চার্লস কর্নওয়ালিস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
General The Most Honourable

লর্ড চার্লস কর্নওয়ালি

KG
The Marquess Cornwallis
Portrait by John Singleton Copley, circa 1795.
Governor-General of the Presidency of Fort William
কার্যালয়ে
12 September 1786 – 28 October 1793
রাষ্ট্রশাসক George III
পূর্বসূরী Sir John Macpherson, Bt
As Acting Governor-General
উত্তরসূরী Sir John Shore
কার্যালয়ে
30 July 1805 – 5 October 1805
রাষ্ট্রশাসক George III
পূর্বসূরী The Earl of Mornington
উত্তরসূরী Sir George Barlow, Bt
As Acting Governor-General
Lord Lieutenant of Ireland
কার্যালয়ে
14 June 1798 – 27 April 1801
রাষ্ট্রশাসক George III
পূর্বসূরী The Earl Camden
উত্তরসূরী The Earl Hardwicke
Wye-এর জন্য
সংসদ সদস্য
কার্যালয়ে
January 1760 – 23 June 1762
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম Charles Cornwallis
(১৭৩৮-১২-৩১)৩১ ডিসেম্বর ১৭৩৮
Grosvenor Square
Mayfair, London
Great Britain
মৃত্যু ৫ অক্টোবর ১৮০৫(১৮০৫-১০-০৫) (৬৬ বছর)
Gauspur, Ghazipur
Kingdom of Kashi
জাতীয়তা British
দাম্পত্য সঙ্গী Jemima Tullekin Jones
অধ্যয়নকৃত শিক্ষা
প্রতিষ্ঠান
Eton College
Clare College, Cambridge
জীবিকা Military officer, Colonial administrator
স্বাক্ষর Signature of The Marquess Cornwallis
সামরিক পরিষেবা
আনুগত্য যুক্তরাজ্য Great Britain (1757-1801)
যুক্তরাজ্য United Kingdom (1801-1805)
সার্ভিস/বিভাগ British Army
চাকুরির বছর 1757–1805
পদ General
যুদ্ধ Seven Years' War
American War of Independence
Third Mysore War
Irish Rebellion of 1798
পুরস্কার Knight Companion of The Most Noble Order of the Garter
Monarch George II
George III

লর্ড চার্লস কর্নওয়ালিস একজন ব্রিটিশ সামরিক অধিনায়ক যিনি গভর্নর জেনারেল হিসাবে ব্রিটিশ ভারত শাসন ক'রে ইতিহাসে অমর হয়ে আছেন। ১৭৩৮ খ্রিস্টাব্দের ৩১ ডিসেম্বর নববর্ষের প্রাককালে কর্নওয়ালিসের জন্ম হয় লন্ডনের মেফেয়ারে একটি অভিজাত পরিবারে। আমেরিকার স্বাধীনতা আন্দোলনকালে একজন ডাকসাইটে ব্রিটিশ জেনারেল হিসেবে তার পরিচিতি ছিল সর্বত্র। ভারত এবং আয়ারল্যান্ডে দায়িত্ব পালনকালে উভয় দেশে তিনি পার্মানেন্ট সেট্লমেন্ট এবং অ্যাক্ট অব ইউনিয়ন নামে দুটি যুগান্তকারী আইন পাস করেন।

জীবন[সম্পাদনা]

১৭৬২-৯২ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত তিনি ছিলেন ব্রিটিশ সেনা কর্মকর্তা ও ঔপনিবেশিক শাসক। ১৭৫৭ খ্রিস্টাব্দে সামরিক বাহিনীতে প্রবেশ করেন। ১৭৬২ সালে বাবা চার্লস কর্নওয়ালিসের (পঞ্চম ব্যারন কর্নওয়ালিস) মৃত্যুর পর তিনি আর্লের (ব্রিটেনের সম্ভ্রান্ত ব্যক্তিবিশেষ) পদমর্যাদায় হাউস অব লর্ডসে বাবার স্থলাভিষিক্ত হন। তিনি আমেরিকার স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশগ্রহণকার প্রসিদ্ধ ব্রিটিশ সামরিক অধিনায়ক। তবে ১৯৮১ খ্রিস্টাব্দে সাউথ ক্যারোলাইনাতে ব্যাটল অব ইয়র্কটাউনে মার্কিন ও ফরাসী বাহিনীর হাতে তিনি পর্যুদস্ত হন। ১৭৮৬ খ্রিস্টাব্দে তাকে নাইট খেতাবে ভূষিত করা হয়। অত:পর তাকেঁ গভর্নর জেনারেল এবং কমান্ডার ইন চিফ নিযুক্ত করে ভারতে প্রেরণ করা হয়। তৃতীয় মহীশূর যুদ্ধে (শ্রীরঙ্গপত্তমের যুদ্ধ) বিশ্বাসঘাতকতার সুযোগে তিনি টিপু সুলতানকে পরাজিত করতে সক্ষম হন। ১৭৯৩ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত তিনি গভর্নর জেনারেল হিসাবে ব্রিটিশ ভারত শাসন করেন।

আমেরিকায় পরাজয়[সম্পাদনা]

বলা হয় তাঁর কারণেই আমরিকা ব্রিটিশদের হাত ছাড়া হয়ে যায়। তিনি আমেরিকার স্বাধীনতা সংগ্রাম অবদমনে সাফল্যের সঙ্গে যুদ্ধ করলেও ১৯৮১ খ্রিস্টাব্দে সাউথ ক্যারোলাইনাতে ব্যাটল অব ইয়র্কটাউনে মার্কিন ও ফরাসী বাহিনীর হাতে পর্যুদস্ত হন। ১৭৭৬ খ্রিস্টাব্দে একজন মেজর জেনারেল হিসাবে তাঁর মার্কিন ভূমিতে আগনম। তবে কয়েক বৎসরের মধ্যেই তিনি দক্ষিণের প্রধান সামরিক অধিনায়কের দায়িত্ব লাভ করেন। অধিকতর ব্রিটিশ সৈন্য আগমনে বিলম্ব হওয়ার কারণে ন্যাথনেল গ্রীনের বাহিনের কাছে তাঁর পরাজয় হয়।

চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত প্রথা[সম্পাদনা]

ভারতের ভূ-মালিকানা ব্যবস্থায় যুগান্তকার পরিবর্তন আনেন লর্ড কর্নওয়ালিস। তিনি ১৭৯৩ খ্রিস্টাব্দে চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত প্রথা প্রবর্তন করেন। এই প্রথা কার্যত ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি সরকার ও বাংলার জমি মালিকদের (সকল শ্রেণীর জমিদার ও স্বতন্ত্র তালুকদারদের) মধ্যে সম্পাদিত একটি যুগান্তকারী চুক্তি। এই চুক্তির আওতায় জমিদার ঔপনিবেশিক রাষ্ট্রব্যবস্থায় ভূ-সম্পত্তির নিরঙ্কুশ স্বত্বাধিকারী হন। জমির স্বত্বাধিকারী হওয়া ছাড়াও জমিদারগণ স্বত্বাধিকারের সুবিধার সাথে চিরস্থায়ীভাবে অপরিবর্তনীয় এক নির্ধারিত হারের রাজস্বে জমিদারিস্বত্ব লাভ করেন।

মৃত্যু[সম্পাদনা]

লর্ড কর্নওয়ালিস ১৮০৫ খ্রিস্টাব্দের ৫ অক্টোবর ভারতের গাজীপুরের গাউসপুরে মারা যান।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]


বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]