হেরাত

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(Herat থেকে পুনর্নির্দেশিত)
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
স্থানাঙ্ক: ৩৪°২০′৩১″ উত্তর ৬২°১২′১১″ পূর্ব / ৩৪.৩৪২° উত্তর ৬২.২০৩° পূর্ব / 34.342; 62.203
হেরত
هرات
View of Herat in 2009.jpg
Afghanistan locator map.svg
Red pog.svg

হেরত

Province Herāt
Coordinates ৩৪°২০′৩১″ উত্তর ৬২°১২′১১″ পূর্ব / ৩৪.৩৪২° উত্তর ৬২.২০৩° পূর্ব / 34.342; 62.203
Population  (2006)
৩,৪৯,০০০ (2nd)
Central Statistics Office of Afghanistan
Area
 - Elevation
১৮২ কিমি (৭০ মা)
৯২০ মি (৩,০১৮ ফু)
Time zone UTC+4:30 Kabul

হেরত (ফার্সি ভাষায়: هرات) উত্তর-পশ্চিম আফগানিস্তানে হারিরুদ নদীর উপর অবস্থিত শহর এবং হেরত প্রদেশের রাজধানী। ধারণা করা হয় খ্রিস্টপূর্ব ৪র্থ শতকে মহামতি আলেকজান্ডার শহরটি প্রতিষ্ঠা করেন। খ্রিস্টীয় ৭ম শতকে মুসলমানেরা শহরটি দখল করে। ১৩৮১ সালে তুর্কি সেনাপতি তৈমুর লঙ শহরটিকে তার রাজধানী বানান। এরপর শহরটি পারসিক শিল্পকলা ও জ্ঞানচর্চার কেন্দ্রে পরিণত হয়। ১৭৪৯ সালে আফগানেরা হেরত দখল করে। শহরের প্রধান স্থাপত্যের মধ্যে আছে পুরাতন শহরের প্রাচীর ও দরজাগুলি, ইসলামী সমাধিসমূহ, এবং শহরের জামে মসজিদ। শহরটি খাদ্যশস্য, ফল, সবজি ও আশেপাশের অঞ্চলের ভেড়ার একটি বাণিজ্যকেন্দ্র।

জনসংখ্যা[সম্পাদনা]

২০১৩ সালে হেরাতের জনসংখ্যা ছিল প্রায় ৪৩৬,৩০০ জন। এই শহরে একটি বহু-জাতিগত সমাজ রয়েছে এবং ফার্সি ভাষাভাষীরা সংখ্যাগরিষ্ঠ।[১] নগরীর জনসংখ্যার সঠিক জাতিগত কোন সঠিক পরিসংখ্যানগত তথ্য নেই, তবে ২০০৩ সালের ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক ম্যাগাজিনে পাওয়া ম্যাপ অনুসারে, ফার্সি ভাষী তাজিক এবং ফারসিওয়ান মোট জনগোষ্ঠীর প্রায় ৬৫%, বাকী জনসংখ্যায় পশতুন (৩০%), হাজারারা (২%), উজবেক (২%) এবং তুর্কমেনীয় (১%) রয়েছে।[২]

হেরাতের স্থানীয় ভাষা ফার্সি যা স্থানীয় ভাবে হেরাতি নামে পরিচিত। এটি পূর্ব ইরানের ফার্সি উপভাষাদের অনুরূপ, বিশেষত মাশহাদ ও খোরাসান প্রদেশের, যা হেরাত সীমান্তে অবস্থিত। এই ফার্সি উপভাষাটি শহরের লিঙ্গুয়া ফ্র্যাঙ্ক হিসাবে কাজ করে। দ্বিতীয় যে ভাষাটি অনেকে বুঝতে পারে তা হল পশতু, যা পশতুনদের মাতৃভাষা। হেরাতের স্থানীয় পশতু ভাষাগুলি পশ্চিম পশতুন ভাষার একটি রূপ, যা কান্দাহার এবং দক্ষিণ ও পশ্চিম আফগানিস্তানের কথ্য ও ধর্মীয়ভাবে, সুন্নি ইসলাম সংখ্যাগরিষ্ঠদের দ্বারা অনুশীলন করা হয়, এবং শিয়া সংখ্যালঘু দ্বারাও।

এই শহরে একসময় ইহুদি সম্প্রদায় ছিল। ১৯৪৮ সালের হিসাবে হেরতে প্রায় ২৮০টি পরিবার বাস করত, তবে তাদের বেশিরভাগই সে বছর ইস্রায়েলে চলে গিয়েছিল এবং ১৯৯৯ সালের মধ্যে এই সম্প্রদায়টি অদৃশ্য হয়ে যায়। শহরের পুরানো প্রান্তিকে চারটি প্রাক্তন উপাসনালয় রয়েছে, যেগুলি কয়েক দশক ধরে অবহেলিত এবং অবসন্নতায় পড়ে রয়েছে। ২০০০ এর দশকের শেষদিকে, আগা খান ট্রাস্ট ফর কালচারের মাধ্যমে উপাসনালয়গুলির ভবনগুলি সংস্কার করা হয়েছিল এবং এই সময়ে তাদের তিনটি স্কুল এবং নার্সারিতে পরিণত হয়েছিল, ইহুদি সম্প্রদায় বিলুপ্ত হয়েছিল। ইহুদি কবরস্থানটির দেখাশোনা করছেন জলিল আহমেদ আবেদেলাজিজ।[৩]

যোগাযোগ[সম্পাদনা]

হেরাত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরটি ১৯৬০ এর দশকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রকৌশলীরা তৈরি করেছিলেন এবং ১৯৮০ এর দশকে সোভিয়েত-আফগান যুদ্ধের সময় সোভিয়েত সশস্ত্র বাহিনী এটি ব্যবহার করেছিল। অপারেশন এন্ডুরিং ফ্রিডম চলাকালীন ২০০১ এর শেষ দিকে এটিতে বোমা ফেলা হয়েছিল, তবে পরের দশকের মধ্যে এটি পুনর্নির্মাণ করা হয়েছিল। বিমানবন্দরের রানওয়েটি প্রসারিত ও আপগ্রেড করা হয়েছে এবং ২০১৪ সালের আগস্ট পর্যন্ত দিল্লি, দুবাই, মাশাদ এবং আফগানিস্তানের বিভিন্ন বিমানবন্দরে নিয়মিত সরাসরি বিমান চলাচল করত। কমপক্ষে পাঁচটি এয়ারলাইনস নিয়মিত কাবুলে সরাসরি ফ্লাইট পরিচালনা করত।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Welcome – Naval Postgraduate School" (PDF)www.nps.edu 
  2. "2003 National Geographic Population Map" (PDF)Thomas Gouttierre, Center For Afghanistan Studies, University of Nebraska at Omaha; Matthew S. Baker, StratforNational Geographic Society। ২০০৩। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৪-১১ 
  3. "Relics of old Afghanistan reveal Jewish past"Reuters। ২৪ জুন ২০০৯।