বৃষ (তারকামণ্ডল)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
অন্য ব্যবহারের জন্য দেখুন বৃষ (দ্ব্যর্থতা নিরসন)
Taurus
তারামণ্ডল
Taurus
সংক্ষিপ্ত রূপ Tau[১][২]
জেনিটিভ টাউরি[১]
বিষুবাংশ ৪ ঘণ্টা
বিষুবলম্ব +১৫°
আয়তন ৭৯৭ বর্গডিগ্রি (১৭তম)
প্রধান তারা
বায়ার/ফ্ল্যামস্টিড
তারাসমূহ
১৫
বহির্গ্রহবিশিষ্ট তারা
৩.০০m-এর অধিক
তারা উজ্জ্বল
১০.০০ pc (৩২.৬২ ly) মধ্যে তারা
উজ্জ্বলতম তারা Aldebaran (আলফা টাউ) (০.৯m)
নিকটতম তারা ১০ টাউরি
ly,  pc)
মেসিয়ার বস্তু
উল্কাবৃষ্টি টাউরিড্‌স
বিটা টাউরিড্‌স
সীমান্তবর্তী তারামণ্ডল অরিগা মণ্ডল
পরশু মণ্ডল
মেষ রাশি
তিমি মণ্ডল
যামী মণ্ডল
কালপুরুষ মণ্ডল
মিথুন রাশি
+৯০° ও −৬৫° অক্ষাংশের মাঝে দৃশ্যমান।
জানুয়ারি মাসে রাত ৯ টায় সবচেয়ে ভাল দেখায়।
জ্যোতিষ শাস্ত্রের আলোকে বৃষ রাশি সম্বন্ধে জানতে হলে দেখুন: বৃষ রাশি (জ্যোতিষ শাস্ত্র)

বৃষ রাশি (ইংরেজি: Taurus) পৃথিবী থেকে দৃশ্যমান মহাকাশের একটি তারামণ্ডল। তারা মণ্ডল হলেও ১২ টি রাশির একটি বিধায় একে বৃষ রাশি বলা হয়। এই রাশিটি কালপুরুষ মণ্ডলের উত্তর-পশ্চিম দিকে অবস্থিত।

গুরুত্বপূর্ণ বিষয়সমূহ[সম্পাদনা]

গুরুত্বপূর্ণ গভীর আকাশের বস্তুসমূহ[সম্পাদনা]

তারাসমূহ[সম্পাদনা]

কালপুরুষের কোমর বন্ধনী উপররের দিকে বাড়িয়ে দিলে তা একটি বড় তারার পাশ দিয়ে যায়। এই তারাটি আর্দ্রা নামক তারার ৯° উত্তরে এবং ১৫° পশ্চিমে অবস্থিত। এটিই বৃষ রাশির প্রথম তারা যার নাম আলফা-টরি। এর বাংলা নাম রোহিণী। এই তারাটি নক্ষত্রের একটি যোগতারা তথা প্রধান তারা। এজন্যই এর এ ধরণের নামকরণ করা হয়েছে। পাশ্চাত্য জগতে একে আলদিবরণ নামে ডাকা হয়। আরবি ভাষায় এর নাম আলদাবরান যার অর্থ যে তাড়া করে। আলফা-টরি পশ্চিমে কৃত্তিকা নক্ষত্র অবস্থিত যার আরবি নাম সুরাইয়া। সুরাইয়াকে তাড়া করে তথা এর পিছনে পিছনে যায় বলেই এর এই নাম রাখা হয়েছে।

আলফা-টরির পাশে ছোট ছোট কয়েকটি তারা মিলে একটি তারা স্তবক সৃষ্টি করেছে। এটি একটি মুক্ত স্তবক। একেই রোহিণী নক্ষত্র বলা হয়। পাশ্চাত্য জগতে এর নাম Hyades। এই নক্ষত্রের তারাগুলো এবং আলফা-টরি মিলে একটি V-আকৃতি গঠন করে যা দ্বারা বৃষ রাশির প্রতীকী ষাঁড়ের মুখ কল্পনা করা হয়। আলফা-টরি এই মুখের দক্ষিণ চোখ। এ হিসেবে বৃষের মুখ ও চোখ কিন্তু পৃথিবী থেকে সমান দূরে থাকার কথা। কিন্তু প্রকৃতপক্ষে মুখ গঠনকারী তারা স্তবকের ছোট ছোট তারাগুলো থেকে আলফা-টরি প্রায় ৩৭ আলোকবর্ষ দূরে অবস্থিত। অর্থাৎ রোহিণী নক্ষত্রের তারাগুলোর সাথে রোহিণী তারার (আলফা-টরির অপর নাম) কোন সম্পর্ক নেই। পৃথিবী থেকে কেবল এগুলোকে আমাদের একই দৃষ্টিরেখায় অবস্থিত বলে মনে হয়। এই আলফা-টরিকে বাদ দিলেও মুখের তারাগুলো প্রায় ৫৪ আলোকবর্ষ পরিমাণ স্থান অধিকার করে আছে। এই তারাগুলো সূর্য থেকে প্রতি সেকেন্ডে ২৮.৬ মাইল বেগে দূরে সরে যাচ্ছে। মুখে অবস্থিত তারাগুলোর এই গুচ্ছের কেন্দ্র আমাদের থেকে ১৩০ আলোকবর্ষ দূরে অবস্থিত। বৃষ রাশিচক্রের মধ্যে আলফা-টরি সবচেয়ে উজ্জ্বল তারা। এর ব্যাস সূর্যের ব্যাসের প্রায় ৪০ গুণ বেশী। এর কাছাকাছি আরও তিনটি তারা রয়েছে যেগুলো অন্য মণ্ডলে অবস্থিত। এগুলো হল মঘা (Regulus), জ্যেষ্ঠা (Antares) এবং মৎস্যমুখ (Fomalhaut)। এই তিনটি এবং আলফা-টরি তথা আলদিবরণ; এই চারটি তারাকে একসাথে রাজকীয় তারা (Royal stars) বলা হয়।

আলফা-টরির উত্তর-পশ্চিমে ছোট কয়েকটি তারা মিলে একটি সুন্দর গুচ্ছ তৈরি করেছে।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

পুরাণ[সম্পাদনা]

সচিত্র বর্ণনা[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. ১.০ ১.১ "The Constellations". IAU. Retrieved 2010-02-09.
  2. Russell, Henry Norris। "The New International Symbols for the Constellations"। Popular Astronomy 30: 469। বিবকোড:1922PA.....30..469R 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]