জর্জ ইলিয়ট

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
জর্জ ইলিয়ট
৩০ বছর বয়সী ছবি সুইস শিল্পী আলেকজান্ডার লুই ফ্রাসোয়া ডি'আলবার্ট দারুদ দ্বারা আঁকা (১৮০৪–৮৬)
৩০ বছর বয়সী ছবি সুইস শিল্পী আলেকজান্ডার লুই ফ্রাসোয়া ডি'আলবার্ট দারুদ দ্বারা আঁকা (১৮০৪–৮৬)
জন্মমেরি অ্যান ইভান্স
(১৮১৯-১১-২২)২২ নভেম্বর ১৮১৯
নানইটন, ওয়ারউইকশায়্যার, ইংল্যান্ড
মৃত্যু২২ ডিসেম্বর ১৮৮০(1880-12-22) (বয়স ৬১)
চেলসি, মিডলসেক্স, ইংল্যান্ড
সমাধিস্থলহাইগেট সিমেট্রি (পূর্ব), হাইগেট, লন্ডন
ছদ্মনামজর্জ ইলিয়ট
পেশাঔপন্যাসিক
সময়কালভিক্টোরীয়
উল্লেখযোগ্য রচনাবলিদ্য মিল অন দ্য ফ্লস (১৮৬০), সাইলাস মারনার (১৮৬১), মিডলমার্চ (১৮৭১–৭২), ডানিয়েল দেরুন্দা (১৮৭৬)
দাম্পত্যসঙ্গীজন ক্রস (১৮৮০; তাঁর মৃত্যু পর্যন্ত)
সঙ্গীজর্জ হেনরী লুইস (১৮৫৪–৭৮) (তার মৃত্যু পর্যন্ত)
আত্মীয়রবার্ট ইভান্স এবং ক্রিস্টিয়ানা পিয়ারসন (পিতা-মাতা); ক্রিস্টিয়ানা , আইজ্যাক, রবার্ট, এবং ফ্যানি (ভাই-বোন)

মেরি অ্যান ইভান্স (২২ নভেম্বর ১৮১৯ – ২২ ডিসেম্বর ১৮৮০; অন্যভাবে "মেরি অ্যান" বা "মারিয়ান"), ছদ্মনাম জর্জ ইলিয়ট দ্বারা পরিচিত, একজন ইংরেজ ঔপন্যাসিক, সাংবাদিক, অনুবাদক এবং ভিক্টোরীয় যুগের নেতৃস্থানীয় লেখক ছিলেন। তিনি সাতটি উপন্যাস লেখেন, তার মধ্যে এডাম বেড (১৮৫৯), দ্য মিল অন দ্য ফ্লস (১৮৬০), সাইলাস মারনার (১৮৬১), মিডলমার্চ (১৮৭১–৭২), এবং ডানিয়েল দেরুন্দা (১৮৭৬), তাদের অধিকাংশই প্রাদেশিক ইংল্যান্ডে পটভূমি এবং তাদের বাস্তববাদ ও মানসিক অন্তর্দৃষ্টি জন্য সুপরিচিত।

তিনি পুরুষ ছদ্মনাম ব্যবহার করতেন, তিনি বলেন, তাঁর কাজ গুরুত্বের সাথে গ্রহণ করা হবে তা নিশ্চিত করার জন্য। মহিলা লেখকগণ তাদের নিজস্ব নামে প্রকাশ করতেন ইলিয়টের জীবদ্দশায় কিন্তু তিনি কেবল হালকা উদার রোমান্স লেখা নারীদের বাঁধাধরা থেকে অব্যাহতি চেয়েছিলেন। তিনি ইতোমধ্যেই তাঁর ব্যাপকভাবে সম্পাদক এবং সমালোচক হিসেবে পরিচিত কাজ থেকে আলাদাভাবে তাঁর কথাসাহিত্য গণ্য করার আশা করেছিলেন। তাঁর ছদ্মনাম ব্যবহারের আরো অতিরিক্ত কারণ হলো জনসাধারণের দৃষ্টি থেকে তাঁর ব্যক্তিগত জীবন রক্ষা করার ইচ্ছা এবং বিবাহিত জর্জ হেনরি লুইসের সঙ্গে তাঁর সম্পর্ক নিয়ে কেলেঙ্কারি প্রতিরোধ করার জন্য, যার সাথে তিনি ২০ বছর ধরে বসবাস করতেন।[১]

তাঁর ১৮৭২-এর কাজ মিডলমার্চ-কে মার্টিন এমিস্‌[২] এবং জুলিয়ান বার্নস[৩] ইংরেজি ভাষায় সর্বশ্রেষ্ঠ উপন্যাস হিসাবে বর্ণনা করেন।

জীবন[সম্পাদনা]

প্রারম্ভিক জীবন ও শিক্ষা[সম্পাদনা]

মেরি অ্যান ইভান্স ইংল্যান্ডের ওয়ারউইকশায়্যারের নানইটনে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি রবার্ট ইভান্স (১৭৭৩-১৮৪৯) এবং ক্রিস্টিয়ানা ইভান্স (বিবাহ-পূর্ব পিয়ারসন, ১৭৮৮-১৮৩৬, একটি স্থানীয় কল-মালিকের কন্যা) দ্বিতীয় সন্তান ছিলেন। মেরি অ্যানের নাম কখনও কখনও সংক্ষিপ্তভাবে মারিয়ান ছিল।[৪] তাঁর আপন ভাই-বোন ছিলো ক্রিস্টিয়ানা, ক্রিসেই নামে পরিচিত (১৮১৪-৫৯), আইজ্যাক (১৮১৬-১৮৯০), এবং যমজ ভাই যারা ১৮২১ সালের মার্চে কয়েক দিন বেঁচে ছিলো। তাঁর সৎ ভাই রবার্ট (১৮০২-৬৪), এবং সৎ বোন, ফ্যানি (১৮০৫-৮২), তাঁর পিতার পূর্ববর্তী বিবাহ হ্যারিয়েট পয়ন্টন থেকে (?১৭৮০-১৮০৯)। ওয়েলশ বংশোদ্ভূত রবার্ট ইভান্স ওয়ারউইকশায়্যারে নিউডিগেট পরিবারের জন্য অরবারি হল এস্টেটের ম্যানেজার ছিলেন, এবং মেরি অ্যান দক্ষিণ খামারে জন্মগ্রহণ করেন। ১৮২০-এর প্রথমভাগে পরিবারটি গ্রিফ নামে একটি বাড়িতে গিয়ে ওঠে, নানইটন এবং বেডওয়ার্থের মধ্যে।

সৃষ্টিকর্ম[সম্পাদনা]

উপন্যাস[সম্পাদনা]

কাব্য[সম্পাদনা]

  • The Spanish Gypsy (একটি চমকপ্রদ কবিতা), ১৮৬৮
  • Agatha, ১৮৬৯
  • Brother and Sister, ১৮৬৯
  • Armgart, ১৮৭১
  • Stradivarius, ১৮৭৩
  • The Legend of Jubal, ১৮৭৪
  • Arion, ১৮৭৪
  • A Minor Prophet, ১৮৭৪
  • A College Breakfast Party, ১৮৭৯
  • The Death of Moses, ১৮৭৯
  • From a London Drawing Room
  • Count That Day Lost
  • I Grant You Ample Leave

অন্যান্য[সম্পাদনা]

টীকা[সম্পাদনা]

  1. Karl, Frederick R. George Eliot: Voice of a Century. Norton, 1995. pp. 237–38.
  2. Long, Camilla. Martin Amis and the sex war, The Times, 24 January 2010, p. 4: "They've [women] produced the greatest writer in the English language ever, George Eliot, and arguably the third greatest, Jane Austen, and certainly the greatest novel, Middlemarch..."
  3. Guppy, Shusha"Interviews: Julian Barnes, The Art of Fiction No. 165"The Paris Review (Winter 2000)। সংগ্রহের তারিখ ২৬ মে ২০১২ 
  4. University of Virginia According to a University of Virginia research forum published here, her baptismal records record the spelling as Mary-Anne, and she uses this spelling in her earliest letters. Around 1857, she began to use Mary Ann. In 1859, she was using Marian, but she reverted to Mary Ann in 1880.[অকার্যকর সংযোগ]

আরোও পড়ুন[সম্পাদনা]

প্রেক্ষাপট এবং পটভূমি[সম্পাদনা]

সমালোচনামূলক গবেষণা[সম্পাদনা]

  • Alley, Henry, "The Quest for Anonymity: The Novels of George Eliot", University of Delaware Press, 1997.
  • Ashton, Rosemary, George Eliot, Oxford, Oxford University Press, 1983.
  • Beaty, Jerome, Middlemarch from Notebook to Novel: A Study of George Eliot's Creative Method, Champaign, Illinois, University of Illinois, 1960.
  • Carroll, Alicia, Dark Smiles: Race and Desire in George Eliot, Ohio University Press, 2003.
  • Carroll, David, ed., George Eliot: The Critical Heritage, London, Routledge & Kegan Paul, 1971.
  • Daiches, David, George Eliot: Middlemarch, London, Edward Arnold, 1963.
  • Dentith, Simon, George Eliot, Brighton, Harvester, 1986.
  • Garrett, Peter K., The Victorian Multiplot Novel: Studies in Dialogical Form, New Haven, Connecticut, Yale University Press, 1980.
  • Graver, Suzanne, George Eliot and Community: A Study in Social Theory and Fictional Form, Berkeley, California, University of California Press, 1984.
  • Harvey, W. J, The Art of George Eliot, London, Chatto & Windus, 1961.
  • Kettle, Arnold. An Introduction to the English Novel, vol. I, London, Hutchinson, 1951.
  • Leavis, F R The Great Tradition, London, Chatto & Windus, 1948.
  • Neale, Catherine, Middlemarch: Penguin Critical Studies,London, Penguin, 1989.
  • Sette, Miriam, George Eliot: il corpo della passione. Aspetti della corporeità nella narrativa dell’ultima fase, Pescara, Campus, 2004.
  • Swinden, Patrick, eel., George Eliot: Middlemarch, London, Macmillan, 1972.
  • Trainini, Marco, Vendetta, tienimi compagnia. Due vendicatori in «Middlemarch» di George Eliot e «Anna Karenina» di Lev Tolstoj, Milano, Arcipelago Edizioni, 2012, আইএসবিএন ৮৮৭৬৯৫৪৭৫৯.

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

উইকিসংকলন
উইকিসংকলন-এ এই লেখকের লেখা মূল বই রয়েছে: