অঁরি ফেয়ল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Jump to navigation Jump to search
অঁরি ফেয়ল

অঁরি ফেয়ল (ফরাসি: Henri Fayol; জন্ম: ২৯ জুলাই, ১৮৪১ - মৃত্যু: ১৯ নভেম্বর, ১৯২৫) একজন ফরাসি খনি প্রকৌশলী ও খনির পরিচালক। তিনি ইস্তাম্বুলে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ব্যবসায় প্রশাসন বিষয়ের সাধারণ তত্ত্বের উন্নয়ন সাধন করেছেন।[১] পরবর্তীকালে তিনি ও তাঁর সহকর্মীবৃন্দ বিজ্ঞানসম্মত ব্যবস্থাপনায় এ তত্ত্বের উন্নয়নে স্বতন্ত্র ও খসড়াভাবে কাজ করেছেন। আধুনিক ব্যবস্থাপনার ধারণায় তিনিই সবচেয়ে প্রভাববিস্তারকারী ব্যক্তিত্ব হিসেবে চিহ্নিত হয়ে আছেন। আধুনিক ব্যবস্থাপনা জনক কিংবা প্রশাসনিক ব্যবস্থাপনার জনক হিসেবে তাঁকে গণ্য করা হয়।[২]

জীবনী[সম্পাদনা]

ফেয়ল ১৮৪১ সালে উসমানীয় সাম্রাজ্যের অধীন ইস্তাম্বুল শহরের একটি শহরতলীতে এক মধ্যবিত্ত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন।[৩]তাঁর প্রকৌশলী বাবা স্বর্ণশৃঙ্গ বা গোল্ডেন হর্ন নামক জলপথের উপর দিয়ে নির্মিত গালাতা সেতুর তত্ত্বাবধায়ক ছিলেন। ১৮৪৭ সালে তাঁর পরিবার ফ্রান্সে চলে আসে।[৪] ১৮৬০ সালে সাঁত-এতিয়েন এলাকায় অবস্থিত একল নাসিওনাল সুপেরিয়র দে মিন দ্য সাঁত-এতিয়েন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে তিনি স্নাতক সনদ অর্জন করেন।

ফেয়ল ১৮৬০ সালে মাত্র ১৯ বছর বয়সে ফ্রান্সের কোমঁত্রি শহরে অবস্থিত "কোঁপাইনি দ্য কোমঁত্রি-ফুরশম্বো-দ্যকাজভিল" (ফরাসি Compagnie de Commentry-Fourchambault-Decazeville) নামের একটি খনি প্রতিষ্ঠানে একজন প্রকৌশলী হিসেবে যোগদান করেন। ফেয়ল তাঁর স্বীয় মেধা ও যোগ্যতাবলে ১৮৮৮ সালে প্রায় দেউলিয়া পর্যায়ের ঐ প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক পদে পদোন্নতি লাভ করেন। ১৯০০ সালের মধ্যে প্রতিষ্ঠানটি ফ্রান্সের অন্যতম লৌহ ও ইস্পাত উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়।[৫]

১৯১৮ সালে তিনি যখন এ দায়িত্ব থেকে অবসর নেন তখন প্রতিষ্ঠানটি আর্থিকভাবে সচ্ছল ছিল এবং ঐ সময় প্রতিষ্ঠানটিতে প্রায় দশ হাজার শ্রমিক কাজ করতো। কয়লা খনির শীর্ষ ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব পালনকালে ফেয়ল ব্যবস্থাপনা-বিষয়ক যেসব জটিলতার সম্মুখীন হয়েছিলেন সেগুলো নিরসনে তিনি গভীর মনোনিবেশ করেন। তিনি ১৯১৬ সালে তাঁর গবেষণালব্ধ জ্ঞান ফরাসি ভাষায় আদমিনিস্ত্রাসিওঁ আঁদুস্ত্রিয়েল এ জেনেরাল (Administration Industrielle et Général) শিরোনামের বইটিতে প্রকাশ করেন।[৬]

অবদান[সম্পাদনা]

১৮৭০-এর দশক থেকে ফেয়ল খনিজ বিজ্ঞান বিষয়ে একগুচ্ছ নিবন্ধ লেখেন। তাঁর প্রথমদিককার নিবন্ধগুলি ফরাসি বুলতাঁ দ্য লা সোসিয়েতে দ্য লাঁদুস্ত্রি মিনেরাল (Bulletin de la Société de l'Industrie minérale) নামক গবেষণা পত্রিকায় প্রকাশিত হয়। ১৮৮০-এর দশকের শুরু থেকে তাঁর নিবন্ধগুলি ফরাসি বিজ্ঞান অ্যাকাডেমির মুখপাত্র গবেষণা পত্রিকা কোঁত রঁদু দ্য লাকাদেমি দে সিয়ঁস-এ (Comptes rendus de l'Académie des sciences) প্রকাশিত হত।

শুধুমাত্র নিজস্ব ব্যবস্থাপকীয় অভিজ্ঞতাকে অবলম্বন করে তিনি প্রশাসনিক বিষয়ে নিজ ধারণার উত্তরণ ঘটান। ১৯১৬ সালে প্রশাসনিক ব্যবস্থাপনার উপর তাঁর বই পরবর্তীতে অন্যান্য লেখকদেরকে ব্যাপকভাবে অনুপ্রাণিত করে। একই সময়ে ফ্রেডরিক উইন্সলো টেইলর প্রিন্সিপল্‌স অফ সায়েন্টিফিক ম্যানেজমেন্ট বইটি প্রকাশ করেন।

ব্যবস্থাপনার নীতি প্রবর্তন করেছেন ফেয়ল। তিনি ব্যবস্থাপনার ৫টি কার্যাবলি এবং কেন্দ্রীকরণ ও একতাসহ ১৪টি মূল নীতি প্রবর্তন করেন।[৭]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Morgen Witzel (2003). Fifty key figures in management. Routledge, 2003. ISBN 0-415-36977-0p.96.
  2. "Henri Fayol"The Economist। ২০০৯-০২-১৩। আইএসএসএন 0013-0613। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-১২-২১ 
  3. "Henri Fayol biography, pictures of Henri Fayol, photos"celebiography.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-১২-২১ 
  4. Vliet, Vincent van। "Henri Fayol biography and books, management principles guru | ToolsHero"www.toolshero.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-১২-২১ 
  5. Morgen Witzel (2003). Fifty key figures in management. Routledge, 2003. ISBN 0-415-36977-0p.96.
  6. "Henri Fayol"www.managers-net.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-১২-২১ 
  7. Book: The History of Management Thoughts by Claude S. George Jr

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]