লেনার্ড এডলম্যান

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
লেনার্ড ম্যাক্স এডলম্যান
জন্ম (১৯৩৮-০৪-২৬) এপ্রিল ২৬, ১৯৩৮ (বয়স ৭৫)
কর্মক্ষেত্র কম্পিউটার বিজ্ঞান
আণবিক জীববিজ্ঞান
প্রতিষ্ঠান ইউনিভার্সিটি অব সাউদার্ন ক্যালিফোর্নিয়া
ম্যাসাচুসেট্‌স ইনস্টিটিউট অফ টেকনোলজি
প্রাক্তন ছাত্র ইউনিভার্সিটি অব ক্যালিফোর্নিয়া, বার্কলে
পিএইচডি উপদেষ্টা ম্যানুয়েল ব্লাম
উল্লেখযোগ্য পুরস্কার টুরিং পুরস্কার ২০০২

লেনার্ড ম্যাক্স এডলম্যান(জন্ম ডিসেম্বর ৩১, ১৯৪৫) হলেন একজন তাত্ত্বিক কম্পিউটার বিজ্ঞানী এবং দক্ষিণ ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার বিজ্ঞানআণবিক জীববিজ্ঞানের অধ্যাপক। ১৯৭৭ সালে উদ্ভাবিত আরএসএ(রিভেস্ট-শামির-এডলম্যান) ক্রিপ্টোব্যবস্থার এবং ডিএনএ কম্পিউটিং-এর সহ-উদ্ভাবক হিসাবে তিনি বিখ্যাত হয়ে আছেন। নিরাপত্তা ব্যবস্থাগুলোতে(এমনকি ডিজিটাল স্বাক্ষরেও) আরএসএ ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে।

জীবনী[সম্পাদনা]

ক্যালিফোর্নিয়ায় জন্মগ্রহণ করা এডলম্যান বেড়ে উঠেছেন স্যান ফ্রানসিসকোতে। তিনি ইউনিভার্সিটি অব ক্যালিফোর্নিয়া, বার্কলে থেকে ১৯৬৮ সালে গণিতে বিএ এবং ১৯৭৬ সালে ইলেক্ট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড কম্পিউটার সায়েন্স বিষয়ে ম্যানুয়েল ব্লাম এর তত্ত্বাবধানে পিএইচডি ডিগ্রী অর্জন করেন।

১৯৯৪ সালে তাঁর Molecular Computation of Solutions To Combinatorial Problems শীর্ষক গবেষণাপত্রে, তিনি কম্পিউটিং ব্যবস্থা হিসাবে ডিএনএ'র পরীক্ষামূলক ব্যবহারগুলি বর্ণনা করেছেন। এতে তিনি হ্যামিলটনীয় গ্রাফ জাতীয় সাত-নোডের একটি সমস্যার সমাধান করেন। এই সমস্যাটি ভাসমান বিক্রয়কারী সমস্যার মত একটি এনপি-সম্পূর্ণ সমস্যা। সাত-নোডের এই সমস্যাটির সমাধান মামুলি হলেও তাঁর এই গবেষণাপত্রেই সর্বপ্রথম অ্যালগোরিদমের কম্পিউটিং-এ ডিএনএ কম্পিউটিং ব্যবহার করা হয়। এটা দেখান হয়েছে যে, আরো বেশক'টি বড়মাত্রার কম্বিনেটোরিয়াল সমস্যার সমাধানে ডিএনএ কম্পিউটিং এর সম্ভাবনা রয়েছে।

আরএসএ ক্রিপ্টো-ব্যবস্থার উদ্ভাবণে তাঁর অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ তাঁকে রন রিভেস্ট এবং আদি শামির'র সাথে ২০০২ সালে কম্পিউটার বিজ্ঞানের নোবেল পুরস্কার হিসাবে পরিচিত এসিএম টুরিং পুরস্কারে ভূষিত করা হয়।

ফ্রেড কোহেন তাঁর ১৯৮৪ সালের এক্সপেরিমেন্টস উইথ কম্পিউটার ভাইরাসেস শীর্ষক গবেষণাপত্রে এডলম্যানকে ভাইরাস শব্দটির জনক হিসাবে আখ্যায়িত করেছেন।

এডলম্যান স্নিকারস নামক চলচ্চিত্রের গণিতবিষয়ক পরামর্শদাতার দায়িত্ব পালন করেন।

তাঁর রয়েছে তিনটি সন্তান- জেনিফার(জন্ম ১৯৮০) স্টেফানি(জন্ম ১৯৮৪) এবং লিন্ডসি(জন্ম ১৯৮৭)।

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগসমূহ[সম্পাদনা]