মৃগী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

মৃগী (কথ্য ভাষায় ফিটের ব্যামো) বার বার স্নায়বিক কারণে ফিট অর্থাৎ হঠাৎ খিচুনি বা অজ্ঞান হয়ে যাবার রোগ। এটি একপ্রকার মস্তিষ্কের রোগ; চিকিৎসা বিজ্ঞানের ভাষায় যাকে বলা হয় "নিউরোলোজিক্যাল ডিজিজ"। মানব মস্তিষ্কের কার্যপ্রণালীতে বিঘ্ন সৃষ্টি হলে এই রোগ দেখা দেয়। উনবিংশ শতাব্দীতে গবেষকদের ধারণা ছিল মৃগী রোগ থাকলেই ব্যক্তির বুদ্ধি-বিচার-বিবেচনা বোধের উৎকর্ষ কমে যায়। কিন্তু বর্তমানকালের গবেষকরা মনে করেন, মৃগী রোগে আক্রান্তদের খুব কম অংশে বিচার-বুদ্ধিমত্তার ঘাটতি দেখা যায়।

মৃগীয় ব্যক্তিত্ব[সম্পাদনা]

গবেষকরা মৃগী রোগীদের "মৃগীয় ব্যক্তিত্ব" বা "ইপিলেপ্টিক পার্সোনালিটি" নামে অভিহিত করেন। এই এপিলেপ্টিক পার্সোনালিটির বৈশিষ্ট্যগুলো ছিল-

  • ঝগড়া করার প্রবণতা
  • অস্বাভাবিক আত্মকেন্দ্রিকতা
  • খিটখিটে তিরিক্ষি মেজাজ
  • ধর্মের দিক হতে গোঁড়া
  • যেকোনো প্রসঙ্গ নিয়েই চিন্তা করতে থাকা ইত্যাদি।

মানসিক প্রতিক্রিয়া[সম্পাদনা]

যেসব মানুষ দীর্ঘদিন যাবৎ মৃগী রোগে ভুগছেন তাদের মানসিকতায় কিছু মৌলিক পরিবর্তন লক্ষ্য করা যায়। গবেষণায় দেখা গেছে যে, মৃগী রোগীদের ২০ শতাংশের ক্ষেত্রে এ রকমের স্খায়ী কিছু পরিবর্তন দেখা যায়। এই পরিবর্তনগুলো হলোঃ

  • ব্যক্তিত্বের পরিবর্তন
  • বুদ্ধিমত্তার ঘাটতি
  • স্বেচ্ছাপ্রণোদিতভাবে নিজের ক্ষতিসাধন
  • বিষণ্ণতাগ্রস্ততা
  • আবেগ মনোবৃত্তি বৃদ্ধি
  • আত্মহত্যার প্রবণতা
  • সিজোফেন্সনিয়ায় আক্রান্ত হওয়া ইত্যাদি।

চিকিৎসা[সম্পাদনা]

মৃগী রোগের উপযুক্ত চিকিৎসা রয়েছে। মৃগী রোগীর ব্যাপারে মানসিক বিশেষজ্ঞ নানাভাবে সাহায্য করতে পারেন। যথাসময়ে চিকিৎসা করা না-হলে জটিলতা বৃদ্ধি পায় এবং তা দীর্ঘদিন ধরে চলতে থাকলে মানসিক সমস্যারও সৃষ্টি হতে পারে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]