত উপাদান প্রকাশ করেন। তা কেবল উন্নত হতে পারে যখন কোনও সিংহ রাশির কেউ নিজেকে আগুনে উৎসর্গ করে। প্রকাশ পায় যে রাজেশ্বরীর দ্বারা কারকোটাকুডু খুন হতে পারে। তাই একাধিক বার রাজেশ্বরীকে হত্যার চেষ্টা করে কারকোটাকুডু।

ঘটনাক্রমে রাজেশ্বরী বিয়ে করে প্রসাদকে (রিচার্ড ঋষি)। এক ধনী পরিবারের উত্তরাধিকারী প্রসাদের সাথে খারাপ আচরণ করে এবং তার সম্পদ হস্তান্তর করার জন্য তাকে মানসিকভাবে অস্থিতিশীল করার জন্য ড্রাগ প্রয়োগ করে। রাজেশ্বরীর ঈশ্বরত্ব বৃদ্ধি পায় এবং সে স্বামীকে এবং তার পরিবারের মন্দ কাজ থেকে বাঁচায়। কিছু সময়ের পরে তাদের একটি শিশুও জন্মগ্রহণ করে। এখন কারকোটাকুডু তার সমস্ত শক্তি দিয়ে রাজেশ্বরীকে শেষবারের মতো হত্যার চেষ্টা করে। আক্কাম্মা মানব রূপে রাজেশ্বরীর উদ্ধারে আসেন। একাধিক ঘটনায় প্রসাদ ভুলভাবে সরপ-মৎস্য দোষে ভুগতে থাকে। শেষ পর্যন্ত রাজেশ্বরী আক্কাম্মার সাহায্যে সে সবের সমাধা করে। এর পরে তার সন্তানের আত্মাহুতি দেওয়া হয়। এটি গ্রামবাসীদের বিভ্রান্ত করে যে রাজেশ্বরী নিজেই শিশুটিকে হত্যা করেছে। কারকোটাকুডু প্রসাদের পরিবারকে প্রভাবিত করে বোঝায় যে রাজেশ্বরীই তাদের দুর্ভাগ্যের জন্য দায়ী এবং অবশ্যই তাকে দূর করে দিতে হবে। পরিবার তখন রাজেশ্বরীকে বাড়ি থেকে দূর দেয়।

এদিকে এমন সময় আসে যখন মহাবিশ্বের ভারসাম্য বজায় রাখতে আক্কাম্মার অতিপ্রাকৃত শক্তির অধীনে প্রবেশ করতে হয়। তারপরে কারকোটাকুডু প্রসাদের আত্মাকে আক্রমণ করে। তবে রাজেশ্বরীর খাঁটি বিশ্বাস এবং স্ত্রীর ভালবাসার শক্তি (হলুদ এবং কুমকুমের মাধ্যমে) প্রসাদকে বাঁচিয়ে তোলে। তবে প্রসাদের পরিবারের সদস্যরা কারকোটাকুডুর প্রভাবে রাজেশ্বরীর সিঁদুর ও মঙ্গলসূত্র সরিয়ে তাকে সাদা পোশাক পরায়। যদিও স্বামী মারা যায় নি তবুও এই বেশ রাজেশ্বরী বিধবার প্রতীক হয়ে ওঠে।

ভগ্নহৃদয়ে মিথ্যাঅভিযোগে রাজেশ্বরী কোথাও যেতে পারে না। সে আক্কাম্মার মন্দিরে আশ্রয় নেয়। রাজেশ্বরীকে বধ করতে কারকোটাকুডুর চূড়ান্ত সময় এসে যায়। দুর্ভাগ্যক্রমে আক্কাম্মা এবার তাকে সাহায্য করতে পারেনি। আক্কাম্মা কেবল তখনই মুক্তি পেতে পারেন যখন কোনও সিংহ রাশি আত্মত্যাগ করবে। রাজেশ্বরী তার সাথে ঘটে যাওয়া সমস্ত খারাপ ঘটনা দেখে ক্লান্ত হয়ে আত্মহত্যা করার জন্য আগুনে ঝাঁপিয়ে পড়ে। রাজেশ্বরী সিংহ রাশির বলে কারকোটাকুডুর মনে হয় যে এটি আক্কাম্মাকে মুক্তি দিতে পারে এবং তখন তাকে হত্যা করতে পারেন। করকোটাকুডু তার শক্তি দিয়ে এই জ্ঞান সংগ্রহ করে যে অতিপ্রাকৃত শক্তি কোনও বিধবার ত্যাগ স্বীকার করে না এবং রাজেশ্বরী তখন বিধবা হিসাবে প্রতীকী ছিল। রাজেশ্বরীর পিছনে বিবাহিত মহিলা হিসাবে প্রতীকী হওয়ার জন্য অন্যান্য দেবদেবীরা সিঁদুর, মঙ্গলসূত্র, লাল শাড়ি, গোড়ালি, আংটি ইত্যাদির মতো উপকরণ দান করেন যা রাজেশ্বরীর পিছনে বিবাহিত মহিলা হিসাবে প্রতীক হয়ে ওঠে।

অবশেষে এই ত্যাগ স্বীকৃত হয়। আক্কাম্মার আশীর্বাদ এবং পরব্রহ্মের সাহায্যে আগুনের অভ্যন্তরে একটি ঐশ্বরিক শক্তি তৈরি হয় এবং রাজেশ্বরী ঐশ্বরিক নরসিমহি (নরসিংহের স্ত্রী রূপ) -তে রূপান্তরিত হয়। তাঁর মেগা ঐশ্বরিক পরাশক্তি দিয়ে কারকোটাকুডুকে মেরে ফেলে এবং অবশেষে সবকিছু স্বাভাবিক হয়ে যায়। রাজেশ্বরী তার স্বাভাবিক মানব আকার ফিরে পায়। আক্কাম্মা উপস্থিত হন এবং প্রকাশ করেন যে তার সন্তান মারা যায় নি। যখন তাকে বলি দেওয়ার চেষ্টা করা হয়েছিল তখন তিনি তার যত্ন নিয়েছিলেন। তিনি সন্তানকে ফিরিয়ে দিয়ে চলে যান। প্রসাদ তার মানসিক সুস্থতা নিয়ে ফিরে আসার সাথে সাথে তারা সুখের পথে পাড়ি জমায়। ছবিটি জয় মাতা দি বার্তা দিয়ে শেষ হয় (মাতৃদেবীর শুভেচ্ছা)।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Avatharam review: Avatharam (Telugu) Movie Review - fullhyd.com"। Movies.fullhyderabad.com। ২০১৪-০৪-১৮। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৪-২২ 
  2. "Avatharam Movie Review | Avatharam Telugu Movie Review"। 123telugu.com। ২০১৪-০৪-১৮। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৪-২২