নিজামিয়া মাদ্রাসা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

নিজামিয়া মাদ্রাসা (আরবি,المدرسة النظامية; মাদ্রাসাতুল নিজামিয়াহ) ছিল প্রথম প্রতিষ্ঠিত নিজামিয়াগুলোর অন্যতম।[১] এটি ১০৬৫ সালে বাগদাদে প্রতিষ্ঠিত হয়। ১০৯১ এর জুলাই নিজামুল মুলক দার্শনিক ও ধর্মতাত্ত্বিক আল-গাজ্জালিকে এর অধ্যাপক হিসেবে নিয়োগ দেন। এসময় আল গাজ্জালির বয়স ছিল ৩৩ বছর।[২]

বিনামূল্যে শিক্ষাদানকারী[৩] এই প্রতিষ্ঠানটিকে মধ্যযুগের সবচেয়ে বৃহৎ বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে বিবেচনা করা হয়।[৪]

বার্বা‌র বংশীয় আলমোহাদ রাজবংশের প্রতিষ্ঠাতা ইবনে তুমারত এখানে আল-গাজ্জালির অধীনে লেখাপড়া করেন।[৫] নিজামুল মুলকের জামাতা মুগাতিল ইবনে বাকরি প্রতিষ্ঠানের একজন কর্মী ছিলেন। ১০৯৬ সালে গাজ্জালি যখন মাদ্রাসা ত্যাগ করেন তখন এখানে ৩০০০ ছাত্র ছিল।[৬] ১১১৬ সালে মুহাম্মদ আল শাহরাস্তানি এখানে শিক্ষাদান করেন।[৭] ১১৭০ এর দশকে বাহাউদ্দিন শিক্ষাদান করেন। এরপর তিনি মসুলে শিক্ষাদানের জন্য যান।

পারস্যের কবি সাদি ১১৯৫ থেকে ১২২৬ সাল পর্যন্ত এখানে শিক্ষালাভ করেন। তিনি যখন তার তিরিশ বছরব্যাপী যাত্রা শুরু করেন তখন তিনি হুলাগু খানের নেতৃত্বে মোঙ্গলদের হাতে এর ধ্বংস প্রত্যক্ষ করেন। ১২৫৮ সালে এই ঘটনা সংঘটিত হয়।

সাদি বাগদাদের নিজামিয়ায় তার শিক্ষাজীবনের কথা পরিষ্কারভাবে স্মৃতিচারণ করেন: একজন সহপাঠি ছাত্র আমার প্রতি বিদ্বেষ পোষণ করত, এবং আমি আমার শিক্ষককে তা জানিয়ে বলি: "যখনই আমি বেশি সঠিক উত্তর দিই তখন সে ক্ষুব্ধ হয়ে পড়ে।"

শিক্ষক উত্তর দেন: "তোমার বন্ধুর হিংসা তোমার কাছে গ্রহণযোগ্য না, কিন্তু আমি জানি না যে কে তোমাকে পরনিন্দা প্রশংসনীয় বলেছে। যদি সে হিংসার মাধ্যমে সর্বনাশের পথ অবলম্বন করে তবে কুৎসার মাধ্যমে তুমিও তাকে অনুসরণ করলে।"[পৃষ্ঠা নম্বর]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  • Makdisi, George: "Madrasa and University in the Middle Ages", Studia Islamica, No. 32 (1970), pp. 255–264