হাইপারসেক্সুয়ালিটি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(Hypersexuality থেকে পুনর্নির্দেশিত)

হাইপারসেক্সুয়ালিটি (ইংরেজি: Hypersexuality) হল অতিমাত্রার বারংবার যৌন আকাঙ্ক্ষার বৃদ্ধি এবং তা পূরনে যৌন কর্মকান্ড করা। এ রোগটি মানসিক স্বাস্থ্য গবেষকগণ এবং বিশেষজ্ঞদের দ্বারা চিকিৎসাবিদ্যায় নির্ণীত একটি রোগ যার সাধারণ অর্থ হল "হঠাৎ করে বেড়ে যাওয়া যৌন চাহিদা"। বর্তমানে এটিকে ক্লিনিক্যাল রোগনির্ণয়ের অর্ন্তভূক্ত করা হবে কিনা তা নিয়ে বিতর্ক রয়েছে।[১] নারীদের ক্ষেত্রে এটি নিমফোমেনিয়া এবং পুরুষদের ক্ষেত্রে এটি সেটিরিয়াসিস নামে পরিচিত।

অন্ডকোষ থেকে এন্ড্রোজেন এবং টেস্টোস্টেরন নামক হরমোন নিঃসৃত হয়। অল্পবয়সে এই হরমোনের ক্ষরণ বেশি হলে অপরিণত বয়সেই যৌন লক্ষন প্রকাশ পায়। এটি হল যৌনসঙ্গম করার জন্য স্বাভাবিকের চেয়ে অধিক দৃঢ় চাহিদা।[২] এ অবস্থায় হস্তমৈথুন করে চরমানন্দ পাওয়া যায়, যাকে ইউফোরিয়া (Euphoria) বলে।

হাইপারসেক্সুয়ালিটি বা অতি যৌনাকাঙ্খা একটি প্রাথমিক রোগ হিসেবে বিবেচনা করা ঠিক হবে নাকি একে ভিন্নতর কোন রোগের উপসর্গ হিসেবে চিন্হিত করা উচিত, এ বিষয়ে চিকিৎসকরা এখনও একমত নন।[৩][৪][৫] অন্য কোন রোগের উপসর্গ যেমন ক্লুভার-বাকি সিনড্রম, বাইপোলার ডিজর্ডার, সিজোএফেক্টিভ ডিজর্ডার, বর্ডারলাইন পারসনালিটি ডিজর্ডার, হিস্ট্রিয়নিক পারসোনালিটি ডিজর্ডার ইত্যাদি।[৬][৭] কিছু ঔষধের প্বার্শপ্রতিক্রিয়াসরূপ বা ক্রিয়াসরূপ এটি ঘটে থাকতে পারে যেমন এম্ফিটামিন, পারকিনসন রোগের চিকিৎসায় ব্যবহৃত ঔষধ ইত্যাদি। চিকিৎসকরা এখনও সেরকম কোন সমীক্ষায় পৌছান নি যেখান থেকে এটিকে মূল রোগ[৮][৯][১০] বা অন্য কোন রোগের প্বার্শপ্রতিক্রিয়া বলা যাবে। এছাড়া কিছু ক্ষেত্র রয়েছে যার কারণ অজানা। কিছু মনোবিজ্ঞানী মনে করেন যে, হরমোনের ভারসাম্যহীনতার কারণেও এটি হতে পারে।[১১][১২][১৩] অনেকে যুক্তি দেখিয়েছেন যে, যৌনতাকে ‘চরম’ আখ্যা দেওয়া কোনমতেই সঠিক নয়। কারণ এতে জনসাধারণের মনে যৌনতা সম্বন্ধে একটি বিরূপ মনোভাব সৃষ্টি হয়।[১৪]

অতি যৌনাকাঙ্খার আচরণকে চিকিৎসক এবং থেরাপি প্রদানকারীরা বিভিন্ন দৃষ্টিতে দেখে থাকে তবে এটিকে ওসিডি ঘরানার ব্যাধি বলে মনে করা হয়। এটিকে একটি নেশা [১৫][১৬][১৭] বা একটি আবেগপ্রবণতার ব্যাধি বলে ধরা হয়। বেশ কিছু সংখ্যক চিকিৎসক এটিকে প্যাথলজি হিসেবে দেখেন না[১৮] এবং তবে কিছু সংখ্যক লেখক ভিন্নমত পোষণ করেন এবং হাইপারসেক্সুয়াল আচরণগুলোকে বরং নিতান্তই সামাজিক পছন্দ-অপছন্দের প্রতিফলন বলে মনে করেন।[১৪][১৯][২০][১৪][২১]

অতি যৌনাকাঙ্খার সঠিক কারন বের করতে না পেরে[৭] কিছু লেখক প্রায়শই অর্থের অদলবদল ঘটিয়ে রোগটি ব্যাখ্যা করে থাকেন। তবে এটি অনেকাংশেই নির্ভর করে গবেষকরা কোন তত্ত্বটিকে সমর্থন করছেন এবং কোন সুনির্দিষ্ট আচরণের উপর গবেষণা করছেন তার উপর। এ রোগটির সাথে সমার্থক অনেক সংজ্ঞা প্রদান করে যেমন কম্পালসিভ হস্তমৈথুন (অমোঘ হস্তমৈথুন), অমোঘ যৌন আচরণ,[২২][২৩] সাইবারসেক্স আসক্তি, ইরোটোম্যানিয়া, "অতি যৌন ইচ্ছা",[২৪] হাইপারফিলিয়া,[২৫] অতিযৌনতা,[২৬][২৭] অতি যৌন ব্যধি,[২৮] সমস্যাযুক্ত অতি যৌনতা,[২৯] যৌন আসক্তি, যৌন বাধ্যতা,[৩০] যৌন নির্ভরতা,[২০] যৌন আবেগপ্রবণতা,[৩১] "নিয়ন্ত্রনহীন যৌন আচরণ",[৩২] এবং প্যারাফিলিয়া সম্পর্কিত ব্যাধি ইত্যাদি।[৩৩][৩৪][৩৫]

বুৎপত্তি[সম্পাদনা]

সেক্সোলজিস্টরা ১৮০০ সাল পরবর্তি সময় থেকে ‘হাইপারসেক্সুয়ালিটি’ শব্দটি ব্যবহার করে আসছেন। ঐ শতকেরই আশির দশকে ক্রাফ্ট-এবিং তার যৌনরোগ বিষয়ক পুস্তক সাইকোপ্যাথিয়া সেক্সুয়ালিস -এ এই ধরনের চরম যৌন আচরণের বর্ণনা দেন।[৬][৭] লেখক এক্ষেত্রে অকাল বীর্যপাত বিষয়টি বর্ণনা করতে হাইপারসেক্সুয়ালিটি শব্দটি ব্যবহার করেন।

কারণ[সম্পাদনা]

অতি যৌনাকাঙ্খার কারণ কি তা সমন্ধে অল্পই গবেষনা বা সমীক্ষা হয়েছে। কিছু গবেষনা অনুসারে ডিমেনসিয়ার সাথে সম্পর্কিত জৈবরাসায়নিক অথাব শারীরবৃত্তীয় পরিবর্তনের ফলে এটি শুরু হয়েছে। মানসিক আকাঙ্খা এটির সাথে জড়িত তাই জৈব ব্যাখা জটিলতা ধারন করেছে। যার ফলে জানা গেছে মস্তিষ্কের ফ্রন্টাল লোব এরূপ উচ্চ মাত্রার আকাঙ্খার জন্য দায়ী। এ অংশে আঘাতপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের আগ্রাসী আচরণ এবং অন্যান্য আচরণিক সমস্যায় পড়তে দেখা গেছে এমনকি তাদের ব্যক্তিত্ব পরিবর্তন হয়েছে এবং তারা সমাজে যেরূপ যৌন আচরণ সঠিক নয় সেরূপ অতি যৌনাকাঙ্খার আচরণ দেখিয়েছে।[৩৬] ইউনিল্যাটারাল টেম্পোরাল লবোটমির পর একই উপসর্গ দেখা গেছে।[৩৭] অতি যৌনাকাঙ্খার সাথে সম্পর্কিত অন্য কারনগুলো হল ঋজঃ পূর্ব জৈব পরিবর্তন, শিশুকালে ভিরিলিসিং হরমোনের আওতায় আসা বা জরায়ুতে প্রয়োগ করা।[৩৮]

যে সকল পরীক্ষায় অতি যৌনাকাঙ্খা কমাবার জন্য এন্টিএন্ড্রোজেন ব্যবহার করা হয়েছিল যৌন আচরণ কমানোর জন্য সেখানে টেস্টোস্টেরনকে যৌন আকাঙ্খা জাগাবার জন্য দরকারি কিন্তু পর্যাপ্ত নয় বলে দেখা গেছে।[৩৮] অন্যান্য কারনের মধ্যে রয়েছে শারীরিক নৈকট্যের অনুপস্থিতি এবং সাম্প্রতিক অতীত ভুলে যাওয়া।[৩৯]

মস্তিষ্কেের ডোপামিনার্জিক মেসোলিম্বিক পথে ম্যানিয়া[৪০] বা ঔষধের কারনে বা মানসিকভাবে যদি অতিকার্যক্ষম হয় যেটা ডোপামিন এগোনিস্টের (বিশেষত ডি৩-ঘরানার এগোনিষ্টগুলো) পাশ্বপ্রতিক্রিয়ার কারনে হয় তাহলে তা বিভিন্ন ধরনের আসক্তি তৈরি বা জন্মানোর কারণ হয়। [৪১][৪২] যার ফলে কখনো কখনো অতি যৌনাকাঙ্গার আচরণ তৈরি করে, কখনো অতি অসংযত আচরণ তৈরি করে।[৪০][৪৩][৪৪] এইচপিএ এক্সিস ডিসরেগুলেশন অতি যৌনাকাঙ্খা ব্যধির সাথে সম্পর্কিত বলে জানা গেছে।[৪৫]

আমেরিকান এসোসিয়েন ফর সেক্স এডিকশন থেরাপি স্বীকার করে যে যৌন আসক্তির পেছনে জৈবিক কারন রয়েছে। অন্য কারনগুলো হল মানসিক আবেগ (যেগুলো মেজাজ এবং প্রেরণাসহ মনোচলৎশক্তি এবং কগনিটিভ কার্যের সাথে জড়িত[৪৬]), মেজাজের ব্যাধি, যৌন আঘাত এবং অন্তরঙ্গতার চাহিদা কম থাকা অথাব যৌন আসক্তির ধরন ইত্যাদি।[৪৭]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "hypersexuality" 
  2. http://www.merriam-webster.com/dictionary/hypersexual
  3. Stein, D. J. (2008). Classifying hypersexual disorders: Compulsive, impulsive, and addictive models. Psychiatric Clinics of North America, 31, 587–592.
  4. Bancroft, J., & Vukadinovic, Z. (2004). Sexual addiction, sexual compulsivity, sexual impulsivity or what? Toward a theoretical model ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ৫ ডিসেম্বর ২০১৪ তারিখে. Journal of Sex Research, 41, 225–234.
  5. Coleman, E. (জুলাই ১৯৮৬)। "Sexual Compulsion vs. Sexual Addiction: The Debate Continues" (PDF)SIECUS Report। ProQuest Academic Research Library। 14 (6): 7–11। ২০১৭-০৮-০৯ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-১০-১৫ 
  6. Krafft-Ebing, R. von (1886/1965). Psychopathia sexualis: A medico–forensic study (H. E. Wedeck, Trans.). New York: Putnam.
  7. Kafka, M. P. (2010). Hypersexual Disorder: A proposed diagnosis for DSM-V. Archives of Sexual Behavior, 39, 377–400.
  8. Coleman, E. (জুলাই ১৯৮৬)। "Sexual Compulsion vs. Sexual Addiction: The Debate Continues" (PDF)SIECUS Report14 (6): 7–11। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-১০-১৫ 
  9. Bancroft, J., & Vukadinovic, Z. (2004). Sexual addiction, sexual compulsivity, sexual impulsivity or what? Toward a theoretical model ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২০১৪-১২-০৫ তারিখে. Journal of Sex Research, 41, 225–234.
  10. Stein, D. J. (2008). Classifying hypersexual disorders: Compulsive, impulsive, and addictive models. Psychiatric Clinics of North America, 31, 587–592.
  11. Catalan, (1995). Hypersexuality revisited, The Journal of Forensic Psychiatry, 6:2, 255–258.
  12. Silverstone T, T (১৯৮৫)। "Dopamine in manic depressive illness. A pharmacological synthesis"। Journal of Affective Disorders8 (3): 225–31। ডিওআই:10.1016/0165-0327(85)90020-5পিএমআইডি 2862169 
  13. Boyd, Alan (১৯৯৫)। "Bromocriptine and psychosis: A literature review"Psychiatric Quarterly66 (1): 87–95। ডিওআই:10.1007/BF02238717পিএমআইডি 7701022। ২০২০-০৫-১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-০৯-০৬ 
  14. Levine, M. P; Troiden, R. R (১৯৮৮)। "The Myth of Sexual Compulsivity"। Journal of Sex Research25 (3): 347–363। ডিওআই:10.1080/00224498809551467 
  15. Orford, J. (1985). Excessive appetites: A psychological view of the addictions. Chichester, England: John Wiley & Sons.
  16. Douglas, Weiss (১৯৯৮)। The Final Freedom : Pioneering Sexual Addiction Recovery। Fort Worth, Tex.: Discovery Press। পৃষ্ঠা 13–14। আইএসবিএন 978-1881292371ওসিএলসি 38983487 
  17. Carnes, P. (1983). Out of the shadows: Understanding sexual addiction. Minneapolis, MN: CompCare.
  18. Levine, S. B. (2010). What is sexual addiction? Journal of Sex & Marital Therapy, 36, 261–275.
  19. Levine, S. B. (2010). What is sexual addiction? Journal of Sex & Marital Therapy, 36, 261–275.
  20. Rinehart, N. J., & McCabe, M. P. (1997). Hypersexuality: Psychopathology or normal variant of sexuality? Sexual and Marital Therapy, 12, 45–60.
  21. Rinehart, N. J., & McCabe, M. P. (1997). Hypersexuality: Psychopathology or normal variant of sexuality? Sexual and Marital Therapy, 12, 45–60.
  22. Quadland, M. C. (1985). Compulsive sexual behavior: Definition of a problem and an approach to treatment. Journal of Sex and Marital Therapy, 11, 121–132.
  23. Coleman, E. (1990). The obsessive–compulsive model for describing compulsive sexual behavior. American Journal of Preventive Psychiatry & Neurology, 2, 9–14.
  24. "ICD-10 entry for "Excessive sexual drive"."। Apps.who.int। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-০৬-২২ 
  25. Money, J. (1980). Love and love sickness. The science of sex, gender difference, and pair bonding. Baltimore, MD: Johns Hopkins University Press.
  26. Miller, B. L., Cummings, J. L., & McIntyre, H. (1986). Hypersexuality or altered sexual preferences following brain injury. Journal of Neurology, Neurosurgery, and Psychiatry, 49, 867–873.
  27. Orford, J. (1978). Hypersexuality: Implications for a theory of dependence. British Journal of Addiction, 73, 299–310.
  28. Krueger, R. B., & Kaplan, M. S. (2001). The paraphilic and hypersexual disorders. Journal of Psychiatric Practice, 7, 391–403.
  29. Kingston, D. A., & Firestone, P. (2008). Problematic hypersexuality: Review of conceptualization and diagnosis. Sexual Addiction and Compulsivity, 15, 284–310.
  30. Dodge, B., Reece, M., Cole, S. L., & Sandfort, T. G. M. (2004). Sexual compulsivity among heterosexual college students. Journal of Sex Research, 41, 343–350.
  31. Kafka, M. P. (1995b). Sexual impulsivity. In E. Hollander & D. J. Stein (Eds.), Impulsivity and aggression (pp. 201–228). Chichester, England: John Wiley.
  32. Bancroft, J. (2008). Sexual behavior that is "out of control": A theoretical conceptual approach. Psychiatric Clinics of North America, 31, 593-601.
  33. Kafka, M. P. (1994). Paraphilia-related disorders: Common, neglected, and misunderstood. Harvard Review of Psychiatry, 2, 39–40.
  34. Kafka, M. P. (2000). The paraphilia-related disorders: Nonparaphilic hypersexuality and sexual compulsivity/addiction. In S. R. Leiblum & R. C. Rosen (Eds.), Principles and practice of sex therapy (3rd ed., pp. 471–503). New York: Guilford Press.
  35. Kafka, M. P. (2001). The paraphilia-related disorders: A proposal for a unified classification of nonparaphilic hypersexuality disorders. Sexual Addiction & Compulsivity, 8, 227–239.
  36. Robinson, Karen M. DNS, RN, CS, FAAN (জানুয়ারি ২০০৩)। "Understanding Hypersexuality: A Behavioral Disorder of Dementia"। Home Healthcare Nurse: The Journal for the Home Care and Hospice Professional21 (1): 43–7। এসটুসিআইডি 35691077ডিওআই:10.1097/00004045-200301000-00010পিএমআইডি 12544463 
  37. Devinsky, Julie; Devinsk, Oliver; Sacks, Orrin (১৮ নভে ২০০৯)। "Neurocase: The Neural Basis of Cognition"। Klüver–Bucy Syndrome, Hypersexuality, and the Law16 (2): 140–145। এসটুসিআইডি 23738965ডিওআই:10.1080/13554790903329182পিএমআইডি 19927260 
  38. Catalan, Jose; Singh, Ashok (১৯৯৫)। "Hypersexuality revisited"। The Journal of Forensic Psychiatry6 (2): 255–258। ডিওআই:10.1080/09585189508409891 
  39. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; Robinson2003 নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  40. Silverstone T, T (১৯৮৫)। "Dopamine in manic depressive illness. A pharmacological synthesis"। Journal of Affective Disorders8 (3): 225–31। ডিওআই:10.1016/0165-0327(85)90020-5পিএমআইডি 2862169 
  41. Arias-Carrión O, Pöppel E (২০০৭)। "Dopamine, learning and reward-seeking behavior"। Acta Neurobiol Exp67 (4): 481–488। 
  42. Nestler, Eric J. (২০০৫)। "Is There A Common Molecular Pathway For Addiction?" (PDF)Nature Neuroscience8 (11): 1445–1449। এসটুসিআইডি 6120032ডিওআই:10.1038/nn1578পিএমআইডি 16251986 
  43. "MedlinePlus Drug Information: Pramipexole (Systemic)"United States National Library of Medicine। ২০০৬-০৯-২৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৬-০৯-২৭ 
  44. Boyd, Alan (১৯৯৫)। "Bromocriptine and psychosis: A literature review"। Psychiatric Quarterly66 (1): 87–95। এসটুসিআইডি 29539691ডিওআই:10.1007/BF02238717পিএমআইডি 7701022 
  45. Chatzittofis, A.; Arver, S.; Öberg, K.; Hallberg, J.; Nordström, P.; Jokinen, J. (২০১৬)। "HPA axis dysregulation in men with hypersexual disorder"। Psychoneuroendocrinology63: 247–53। hdl:10616/45066অবাধে প্রবেশযোগ্যএসটুসিআইডি 44319298ডিওআই:10.1016/j.psyneuen.2015.10.002পিএমআইডি 26519779 
  46. "Psychological components - Mobility and transport - European Commission"Mobility and transport (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৬-১০-১৭। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৬-১৮ 
  47. "American Association For Sex Addiction Therapy"aasat.org (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৬-১৮