বিস্ফূরণ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

একটি বিস্ফূরণ (ইংরেজিতে diaspora) হচ্ছে একটি বিক্ষিপ্ত জনগোষ্ঠী যার উৎপত্তিস্থল অন্য কোন ভৌগলিক স্থানে।[১][২] বিশেষ করে, বিস্ফূরণ শব্দটির দ্বারা কোন জনগোষ্ঠীর তাদের স্বভূমি থেকে অনৈচ্ছিকভাবে ছড়িয়ে পড়াকে বোঝানো হয়। জুডিয়া থেকে ইহুদিদের ছড়িয়ে পড়া এবং কনস্টান্টিনোপল থেকে গ্রীকদের পালিয়ে যাওয়া এর উল্লেখযোগ্য উদাহরণ। অন্যান্য উদাহরণের মধ্যে রয়েছে আফ্রিকা থেকে ট্রান্স-আটলান্টিক দাস বাণিজ্য, কুলি বাণিজ্যের সময় দক্ষিণ চীন এবং ভারতীয় বিষ্ফূরণ, আইরিশ দুর্ভিক্ষের সময় আইরিশ বিস্ফূরণ, ফিলিস্তিনি বিস্ফূরণ,[২][৩] সারকেশিয়ানদের নির্বাসন, ইংল্যান্ডে নরমান বিজয়ের পর অ্যাংলো-সেক্সন যোদ্ধা ও তাদের পরিবারের দেশান্তর ইত্যাদি।[৪]

সম্প্রতি, বিদ্বজ্জনগণ বিভিন্ন রকম বিষ্ফূরণের মধ্যে শ্রেণীবিভাগ করেছেন। বিষ্ফূরণের কারণ, যেমন সাম্রাজ্যবাদ, বাণিজ্য বা শ্রমিক অভিপ্রয়াণ এর ভিত্তিতে, বা বিস্ফূরিত সম্প্রদায় এর মধ্যকার সামাজিক সংসক্তি ও পূর্বপুরুষের ভূমির সাথে তাদের বন্ধনের উপর ভিত্তি করে এই শ্রেণীবিভাগগুলো করা হয়। কিছু কিছু বিস্ফূরিত সম্প্রদায় তাদের স্বভূমির সাথে শক্তিশালী রাজনৈতিক বন্ধন বজায় রাখে। বিষ্ফূরণ সম্প্রদায়ের অন্যান্য বৈশিষ্ট্যগুলোর মধ্যে আছে স্বভূমিতে প্রত্যাবর্তন, বিষ্ফূরণের অন্যান্য সম্প্রদায়ের সাথে সম্পর্ক, এবং আশ্রয়দাতা দেশের সাথে পূর্ণাঙ্গভাবে একীভূত না হওয়া।[২]

শব্দটির উদ্ভব এবং বিকাশ[সম্পাদনা]

বিষ্ফূরণ শব্দটি "Diaspora" এর বাংলা পারিভাষিক শব্দ। "Diaspora" শব্দটি এসেছে গ্রীক শব্দ διασπείρω (diaspeirō) থেকে, যার অর্থ "আমি বিক্ষিপ্ত হই" বা "আমি ছড়িয়ে পড়ি"। প্রাচীন গ্রীসে διασπορά (diaspora) শব্দটির অর্থ ছিল "বিক্ষিপ্ত হওয়া",[৫] আর এর দ্বারা সমাজের শীর্ষস্থানীয় নাগরিকদের বোঝানো হত যারা উপনিবেশীকরণের উদ্দেশ্যে বা কোন অঞ্চলকে সাম্রাজ্যের অঙ্গীভূতকরণের উদ্দেশ্যে নতুন স্থানে এসেছেন।[৬] প্রাচীন যুগের বিষ্ফূরণের একটি উদাহরণ হচ্ছে স্পার্টানদের শাসনে মেসেনীয়দের শতাব্দি ব্যাপী নির্বাসন যা থুসিডাইডসের গ্রন্থ "পেলপনেশিয়ান যুদ্ধের ইতিহাস" গ্রন্থে বর্ণিত হয়েছে।

শব্দটির উৎপত্তিগত অর্থ থেকে বর্তমান অর্থে বিকাশ শুরু হয় যখন হিব্রু বাইবেলকে গ্রীক ভাষায় অনুবাদ করা হয়;[৭] এক্ষেত্রে সেপটুয়াজিন্ট (গ্রীক ভাষায় অনুদিত হিব্রু বাইবেল) এর যেসব স্থানে "diaspora" শব্দের প্রথম উল্লেখ পাওয়া যায় সেগুলো হচ্ছে:

  • ডিউটেরোনমি ২৮:২৫, বাক্যাংশটি "ἔσῃ ἐν διασπορᾷ ἐν πάσαις ταῖς βασιλείαις τῆς γῆς", (esē en diaspora en pasais tais basileiais tēs gēs), অর্থাৎ, "পৃথিবীর সকল রাজ্যে তোমরা ছড়িয়ে পড়বে"।

এবং

  • সালমস ১৪৬(১৪৭).২, বাক্যাংশটি "οἰκοδομῶν Ἰερουσαλὴμ ὁ Kύριος καὶ τὰς διασπορὰς τοῦ Ἰσραὴλ ἐπισυνάξει", (oikodomōn Ierousalēm ho Kyrios kai tas diasporas tou Israēl episynaxē), অর্থাৎ, "প্রভু জেরুজালেম তৈরি করেছেন: ইজরায়েল থেকে বহিস্কৃতদেরকে তিনি সেখানে একত্রিত করেছেন"।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Diaspora"Merriam Webster। সংগ্রহের তারিখ ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১১ 
  2. Melvin Ember, Carol R. Ember and Ian Skoggard, সম্পাদক (২০০৪)। Encyclopedia of Diasporas: Immigrant and Refugee Cultures Around the World. Volume I: Overviews and Topics; Volume II: Diaspora Communitiesআইএসবিএন 978-0-306-48321-9 
  3. Rozen, Mina (২০০৮)। Homelands and Diasporas: Greeks, Jews and Their Migrations (International Library of Migration Studies)। London, England: I. B. Tauris। আইএসবিএন 1845116429 
  4. "English Refugees in the Byzantine Armed Forces: The Varangian Guard and Anglo-Saxon Ethnic Consciousness » De Re Militari" 
  5. διασπορά. Liddell, Henry George; Scott, Robert; পারসিয়াস প্রজেক্টে এ গ্রিক–ইংলিশ লেক্সিকন
  6. pp.1-2, Tetlow
  7. p.81, Kantor