মহেশ গুণতিলকে

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(Mahes Goonatilleke থেকে পুনর্নির্দেশিত)
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
মহেশ গুণতিলকে
මහේෂ් ගුණතිලක
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামহেত্তিয়ারাচিগে মহেশ গুণতিলকে
জন্ম১৬ আগস্ট, ১৯৫২
কিগল, শ্রীলঙ্কা
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
ভূমিকাউইকেট-রক্ষক
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ )
১৭ ফেব্রুয়ারি ১৯৮২ বনাম ইংল্যান্ড
শেষ টেস্ট১৭ সেপ্টেম্বর ১৯৮২ বনাম ভারত
ওডিআই অভিষেক
(ক্যাপ ২৩)
১৪ জুন ১৯৭৫ বনাম পাকিস্তান
শেষ ওডিআই২৬ সেপ্টেম্বর ১৯৮২ বনাম ভারত
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট ওডিআই
ম্যাচ সংখ্যা
রানের সংখ্যা ১৭৭ ৩১
ব্যাটিং গড় ২২.১২ ৩১.০০
১০০/৫০ ০/১ ০/০
সর্বোচ্চ রান ৫৬ ১৪*
বল করেছে
উইকেট
বোলিং গড়
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট -
সেরা বোলিং - -
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ১০/৩ ০/৪
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ১৪ অক্টোবর ২০১৯

হেত্তিয়ারাচিগে মহেশ গুণতিলকে (তামিল: மகேஸ் குணதிலக்க; জন্ম: ১৬ আগস্ট, ১৯৫২) কিগল এলাকায় জন্মগ্রহণকারী প্রথিতযশা ও সাবেক শ্রীলঙ্কান আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার।[১][২] শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৯৮২ সালে সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্যে শ্রীলঙ্কার পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছেন।

শ্রীলঙ্কান ঘরোয়া ক্রিকেটে অল-সিলন দলের প্রতিনিধিত্ব করেন। দলে তিনি মূলতঃ উইকেট-রক্ষক হিসেবে খেলতেন। এছাড়াও, ডানহাতে কার্যকরী ব্যাটিংশৈলী উপস্থাপন করেছেন মহেশ গুণতিলকে

খেলোয়াড়ী জীবন[সম্পাদনা]

১৯৭৫-৭৬ মৌসুম থেকে ১৯৮২-৮৩ মৌসুম পর্যন্ত মহেশ গুণতিলকের প্রথম-শ্রেণীর খেলোয়াড়ী জীবন চলমান ছিল। এ পর্যায়ে তিনি শ্রীলঙ্কার প্রথম পছন্দের উইকেট-রক্ষক হিসেবে পরিচিত ছিলেন। নিচেরসারিতে কার্যকরী ব্যাটিং করতেন মহেশ গুণতিলকে। বেশ কয়েকবার ব্যাট হাতে বাঁধার প্রাচীর গড়ে তুলেছেন। শ্রীলঙ্কার ক্রিকেটের ইতিহাসের উদ্বোধনী টেস্টে অংশ নেয়ার সুযোগ হয় তার। পেস কিংবা স্পিন উভয় পর্যায়েই উইকেট-রক্ষণে তার জুড়ি মেলা ভার ছিল।

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে পাঁচটিমাত্র টেস্ট ও ছয়টি একদিনের আন্তর্জাতিকে অংশগ্রহণ করেছেন মহেশ গুণতিলকে। ১৭ ফেব্রুয়ারি, ১৯৮২ তারিখে কলম্বোয় সফরকারী ইংল্যান্ড দলের বিপক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তার। ১৭ সেপ্টেম্বর, ১৯৮২ তারিখে চেন্নাইয়ে স্বাগতিক ভারত দলের বিপক্ষে সর্বশেষ টেস্টে অংশ নেন তিনি।

ফয়সালাবাদে ফয়সালাবাদে সিরিজের দ্বিতীয় টেস্টে স্বাগতিক পাকিস্তানের বিপক্ষে উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান হিসেবে প্রথম ইনিংসে ২৭ রান করার পর দ্বিতীয় ইনিংসে ৫৬ রানের দূর্দান্ত ইনিংস খেলেন। এটি দলের সর্বোচ্চ রান ছিল।

অবসর[সম্পাদনা]

১৯৮২-৮৩ মৌসুমে তৎকালীন নিষিদ্ধঘোষিত দক্ষিণ আফ্রিকায় গমন করেন। ফলশ্রুতিতে আন্তর্জাতিক অংশগ্রহণে তিনিও নিষেধাজ্ঞার কবলে পড়েন।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. List of Sri Lanka Test Cricketers
  2. "Sri Lanka – Test Batting Averages"। ESPNCricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১০ অক্টোবর ২০১৯ 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]