দুস-গ্সুম-ম্খ্যেন-পা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
দুস-গ্সুম-ম্খ্যেন-পা

দুস-গ্সুম-ম্খ্যেন-পা (তিব্বতী: དུས་གསུམ་མཁྱེན་པ་ওয়াইলি: dus gsum mkhyen pa) (১১১০-১১৯৩) ছিলেন তিব্বতী বৌদ্ধধর্মের অন্যতম প্রধান ধর্মসম্প্রদায় ব্কা'-ব্র্গ্যুদ ধর্মসম্প্রদায়ের কার্মা-ব্কা'-ব্র্গ্যুদ ধর্মীয় গোষ্ঠীর প্রতিষ্ঠাতা ও প্রথম র্গ্যাল-বা-কার্মা-পা বা প্রধান।

পরিবার[সম্পাদনা]

দুস-গ্সুম-ম্খ্যেন-পা তিব্বতের খাম্স অঞ্চলের ত্রে-শোদ নামক স্থানে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতা স্গোম-পা-র্দো-র্জে-ম্গোন (ওয়াইলি: sgom pa rdo rje mgon) ছিলেন যমান্তক সাধক। তাঁর মাতার নাম ছিল ল্হা-থোগ-গ্জা'-স্গাং-ল্চাম-মিং-'দ্রেন (ওয়াইলি: lha thog gza' sgang lcam ming 'dren)।[১]

শিক্ষা[সম্পাদনা]

দুস-গ্সুম-ম্খ্যেন-পা তাঁর পিতার নিকট থেকে তিনি র্ন্যিং-মা সম্বন্ধে জ্ঞানলাভ করেন।[২] ষোল বছর বয়সে তিনি ত্রে-বো-ম্ছোগ-গি-ব্লা-মা (ওয়াইলি: tre bo mchog gi bla ma) নামক ব্কা'-গ্দাম্স সাধকের নিকট শিক্ষার্থী হিসেবে শপথ নেন। এরপর তিনি ত্রে-কা-ব্রাগ নামক স্থানে য়োল-ছোস-দ্বাং (ওয়াইলি: yol chos dbang) নামক অতীশ দীপঙ্করের এক শিষ্যের নিকট চক্রসম্বর সম্বন্ধে শিক্ষালাভ করেন। উনিশ বছর বয়সে তিনি স্তোদ-লুংস-সা-থাং নামক বৌদ্ধবিহারে স্তোদ-লুং-র্গ্যা-দ্মার-বা-ব্যাং-ছুব-গ্রাগ্স (ওয়াইলি: stod lung rgya dmar ba byang chub grags) নামক বৌদ্ধ লামার নিকট মধ্যমক সম্বন্ধে শিক্ষা লাভ করেন। তিনি 'ফান-পো অঞ্চলের র্গ্যাল-ল্হা-খাং বৌদ্ধবিহারে র্গ্বা-লো-ত্সা-বার নিকট মহাকালতত্ত্ব এবং খাম্স-পা-আ-সেংয়ের নিকট কালচক্রতত্ত্ব সম্বন্ধে শিক্ষালাভ করেন। তিরিশ বছর বয়সে তিনি বিখ্যাত তিব্বতী কবি র্জে-ব্ত্সুন-মি-লা-রাস-পার শিষ্য স্গাম-পো-পা-ব্সোদ-নাম্স-রিন-ছেনের নিকট শিক্ষালাভ করেন। এই সময় তিনি নবপ্রতিষ্ঠিত ব্কা'-ব্র্গ্যুদ ধর্মসম্প্রদায়ের বিভিন্ন বৌদ্ধ পন্ডিতদের সঙ্গে মহামুদ্রা, চক্রসম্বর, হেবজ্র এবং মার্গফল সম্বন্ধে শিক্ষা সম্পূর্ণ করেন।[১]

পরবর্তী জীবন[সম্পাদনা]

১১৪৭ খ্রিষ্টাব্দে তিনি কার্মা-ব্কা'-ব্র্গ্যুদ নামক একটি নতুন ধর্মীয় গোষ্ঠীর প্রতিষ্ঠা করেন। ১১৫৪ খ্রিষ্টাব্দে তিনি লহো-ব্রাগ অঞ্চলে ল্হা-লুং নামক বৌদ্ধবিহার স্থাপন করেন। স্গাম-পো-পা-ব্সোদ-নাম্স-রিন-ছেনের মৃত্যুর পর ১১৬৪ খ্রিষ্টাব্দে তিনি খাম-পো-গ্নাস-নাং নামক স্থানে এক বৌদ্ধবিহার স্থাপন করেন। ১১৮৯ খ্রিষ্টাব্দে তিনি লাসা শহরের পশ্চিমে স্তোদ-লুং অঞ্চলে ম্ত্শুর-ফু বৌদ্ধবিহার স্থাপন করেন।[১]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. ১.০ ১.১ ১.২ Gardner, Alexander (2009-12)। "The First Karmapa, Dusum Khyenpa"The Treasury of Lives: Biographies of Himalayan Religious Masters। সংগৃহীত 2013-08-18 
  2. Dzogchen Ponlop Rinpoche. (2003). "Brief Histories of the Sixteen Karmapas". In: Music in the Sky: The Life, Art & Teachings of the 17th Karmapa Ogyen Trinley Dorje. Snow Lion Publications, U.S.A. First Indian Reprint: New Age Books, New Delh. (2004), p. 277. ISBN 81-7822-193-4.

আরো পড়ুন[সম্পাদনা]

  • Thinley, Karma (2008)। The History of Sixteen Karmapas of Tibet (ইংরেজি ভাষায়)। USA: Prajna Press। পৃ: 150। আইএসবিএন 1-57062-644-8 
  • Lama Kunsang, Lama Pemo, Marie Aubèle (2012). History of the Karmapas: The Odyssey of the Tibetan Masters with the Black Crown. Snow Lion Publications, Ithaca, New York. ISBN 1-55939-390-4.
  • First Karmapa: The Life and Teachings of Dusum Khyenpa (2012), Translated by Michele Martin & David Karma Choepel, KTD Publications, New York. ISBN 978-1-934608-32-6.
  • Jackson, David. 2009. "The Black Hats of the Karmapas." In Patron and Painter; Situ Paṇchen and the Revival of the Encampments Style, pp. 39–69. New York: Rubin Museum of Art.
  • Richardson, Hugh. 1998 (1958-1959). “The Karma-pa Sect: A Historical Note.” In High Peaks, Pure Earth. Michael Aris, ed. London: Serindia, pp. 337–378.
  • Roerich, George, trans. 1996. The Blue Annals. 2nd ed. Delhi: Motilal Banarsidas, pp. 474–480.
পূর্বসূরী
দুস-গ্সুম-ম্খ্যেন-পা
প্রথম র্গ্যাল-বা-কার্মা-পা


উত্তরসূরী
কার্মা-পাক্শি