ইসলামের অধীনে প্রাথমিক সামাজিক পরিবর্তন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

মুহাম্মদের ইসলাম প্রচারের সময়কাল এবং তার চার পরবর্তী উত্তরসূরির (যারা রাশিদুন খিলাফত প্রতিষ্ঠা করেন) শাসনামলে ৬১০ থেকে ৬৬১ সালের মধ্যে ইসলামের অধীনে অনেক সামাজিক পরিবর্তন সংঘটিত হয়।

বেশ কয়েকজন ঐতিহাসিক বলেছেন যে ইসলাম সামাজিক নিরাপত্তা, পারিবারিক কাঠামো, দাসত্ব এবং আরব সমাজে বিদ্যমান নারীদের অধিকারের মতো ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য পরিবর্তনের মাধ্যমে উন্নতি ঘটিয়েছে।[১][২][৩][৪][৫][৬] উদাহরণস্বরূপ, বার্নার্ড লুইসের মতে, ইসলামই “প্রথম অভিজাত সুবিধার সমালোচনা করেছে, শ্রেণীবিন্যাস প্রথা বর্জন করেছে, এবং মেধার ভিত্তিতে কাজের সুবিধা দেয়ার নীতি গ্রহণ করেছে”।[১]

ইসলামের আবির্ভাব[সম্পাদনা]

বার্নার্ড লুইস বিশ্বাস করেন যে, ইসলামের আবির্ভাব ছিল একটি বিপ্লব, যা শুধুমাত্র আংশিকভাবে সফল হয়েছে নতুন ধর্ম এবং মুসলমানদের জয় করা অত্যন্ত পুরাতন সমাজ ব্যবস্থার মধ্যে উত্তেজনার কারণে। তিনি মনে করেন যে এই ধরনের উত্তেজনার একটি ক্ষেত্র তৈরি হয়েছিল শুধুমাত্র ইসলামী মতবাদের সাম্যবাদী প্রকৃতির একটি ফলাফল হিসেবে। ইসলাম প্রথম অভিজাত সুবিধাবাদীদের সমালোচনা, শ্রেণীবিন্যাস প্রথা প্রত্যাখ্যান, এবং প্রতিভার মাধ্যমে কর্মজীবন উন্মুক্তকরণের নীতি গ্রহণ করে।

মদিনার সংবিধান[সম্পাদনা]

৬২২ খ্রিষ্টাব্দের ২৪শে সেপ্টেম্বর রাসুল মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম মদিনা নগরীতে হিজরত করেন। এসময় সেখানে বসবাসরত বনু আওস এবং বনু খাজরাজ সম্প্রদায় দুটির মধ্যে ছিল গোষ্ঠীগত হিংসা-বিদ্বেষ।[৭] তাই কলহে লিপ্ত এ দুটি সম্প্রদায়ের মধ্যে ভ্রাতৃত্ব ও সম্প্রীতি স্থাপন ও মদিনায় বসবাসরত সকল গোত্রের মধ্যে সুশাসন প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ৪৭ ধারার একটি সনদ বা সংবিধান প্রণয়ন করেন যা পৃথিবীর ইতিহাসে মদিনার সনদ নামে পরিচিত।[৮][৯][১০] মদিনার আউস (বনু আউস) এবং বনু খাজরাজের মধ্যে তিক্ত আন্তঃগোত্রীয় যুদ্ধের অবসান ঘটানোর সুস্পষ্ট আকাঙ্ক্ষা নিয়ে এই দলিলটি তৈরি করা হয়েছে। এর ফলে এটি মদীনার মুসলিম, ইহুদী এবং পৌত্তলিক সম্প্রদায়ের জন্য বেশ কিছু অধিকার ও দায়িত্ব প্রতিষ্ঠিত হয় যা তাদেরকে এক সম্প্রদায়-উম্মাহর অধীনে নিয়ে আসে।[১১]

মদীনার সংবিধানের সঠিক তারিখ নিয়ে বিতর্ক রয়ে গেছে কিন্তু সাধারণত পণ্ডিতেরা একমত যে হিজরতের (৬২২) এর কিছু পরেই এটি লেখা হয়েছে।[১২] এটি কার্যকরভাবে প্রথম ইসলামিক রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করে। সংবিধানটি যেসকল নীতি প্রতিষ্ঠিত করেঃ সম্প্রদায়ের নিরাপত্তা, ধর্মীয় স্বাধীনতা, একটি পবিত্র স্থান হিসেবে মদীনার ভূমিকা (সকল সহিংসতা ও অস্ত্র নিষিদ্ধকরণ), নারীদের নিরাপত্তা, মদীনার অভ্যন্তরে স্থিতিশীল উপজাতীয় সম্পর্ক, সংঘাতের সময়ে সম্প্রদায়কে সমর্থন করার জন্য একটি কর ব্যবস্থা, বহিরাগত রাজনৈতিক জোটের মাপকাঠি, একক ব্যক্তির নিরাপত্তা প্রদানের ব্যবস্থা, বিরোধ নিষ্পত্তির জন্য একটি বিচারিক পদ্ধতি এবং এছাড়াও রক্ত-পণ প্রদান নিয়ন্ত্রণ।

সামাজিক পরিবর্তন[সম্পাদনা]

নৈতিক পরিবর্তন[সম্পাদনা]

অর্থনৈতিক পরিবর্তন[সম্পাদনা]

রাজনৈতিক পরিবর্তন[সম্পাদনা]

অন্যান্য পরিবর্তন সমূহ[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Lewis, Bernard (১৯৯৮-০১-২১)। "Islamic Revolution"। The New York Review of Books। 
  2. Watt (1974), p.234
  3. Robinson (2004) p.21
  4. Esposito (1998), p. 98
  5. "Ak̲h̲lāḳ", Encyclopaedia of Islam Online
  6. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; Nancy নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  7. Ibid, Serjeant, page 4.
  8. R. B. Serjeant, "Sunnah Jāmi'ah, pacts with the Yathrib Jews, and the Tahrīm of Yathrib: analysis and translation of the documents comprised in the so-called 'Constitution of Medina'", Bulletin of the School of Oriental and African Studies (1978), 41: 1-42, Cambridge University Press.
  9. See: *Reuven Firestone, Jihād: the origin of holy war in Islam (1999) p. 118; *"Muhammad", Encyclopedia of Islam Online
  10. Watt. Muhammad at Medina and R. B. Serjeant "The Constitution of Medina." Islamic Quarterly 8 (1964) p. 4.
  11. R. B. Serjeant, The Sunnah Jami'ah, pacts with the Yathrib Jews, and the Tahrim of Yathrib: Analysis and translation of the documents comprised in the so-called "Constitution of Medina." Bulletin of the School of Oriental and African Studies, University of London, Vol. 41, No. 1. 1978), page 4.
  12. Watt. Muhammad at Medina. pp. 227-228 Watt argues that the initial agreement was shortly after the hijra and the document was amended at a later date specifically after the battle of Badr. Serjeant argues that the constitution is in fact 8 different treaties which can be dated according to events as they transpired in Medina with the first treaty being written shortly after Muhammad's arrival. R. B. Serjeant. "The Sunnah Jâmi'ah, Pacts with the Yathrib Jews, and the Tahrîm of Yathrib: Analysis and Translation of the Documents Comprised in the so called 'Constitution of Medina'." in The Life of Muhammad: The Formation of the Classical Islamic World: Volume iv. Ed. Uri Rubin. Brookfield: Ashgate, 1998, p. 151 and see same article in BSOAS 41 (1978): 18 ff. See also Caetani. Annali dell'Islam, Volume I. Milano: Hoepli, 1905, p. 393. Julius Wellhausen. Skizzen und Vorabeiten, IV, Berlin: Reimer, 1889, p 82f who argue that the document is a single treaty agreed upon shortly after the hijra. Wellhausen argues that it belongs to the first year of Muhammad's residence in Medina, before the battle of Badr in 2/624. Wellhausen bases this judgement on three considerations; first Muhammad is very diffident about his own position, he accepts the pagan tribes within the Ummah, and maintains the Jewish clans as clients of the Ansars see Wellhausen, Excursus, p. 158. Even Moshe Gil a skeptic of Islamic history argues that it was written within 5 months of Muhammad's arrival in Medina. Moshe Gil. "The Constitution of Medina: A Reconsideration." Israel Oriental Studies 4 (1974): p. 45.

গ্রন্থপঞ্জি[সম্পাদনা]