ব্যবহারকারী:মোঃ নবী নেওয়াজ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
মোঃ নবী নেওয়াজ
Passport Size Picture.jpg
2018
জাতীয় সংসদ
কাজের মেয়াদ
২০১৪ – ২০১৮
রাষ্ট্রপতিআব্দুল হামিদ
প্রধানমন্ত্রীশেখ হাসিনা
পূর্বসূরীশিরীন শারমিন চৌধুরী
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম (1966-02-09) ৯ ফেব্রুয়ারি ১৯৬৬ (বয়স ৫৪)
ঝিনাইদহ জেলা, বাংলাদেশ
জাতীয়তাবাংলাদেশী Flag of Bangladesh.svg
রাজনৈতিক দলবাংলাদেশ আওয়ামী লীগ
দাম্পত্য সঙ্গীরাহিমা খাতুন নেওয়াজ
সন্তাননোহান মোহাম্মদ নেওয়াজ
নোমান মোহাম্মদ নেওয়াজ
জান্নাতুল আয়মন অরণী
মাতাআয়মন নেছা
পিতামোহাম্মদ আলী
প্রাক্তন শিক্ষার্থীচৌগাছা শাহাদাৎ পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয়
কোটচাঁদপুর খন্দকার মোশারফ হোসেন কলেজ
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
ধর্মইসলাম

মোঃ নবী নেওয়াজ ২০১৪-২০১৮ পর্যন্ত বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ থেকে ঝিনাইদহ-৩ আসনের সংসদ সদস্য হিসেবে তিনি নির্বাচিত হয়েছেন। ২০০৮ সালে ৯ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তৃণ মূলের ভোটের মাধ্যমে আওয়ামী লীগের সভানেত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা ১৭/১১/২০০৮ইং তারিখে মোঃ নবী নেওয়াজকে মনোনয়ন দেয়েছিলেন। কিন্তু ১ মাস মাঠে ভোট করার পরও ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে সেই মনোনয়ন ঢাকা থেকে পরিবর্তন হয়। তারপরও তিনি দলীয় প্রার্থীর পক্ষে মাঠে ভোট করে পাশ করিয়েছিলেন। কিন্তু বিনিময়ে তিনি পেয়েছেন শুধু লাঞ্চনা আর নির্যাতন। কিন্তু ধৈর্য হারা না হয়ে দলের আদর্শ আকড়ে ধরেছিলেন। গত ২৯/১০/২০১৩ইং তারিখে বর্তমান সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভানেত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা মোঃ নবী নেওয়াজকে পুনরায় মনোনয়ন দেন। ফলে ১০ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তথা ৫ই জানুয়ারি’র নির্বাচনে দলীয় কর্মীদের ঐক্যবদ্ধ করে বিদ্রোহী প্রার্থী সাবেক এম.পি শফিকুল আজম খানের তাণ্ডবের বিরুদ্ধে ভোট করে জয়লাভ করে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন। [১]

জন্ম ও শিক্ষাজীবন[সম্পাদনা]

মো: নবী নেওয়াজের পৈতৃক বাড়ি ঝিনাইদহ জেলার মহেশপুর উপজেলার মহেশপুর পৌরসভা এলাকার গোডাউন রোড হামিদপুর এলাকায়।

মোঃ নবী নেওয়াজ যশোর বোর্ড থেকে এস.এস.সি ও এইচ.এস.সি ডিগ্রি এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতি বিষয়ে অনার্স ও মাস্টার্স ডিগ্রি অর্জন করেন।

রাজনৈতিক পরিচয়[সম্পাদনা]

০১. কৃষি বিষয়ক সম্পাদক, জেলা আওয়ামী লীগ, ঝিনাইদহ।

০২. প্রেসিডিয়াম সদস্য, কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটি, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ।

০৩. সাবেক বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক, জেলা আওয়ামী লীগ, ঝিনাইদহ।

০৪. সাবেক সহ-সম্পাদক, কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটি, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ।

০৫. সাবেক সদস্য, কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটি, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ।

০৬. সাবেক সদস্য, আহবায়ক কমিটি, কেন্দ্রীয় কমিটি, বাংলাদেশ আওয়ামী সেচ্ছাসেবকলীগ।

০৭. সাবেক সহ-সভাপতি, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, ঢাকা মহানগর।

০৮. সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শাখা।

০৯. ১৯৮৪-১৯৯০ সাল পর্যন্ত এরশাদ বিরোধী আন্দোলনে সর্বদলীয় ছাত্র ঐক্য ও ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের একজন একনিষ্ঠ সৈনিক।

১০. ১৯৯১-১৯৯৬ সাল পর্যন্ত সৈরাচার খালেদা সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলনে অংশ গ্রহণ করতে গিয়ে গ্রেফতার বরণ, শারীরিক নির্যাতন ও মিথ্যা মামলার শিকার হয়েছেন।

১১. ২০০১-২০০৬ সালে খালেদা-নিজামি জোট সরকারের হরতালে পিকেটিং করতে গিয়ে মিছিল থেকে একাধিকবার মিথ্যা মামলার গ্রেফতার হয়ে দীর্ঘদিন কারারুদ্ধ ছিলেন।

১২. ২১শে আগস্ট ২০০৪ সালে বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে গ্রেনেড হামলায় তিনি আহত হয়েছিলেন। তাঁর বাম কানটি বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছিল। ডা: প্রাণ গোপাল দত্ত, গিংগাপুর ন্যাশনাল হাসপাতাল ও ব্যাংককের বামরুন গ্রেড হাসপাতোলে চিকিৎসা এখনো চলমানাধীন রয়েছে।

১৩. ১১ জানুয়ারি’ ২০০৭ (One Eleven) -এর তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আগমনের ফলে অত্যন্ত ভিতিকর বিভৎস্য জীবনযাপনের মধ্যে সময় কাটিয়েছেন। রাজনীতিতে সংযুক্ত থাকার কারণে তিনি বিভিন্ন সময়ে নানা অপ্রীতিকর পরিস্থিতির মুখোমুখি পরেছেন। প্রতিষ্ঠান, পরিবার ও সন্তানরা বঞ্চিত হয়েছে।

১৪. ১১ই জানুয়ারি’ ২০০৭ (One Eleven) -এর পরে রাজনৈতিক কর্মকান্ড এবং পার্টি অফিস বন্ধ থাকার কারণে নানান রকম ঝুকি নিয়ে ও তাঁর মডার্ন টি.টি. কলেজ, মৌচাক এবং জেনিথ ইন্টারন্যাশনাল স্কুল, বনশ্রী অফিসে রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে চালিয়ে এসেছেন। এখান থেকেই জননেত্রী শেখ হাসিনা, জাহাঙ্গীর কবির নানক ও মির্জা আযমসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতাকর্মীদের সঙ্গে দলীয় পোস্টার, হ্যান্ডবিল, লিফলেটসহ সকল প্রকাশন সংগঠনের বিভিন্ন শাখা ও শহর থেকে গ্রাম পর্যায়ে নিজ খরচে পৌছে দিয়েছেন।

১৫. ১১ই জানুয়ারি’ ২০০৭ ২০০৭ (One Eleven) -এর পূর্বে জননেত্রী শেখ হাসিনার সুধা স্বদনে (যুবলীগ অফিস) দীর্ঘদিন দায়িত্ব পালন কালে বিভিন্ন গোয়েন্দা বিভাগের নজরদারির কারণে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় অত্যন্ত ভিতিকর আতংক ও বিভৎস্য জীবনযাপনের মধ্যে সময় কাটিয়েছেন।

১৬. ১১ই জানুয়ারি’ ২০০৭-২০০৮ (One Eleven) -এর পর প্রায় প্রতিদিনই জননেত্রী শেখ হাসিনার সাবজেলে এবং বিভিন্ন জায়গায় যুবলীগের চেয়ারম্যান-সাধারণ সম্পাদকের নির্দেশে বিভিন্ন স্থানে তিনি আন্দোলন সংগ্রামে অত্যন্ত সাবধানে ঝুকি নিয়ে সময় দিতেন।

১৭. ১১ই জানুয়ারি’ ২০০৭-২০০৮ (One Eleven) -এর পর তিনি কখনো বিভিন্ন বাসা, অফিস, ছাদের উপর, কখনো ছানছেটে, কখনো স্টোর রুমে এবং আত্মীয়-স্বজনের বাসায় রাত্রীযাপন করতেন।

প্রাতিষ্ঠানিক পরিচয়[সম্পাদনা]

  1. ঝিনাইদহ-৩, মোঃ নবী নেওয়াজ। "Constituency 83_10th_Bn"www.parliament.gov.bd। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৭-০৪ 

বহি:সংযোগ[সম্পাদনা]

পারিবারিক পরিচয়[সম্পাদনা]