দ্বিতীয় চীন-জাপান যুদ্ধ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

দ্বিতীয় চীন-জাপান যুদ্ধের সূত্র লুকিয়ে আছে ১৮৯৪-৯৫ সনের প্রথম চীন-জাপান যুদ্ধে ।সে সময় কুইং বংশের অধীন চীন জাপানের কাছে হেরে গিয়ে তাইওয়ান ছেড়ে দিতে এবং কোরিয়ার স্বাধীনতা স্বীকার করতে বাধ্য হ্য় । কুইং বংশের পতনের পর চীনে অনেক সামন্ত রাজার উথ্থান ঘটে এবং বিশৃঙ্খলা ছড়িয়ে পড়ে । অন্যদিকে জাপান সাম্রাজ্য আধুনিক ও শক্তিশালী হতে থাকে । চীনের বিভিন্ন এলাকায় জাপান তার প্রভাব বলয় সৃষ্টি করতে থাকে ।

১৯২০-৩০ এর দশকে চিয়াং কাই-শেক এর কুয়ো মিনটাং সরকার চীনকে একীভূত করতে শুরু করে । সেসময় সরাসরি জাপানের সাথে যুদ্ধ করার সামর্থ্য তাদের ছিল না । চিয়াং কাই-শেক একে একে সামন্ত রাজাদের পরাজিত করতে থাকেন । অন্যদিকে তিনি চীনা কমিউনিস্টদের সাথেও গৃহযুদ্ধ শুরু করেন । হাতছাড়া হয়ে যাবার ভয়ে ১৯৩২ সালে জাপান উত্তর চীনের মাঞ্চুরিয়া প্রদেশ দখল করে ফেলে ও সেখানে পুতুল রাষ্ট্র মাঞ্চুকিয়ো স্থাপন করে ।

১৯৩৬ সালের ২২শে অক্টোবর জিয়ানের (xian incident) ঘটনার পর চিয়াং চীনা কমিউনিস্টদের (cpc) সাথে একত্রে জোট গঠন করতে বাধ্য হন । ৭ই জুলাই, ১৯৩৭ এ জাপান 'মার্কোপোলো' ব্রীজের নাটক সাজিয়ে চীনের সাথে পুরোদমে যুদ্ধ বাঁধিয়ে দেয় । প্রথমে দ্রুতগতিতে এগোলেও জাপানীরা সাংহাইতে এসে বাধা পায় । ডিসেম্বরে সাংহাইয়ের পতন ঘটে । রাজধানী নানকিং (nanjing) এরও পতন হয় । নাংকিঙে জাপানী অত্যাচারের বীভত্সতা সারাবিশ্বে প্রতিবাদের ঝড় তোলে । চীনারা মুখোমুখি যুদ্ধের বদলে নানানভাবে বাধা দিয়ে দখলদারদের ব্যতিব্যাস্ত করে রাখার চেষ্টা করে । তারা চুংকিঙেরাজধানী সরিয়ে আনে। ‍‍‍‌‌‌১৯৪০ সালের মধ্যে যুদ্ধের উদ্দেশ্যহীনতা স্পষ্ট হয়ে যায় ।

৭ই ডিসেম্বর ১৯৪১,পার্ল হারবার আক্রমণের মাধ্যমে জাপান বিশ্বযুদ্ধে প্রবেশ করে । চীনও আনুষ্ঠানিকভাবে জাপানের সাথে যুদ্ধ ঘোষণা করলো । সমন্বিত চীনা বাহিনী বার্মা এলাকায় যুদ্ধে অংশ নেয় । প্রশান্ত মহাসাগরের যুদ্ধে প্রাথমিক সাফল্যের পরে জাপান ক্ষতির সম্মুখীন হতে থাকে । ১৯৪৫ সাল থেকে চীন আমেরিকার সাহায্যে অবরুদ্ধ এলাকা মুক্ত করতে শুরু করে । এরসাথেসোভিয়েত ইউনিয়নও যোগ দেয় । ১৫ই অগাস্ট ১৯৪৫, আনবিক বোমা বিস্ফোরণের সাথে সাথে জাপানের যুদ্ধ শেষ হয়ে যায় । ৯ই সেপ্টেম্বর জাপান আত্মসমর্পণ করে ।