ঘানা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(Ghana থেকে পুনর্নির্দেশিত)
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান

স্থানাঙ্ক: ৮° উত্তর ১° পশ্চিম / ৮° উত্তর ১° পশ্চিম / 8; -1

ঘানার প্রজাতন্ত্র
পতাকা কোট অফ আর্মস
নীতিবাক্য"স্বাধীনতা এবং সুবিচার"
জাতীয় সঙ্গীত: God Bless Our Homeland Ghana[১]
গড দ্য গাম্বিয়া আওয়ার হোমল্যান্ড ঘানা
রাজধানী
এবং বৃহত্তম নগরী
আক্রা
৫°৩৩′ উত্তর ০°১৫′ পশ্চিম / ৫.৫৫০° উত্তর ০.২৫০° পশ্চিম / 5.550; -0.250
রাষ্ট্রীয় ভাষাসমূহ ইংরেজি
জাতীয়তাসূচক বিশেষণ ঘানাইয়ান
সরকার সাংবিধানিক প্রজাতন্ত্র
 •  রাষ্ট্রপতি জন আটা মিলস্‌
 •  উপরাষ্ট্রপতি জন দ্রামানী মাহামা
 •  পার্লামেন্টের স্পিকার জোয়েস ব্যানফোড-আডো‌
 •  প্রধান বিচারপতি জোরজিনা থেওডোরা উড্‌
স্বাধীনতা যুক্তরাজ্য থেকে
 •  ঘোষিত ৬ই মার্চ ১৯৫৭ 
 •  প্রজাতন্ত্র ১লা জুলাই ১৯৬০ 
 •  সংবিধান ২৮শে এপ্রিল ১৯৯২ 
 •  মোট ২,৩৮,৫৩৫ কিমি (80th)
৯২,০৯৯ বর্গ মাইল
 •  পানি (%) 4.61 (11,000 km2 / 4,247 mi2)
জনসংখ্যা
 •  ২০১৪ আনুমানিক ২,৭০,৪৩,০৯৩[২] (45th)
 •  ২০১০ আদমশুমারি ২,৪২,০০,০০০[৩]
 •  ঘনত্ব 101.5/কিমি (103rd)
২৫৮.৮/বর্গ মাইল
মোট দেশজ উৎপাদন
(ক্রয়ক্ষমতা সমতা)
২০১৭ আনুমানিক
 •  মোট $131.498 billion[৪] (70th)
 •  মাথা পিছু $4,650[৪] (126th)
মোট দেশজ উৎপাদন (নামমাত্র) ২০১৭ আনুমানিক
 •  মোট $42.753 billion[৪] (69th)
 •  মাথা পিছু $1,511[৪] (126th)
জিনি সহগ (২০০৬) 42.8[৫]
মাধ্যম
মানব উন্নয়ন সূচক (২০১৫) বৃদ্ধি 0.579[৬]
মধ্যম · 139th
মুদ্রা ঘানাইয়ান সিডি (GHS)
সময় অঞ্চল GMT (ইউটিসি০)
 •  গ্রীষ্মকালীন (ডিএসটি) GMT (ইউটিসি০)
কলিং কোড ২৩৩
ইন্টারনেট টিএলডি .জিএইস

ঘানা বা গানা (ইংরেজি: Ghana গানা, আসান্তে চুই ভাষায়: Ghana বা Gaana গানা) পশ্চিম আফ্রিকার একটি রাষ্ট্র। ১৯৫৭ সাল পর্যন্ত এটি গোল্ড কোস্ট নামের একটি ব্রিটিশ উপনিবেশ ছিল। ঐ বছর এটি সাহারা-নিম্ন আফ্রিকান দেশগুলির মধ্যে প্রথম দেশ হিসেবে ইউরোপীয় ঔপনিবেশিক শাসন থেকে স্বাধীনতা লাভ করে। আধুনিক ঘানার কয়েকশত মাইল উত্তর-পশ্চিমে ঊর্ধ্ব নাইজার নদীর তীরে অবস্থিত মধ্যযুগীয় সাম্রাজ্য ঘানার নামে দেশটির নামকরণ করা হয়। স্বাধীনতার পর আফ্রিকান বাকী দেশগুলির স্বাধীনতার জন্য ঘানা নেতৃত্ব দেয়।

ঘনবসতিপূর্ণ এই দেশটিতে ১০০-রও বেশি জাতির লোকের বাস। কিন্তু অন্যান্য আফ্রিকান দেশগুলির মত এখানে দেশ বিভাজনকারী জাতিগত সংঘাত তেমন মাথাচাড়া দিয়ে ওঠেনি। আক্রা দেশের বৃহত্তম শহর ও রাজধানী। ইংরেজি সরকারী ভাষা হলেও বেশির ভাগ ঘানাবাসী কমপক্ষে একটি আফ্রিকান ভাষায় কথা বলতে পারেন।

ঘানার অর্থনীতি আফ্রিকার অন্যতম শক্তিশালী অর্থনীতিগুলির একটি, কিন্তু এখনও কৃষি দেশটির অর্থনীতির মূল ভিত্তি এবং এখানকার বেশির ভাগ লোকই দরিদ্র। স্বর্ণখনিশিল্প, চকোলেটের উপাদান কাকাও উৎপাদন, এবং পর্যটন দেশটির আয়ের প্রধান উৎস। কয়েকশ বছর আগে ঘানা সোনার একটি উৎস বলে পরিচিত ছিল। ১৫শ ও ১৬শ শতকে যেসব ইউরোপীয় এখানে সোনার খোঁজে এসেছিলেন, তারা অঞ্চলটিকে গোল্ড কোস্ট নাম দেন।

সামরিক কু এবং অর্থনৈতিক সমস্যা ১৯৬০-এর দশক থেকে ১৯৮০-র দশক পর্যন্ত ঘানাকে বিপর্যস্ত করে রাখে। ১৯৯০-এর দশকে ঘানাতে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত হয় এবং আফ্রিকান রাজনীতিতে একটি নেতৃস্থানীয় দেশ হিসেবে এটি আবির্ভূত হয়। ১৯৯৭ সালে ঘানার এক কূটনীতিক কফি আনান জাতিসংঘের মহাসচিব হন।

নামকরনের ইতিহাস[সম্পাদনা]

ঘানা শব্দের অর্থ যোদ্ধা রাজা[৭] মধ্যযুগীয় ঘানা সাম্রাজ্য থেকে এ নামের উৎপত্তি। বর্তমান ঘানা থেকে উত্তর ও পশ্চিম দিকে অবস্থান ছিল ঘানা সাম্রাজ্য-এর। ১৯৫৭ সালে ব্রিটিশ কলোনী গোল্ড কোস্ট স্বাধীনতা লাভ করে। স্বাধীনতার ছয়মাসের ১৯৫৭ সালে গোল্ড কোস্টের নাম ঘানা হিসেবে রাখা হয়।[৮]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

প্রগৌতিহাসিক যুগের নির্দশন প্রমান করে প্রাচীন ঘানাতে ব্রোঞ্জ যুগ থেকে মানুষের বসবাস ছিল।[৯] যদিও এগারো শতক পর্যন্ত আধুনিক ঘানার দখলকৃত ছিল।[১০] বর্তমান ঘানাতে ১৬শতকে বর্তমান অধিবাসীদের আবির্ভাব ঘটে।[১১] এগারো শতকের প্রথমদিকে আকান জনগোষ্ঠী বুনুমান নামের জনবসতি গড়ে তোলে।[১২] এই অঞ্চলেই ষোল শতকে গাদাগোমবা নামের দুটি ভিন্ন রাষ্ট্র গড়ে উঠেছিল।[১১]

16th – 17th century Akan Terracotta, Metropolitan Museum of Art, New York

রাজনীতি[সম্পাদনা]

প্রশাসনিক অঞ্চলসমূহ[সম্পাদনা]

ভূগোল[সম্পাদনা]

অর্থনীতি[সম্পাদনা]

জনসংখ্যা[সম্পাদনা]

ঘানাতে বর্তমান জনসংখ্যা প্রায় ২৪মিলিয়ন। ১৯৬০ সালে স্বাধীনতার পরে প্রথম আদমশুমারিতে ঘানার জনসংখ্যা ছিল ৬.৭ মিলিয়ন।[১৩]

সংস্কৃতি[সম্পাদনা]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. [১]
  2. "Population projection by sex, 2010 to 2014, National"। Ghana Statistical Service। আসল থেকে ৪ আগস্ট ২০১৪-এ আর্কাইভ করা। সংগৃহীত ৩ আগস্ট ২০১৪ 
  3. Antoinette I. Mintah (২০১০)। 2010 Provisional Census Results Out। 4 February 2011। Population Division, Ghana Government। আসল থেকে ১৫ জুন ২০১১-এ আর্কাইভ করা। সংগৃহীত ৭ ফেব্রুয়ারি ২০১১ 
  4. "Ghana"। International Monetary Fund। 
  5. "GINI index–World Bank"World Bank। সংগৃহীত ১৫ ডিসেম্বর ২০১৪ 
  6. "2016 Human Development Report"। United Nations Development Programme। ২০১৬। সংগৃহীত ২১ মার্চ ২০১৭ 
  7. "Ghana – MSN Encarta"। । আসল থেকে ৩১ অক্টোবর ২০০৯-এ আর্কাইভ করা। , Encarta.msn.com
  8. "Etymology of Ghana"। Douglas Harper। সংগৃহীত ১২ মে ২০১২ 
  9. "Ghana Museums & Monuments Board"। ghanamuseums.org। সংগৃহীত ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০১২ 
  10. the Tribes and States 23.books.google.com. Retrieved 13 December 2010.
  11. Pre-Colonial Period. ghanaweb.com. Retrieved 13 December 2010.
  12. for Development – Akan Bono 11th century.books.google.com. Retrieved 13 December 2010.
  13. "Ghana – population". Library of Congress Country Studies.

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

সরকারী
পর্যটন
সাধারণ তথ্য
সংবাদ মিডিয়া
স্বাস্থ্য
  • Korle Bu Hospital
  • Unite For Sight at Buduburam Refugee Camp, Ghana A Unite For Sight video documentary with interviews of residents at Buduburam Refugee Camp, Ghana. Unite For Sight provides free eye care for the residents.
  • Subayo Foundation A not for profit charity for women and children in Ghana based out of the US.
  • Ghana Eye Foundation A Non Governmental Organisation to create awareness and mobilise resources to support the provision of a sustainable, equitable and quality eye health service by well-trained and appropriately motivated personnel to all residents in Ghana.
অন্যান্য