টম ক্যাম্পবেল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(Tom Campbell (South African cricketer) থেকে পুনর্নির্দেশিত)
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
টম ক্যাম্পবেল
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামটমাস ক্যাম্পবেল
জন্ম(১৮৮২-০২-০৯)৯ ফেব্রুয়ারি ১৮৮২
এডিনবরা, স্কটল্যান্ড
মৃত্যু৫ অক্টোবর ১৯২৪(1924-10-05) (বয়স ৪২)
নাটাল, দক্ষিণ আফ্রিকা
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরন
ভূমিকাউইকেট-রক্ষক
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ৬৫)
১ জানুয়ারি ১৯১০ বনাম ইংল্যান্ড
শেষ টেস্ট১০ জুন ১৯১২ বনাম ইংল্যান্ড
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা ২৯
রানের সংখ্যা ৯০ ৩৬৫
ব্যাটিং গড় ১৫.০০ ১২.১৬
১০০/৫০ ০/০ ০/০
সর্বোচ্চ রান ৪৮ ৪৮
বল করেছে
উইকেট
বোলিং গড়
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ৭/১ ৪০/১২
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ১৭ জুন ২০১৯

টমাস ক্যাম্পবেল (ইংরেজি: Tom Campbell; জন্ম: ৯ ফেব্রুয়ারি, ১৮৮২ - মৃত্যু: ৫ অক্টোবর, ১৯২৪) মিডলোথিয়ানের এডিনবরায় জন্মগ্রহণকারী ও স্কটল্যান্ডীয় বংশোদ্ভূত প্রথিতযশা দক্ষিণ আফ্রিকান আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার ছিলেন।[১] দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৯১০ থেকে ১৯১২ সময়কালে দক্ষিণ আফ্রিকার পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছিলেন। ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর দক্ষিণ আফ্রিকান ক্রিকেটে ট্রান্সভাল দলের পক্ষে খেলেছেন টম ক্যাম্পবেল। দলে তিনি মূলতঃ উইকেট-রক্ষকের দায়িত্ব পালন করতেন। এছাড়াও, ডানহাতে কার্যকরী ব্যাটিংশৈলী উপস্থাপন করে গেছেন টম ক্যাম্পবেল

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট[সম্পাদনা]

১৯০৬-০৭ মৌসুম থেকে ১৯১২ সাল পর্যন্ত টম ক্যাম্পবেলের প্রথম-শ্রেণীর খেলোয়াড়ী জীবন চলমান ছিল। ১৯০৬-০৭ মৌসুমে কারি কাপ প্রতিযোগিতায় প্রথমবারের মতো ট্রান্সভালের সদস্যরূপে অংশ নেন। চার মৌসুম পরই অস্ট্রেলিয়া গমনের উদ্দেশ্যে দক্ষিণ আফ্রিকা দলের সদস্য করা হয় টম ক্যাম্পবেলকে। পার্সি শেরওয়েলের নেতৃত্বে ঐ সফরে অবশ্য কোন টেস্টে অংশগ্রহণের সুযোগ পাননি তিনি।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট[সম্পাদনা]

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে পাঁচটিমাত্র টেস্টে অংশগ্রহণ করার সুযোগ লাভ করেছিলেন টম ক্যাম্পবেল। ১ জানুয়ারি, ১৯১০ তারিখে জোহেন্সবার্গে সফরকারী ইংরেজ দলের বিপক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তাঁর। ১০ জুন, ১৯১২ তারিখে লর্ডসে স্বাগতিক ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সর্বশেষ টেস্ট খেলেন তিনি।

১৯০৯-১০ মৌসুমে সফরকারী ইংরেজ দলের বিপক্ষে ডারবান টেস্টে ৪৮ রানের উল্লেখযোগ্য ইনিংস উপহার দেন। এটিই তাঁর ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ ইনিংস ছিল। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে দক্ষিণ আফ্রিকা দল রাবার জয় করে। ঐ সিরিজের চার টেস্টেই তাঁর অংশগ্রহণ ছিল।

১৯১২ সালে ইংল্যান্ড গমন করেন। তবে, এ সফরে তিনি স্বাভাবিক ক্রীড়াশৈলী উপস্থাপন করতে পারেননি। লর্ডসে ত্রি-দেশীয় প্রতিযোগিতায় একটিমাত্র খেলায় ইংল্যান্ডের মুখোমুখি হয়েছিলেন। দক্ষিণ আফ্রিকার সুপরিচিত ক্রিকেটার ছিলেন। ব্যাটসম্যান হিসেবে তেমন সুবিধে করতে পারেননি। তবে, উইকেট-রক্ষক হিসেবে যথেষ্ট কৃতিত্বের স্বাক্ষর রেখে গেছেন।

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

১৬ ডিসেম্বর, ১৯১৬ তারিখে জোহেন্সবার্গ থেকে আসা কেপ মেইল ট্রেন থেকে পড়ে যান। অতঃপর মালবাহী ট্রেনে তাঁকে নিয়ে যাওয়া হয়। মস্তিষ্কে ও মাথায় গুরুতর আঘাত পান। ক্রুজারডর্প হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র দেয়া হয়। এক পর্যায়ে ধারনা করা হয়েছিল যে, তিনি হয়তো আর স্বাভাবিক জীবন ফিরে পাবেন না।

৫ অক্টোবর, ১৯২৪ তারিখে ৪২ বছর বয়সে নাটালের মিনডেল রেলওয়ে সাইডিংয়ে রেল দূর্ঘটনায় টম ক্যাম্পবেলের দেহাবসান ঘটে।[২]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Tom Campbell"। CricketArchive। 
  2. "Obituaries in 1924"Wisden 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]