ইপ মান

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ইপ ম্যান
ইপ ম্যান
জন্ম (১৮৯৩-১০-০১)১ অক্টোবর ১৮৯৩
ফোসান, গুয়াংডং , চীন
মৃত্যু ২ ডিসেম্বর ১৯৭২(১৯৭২-১২-০২) (৭৯ বছর)
১৪৯ তুং ছই স্ট্রিট, মং কক, কওলুন, হংকং
গলার ক্যান্সার
অন্য নাম আইপি ম্যান, ইপ কাই-ম্যান (葉繼問)
বাসস্থান হংকং
জাতীয়তা চাইনীজ
ধরন উইং চুন
পদবী গ্র্যান্ডমাষ্টার
পেশা মার্শাল আর্ট প্রশিক্ষক
স্বামী বা স্ত্রী চেউং উইং-সিং (張永成)
উল্লেখযোগ্য আত্মীয় ইপ চুন (পুত্র; জন্ম ১৯২৪)
ইপ চিং (পুত্র; জন্ম ১৯৩৬)
উল্লেখযোগ্য ছাত্র ব্রুস লি
ওয়ং শুন লিউংন

ইপ ম্যান (জন্ম: ১লা অক্টোবর, ১৮৯৩ - মৃত্যু: ২রা ডিসেম্বর, ১৯৭২), এছাড়াও আইপি ম্যান,[১] ইপ কাই-ম্যান নামেও পরিচিত, ছিলেন একজন চীনা মার্শাল আর্টিস্ট। তার বেশ কিছু ছাত্র ছিল যারা পরে তাদের নিজস্ব মার্শাল আর্ট শিক্ষক হয়ে ওঠে, যেমন ব্রুস লি

প্রাথমিক জীবন[সম্পাদনা]

ব্রুস লি ইপ মানের কাছ থেকে শিখছে।
ইপ মানের কবর।

ইপ মানের জন্ম চীনের ফোশানে। অত্যন্ত সম্ভ্রান্ত পরিবারে তার জন্ম। ছোটবেলা থেকেই স্বচ্ছলভাবে বেড়ে ওঠা ইপ দারিদ্র্যতা দেখেনি।[২]

ইপ মান চান ওয়া শুনের কাছ থেকে উইং চুন শিখে যিনি ছিলেন অত্যন্ত নামকরা একজন কুংফু শিক্ষক। বলা হয়, ইপ ছিল তার শেষ ছাত্র।[৩][৪]

ইপ মান ১৬ বছর বয়সে হংকং চলে যান। সেখানে সেন্ট স্টিফেনস কলেজে পড়াশোনা শুরু করেন।[২] হংকংয়ে পরিচয় হয় লিয়ান বাইকের সঙ্গে। তার ছেলে লিয়ান জান যে উইং চুন স্টাইলে প্রশিক্ষিত। তবে ভিন্ন আঙ্গীকে। ইপ এখানে পরিচিত হলো উইং চুন স্টাইলের ভিন্ন ধারার সঙ্গে।[২]

দীর্ঘ সময় পর ইপ ফিরে আসেন চীনে পুলিশ হিসেবে।[২] তখন ইপ ‘উইং চুন’ স্টাইলের অন্যতম ধারক ও বাহক। অনেক বছর তিনি কাউকে প্রশিক্ষণ দেয়নি। ১৯৪২ সালের দিকে জাপানিরা তাদের শহর দখল করে নেয়। ইপের সব সম্পত্তি জাপানিরা দখল করে এবং অনেক সম্পত্তি নষ্ট করে দেয়। ইপ অসহায় হয়ে পড়ে ও অর্থিক কষ্টতেও ভোগা শুরু করেন। কয়েক বছর পর ১৯৪৯ সালে কমিউনিস্টরা মাথা চাড়া দিয়ে ওঠে। কমিউনিস্টরা তাকে পুলিশ প্রধানের দায়িত্ব দিয়ে বসে। এ জীবনটা ইপ মোটেও উপভোগ করছিল না। এদিকে পুলিশের কুংফু শিক্ষকও করে দেওয়া হলো। কিন্তু ইপের কাছে কুং ফু একটি শিল্প। সে এটিকে দিয়ে মানুষকে দমানোর কাজ করত চায় না। সে শিক্ষক হতেও চায়নি। এ শিল্পকে ছড়িয়ে দিতে চেয়েছে। কিন্তু এভাবে নয়। খুব কম সময়ের মধ্যেই প্রমাণ করলো যে শিক্ষক হিসেবে ইপ মোটেও যোগ্য নয়। তার চাকরি গেল। আবার আর্থিক সমস্যায় পড়ে গেলেন ইপ।[৫]

হংকংয়ের জীবন[সম্পাদনা]

হংকংয়ে আসার পর ইপ মানের স্কুলে ছাত্ররা আসতে থাকে কিন্তু বেশিদিন কেউই অবস্থান করতনা। কারণ কিছুদিন পরই তারা নিজেরা স্কুল খুলে ফেলত।[৬][৭]

মৃত্যু এবং উত্তরাধিকার[সম্পাদনা]

ইপ মানের মৃত্যু ঘটে ১৯৭২ সালের ২ ডিসেম্বর, হংকংয়ে।[৮] গলার ক্যান্সারে মৃত্যুবরণ করেন তার ছাত্র ব্রুস লির এক মাস আগেই।[৯] ইপ মানের উত্তরাধিকার উইং চুনের বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. As written in Romanised text in his passport which is on display in the Yip Man Tong museum in Foshan in China.
  2. ২.০ ২.১ ২.২ ২.৩ Title: Yip Man – Portrait of a Kung Fu Master, Page:3, Author(s): Ip Ching and Ron Heimberger, Paperback: 116 pages, Publisher: Cedar Fort (23 January 2001), Language: English, ISBN 1-55517-516-3, ISBN 978-1-55517-516-0
  3. "Sam kwok Wing Chun – Yip Man Family Tree"। Kwokwingchun.com। সংগৃহীত 29 November 2011 
  4. Mastering Wing Chun, By Samuel Kwok
  5. "Ip Man's Biography"। Kwokwingchun.com। 2012-07-20। সংগৃহীত 2012-10-12 
  6. Ip Ching, Ip Man: Portrait of a Kung Fu Master (Springville, UT: King Dragon Press, 2001)
  7. Ip Man Ving Tsun 50th Anniversary Journal (Hong Kong: Ving Tsun Athletic Association Limited, 2005)
  8. "影武者‧ 葉問次子葉正專訪 (Exclusive Interview with Ip Man's second son Ip Ching)" (Chinese ভাষায়)। Ming Pao Weekly Online। সংগৃহীত 18 February 2013। "旺角通菜街一百四十九號一個單位內, ... 傳奇的老者在那個單位的一張沙發上遽然離世。 [Translation: ... in a unit at 149 Tung Choi Street, Mong Kok, ... the legendary old man passed away suddenly on a sofa in that unit.]" 
  9. Title: Complete Wing Chun: The Definitive Guide to Wing Chun's History and Traditions, Author(s): ~ Robert Chu, Rene Ritchie,Y. Wu, Page:9, Paperback: 160 pages, Publisher: Tuttle Publishing; 1st edition (15 June 1998), Language: English, ISBN 0-8048-3141-6, ISBN 978-0-8048-3141-3

টেমপ্লেট:Bruce Lee