রোনাল্ড কজ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

রোনাল্ড হ্যারি কজ (২৯ ডিসেম্বর ১৯১০-২সেপ্টেম্বর ২০১৩) একজন ব্রিটিশ অর্থনীতিবিদ ও লেখক। তিনি শিকাগো আইন স্কুল বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতির ক্লিফটন আর. ম্যাসার প্রফেসর,  যেখানে তিনি ১৯৬৪ সালে আসেন এবং জীবনের শেষ অবধি অবস্থান করেন। তিনি ১৯৯১ সালে অর্থনীতি বিজ্ঞানে নোবেল সৃতি পুরস্কার গ্রহণ করেন।

কজ বিশ্বাস করতেন অর্থনীতিবিদের উচিৎ প্রকৃত বাজার নিয়ে গবেষণা করা, তাত্ত্বিক বিষয় নিয়ে নয়। কজ বিশেষত দুটি নিবন্ধনের জন্য সব চেয়ে বেশি পরিচিত। ‘’ দ্যা ন্যাচার অব দ্যা ফারম’’(১৯৩৭), যেটা ন্যাচার এবং কারবারের সীমা ব্যাখ্যা করতে লেনদেনের খরচ ধারণার সাথে পরিচয় করিয়ে দেয়; এবং ‘’ দ্যা প্রবলেম অব সসিয়াল কোস্ট’’(১৯৬০), যেটা প্রস্তাব করে যে সুস্পষ্ট সম্পত্তির অধিকার বাহ্যিকতার সমস্যা অতিক্রম করতে পারে। তাছারাও, কজের লেনদেন খরচ পন্থা বর্তমানে আধুনিক অর্গানাইজেশন অর্থনীতিতে প্রভাবিত,  যেখানে এটা অলিভার ই. উইলিয়ামসন পুনঃপ্রবর্তন করেন।

জীবনী[সম্পাদনা]

রোনাল্ড হ্যারি কজ ২৯ শে ডিসেম্বর ১৯১০ সালে লন্ডনের উপশহর উইলেসডেনে জন্ম গ্রহণ করেন। তার বাবা, হেনরি জোসেফ কজ (১৮৮৪-১৯৭৩) পোস্ট অফিসের টেলেগ্রাফিস্ট ছিলেন, যেমন বিয়ের পূর্বে তার মা রসালিয়ে এলিজাবেথ কজ ছিলেন। ছোটবেলায় কজের পায়ে দুর্বলতা ছিলো, যার ফলে তাকে লোহার পা পরতে হতো।  এই সমস্যার কারণে তাকে শারীরিক প্রতিবন্ধীদের স্কুলে দেওয়া হয়ে ছিল।  ১২ বছর বয়সে কিল্বারন গ্রামার স্কুলে বৃত্তি নিয়ে প্রবেশ করতে সক্ষম হন।

কিল্বারনে ১৯২৭-২৯ সালে তিনি লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয়ে এক জন বহিরাগত ছাত্র হিসাবে উচ্চমাধ্যমিকে পড়াশোনা করেন। কজ ১৯৩৭ সালের ৭ আগস্টে ইংল্যান্ডের উইলেসডেনের ইলিনয়ে শিকাগোয়ের ম্যারিয়ন রুথ হারটাংকে বিয়ে করেন। যদিও তারা সন্তান জন্মদানে অক্ষম ছিল, তবুও তারা ৭৫ বছর পর্যন্ত বিবাহিত জীবন পার করে, যে পর্যন্ত না ২০১২ সালে তার স্ত্রীরির মৃত্যু ঘটে এবং অন্যতম বিবাহিত নোবেল বিজয়ী হন।

কজ লন্ডন ইকোনমিক স্কুলে যান, যেখানে তিনি আর্নল্ড গাছের অপর শিক্ষা নেন এবং ১৯৩২ সালে বাণিজ্যে স্নাতক ডিগ্রি গ্রহণ করেন। তার স্নাতক পর্যায়ে অধ্যায়নরত অবস্থায় কজ, স্যার আরনেস্ট ক্যাসেল ট্রাভেলিং বৃত্তি পান, যেটা লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয় পুরস্কৃত করেন।

অর্থনীতিতে অবদান[সম্পাদনা]

ফার্মের প্রকৃতি[সম্পাদনা]

সামাজিক খরচের সমস্যা[সম্পাদনা]

আইন এবং অর্থনীতি[সম্পাদনা]

রাজনৈতিক দৃষ্টিকোন[সম্পাদনা]