চেসোয়াফ মিওশ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(Czesław Miłosz থেকে পুনর্নির্দেশিত)
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
চেসোয়াফ মিওশ Nobel prize medal.svg
১৯৯৮-এর ডিসেম্বরে চেশোয়াফ মিওস
১৯৯৮-এর ডিসেম্বরে চেশোয়াফ মিওস
জন্ম(১৯১১-০৬-৩০)৩০ জুন ১৯১১
Šeteniai, লিথুয়ানিয়া
মৃত্যু১৪ আগস্ট ২০০৪(2004-08-14) (বয়স ৯৩)
ক্রাকো
পেশাকবি, প্রাবন্ধিক
জাতীয়তাপোলীয়, মার্কিন, লিথুয়ানীয়

চেসোয়াফ মিওশ (পোলীয়: Czesław Miłosz, আ-ধ্ব-ব: এই শব্দ সম্পর্কে['ʧɛswaf 'mʲiwɔʃ] ) ((১৯১১-০৬-৩০)৩০ জুন ১৯১১ - আগস্ট ১৪, ২০০৪(২০০৪-০৮-১৪)) একজন পোলীয়-মার্কিনী কবি, লেখক, শিক্ষাবিদ এবং অনুবাদক। ১৯৬১ সালে তিনি ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের (বার্কলি) স্লাভীয় ভাষা ও সাহিত্যের অধ্যাপক নিযুক্ত হন। তিনি ১৯৮০সালে সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার লাভ করেন। তার জন্ম লিথুয়ানিয়ায়, সাহিত্য রচনা করেছেন পোলীয় ভাষায়। তার Dolina Issy নামক উপন্যাসের ইংরেজি অনুবাদ Issa Valley থেকে বইটির একটি বাংলা অনুবাদ হয়েছে। বুলবুল সারওয়ারকৃত এই অনুবাদটির নাম ইস্‌সা ভ্যালি। সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার প্রাপ্তির কারণ উল্লেখ করতে গিয়ে নোবেল কমিটি তার সম্বন্ধে বলেছে: যিনি যুদ্ধবিধ্বস্ত পৃথিবীতে আপোষহীন এবং সূক্ষদৃষ্টিসম্পন্ন এক মানুষের উদাহরণ পেশ করেছেন।

জীবনী[সম্পাদনা]

১৯১১ সালের ৩০ জুন তারিখে লিথুয়ানিয়ার অন্তর্গত Šeteniai নামক শহরে চেসোয়াফ মিওশ জন্মগ্রহণ করেন। তাদের পরিবারটি ছিল প্রাচীপন্থী পোলীয় পরিবারগুলোর মধ্যে অন্যতম। বাবা আলেকজান্ডার একজন প্রকৌশলীয়া হওয়া সত্ত্বেও তাদের পরিবারে তেমন আর্থিক স্বচ্ছলতা ছিলনা। তার মা'র নাম রেওনিকা। বাবা-মা দুজনই বুদ্ধিবৃত্তির অনুসারী ছিলেন। ১৯২১ সালে বাবা তাকে লিথুয়ানিয়ার রাজধানী ভিলনাসের এক স্কুলে ভর্তি করিয়ে দেন। সে সময় এই দেশটি পোল্যান্ডের অন্তর্ভুক্ত ছিল। আর পুরো পোল্যান্ডই ছিল রাশিয়ার জারের রাজত্বের অধীনে। তিনি লিথুয়ানীয় ভাষায় কথা বলতেন না। কিন্তু Adam Mickiewicz এবং Józef Piłsudski-এর মত তিনিও তার পরিবারের সাথে প্রাচীন লিথুয়ানিয়ার গ্র্যান্ড ডাচের সংযোগ আছে বলে দাবী করেছেন। ১৯১৭ সালে তিনি যখন বালক তখনই রাশিয়ান বিপ্লব চলছিল। উইনোর সেই স্কুলটির শিক্ষাব্যবস্থা ছিল প্রথাগত ক্যাথলিক ধর্মীয় শিক্ষা ব্যবস্থা। সেখান থেকেই তিনি এই শিক্ষা ব্যবস্থার প্তিবাদ করেছিলেন। স্কুল জীবনেই তার কবিতা লেখার হাতেখড়ি। স্কুলের শিক্ষকরা তাকে কবিতা লিখতে উৎসাহিত করতেন।

১৯২৯ সালে মিওশ ভিলনাস বিশ্ববিদ্যালয়ে আইন বিষয়ে ভর্তি হন। বিশ্ববিদ্যালয়ের পত্রিকা Alma Mater Vilnenses-এ তার একটি কবিতা প্রকাশিত হয়। এই প্রকাশের মধ্য দিয়েই তিনি রাতারাতি বিখ্যাত হয়ে উঠেন।

সাহিত্যকর্ম[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]