ইন্দোনেশিয়ার দূতাবাস, ঢাকা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ইন্দোনেশিয়া প্রজাতন্ত্রের দূতাবাস, ঢাকা
Kedutaan Besar Republik Indonesia di Dhaka
National emblem of Indonesia Garuda Pancasila.svg
ইন্দোনেশিয়ার জাতীয় প্রতীক
অবস্থানঢাকা, বাংলাদেশ
ঠিকানারোড: ৫৩, প্লট: ১৪, গুলশান-২, ঢাকা ১২১২
রাষ্ট্রদূতরিনা পি. সোয়েমার্নো
ওয়েবসাইটkemlu.go.id/dhaka

ঢাকায় অবস্থিত ইন্দোনেশিয়া প্রজাতন্ত্রের দূতাবাস (ইন্দোনেশীয়: Kedutaan Besar Republik Indonesia di Dhaka) হচ্ছে বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকায় অবস্থিত ইন্দোনেশিয়ার একটি কূটনৈতিক মিশন। এটি ঢাকার গুলশানে অবস্থিত। এই দূতাবাসের মাধ্যমে দেশটি বাংলাদেশের পাশাপাশি নেপালেও কূটনৈতিক কার্যক্রম পরিচালনা করে থাকে।

দূতাবাস ভবন

ইতিহাস[সম্পাদনা]

বাংলাদেশের স্বাধীনতার আগে ঢাকায় ইন্দোনেশিয়ার একটি কনস্যুলেট জেনারেল অফিস ছিল। বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর ১৯৭২ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি ইন্দোনেশিয়া বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দেয়। সে বছরের ১ মে ঢাকার ৭৫ গুলশান এভিনিউয়ে ইন্দোনেশিয়া দূতাবাস যাত্রা শুরু করে। পরবর্তীতে ২০০০ সালে দূতাবাসটি গুলশান-২ এ স্থানান্তরিত হয়।[১]

অন্যদিকে, ১৯৬৫ সালে ইন্দোনেশিয়া নেপালে একটি দূতাবাস প্রতিষ্ঠা করেছিল, যা ১৯৬৭ সালে বন্ধ করে দেওয়া হয়। ১৯৬৭ থেকে ২০০৪ সাল পর্যন্ত রেঙ্গুনে অবস্থিত দূতাবাস থেকে নেপালে কূটনৈতিক কার্যক্রম পরিচালনা করা হত। ২০০৪ সালে বাংলাদেশে অবস্থিত দূতাবাসটির উপর এ দায়িত্ব অর্পণ করা হয়। ২০১০ সালের এপ্রিলে এ দূতাবাসের অধীনে কাঠমান্ডুতে একটি অনারারি কনস্যুলেট প্রতিষ্ঠিত হয়।[২]

রাষ্ট্রদূতবৃন্দ[সম্পাদনা]

নং. নাম
(ইন্দোনেশীয় ভাষায় নাম)
দায়িত্ব গ্রহণ দায়িত্ব ত্যাগ নিয়োগকর্তা সূত্র
১. মাইমুন হাবশাহ
(Maimoen Habsjah)
২৪ নভেম্বর ১৯৭২ মার্চ ১৯৭৬   সুহার্তো [১]
২. এফেন্দি নূর
(Effendi Nur)
৩০ মার্চ ১৯৭৬ ১৩ মে ১৯৭৮
৩. সাজিদ বসোকি সাস্ত্রোহার্তোজো
(Sajid Basoeki Sastrohartojo)
৮ নভেম্বর ১৯৭৮ ১২ ডিসেম্বর ১৯৮২
৪. রহমত সুকার্তিকো
(Rachmat Sukartiko)
১৬ জুন ১৯৮৩ ৩০ জুন ১৯৮৬
৫. মোহাম্মদ আছিরুল আয়েন
(Mohamad Achirul Aen)
৭ ডিসেম্বর ১৯৮৬ ২৮ ডিসেম্বর ১৯৮৯
৬. সুমানো ইসওয়াদি
(Soemakno Iswadi)
২৩ জুলাই ১৯৯০ ৩১ জুলাই ১৯৯৩
৭. হাদি ওয়েআরাবি আলহাদার
(Hadi Wayarabi Alhadar)
১৭ সেপ্টেম্বর ১৯৯৩ ৩০ জুন ১৯৯৭
৮. সুতান্ত সুমার্জ
(Soetanto Soemardjo)
২৫ আগস্ট ১৯৯৭ ২৯ আগস্ট ২০০০
৯. মান্সজুর মাডুলাঙ্গেং
(Mansjur Maddolangeng)
১৬ আগস্ট ২০০১ ৭ সেপ্টেম্বর ২০০৪   মেঘবতী সুকর্ণপুত্রী
১০. ওয়ারমাস হাসান সাপুত্রা
(Warmas Hasan Saputra)
অক্টোবর ২০০৪ মে ২০০৮
১১. জেট মিরজাল জয়নুদ্দিন
(Zet Mirzal Zainuddin)
১ জুন ২০০৯ সেপ্টেম্বর ২০১২   সুসিলো বামবাং ইয়ুধনো
১২. ইউয়ান উইরানাতা আতমাজা
(Iwan Wiranataatmadja)
২০ জানুয়ারি ২০১৩ ২০১৭
১৩. রিনা সুমর্নো
(Rina Soemarno)
১৮ মে ২০১৭ বর্তমান   জোকো উইদোদো [৩][৪]

অনারারি কনস্যুলেট[সম্পাদনা]

  • ইন্দোনেশিয়া প্রজাতন্ত্রের অনারারি কনস্যুলেট, নেপাল
  • ইন্দোনেশিয়া প্রজাতন্ত্রের অনারারি কনস্যুলেট, চট্টগ্রাম

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Brief History of the Embassy of the Republic of Indonesia in Dhaka" (ইংরেজি ভাষায়)। ঢাকায় অবস্থিত ইন্দোনেশিয়ার দূতাবাস। ২০১৯-০৫-০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৮-০৩ 
  2. "Nepal-Indonesia Relations"। Government of Nepal, Ministry of Foreign Affairs। ১৮ জুন ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৭ জুন ২০১৩ 
  3. Ihsanuddin (২০১৭-০৫-১৮)। "Jokowi Lantik Enam Dubes, Salah Satunya Rusdi Kirana"Kompas। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৮-০৩ 
  4. "Dubes RI untuk Bangladesh Rina Soemarno Serahkan Surat Surat Kepercayaan kepada Presiden Bangladesh"। Kedutaan Besar Republik Indonesia di Dhaka, Bangladesh। ২০১৭-০৭-১৮। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১০-০৭ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]