দ্য ম্যান ফ্রম সেন্ট পিটার্সবার্গ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

দ্য ম্যান ফ্রম সেন্ট পিটার্সবার্গ (ইংরেজি: The Man from St. Petersburg) ব্রিটিশ রোমাঞ্চ উপন্যাস লেখক কেন ফলেট কর্তৃক লিখিত একটি বেস্ট-সেলার উপন্যাস। এতে প্রথম বিশ্বযুদ্ধের পটভূমিকায় রাশিয়া এবং ইংল্যান্ডের অভিজাত এবং সাধারণ মানুষের জীবন আর সমাজতান্ত্রিক ও অ্যানার্কিস্টদের বিপ্লব ছিল মূল উপজীব্য। উপন্যাসটি দুই খণ্ডে সমাপ্ত হয়েছে। মূল ভূমিকায় সুইজারল্যান্ড থেকে এক রাশিয়ান প্রিন্সকে হত্যার উদ্দেশ্যে ইংল্যান্ডে আসা একজন অ্যানার্কিস্ট তথা সন্ত্রাসবাদী কম্যুনিস্ট। তার নাম ফেলিক্স।

কাহিনী[সম্পাদনা]

চরিত্রসমূহ[সম্পাদনা]

  • ফেলিক্স ক্‌শেসিনস্কি: রাশিয়ান অ্যানার্কিস্ট। রাশিয়া থেকে বন্দী হয়ে সাইবেরিয়ায় নির্বাসন কাটানোর পর জার্মানি হয়ে সুইজারল্যান্ডে আশ্রয় গ্রহণ করে। সেখান থেকে লর্ড অরলভকে হত্যার উদ্দেশ্য নিয়ে ইংল্যান্ডে আসে। ফেলিক্স উপন্যাসের মূল চরিত্র। অসম সাহসিকতা তার চরিত্রের মূল বৈশিষ্ট্য। সন্ত্রাসবাদী কম্যুনিস্ট হিসেবে গড়ে উঠার খাতিরে এখন সে একজন তততায়ী।
  • স্টিফেন ওয়ালডেন: লর্ড ওয়ালডেন। আর্ল অফ ওয়ালডেন নামেও পরিচিত। একজন কনজারভেটিভ রাজনীতিবিদ ও অভিজাত পরিবারের প্রধান। বাবার জীবদ্দশায় কখনই তাকে পছন্দ করতে পারেননি। তাই রাশিয়ায় চলে যান দূতাবাসের কাজে। বাবা মারা যাওয়ার পর রাশিয়ান ককটি মেয়েকে বিয়ে করে দেশে ফিরে আসেন। তার চরিত্রের মূল দিক ছিল ধৈর্য্য, সংযম ববং যুক্তিবাদীতা।
  • লিডিয়া ওয়ালডেন: লর্ড ওয়ালডেনের স্ত্রী ও ফেলিক্সের প্রাক্তন প্রেমিকা। যৌবনকালে ফেলিক্সের প্রেমে পাগল হয়ে গিয়েছিলেন। অন্ধ যৌন আবেগ তাকে গ্রাস করেছিল। ফেলিক্সকে জীবনে না পেলেও কখনই তাকে ভুলতে পারেননি। তাকে হারিয়ে লিডিয়ার যৌন আবেগ অনেকটাই চলে যায়। দুই সন্তানের জন্ম দেন। মেয়ে শার্লট সসলে ফেলিক্সেরই মেয়ে। কারণ বিয়ের সাত মাসের মাথায় তার জন্ম হয়েছিল। শেষ বয়সে একটি ছেলে হয় যার নাম আলেক্স ওয়ালডেন
  • শার্লট ওয়ালডেন: ওয়ালডেনের মেয়ে। নারী অধিকার বিষয়ে সোচ্চার ও মানবতাবাদী। বাবা ফেলিক্সের চরিত্র থেকে মৌলিক বৈশিষ্ট্যগুলো সে অর্জন করেছিল। ছিল অদম্য সাহস, সবকিছু নিজের যুক্তিতে বুঝতে চাওয়ার প্রবণতা, সাধারণ মানুষের প্রতি মমত্ববোধ।
  • লর্ড অরলভ: লিডিয়ার বড় বোনের বড় ছেলে। রাশিয়ার অভিজাত পরিবারের সদস্য। ইংল্যান্ডের সাথে চুক্তি করার উদ্দেশ্যে জারের আদেশে ইংল্যান্ডে আসে।
  • বেলিন্ডা: শার্লটের চাচাতো বোন ও বান্ধবী।
  • অ্যানি: ওয়ালডেন পরিবারের চাকরানী।
  • মিসেস প্যাঙ্কহার্স্ট: নারীদের ভোটাধিকার আদায়ের লক্ষ্যে আন্দোলনরত একজন নারীবাদী নেত্রী। স্যাফ্রাজেটদের নেতৃত্ব দিয়ে থাকেন।
  • উইলস্টন চার্চিল: ইংল্যান্ডের উর্ধ্বতন রাজনীতিবিদ এবং লিবারেল সরকারের মন্ত্রী।
  • থমসন: স্কটল্যান্ড ইয়ার্ডের গোয়েন্দা প্রধান।
  • ফ্রিডি: শার্লটের সাথে তার বিয়ের কথাবার্তা হয়েছিল।

ঐতিহাসিকতা[সম্পাদনা]

উপন্যাসটিতে বেশ কিছু ঐতিহাসিক বিষয়ের উল্লেখ দেখতে পায়য়া যায়। কেবল উল্লেখই নয় ততিহাসের উপাদান কাহিনীর সাথে ওতোপ্রতভাবে জড়িত ছিল। ততিহাসিক যে বিষয়গুলোকে বিশেষভাবে বলা যায় সেগুলো হল:

বংলা অনুবাদ[সম্পাদনা]

বইটির বাংলা অনুবাদ করেছেন শেখ আবদুল হাকিম। বাংলা অনুবাদটির নাম দেয়া হয়েছে আততায়ীসেবা প্রকাশনী এই অনুবাদটি প্রকাশ করেছে।