২০১৩ পাকিস্তান ক্রিকেট দলের ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফর

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
২০১৩ পাকিস্তান ক্রিকেট দলের ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফর
WestIndiesCricketFlagPre1999.svg
ওয়েস্ট ইন্ডিজ
Flag of Pakistan.svg
পাকিস্তান
তারিখ ১৪ জুলাই, ২০১৩ – ২৮ জুলাই, ২০১৩
অধিনায়ক ডোয়েন ব্র্যাভো মিসবাহ-উল-হক
একদিনের আন্তর্জাতিক সিরিজ
ফলাফল ৫ ম্যাচের সিরিজে পাকিস্তান ৩–১ ব্যবধানে জয়ী হয়
সর্বাধিক রান মারলন স্যামুয়েলস (২৪৩) মিসবাহ-উল-হক (২৬০)
সর্বাধিক উইকেট জেসন হোল্ডার (৮) শহীদ আফ্রিদি (১০)
সিরিজ সেরা মিসবাহ-উল-হক
টোয়েন্টি২০ আন্তর্জাতিক সিরিজ
ফলাফল ২ ম্যাচের সিরিজে পাকিস্তান ২–০ ব্যবধানে জয়ী হয়
সর্বাধিক রান কিরণ পোলার্ড (৭২) উমর আকমল (৫৫)
সর্বাধিক উইকেট সুনীল নারিন (৪) জুলফিকার বাবর (৫)
সিরিজ সেরা জুলফিকার বাবর

পাকিস্তান ক্রিকেট দল ১৪ জুলাই থেকে ২৮ জুলাই, ২০১৩ তারিখ পর্যন্ত ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে ৫টি একদিনের আন্তর্জাতিক এবং ২টি টুয়েন্টি২০ আন্তর্জাতিক খেলায় অংশগ্রহণ করে।[১] দুইটি টেস্ট ম্যাচ রাখা হলেও ভারত, শ্রীলঙ্কা এবং স্বাগতিক দলের অংশগ্রহণে ত্রি-দেশীয় সিরিজের জন্যে তা বাদ দেয়া হয়। ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট বোর্ড সফর বাতিল করে আগস্টে অংশগ্রহণের জন্য পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডকে অনুরোধ করলেও ভারত সফর এবং ২০১২ সালে স্থগিত জিম্বাবুয়ে সফর এতে প্রভাব বিস্তার করে।[২]

প্রথম ওডিআইয়ে পাকিস্তানের স্পিনার ও অল-রাউন্ডার শহীদ আফ্রিদি মাত্র ১২ রানে ৭ উইকেট লাভ করে নিজস্ব সেরা বোলিং করেন। এ বোলিংয়ের ফলে তিনি একদিনের ক্রিকেটের ইতিহাসে দ্বিতীয় সেরা বোলিং করার মর্যাদা লাভ করেন।[৩][৪]

দলের সদস্য[সম্পাদনা]

একদিনের আন্তর্জাতিক টুয়েন্টি২০ আন্তর্জাতিক
 ওয়েস্ট ইন্ডিজ  পাকিস্তান  ওয়েস্ট ইন্ডিজ  পাকিস্তান

প্রস্তুতিমূলক খেলা[সম্পাদনা]

গায়ান বনাম পাকিস্তানি[সম্পাদনা]

১১ জুলাই
৯:৩০
স্কোরকার্ড
 পাকিস্তানি
২৪৬/৯ (৫০ ওভার)
 গায়ানা
২৩৯ (৪৩.৪ ওভার)
নরসিংহ দেওনারিন ৫৫ (৭০)
সাঈদ আজমল ৫/৩৭ (১০ ওভার)
পাকিস্তানীরা ৭ রানে বিজয়ী
বোর্দা, জর্জটাউন, গায়ানা
আম্পায়ার: শ্যানন ক্রফোর্ড (ওয়েস্ট ইন্ডিজ) ও ইমরান মোয়াখান (ওয়েস্ট ইন্ডিজ)
  • গায়ানা টসে জয়ী হয়ে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

ওডিআই সিরিজ[সম্পাদনা]

১ম ওডিআই[৫][সম্পাদনা]

১৪ জুলাই
৯:০০
স্কোরকার্ড
 পাকিস্তান
২২৪/৯ (৫০ ওভার)
 ওয়েস্ট ইন্ডিজ
৯৮ (৪১ ওভার)
শহীদ আফ্রিদি ৭৬ (৫৫)
জেসন হোল্ডার ৪/১৩ (১০ ওভার)
পাকিস্তান ১২৬ রানে বিজয়ী
প্রভিডেন্স স্টেডিয়াম, প্রভিডেন্স, গায়ানা
আম্পায়ার: পল রেইফেল (অস্ট্রেলিয়া) ও জোয়েল উইলসন (ওয়েস্ট ইন্ডিজ)
ম্যাচসেরা: শহীদ আফ্রিদি (পাকিস্তান)
  • ওয়েস্ট ইন্ডিজ টসে জয়ী হয়ে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।
  • একদিনের ক্রিকেটের ইতিহাসে শহীদ আফ্রিদি’র ৭/১২ দ্বিতীয় সেরা বোলিং পরিসংখ্যান।[৬]
  • একদিনের ক্রিকেটের ইতিহাসে শহীদ আফ্রিদি প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে তিনবার খেলায় অর্ধ-শতক ও পাঁচ উইকেট দখল করেন।[৭]
  • একদিনের ক্রিকেটের ইতিহাসে প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে শহীদ আফ্রিদি সাত সহস্রাধিক রান ও ৩৫০ উইকেট দখল করেছেন।

২য় ওডিআই[সম্পাদনা]

১৬ জুলাই
৯:০০
স্কোরকার্ড
 ওয়েস্ট ইন্ডিজ
২৩২/৮ (৫০ ওভার)
 পাকিস্তান
১৯৫ (৪৭.৫ ওভার)
নাসির জামশেদ ৫৪ (৯৩)
সুনীল নারিন ৪/২৬ (১০ ওভার)
ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৩৭ রানে বিজয়ী
প্রভিডেন্স স্টেডিয়াম, প্রভিডেন্স, গায়ানা
আম্পায়ার: নাইজেল লং (ইংল্যান্ড) ও পিটার নিরো (ওয়েস্ট ইন্ডিজ)
ম্যাচসেরা: সুনীল নারিন (ওয়েস্ট ইন্ডিজ)
  • পাকিস্তান টসে জয়ী হয়ে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

৩য় ওডিআই[সম্পাদনা]

১৯ জুলাই
৯:০০
স্কোরকার্ড
 পাকিস্তান
২২৯/৬ (৫০ ওভার)
 ওয়েস্ট ইন্ডিজ
২২৯/৯ (৫০ ওভার)
মিসবাহ-উল-হক ৭৫ (১১২)
জেসন হোল্ডার ২/৪০ (১০ ওভার)
লেন্ডল সিমন্স ৭৫ (৮৬)
সাঈদ আজমল ৩/৩৬ (১০ ওভার)
  • ওয়েস্ট ইন্ডিজ টসে জয়ী হয়ে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।
  • পাকিস্তানের ১৯২তম ওডিআই ক্রিকেটার হিসেবে হারিস সোহেলের অভিষেক ঘটে।

৪র্থ ওডিআই[সম্পাদনা]

২১ জুলাই
৯:০০
স্কোরকার্ড
 ওয়েস্ট ইন্ডিজ
২৬১/৭ (৪৯ ওভার)
 পাকিস্তান
১৮৯/৪ (৩০ ওভার)
মোহাম্মদ হাফিজ ৫৯ (৬২)
কেমার রোচ ১/৩৩ (৬ ওভার)
পাকিস্তান ৬ উইকেটে বিজয়ী (ডি/এল মেথড)
বিউসেজাউর স্টেডিয়াম, গ্রোস আইলেট, সেন্ট লুসিয়া
আম্পায়ার: স্টিভ ডেভিস (অস্ট্রেলিয়া) ও পিটার নিরো (ওয়েস্ট ইন্ডিজ)
ম্যাচসেরা: মারলন স্যামুয়েলস (ওয়েস্ট ইন্ডিজ)
  • পাকিস্তান টসে জয়ী হয়ে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।
  • বৃষ্টির কারণে খেলা দেরিতে শুরু হয় এবং প্রতিটি দলের ইনিংসের ওভার সংখ্যা কমিয়ে ৪৯ করা হয়।
  • পরবর্তীতে আবার বৃষ্টির কারণে পাকিস্তানের জন্য সংশোধিত লক্ষ্যমাত্রা ৩১ ওভারে ১৮৯ রান করা হয়।

৫ম ওডিআই[সম্পাদনা]

২৪ জুলাই
৯:০০
স্কোরকার্ড
 ওয়েস্ট ইন্ডিজ
২৪২/৭ (৫০ ওভার)
 পাকিস্তান
২৪৩/৬ (৪৯.৫ ওভার)
ডোয়েন ব্র্যাভো ৪৮ (২৭)
জুনাইদ খান ৩/৪৮ (১০ ওভার)
আহমেদ শেহজাদ ৬৪ (১০০)
টিনো বেস্ট ৩/৪৮ (১০ ওভার)
  • পাকিস্তান টসে জয়ী হয়ে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

টি২০আই সিরিজ[সম্পাদনা]

১ম টি২০আই[সম্পাদনা]

২৭ জুলাই
১৪:০০
স্কোরকার্ড
 ওয়েস্ট ইন্ডিজ
১৫২/৭ (২০ ওভার)
 পাকিস্তান
১৫৮/৮ (২০ ওভার)
কিরণ পোলার্ড ৪৯* (৩৬)
জুলফিকার বাবর ৩/২৩ (৪ ওভার)
পাকিস্তান ২ উইকেটে বিজয়ী
আর্নোস ভ্যাল স্টেডিয়াম, কিংসটাউন, সেন্ট ভিনসেন্ট
আম্পায়ার: গ্রিগোরি ব্রাদওয়েত (ওয়েস্ট ইন্ডিজ) ও পিটার নিরো (ওয়েস্ট ইন্ডিজ)
ম্যাচসেরা: শহীদ আফ্রিদি (পাকিস্তান)
  • ওয়েস্ট ইন্ডিজ টসে জয়ী হয়ে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।
  • টুয়েন্টি২০ আন্তর্জাতিকে পাকিস্তানের পক্ষে উমর আমিনজুলফিকার বাবরের অভিষেক ঘটে।

২য় টি২০আই[সম্পাদনা]

২৮ জুলাই
১৪:০০
স্কোরকার্ড
 পাকিস্তান
১৩৫/৭ (২০ ওভার)
 ওয়েস্ট ইন্ডিজ
১২৪/৯ (২০ ওভার)
উমর আকমল ৪৬* (৩৬)
সুনীল নারিন ৩/২৬ (৪ ওভার)
পাকিস্তান ১১ রানে বিজয়ী
আর্নোস ভ্যাল স্টেডিয়াম, কিংসটাউন, সেন্ট ভিনসেন্ট
আম্পায়ার: গ্রিগোরি ব্রাদওয়েত (ওয়েস্ট ইন্ডিজ) ও জোয়েল উইলসন (ওয়েস্ট ইন্ডিজ)
ম্যাচসেরা: উমর আকমল (পাকিস্তান)
  • পাকিস্তান টসে জয়ী হয়ে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।
  • টুয়েন্টি২০ আন্তর্জাতিকে পাকিস্তানের পক্ষে আসাদ আলীহারিস সোহেলের অভিষেক ঘটে।

সম্প্রচার স্বত্ত্ব[সম্পাদনা]

টিভি সম্প্রচার দেশ মন্তব্য
টেন স্পোর্টস  পাকিস্তান
 ওয়েস্ট ইন্ডিজ
 শ্রীলঙ্কা
প্রতিযোগিতার আনুষ্ঠানিক সম্প্রচারক
টেন ক্রিকেট  বাংলাদেশ
 ভারত
পিটিভি স্পোর্টস  পাকিস্তান
স্কাই স্পোর্টস  যুক্তরাজ্য
সুপারস্পোর্ট  দক্ষিণ আফ্রিকা
 জিম্বাবুয়ে

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "WI, PAKISTAN FOR LIMITED OVERS SERIES"। ১ জুলাই ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ জুন ২৯, ২০১৩ 
  2. "WICB announces Pakistan tour schedule"। সংগ্রহের তারিখ জুন ২৯, ২০১৩ 
  3. "Awesome Afridi flattens West Indies"ESPN Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২০১৩-০৭-১৫ 
  4. "Best figures in an innings"ESPN Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২০১৩-০৭-১৫ 
  5. Numbers rumble on Afridi's day
  6. Best bowling figures in an ODI innings
  7. A fifty and five wickets in an ODI innings

আরও দেখুন[সম্পাদনা]