গ্র্যান্ড ভিজিয়ের

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
গম্বুজের নিচে গ্র্যান্ড ভিজিয়েরের বক্তৃতা

গ্র্যান্ড ভিজিয়ের, তুর্কি ভাষায় Vezir-i Azam বা Sadr-ı Azam (Sadrazam) (উসমানীয় তুর্কি ভাষায় صدر اعظم or وزیر اعظم ) হল উসমানীয় সুলতানের অধীন সর্বোচ্চ মন্ত্রীর পদ। আরবি وزير শব্দ থেকে এই শব্দের উৎপত্তি। তিনি পাওয়ার অব এটর্নি হিসেবে সর্বময় ক্ষমতা ভোগ করতেন। সুলতান ছাড়া আর কেউ তাকে পদচ্যুত করার ক্ষমতা রাখত না।[১] তিনি রাজকীয় সীলমোহর ব্যবহার করতেন এবং রাষ্ট্রীয় প্রয়োজনে অন্যান্য ভিজিয়েরদের নিয়ে সভা আহ্বান করতে পারতেন। সাবলিম পোর্টেতে তার কার্যালয় অবস্থিত ছিল। পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীকেও উর্দুতে “গ্র্যান্ড ভিজিয়ার” বা উজির-এ-আজম বলে ডাকা হয়।

গ্র্যান্ড ভিজিয়ের জাফর আল-বারমাকির দরবার.

উসমানীয়দের বর্ধিষ্ণুকালে শুধুমাত্র “ভিজিয়ের” পদবিটি ব্যবহার করা হত। প্রথম উসমানীয় ভিজিয়ের যাকে “গ্র্যান্ড ভিজিয়ের” পদবি দেয়া হয় তিনি হলেন চেনডারলি কারা হালিল হায়রেড্ডিন পাশা। এই পদবি প্রচলনের উদ্দেশ্য ছিল যাতে সুলতানের সীলমোহরধারী ভিজিয়েরের সাথে অন্য ভিজিয়েরদের পার্থক্য সৃষ্টি হয়। গ্র্যান্ড ভিজিয়ের শব্দটি পরবর্তীতে সদরআজম শব্দ দ্বারা প্রতিস্থাপিত হয়। তবে এই দুটি শব্দ একই অর্থ প্রকাশ করে। উসমানীয় যুগে গ্র্যান্ড ভিজিয়েরকে সদর-ই আলি(ইংরেজি "high vizier"), ভেকিল-ই মুতলাক(ইংরেজি "absolute attorney") , সাহিব-ই ডেভলেত(ইংরেজি "holder of the state"), সেরদার-ই আজম এবং যাত-ই আসাফি(ইংরেজি "vizieral person") বলেও ডাকা হত।

উসমানীয় গ্র্যান্ড ভিজিয়েরের সীলমোহর

কোপরুলু যুগে(১৬৫৬-১৭০৩) উসমানীয় সাম্রাজ্য বেশ কয়েকজন ক্ষমতাশালী গ্র্যান্ড ভিজিয়ের দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়। প্রশাসনের নিচের দিকে ক্ষমতার প্রবাহ কোপরুলু যুগের অন্যতম বৈশিষ্ট্য ছিল।

১৯ শতকে তানযিমাত যুগের পর গ্র্যান্ড ভিজিয়েরের পদটি সমসাময়িক অন্যান্য পশ্চিমা রাজতন্ত্রের প্রধানমন্ত্রীর মত হয়ে উঠে।

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Diplomatic documents relating to the outbreak of the European war, Volume 2. By Carnegie Endowment for International Peace. P.1411