উইকিপিডিয়া:খেলাঘর

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(উইকিপিডিয়া:Sandbox থেকে ঘুরে এসেছে)

সম্পাদকীয়

বাংলাদেশের গৃহযুদ্ধ এবং প্রতিরোধে আমাদের করনীয় ।।

                          • পরিবেশ বন্ধু কবি

৩০ লক্ষ প্রানের বিসর্জন শেষে আজকের ১৬ কোটি মানুষের এই স্বাধীন দেশ । বিশ্ব বুকে ধুকে ধুকে নানা প্রতিকূলতা এড়িয়ে ৪২ বছরে পদার্পণ ।। কি প্রাপ্তি কি যোগ , আমরা কি স্বাধীন বা পরাধিনতার শ্রিংখল মুক্ত ।। ভুল , সবই ভুল ।। আমি নিরপ্রেক্ষ দৃষ্টিতে বললাম ।। ৩০ লক্ষ শহীদ আর ২ লক্ষ মা বোনের প্রান বিসর্জন কি শুধু আওমি লীগ এর লোক বা বিএনপির লোক বা জাতীয় পার্টির লোক বা বাম ফ্রন্টের লোক বা জামাত শিবির এর লোক । আমি জানি কম বেশি সব দলের লোকই যুদ্ধে শাহাদাৎ বরন করেছে । তাহলে এখনও আমরা স্বাধীন নই কেন > আমাদের সংবিধান কেন ? অন্য দেশের সংবিধান ফলু করবে । আমাদের দেশের সুপ্রিম ,ও উচ্ছ আদালত গুলু কেন ? বিদেশি বা আন্তর্জাতিক আদালতের শরণাপন্ন হবে । আমাদের সংসদ বা মন্ত্রণালয় কেন? অন্য দেশের শলাপরামর্শে চলবে । দেশের শেয়ার বাজার , গুরুত্ত পূর্ণ স্থাপনা , নদী টিপাইমুখ বাধ , সুন্দর বন সহ কেন > অন্য দেশের মানুষেরা সুবিধা ভুগি হবে । সাধারন মানুষের নাই জননিরাপত্তা ।।

আছে শুধু ধংশ আর হানাহানির ৭১ । কেন? প্রিয় দেশবাসী ও বন্ধুগন

সমাজে মানবের ন্যায্য অধিকার আজ কোথায় , কাদের স্বার্থ কিসে উন্নয়ন । আমাদের দেশের গণতান্ত্রিক ব্যাবস্থাপনা খুবই জটিল । এক দল চায় অন্যদলকে বিনষ্ট করে নিজেদের ক্ষমতার অপব্যাবহার । ফলে সর্বক্ষেত্রে উন্নয়নে আসে বাধা , বাড়ে দুর্নীতি , দুঃশাসন । অন্যায় অসত্যর দাপটে কুলুসিত হয় মানবের জীবনদ্বারা । হত দারিত্রতা আর অনিয়ম দুষ্কৃতির শিকার হয় জাতী । এসব হতে উত্তরণের জন্য একমাত্র উপায় সঠিক গনতান্ত্রিক অধিকার এবং জাতীয় ঐক্য ।।

এবার জানা যাক জাতীয় এক্য স্থাপন কিভাবে সম্ভব ।। সরকারি দল যারা ক্ষমতায় থাকে তাদের উচিৎ বিরুধি দল গুলুকে পরিপূর্ণ মর্যাদা দেওয়া এবং দেশের আর্তসামাজিক সর্বদিক উন্নয়ন খসড়া নিতিমালায় তাদের কে উচ্ছ পর্যায়ে সমান অধিকার দেওয়া ।

সব দলের মধ্য থেকে মন্ত্রি বা উচ্ছ নির্বাহী কমিটিতে বিরুধি দলের উপযুক্ত লোক নিয়োগ করা । সেবা স্বাস্থ্য , ও উন্নয়ন কেত্রে বিরুধি দল গুলুকে সহযোগী কর্মসংস্থানের পরিবেশ সৃষ্টি করা ।। জাতীয় ও আন্তর্জাতিক কর্ম পরিকল্পনায় প্রত্যক সভা সেমিনারে একাত্তভাবে কাজ করার উদ্দ্যুগ নেওয়া । এবং দেশের জাতীয় সম্পদ রক্ষা ও বণ্টনে সবার সংশ্লিষ্ট সহযোগিতা থাকা ।। তবেই জাতীয় এক্যর মাধ্যমে আমাদের স্বাধীনতা ও দেশ কে বিশ্ব ব্যাপি তার স্বকীয়তায় মাথা তুলে বাঙালী জাতীকে স্বনির্ভর করা সম্ভব ।।

আর আমাদের মধ্য জনগণের রায়ে যারাই সেবার ব্রত লয়ে কাজ করবে , তাই হবে জনতার অধিকার এবং গনতান্ত্রিক মূল্যায়ন ।।

আমার সাথে একমত প্রকাশ করে , দেশ ও জাতীর ধংশ যজ্ঞ থেকে এক মঞ্চে আসুন এবং নিজেদের মধ্য যদি সহিংসতা থাকে তাহলে শত্রু রাস্ট , উভয় দিকে খড়গ চালিয়ে ইরাক আর আফগান পরিস্থিতি সৃষ্টি করবে ।। আর একবার যদি গৃহযুদ্ধের সুচনা হয় তাহলে শতাব্দির পর শতাব্দি চলে যাবে কিন্তু এ জাতীর ধংশ ছাড়া পরে আর কিছুই অবশিষ্ট থাকবেনা ।।

এতএব বাঙালি সাবধান ।। সম্পাদক এম , জি, আর, মাসুদরানা ।

বাংলাদেশ সুচেনা সাহিত্য পরিষদ । 

মিরপুর ঢাকা ।