আর্নেস্ট হলিওয়েল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(Ernest Halliwell থেকে পুনর্নির্দেশিত)
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
আর্নেস্ট হলিওয়েল
আর্নেস্ট হলিওয়েল.jpg
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামআর্নেস্ট অস্টিন হলিওয়েল
জন্ম(১৮৬৪-০৯-০৭)৭ সেপ্টেম্বর ১৮৬৪
ইলিং, মিডলসেক্স, ইংল্যান্ড
মৃত্যু২ অক্টোবর ১৯১৯(1919-10-02) (বয়স ৫৫)
জোহেন্সবার্গ, ট্রান্সভাল, দক্ষিণ আফ্রিকা
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
ভূমিকাউইকেট-রক্ষক, অধিনায়ক
সম্পর্করিচার্ড হলিওয়েল (পিতা)
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ১৮)
১৯ মার্চ ১৮৯২ বনাম ‌ইংল্যান্ড
শেষ টেস্ট৮ নভেম্বর ১৯০২ বনাম অস্ট্রেলিয়া
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা ৬০
রানের সংখ্যা ১৮৮ ১,৭০২
ব্যাটিং গড় ১২.৫৩ ১৯.৩৪
১০০/৫০ ০/১ ০/৮
সর্বোচ্চ রান ৫৭ ৯২
বল করেছে ২৮৩
উইকেট
বোলিং গড় ৫৮.৩৩
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ২/৪৯
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ১০/২ ৭৫/৩৭
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ৩০ জুন ২০১৮

আর্নেস্ট অস্টিন হলিওয়েল (ইংরেজি: Ernest Halliwell; জন্ম: ৭ সেপ্টেম্বর, ১৮৬৪ - মৃত্যু: ২ অক্টোবর, ১৯১৯) মিডলসেক্সের ইলিং এলাকায় জন্মগ্রহণকারী বিখ্যাত দক্ষিণ আফ্রিকান আন্তর্জাতিক ক্রিকেট তারকা ও অধিনায়ক ছিলেন।[১] ১৮৯২ থেকে ১৯০২ সময়কালে দক্ষিণ আফ্রিকা দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর দক্ষিণ আফ্রিকান ক্রিকেটে গটেংয়ের প্রতিনিধিত্ব করেছেন। দলে তিনি মূলতঃ উইকেট-রক্ষক হিসেবে খেলতেন। এছাড়াও, ডানহাতে ব্যাটিং করতেন ‘বেবার্টন হলিওয়েল’ নামে পরিচিত আর্নেস্ট হলিওয়েল। তাঁর পিতা রিচার্ড হলিওয়েল প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে অংশ নিয়েছেন।

নিজস্ব স্বর্ণালী সময়ে অবস্থানকালে তিনি বিশ্বের অন্যতম সেরা উইকেট-রক্ষকের মর্যাদা লাভ করেন। এ প্রেক্ষিতে ১৯০৫ সালে উইজডেন কর্তৃক অন্যতম বর্ষসেরা ক্রিকেটারের সম্মাননা পান।

টেস্ট ক্রিকেট[সম্পাদনা]

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে আটটি টেস্ট খেলায় অংশগ্রহণের সুযোগ হয় তাঁর। তন্মধ্যে, তিনটি টেস্টে দলকে নেতৃত্ব দিয়েছেন আর্নেস্ট হলিওয়েল। ১৯ মার্চ, ১৮৯২ তারিখে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে টেস্ট অভিষেক ঘটে আর্নেস্ট হলিওয়েলের।

টেস্ট ক্রিকেট খেলায় অভিষেক পর্বটি ব্যতিক্রমী পর্যায়ে সম্পন্ন হয়। ১৮৯১-৯২ মৌসুমে ওয়াল্টার রিডের নেতৃত্বাধীন ইংরেজ দল দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে যায়। হলিওয়েল ইংরেজ দলের বিপক্ষে দক্ষিণ আফ্রিকার সদস্যরূপে উইকেট-রক্ষক হিসেবে অংশগ্রহণ করেন। পরবর্তীতে খেলাটিকে টেস্ট খেলার মর্যাদা দেয়া হয়।[২] ঐ খেলায় দক্ষিণ আফ্রিকা দল পরাজিত হয়েছিল।

দুই বছর পর তিনি খ্যাতির তুঙ্গে পৌঁছেন। দক্ষিণ আফ্রিকা দল ব্রিটিশ দ্বীপপুঞ্জ সফরে যায়। তাঁর ইংরেজ প্রতিপক্ষীয় খেলোয়াড়েরা উইকেট-রক্ষণে বিশ্বসেরা হিসেবে অভিহিত করে। ঐ সময়ে বিশ্বের সেরা উইকেট-রক্ষক অস্ট্রেলীয় জ্যাক ব্ল্যাকহাম ও ইংরেজ গ্রিগর ম্যাকগ্রিগরের সাথে তুলনা করা হয়েছিল।

১৮৯৬ সালের শুরুরদিকে লর্ড হকের নেতৃত্বে ইংরেজ দল দক্ষিণ আফ্রিকা গমন করে। দুই টেস্টের ঐ সিরিজে আর্নেস্ট হলিওয়েল দক্ষিণ আফ্রিকার অধিনায়কের দায়িত্বে ছিলেন। কিন্তু, উভয় খেলাতেই তাঁর দল বিশাল ব্যবধানে পরাভূত হয়েছিল। এরজন্য মূলতঃ জর্জ লোহম্যানের বিধ্বংসী বোলিংই দায়ী ছিল।[৩][৪]

১৯০২ সালের শেষদিকে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে আরও এক টেস্টে দলকে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন তিনি। এবারও তাঁর দল বিরাট ব্যবধানে পরাজয়বরণ করে।[৫]

ইংল্যান্ড গমন[সম্পাদনা]

১৯০১ সালে ইংল্যান্ড সফরে যান। এবারও উচ্ছসিত প্রশংসা পান তিনি। ক্রিকেট বোদ্ধাদের অভিমত, তিনি বিশ্বের সেরা উইকেট-রক্ষক। এ সফরে হলিওয়েল দক্ষিণ আফ্রিকান ফাস্ট বোলারদের বল রক্ষাকল্পে স্ট্যাম্পের খুব কাছে অবস্থান করতেন। ঐ সময়ে অধিকাংশ উইকেট-রক্ষকই ক্যাচ তালুবন্দী করার জন্য বেশ দূরে দণ্ডায়মান থাকতেন।

১৯০১ সালের সফর শেষে হলিওয়েল অতিরিক্ত তিনটি খেলায় অংশ নেন। লন্ডন কাউন্টির পক্ষে খেলার পর নিজ জন্মভূমি মিডলসেক্সের সদস্যরূপে এসেক্সের বিপক্ষে খেলেন। খেলায় তিনি দুইটি ক্যাচ ও একটি স্ট্যাম্পিং করেন। সবগুলোতেই বোলার ছিলেন জে. টি. হার্ন[৬] এ প্রসঙ্গে উইজডেন মন্তব্য করে যে, তিনি তাঁর সেরা খেলা উপহার দিয়েছিলেন।[৭]

ঐ বছরে ইংল্যান্ডের মাটিতে শেষ খেলায় শৌখিন খেলোয়াড়দের নিয়ে গড়া জেন্টলম্যানের পক্ষে খেলেন। হ্যাস্টিংসের সেন্ট্রাল রিক্রিয়েশন গ্রাউন্ডে অনুষ্ঠিত দলটির প্রতিপক্ষ ছিল পেশাদার খেলোয়াড়দের সমন্বয়ে গড়া প্লেয়ার্স দল।

মূল্যায়ন[সম্পাদনা]

মূলতঃ তিনি উইকেট-রক্ষক হিসেবে খেলতেন। নিজ হাতকে রক্ষার্থে প্রথম খেলোয়াড় হিসেবে দস্তানার ভিতরে অতিরিক্ত সুরক্ষার জন্য কাঠি ব্যবহার করতেন।[৮] সচরাচর উইকেটের পিছনে দণ্ডায়মান থাকতেন; এমনকি ফাস্ট বোলারদের ক্ষেত্রে এ অবস্থানে থাকতেন।

কার্যকরী ব্যাটসম্যান হিসেবেও সুনাম কুড়িয়েছেন। ১৯০১ সালে সমারসেটের বিপক্ষে ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ ৯২ রান তুলেন।[৮][৯]

১৯০৪ সালের সফরের পর উইজডেন কর্তৃক বর্ষসেরা ক্রিকেটার হিসেবে মনোনীত হন। ঐ সফরের পর তাঁকে আর দক্ষিণ আফ্রিকার পক্ষে খেলতে দেখা যায়নি।

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

৭ সেপ্টেম্বর, ১৮৬৪ তারিখে মিডলসেক্সের ইলিংয়ে আর্নেস্ট হলিওয়েলের জন্ম। মিডলসেক্স কাউন্টি ক্রিকেট ক্লাবের উইকেট-রক্ষক রিচার্ড হলিওয়েলের সন্তান তিনি।[৭] ইংল্যান্ডে কিশোর অবস্থায় ক্রিকেট খেলায় অংশ নেন।

২ অক্টোবর, ১৯১৯ তারিখে ট্রান্সভালের জোহেন্সবার্গে ৫৫ বছর বয়সে তাঁর জীবনাবসান ঘটে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "List of captains: South Africa – Tests"। Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ 
  2. "South Africa v England: WW Read's XI in South Africa 1891/92 (Only Test)"। CricketArchive। সংগ্রহের তারিখ ২৯ এপ্রিল ২০১২ 
  3. "South Africa v England: Lord Hawke's XI in South Africa 1895/96 (1st Test)"। CricketArchive। সংগ্রহের তারিখ ২৯ এপ্রিল ২০১২ 
  4. "South Africa v England: Lord Hawke's XI in South Africa 1895/96 (2nd Test)"। CricketArchive। সংগ্রহের তারিখ ২৯ এপ্রিল ২০১২ 
  5. "South Africa v Australia: Australia in South Africa 1902/03 (3rd Test)"। CricketArchive। সংগ্রহের তারিখ ২৯ এপ্রিল ২০১২ 
  6. "Middlesex v Essex: County Championship 1901"। CricketArchive। সংগ্রহের তারিখ ২৯ এপ্রিল ২০১২ 
  7. "Cricketer of the Year – 1905: Ernest Halliwell"ESPNcricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৯ এপ্রিল ২০১২ 
  8. "Player Profile: Barberton Halliwell"। ESPNcricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৯ এপ্রিল ২০১২ 
  9. "Somerset v South Africans: South Africa in British Isles 1901"। CricketArchive। সংগ্রহের তারিখ ২৯ এপ্রিল ২০১২ 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]


পূর্বসূরী
উইলিয়াম হেনরি মিল্টন
দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট দলের অধিনায়ক
১৮৯৫/৯৬-১৯০২/০৩
উত্তরসূরী
আলফ্রেড রিচার্ডস