আল-মারকাযুল ইসলামী আস-সালাফী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
আল-মারকাযুল ইসলামী আস-সালাফী
নীতিবাক্য (আসুন পবিত্র কুরআন ও ছহীহ হাদীছের আলোকে জীবন গড়ি)
স্থাপিত ১৯৮১
প্রিন্সিপাল শায়খ আব্দুল খালেক সালাফী
ছাত্র ১০০০
অবস্থান রাজশাহী, বাংলাদেশ
ক্যাম্পাস শহর
ওয়েবসাইট আল-মারকাযুল ইসলামী আস-সালাফী

আল-মারকাযুল ইসলামী আস-সালাফী বাংলাদেশের উত্তরাঞ্চলের বিভাগীয় শহর রাজশাহী মহানগরীতে অবস্থিত একটি মাদরাসা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।[১] এটি বাংলাদেশের অন্যতম একটি মাদরাসা যেখানে পবিত্র কুরআন ও ছহীহ হাদীছের আলোকে ইসলামের বিশুদ্ধ জ্ঞান দান করা হয়। আহলেহাদীছ আন্দোলন বাংলাদেশ-এর আমীর প্রফেসর ড. মুহাম্মাদ আসাদুল্লাহ আল-গালিব মাদরাসাটি প্রতিষ্ঠা করেন।[২][৩][৪][৫]

ক্যাম্পাস[সম্পাদনা]

অত্র প্রতিষ্ঠানটি রাজশাহী মহানগরীর নওদাপাড়া আমচত্বরে অবস্থিত। রাজশাহী-নওগাঁ মহাসড়কের দু’পাশে প্রায় সাড়ে দশ বিঘা জমির উপর অবস্থিত প্রতিষ্ঠানটিতে চার তলা ও তিন তলা বিশিষ্ট দু’টি বিরাটাকার ভবন রয়েছে। যার একটি ছাত্রাবাস ও অপরটি একাডেমিক ভবন হিসাবে ব্যবহৃত হচ্ছে। এছাড়া লাইব্রেরী, সেন্ট্রাল মসজিদ ও অডিটরিয়াম নিয়ে চলছে মাদরাসার সমস্ত কার্যক্রম।

ছাত্রাবাস, আল-মারকাযুল ইসলামী আস-সালাফী

ছাত্রাবাস, আল-মারকাযুল ইসলামী আস-সালাফী

ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৯৮১ খ্রিষ্টাব্দে সর্বপ্রথম স্থানীয় বয়োজ্যেষ্ঠদের উদ্যোগে এখানে একটি হিফয মাদরাসার কার্যক্রম শুরু হয়। অত:পর ১৯৯১ সালে মাদরাসাটি "আল-মারকাযুল ইসলামী আস-সালাফী" নামকরণ করা হয় এবং আধুনিক অবকাঠামোতে পুনর্নির্মিত হয়। বর্তমানে এখানে একটি হিফজখানা, এতিমখানাসহ প্রাথমিক থেকে উচ্চ মাধ্যমিক স্তর পর্যন্ত পাঠদান করা হয়। এছাড়া সর্বোচ্চ স্তরে ‌'দাওরায়ে হাদীছ' বিভাগ চালু রয়েছে। এখানকার শিক্ষা কারিকুলাম বাংলাদেশ মাদরাসা শিক্ষাবোর্ডের অনুসরণে পরিচালিত হচ্ছে।

প্রশাসন[সম্পাদনা]

আহলেহাদীছ আন্দোলন বাংলাদেশ-এর কেন্দ্রীয় শিক্ষা বিভাগের অধীনে এটি পরিচালিত হয়। প্রতিষ্ঠার পর থেকে এ পর্যন্ত ৩ জন আলেমে দ্বীন এই মাদরাসার অধ্যক্ষ ছিলেন।

  1. শায়খ আব্দুস সামাদ সালাফী (১৯৯১-২০০৯)[৬]
  2. শায়খ আব্দুর রাযযাক বিন ইউসুফ (২০০৯-২০১৪)[৭][৮][৯]
  3. শায়খ আব্দুল খালেক সালাফী (২০১৪-বর্তমান)

ছাত্র[সম্পাদনা]

বর্তমানে মাদরাসার ছাত্র ও ছাত্রী শাখায় আবাসিক-অনাবাসিক প্রায় ১০০০ শিক্ষার্থী রয়েছে। আলিম পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ার পর প্রতি বছর কয়েক জন মেধাবী ছাত্র মদীনা ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নের সুযোগ পায়।

এ্যালামনাই এসোসিয়েশন[সম্পাদনা]

শিক্ষা-সহায়ক কার্যক্রম[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]