লেক অফ নো রিটার্ন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
লেক অফ নো রিটার্ন
স্থানাঙ্ক ২৭°১৩′৯″ উত্তর ৯৬°৮′৩৭.৯″ পূর্ব / ২৭.২১৯১৭° উত্তর ৯৬.১৪৩৮৬১° পূর্ব / 27.21917; 96.143861স্থানাঙ্ক: ২৭°১৩′৯″ উত্তর ৯৬°৮′৩৭.৯″ পূর্ব / ২৭.২১৯১৭° উত্তর ৯৬.১৪৩৮৬১° পূর্ব / 27.21917; 96.143861
অববাহিকার দেশসমূহ মায়ানমার
সর্বোচ্চ দৈর্ঘ্য ১.৪ কিমি (০.৮৭ মা)
সর্বোচ্চ প্রস্থ ০.৮ কিমি (০.৫০ মা)
পৃষ্ঠতলীয় উচ্চতা ৮৬৫ মি (২,৮৩৮ ফু)
Islands না
লেক অফ নো রিটার্ন মায়ানমার-এ অবস্থিত
লেক অফ নো রিটার্ন
বার্মায় লেক অফ নো রিটার্নের অবস্থান

লেক অফ নো রিটার্ন বার্মার পাঙসাউ পসে (৩৭২৭') ভারত-বার্মা সীমান্তের পাঙসাউ গ্রামের জঙ্গলে অবস্থিত একটি হৃদ। হৃদটির দৈর্ঘ্য ১.৪ কি.মি এবং এর প্রশস্থতা ০.৮ কি.মি। হৃদটি লেদু সড়কের (স্টিওয়াল সড়ক নামেও পরিচিত ছিল) ২.৫ কি.মি. দক্ষিণ-পশ্চিমে অবস্থিত। এই সড়কটি ১৯৪২ সালে চাইনিজ আর্মির রসদ আনা নেওয়ার জন্য তৈরি করা হয়েছিল। বর্তমানে হৃদটি ভারত-বার্মার পর্যটকদের কাছে অনেক জনপ্রিয় জায়গা।

কিংবদন্তী[সম্পাদনা]

হৃদের নামকরন নিয়ে অনেক ধরনের গল্প প্রচলিত। ভারতের চেঙলেং জেলার ওয়েবসাইট অনুসারে, দ্বিতীয় বিশ্ব যুদ্ধের সময় এখানে কয়েকটি বিমান ক্রেশ করেছিল।[১] ভারতীয় মিডিয়া[২] ও কল্পকাহিনীতেও এই ঘটনার বিবরন পাওয়া যায়।[৩] দ্বিতীয়টি হলো, একদল জাপানি সৈন্য পথ হারিয়ে এই হৃদের পারে চলে আসে ও ম্যালেরিয়ায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু বরণ করে। আবার অনেকের মতে, একদল ব্রিটিশ সৈন্য ১৯৪২ সালে এখানে চোরাবালির মধ্যে পরে হারিয়ে যায়।[৪] এজন্য এই হৃদের নাম দেয়া হয়েছে লেক অফ নো রিটার্ন।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "A profile of Changlang district: The place of interests"। National Informatics Centre, Changlang District Unit। 2003। 
  2. "A trip to hidden paradise - Arunachal festival promises a journey to the unknown"। The Telegraph (Kolkata)। 2007-01-18। 
  3. Dai, Mamang (2006)। The Legends of Pensam। Penguin। পৃ: 40। আইএসবিএন 978-0-14-306211-0 
  4. Hoefer, Hans; Samuel Israel, Bikram Grewal, Hans Johannes Hoefer (1985)। India। Apa (Hongkong)। আইএসবিএন 978-0-13-456856-0  |coauthors= প্যারামিটার অজানা, উপেক্ষা করুন (সাহায্য)

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]