২০১১ ক্রিকেট বিশ্বকাপ গ্রুপ বি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

Play in Group B of the 2011 Cricket World Cup took place from 19 February to 20 March 2011. The group consisted of hosts India and Bangladesh, along with England, Ireland, Netherlands, West Indies and South Africa. The top four teams advanced to the quarter-finals.

দল খেলা টা এনআর এনআরআর
 দক্ষিণ আফ্রিকা +২.০২৬ ১০
 ভারত +০.৯০০
 ইংল্যান্ড +০.০৭২
 ওয়েস্ট ইন্ডিজ +১.০৬৬
 বাংলাদেশ –১.৩৬১
 আয়ারল্যান্ড –০.৬৯৬
 নেদারল্যান্ডস –২.০৪৫

পরিচ্ছেদসমূহ

ম্যাচ[সম্পাদনা]

ভারত বনাম বাংলাদেশ[সম্পাদনা]

১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১১
১৪:৩০ (দিন/রাত)
[ স্কোরকার্ড]
ভারত 
৩৭০/৪ (৫০ ওভার)
 বাংলাদেশ
২৮৩/৯ (৫০ ওভার)
তামিম ইকবাল ৭০ (৮৬)
মুনাফ প্যাটেল ৪/৪৮ (১০ ওভার)
  • বাংলাদেশ টসে জিতে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেয়।

The World Cup opened with a match between co-hosts Bangladesh and India, with this being the only match India, the hot favorites, were not playing at home in the tournament. Bangladesh captain Shakib Al Hasan won the toss and sent India in to bat; however his decision was quickly proved wrong. Virender Sehwag hit the first ball of the tournament for four, and he along with Sachin Tendulkar added 69 for the first wicket at over a run a ball until the latter was run out after a mix-up. Sehwag and Gautam Gambhir then had their team cruise to 152/1, when Gambhir was bowled by Mahmudullah but that did not stop Sehwag, who cruised to his century and then rapidly accelerated along with Virat Kohli. India cruised past 300, and Sehwag posted a career-best 175 before getting out, and Kohli also got his ton as India posted a daunting 370/4 at the end of their 50 overs.

Bangladesh started off rapidly in their chase, getting 51 runs in the first five overs without losing a wicket; but soon, at the score of 56, Imrul Kayes played on to a Munaf Patel delivery. Tamim Iqbal got a half-century, but the Bangladesh run-rate slowed after that and they weren't in the hunt, and at the end they got to 283/9 without really challenging the Indian total.

Virender Sehwag's score of 175 was his 14th ODI hundred, and the fourth highest score in the history of the Cricket World Cup.

ইংল্যান্ড বনাম নেদারল্যান্ডস[সম্পাদনা]

২২ ফেব্রুয়ারি, ২০১১
১৪:৩০ (দিন/রাত)
[ স্কোরকার্ড]
নেদারল্যান্ডস 
২৯২/৬ (৫০ ওভার)
 ইংল্যান্ড
২৯৬/৪ (৪৮.৪ ওভার)
  • নেদারল্যান্ডস টসে জিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়।

Netherlands captain Peter Borren won the toss and elected to bat first against England, one of the contenders for the trophy. Netherlands started well, with openers Alex Kervezee and Wesley Barresi going at a quick pace but England fought back, getting both openers soon after; and after 33 overs, Netherlands were 149/4. Then Ryan ten Doeschate accelerated, and went on to score a brilliant century, and this, coupled with very poor fielding from England, helped Netherlands plunder 104 runs off the last ten overs and lead them to a strong 292/6.

The English started off very strongly in their reply, getting their first 100 runs at a run a ball without losing a wicket. Kevin Pietersen fell soon after, but Netherlands were unable to build on it. England captain Andrew Strauss closed in on a century but holed out and all the England top order batsmen scored runs, with Paul Collingwood and Ravi Bopara taking England home with 1.2 overs to spare.

The Netherlands score of 292 was the second highest score from an Associate nation playing against a Test nation.

দক্ষিণ আফ্রিকা বনাম ওয়েস্ট ইন্ডিজ[সম্পাদনা]

২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১১
১৪:৩০ (দিন/রাত)
[ স্কোরকার্ড]
ওয়েস্ট ইন্ডিজ 
২২২ (৪৭.৩ ওভার)
 দক্ষিণ আফ্রিকা
২২৩/৩ (৪২.৫ ওভার)
দক্ষিণ আফ্রিকা ৭ উইকেটে বিজয়ী
ফিরোজ শাহ কোটলা মাঠ, নতুন দিল্লি
আম্পায়ার: আমিশ সাহেবা (ভারত) ও সাইমন টাওফেল (অস্ট্রেলিয়া)
সেরা খেলোয়াড়: এবি ডি ভিলিয়ার্স (দক্ষিণ আফ্রিকা)
  • দক্ষিণ আফ্রিকা টসে জিতে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেয়।
  • Drizzle halted the match for almost 8 minutes

South Africa, another one of the pre-tournament favorites played their first match of the tournament against a West Indies team which is currently in transisition. South Africa won the toss, set West Indies in to bat, and opened the bowling with spinner Johan Botha, which was vindicated as he got the wicket of Chris Gayle in the first over. Darren Bravo then came into the crease and played an aggressive knock of 73, with support from Devon Smith in a strong century stand until Botha trapped Bravo in front. Two quick wickets on debut by Imran Tahir left West Indies on 120/4 but a counterattack from Dwayne Bravo, who was well assisted by Shivnarine Chanderpaul took West Indies to a healthy 209/5 with over 7 overs left. However, Tahir returned to get the wickets of Chanderpaul and Devon Thomas, the other set batsman before Dale Steyn cleaned up the tail to restrict the West Indies to 222.

South Africa stuttered at the start of their reply, with Hashim Amla and Jacques Kallis falling cheaply early on. AB de Villiers then came into the crease and counterattcked with a string of boundaries, reaching his half-century at close to a run-a-ball. He and captain Graeme Smith had over a century partnership for the third wicket until Kieron Pollard got one through Smith's defences. This, however turned out to a false dawn for West Indies, as de Villers reached his century off 97 balls, and together with JP Duminy got the remaining 84 runs with over seven overs left.

AB de Villiers century was the fastest by a South African in the World Cup and the South African victory was the 12th successive win against the West Indies.

বাংলাদেশ বনাম আয়ারল্যান্ড[সম্পাদনা]

২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১১
১৪:৩০ (দিন/রাত)
[ স্কোরকার্ড]
বাংলাদেশ 
২০৫ (৪৯.২ ওভার)
 আয়ারল্যান্ড
১৭৮ (৪৫ ওভার)
তামিম ইকবাল ৪৪ (৪৩)
আন্দ্রে বোথা ৩/৩২ (৯ ওভার)
  • বাংলাদেশ টসে জিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়।

Bangladesh captain Shakib Al Hasan won the toss against Ireland and elected to bat, after conceding 370 against India after setting them in. His decision seemed to be vindicated at the start of Bangladesh's innings, with Tamim Iqbal unleashing a flurry of boundaries immediately, to take Bangladesh to 49/0 after 5 overs. Ireland needed a moment of inspiration and they got it from wicketkeeper Niall O'Brien who did a brilliant stumping to send Imrul Kayes on his way. Ireland quickly built on it, with a direct hit from Ed Joyce catching Junaid Siddiqui short, before both Tamim and Shakib were also dismissed softly. Mushfiqur Rahim and Raqibul Hasan staged a recovery then, and at 147/4 in the 34th over, Bangladesh looked well set for a score above 250 until Mushfiqur top-edged a sweep of George Dockrell. This triggered another collapse, and only a late cameo from Naeem Islam took Bangladesh to 205.

Ireland started off solidly in their reply, but then the Bangladesh spinners led by Shakib and Mohammad Ashraful took wickets at regular intervals. The match was evenly poised with Ireland 93/4 after 25 overs. Niall O'Brien was the key to the chase but with the score at 110, he was dismissed after a brilliant catch by Tamim Iqbal. Kevin O'Brien continued to fight, taking Ireland above 150 and giving them another sniff at victory till he holed out to deep square-leg off Shafiul Islam. A pumped-up Shafiul then ran through the tail, and Ireland were all out for 178, falling 27 runs short.

Shafiul Islam recorded the best figures for a Bangladeshi bowler in World Cup matches, with 4/21.

ভারত বনাম ইংল্যান্ড[সম্পাদনা]

২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১১
১৪:৩০ (দিন/রাত)
[ স্কোরকার্ড]
ভারত 
৩৩৮ (৪৯.৫ ওভার)
 ইংল্যান্ড
৩৩৮/৮ (৫০ ওভার)
  • ভারত টসে জয়ী হয়ে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

Having scored 370 in their previous game, India elected to bat after winning the toss against England. Virender Sehwag, fresh from his 175 the previous game blazed away at the start of the innings, hitting a rapid 35 before falling to Tim Bresnan. Sachin Tendulkar then took over the innings, and was ably assisted by Gautam Gambhir. The duo continued at a very rapid pace and added 133 runs until Gambhir was bowled by Graeme Swann for 51. Tendulkar went on to get his hundred, and eventually when he did get out for 120, India were strongly placed at 236/3 in the 39th over. Yuvraj Singh and MS Dhoni continued on at a brisk pace, with Yuvraj reaching his fifty off just 45 balls. India passed 300 in the 45th over, but then Yuvraj and Dhoni fell off consecutive balls to trigger a collapse. Bresnan took three wickets in four balls to get his five-for, and India did not bat their 50 overs, being all out for 338 with a ball left.

England got off to a very strong start in their chase, with both Andrew Strauss and Kevin Pietersen going a rapid pace. Pietersen was dismissed for 31 in a freak way off Munaf Patel, but Strauss went on to get his fifty. Jonathan Trott was unable to convert a start, but Strauss and Ian Bell then indulged in a sensational stand of 170 runs for the third wicket. The duo also easily kept the required run rate well under control, keeping it around 7. Strauss reached his century off just 99 balls, and Bell took 45 to reach his half-century. England were 280/2 after 42 overs, when Zaheer Khan produced a sensational over, getting Bell caught at mid-off for 69 and catching Strauss plumb in front for a brilliant 158. Paul Collingwood and Matt Prior went cheaply, but some lusty blows from Bresnan and Swann kept England in the hunt, with 14 required off the last over. Swann managed 3 off the first 2 balls before Ajmal Shahzad hit a six off the third to leave England with just 5 from 3. A single and a two later meant that 2 was required off the last ball with all three results possible. Swann dug the last ball from Patel away for a single, which meant that the game was tied. India batted first and opener Sachin Tendulkar scored his 47th ODI century and 5th World Cup century, the highest number of centuries by anyone ever in a World Cup. Support came from Gautam Gambhir and Yuvraj Singh who both made half-centuries. Chasing 339 to win, Andrew Strauss made his highest score in ODI cricket, with 158, before being dismissed by Zaheer Khan. Ian Bell survived an earlier LBW appeal, after it was referred via the DRS system. After a collapse from England, Graeme Swann scored one run off the final ball, tying the.

ওয়েস্ট ইন্ডিজ বনাম নেদারল্যান্ডস[সম্পাদনা]

২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১১
১৪:৩০ (দিন/রাত)
[ স্কোরকার্ড]
ওয়েস্ট ইন্ডিজ 
৩৩০/৮ (৫০ ওভার)
 নেদারল্যান্ডস
১১৫ (৩১.৩ ওভার)
ক্রিস গেইল ৮০ (১১০)
মুদাচ্ছার বুখারী ২/৬৫ (১০ ওভার)
টম কুপার ৫৫* (৭২)
কেমার রোচ ৬/২৭ (৮.৩ ওভার)
ওয়েস্ট ইন্ডিজ ২১৫ রানে বিজয়ী
ফিরোজ শাহ কোটলা মাঠ, নতুন দিল্লি
আম্পায়ার: আমিশ সাহেবা (ভারত) ও সাইমন টাওফেল (অস্ট্রেলিয়া)
সেরা খেলোয়াড়: কেমার রোচ (ওয়েস্ট ইন্ডিজ)
  • নেদারল্যান্ডস টসে জিতে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেয়।

West Indian bowler Kemar Roach took a hat-trick with the final three balls of the game and became the first West Indian player to take a hat-trick in a World Cup match.

ইংল্যান্ড বনাম আয়ারল্যান্ড[সম্পাদনা]

২ মার্চ, ২০১১
১৪:৩০ (দিন/রাত)
[ স্কোরকার্ড]
ইংল্যান্ড 
৩২৭/৮ (৫০ ওভার)
 আয়ারল্যান্ড
৩২৯/৭ (৪৯.১ ওভার)
আয়ারল্যান্ড ৩ উইকেটে বিজয়ী
এম. চিন্নাস্বামী স্টেডিয়াম, বেঙ্গালুরু
আম্পায়ার: আলীম দার (পাকিস্তান) ও বিলি বাউডেন (নিউজিল্যান্ড)
সেরা খেলোয়াড়: কেভিন ও’ব্রায়ান (আয়ারল্যান্ড)
  • ইংল্যান্ড টসে জয়ী হয়ে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

England batted first with Jonathan Trott making 92 from 92 balls. During his innings, Trott reached 1,000 runs in ODI cricket, from just 21 innings, equalling the record set by Vivian Richards and team-mate Kevin Pietersen. England finished on 327/8 from their 50 overs. In reply, Ireland lost their captain, Will Porterfield in the very first ball, and were struggling at 111/5. Kevin O'Brien then made 100 in just 50 balls, the fastest century in World Cup history.

দক্ষিণ আফ্রিকা বনাম নেদারল্যান্ডস[সম্পাদনা]

৩ মার্চ, ২০১১
০৯:৩০
[ স্কোরকার্ড]
দক্ষিণ আফ্রিকা 
৩৫১/৫ (৫০ ওভার)
 নেদারল্যান্ডস
১২০ (৩৪.৫ ওভার)
  • নেদারল্যান্ডস টসে জিতে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেয়।

AB de Villiers made his 11th ODI century, with 134 runs from 98 balls. His partnership of 221 runs with Hashim Amla is the highest ODI total in Mohali.

বাংলাদেশ বনাম ওয়েস্ট ইন্ডিজ[সম্পাদনা]

৪ মার্চ, ২০১১
১৪:৩০ (দিন/রাত)
[ স্কোরকার্ড]
বাংলাদেশ 
৫৮ (১৮.৫ ওভার)
 ওয়েস্ট ইন্ডিজ
৫৯/১ (১২.২ ওভার)
ক্রিস গেইল ৩৭* (৩৬)
নাঈম ইসলাম ১/১৪ (৬ ওভার)
ওয়েস্ট ইন্ডিজের ৯ উইকেটে জয়
শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়াম, মিরপুর, ঢাকা
আম্পায়ার: স্টিভ ডেভিস (অস্ট্রেলিয়া) ও কুমার ধর্মসেনা (শ্রীলঙ্কা)
সেরা খেলোয়াড়: কেমার রোচ (ওয়েস্ট ইন্ডিজ)
  • বাংলাদেশ টসে জিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়।

Bangladesh were bowled out for 58 runs, which was their lowest ODI score, and the fourth lowest score in World Cup matches. In reply, the West Indian opener Chris Gayle finished 37* and made his 8,000th ODI run.

দক্ষিণ আফ্রিকা বনাম ইংল্যান্ড[সম্পাদনা]

৬ মার্চ, ২০১১
০৯:৩০
[ স্কোরকার্ড]
ইংল্যান্ড 
১৭১ (৪৫.৪ ওভার)
 দক্ষিণ আফ্রিকা
১৬৫ (৪৭.৪ ওভার)
ইংল্যান্ড ৬ রানে বিজয়ী
ইডেন গার্ডেন্স, কলকাতা
আম্পায়ার: আমিশ সাহেবা (ভারত) ও সাইমন টাওফেল (অস্ট্রেলিয়া)
সেরা খেলোয়াড়: রবি বোপারা (ইংল্যান্ড)
  • ইংল্যান্ড টসে জয়ী হয়ে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়। জোনাথন ট্রটরবি বোপারা ৯৯ রানের একটি জুটি পরলেন কিন্তু ইংল্যান্ড চার ওভারে এখনও অবশিষ্ট সঙ্গে ১৭১ অল আউট সমাপ্ত। জবাবে দক্ষিণ আফ্রিকা মাত্র তিন উইকেটে ১২৪ পৌঁছেছেন, কিন্তু তারপর তিন রানে পাঁচ ওভার ভিতরে পরবর্তী চার উইকেট হারিয়ে স্টুয়ার্ট ব্রড চূড়ান্ত দুটি করে উইকেট নেন ইংল্যান্ডের ছয় রানে বিজয় দিতে।

ইংল্যান্ড প্রথমে ব্যাট এবং অ্যান্ড্রু স্ট্রস এর উইকেট হারিয়ে ফেলেছি কেভিন পিটারসেন প্রথম ওভারে।

ভারত বনাম আয়ারল্যান্ড[সম্পাদনা]

৬ মার্চ, ২০১১
১৪:৩০ (দিন/রাত)
[ স্কোরকার্ড]
আয়ারল্যান্ড 
২০৭ (৪৭.৫ ওভার)
 ভারত
২১০/৫ (৪৬ ওভার)
  • ভারত টসে জয়ী হয়ে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

Yuvraj Singh became the first player to score a 50 and take 5 wickets in a World Cup match.

ভারত বনাম নেদারল্যান্ডস[সম্পাদনা]

৯ মার্চ, ২০১১
১৪:৩০ (দিন/রাত)
[ স্কোরকার্ড]
নেদারল্যান্ডস 
১৮৯ (৪৬.৪ ওভার)
 ভারত
১৯১/৫ (৩৬.৩ ওভার)
পিটার বোরেন ৩৮ (৩৬)
জহির খান ৩/২০ (৬.৪ ওভার)
যুবরাজ সিং ৫২* (৭৩)
পিটার সিলার ৩/৫৩ (১০ ওভার)
  • নেদারল্যান্ডস টসে জিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়।

During the match, Sachin Tendulkar became the first player to score more than 2,000 runs in World Cup cricket. Yuvraj Singh took his 100th ODI wicket, with the dismissal of Wesley Barresi.

আয়ারল্যান্ড বনাম ওয়েস্ট ইন্ডিজ[সম্পাদনা]

১১ মার্চ, ২০১১
০৯:৩০
[ স্কোরকার্ড]
ওয়েস্ট ইন্ডিজ 
২৭৫ (৫০ ওভার)
 আয়ারল্যান্ড
২৩১ (৪৯ ওভার)
  • আয়ারল্যান্ড টসে জিতে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেয়।

বাংলাদেশ বনাম ইংল্যান্ড[সম্পাদনা]

১১ মার্চ, ২০১১
১৪:৩০ (দিন/রাত)
[ স্কোরকার্ড]
ইংল্যান্ড 
২২৫ (৪৯.৪ ওভার)
 বাংলাদেশ
২২৭/৮ (৪৯ ওভার)
বাংলাদেশ ২ উইকেটে বিজয়ী
জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়াম, চট্টগ্রাম
আম্পায়ার: ড্যারিল হার্পার (অস্ট্রেলিয়া) ও রড টাকার (অস্ট্রেলিয়া)
সেরা খেলোয়াড়: ইমরুল কায়েস (বাংলাদেশ)
  • বাংলাদেশ টসে জিতে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেয়।

Bangladesh's score was at one point 169/8 but tail ender 58 run partnership brought victory for the team. Bangladesh's win in this match was only their second against England in a total of 15 ODIs.

ভারত বনাম দক্ষিণ আফ্রিকা[সম্পাদনা]

১২ মার্চ, ২০১১
১৪:৩০ (দিন/রাত)
[ স্কোরকার্ড]
ভারত 
২৯৬ (৪৮.৪ ওভার)
 দক্ষিণ আফ্রিকা
৩০০/৭ (৪৯.৪ ওভার)
দক্ষিণ আফ্রিকা ৩ উইকেটে বিজয়ী
বিদর্ভ ক্রিকেট সংস্থা স্টেডিয়াম, নাগপুর
আম্পায়ার: ইয়ান গোল্ড (ইংল্যান্ড) ও সাইমন টাওফেল (অস্ট্রেলিয়া)
সেরা খেলোয়াড়: ডেল স্টেইন (দক্ষিণ আফ্রিকা)
  • ভারত টসে জয়ী হয়ে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

India won the toss and chose to bat. Sachin Tendulkar and Virendar Sehwag put on 142 for the first wicket. India reached 267 before the next wicket fell. India then lost their next 8 wickets for 29 runs, to finish with a total 296 all out.

বাংলাদেশ বনাম নেদারল্যান্ডস[সম্পাদনা]

১৪ মার্চ, ২০১১
০৯:৩০
[ স্কোরকার্ড]
নেদারল্যান্ডস 
১৬০ (৪৬.২ ওভার)
 বাংলাদেশ
১৬৬/৪ (৪০.২ ওভার)
বাংলাদেশ ৬ উইকেটে বিজয়ী
জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়াম, চট্টগ্রাম
আম্পায়ার: আলীম দার (পাকিস্তান) ও রড টাকার (অস্ট্রেলিয়া)
সেরা খেলোয়াড়: ইমরুল কায়েস (বাংলাদেশ)
  • নেদারল্যান্ডস টসে জিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়।

আয়ারল্যান্ড ব দক্ষিণ আফ্রিকা[সম্পাদনা]

১৫ মার্চ, ২০১১
১৪:৩০ (দিন/রাত)
[ স্কোরকার্ড]
দক্ষিণ আফ্রিকা 
২৭২/৭ (৫০ ওভার)
 আয়ারল্যান্ড
১৪১ (৩৩.২ ওভার)
জেপি ডুমিনি ৯৯ (১০৩)
জন মুনি ১/৩৬ (৮ ওভার)
গ্যারি উইলসন ৩১ (৪৮)
রবিন পিটারসন ৩/৩২ (৮ ওভার)
দক্ষিণ আফ্রিকা ১৬১ রানে বিজয়ী
ইডেন গার্ডেন্স, কলকাতা
আম্পায়ার: কুমার ধর্মসেনা (শ্রীলঙ্কা) ও বিলি ডকট্রোভ (ওয়েস্ট ইন্ডিজ)
সেরা খেলোয়াড়: জেপি ডুমিনি (দক্ষিণ আফ্রিকা)
  • আয়ারল্যান্ড টসে জিতে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেয়।

After this victory, South Africa became the first team to qualify for the Quarter-Finals from Group B. Ireland were eliminated following this defeat.

ইংল্যান্ড বনাম ওয়েস্ট ইন্ডিজ[সম্পাদনা]

১৭ মার্চ, ২০১১
১৪:৩০ (দিন/রাত)
[ স্কোরকার্ড]
ইংল্যান্ড 
২৪৩ (৪৮.৪ ওভার)
 ওয়েস্ট ইন্ডিজ
২২৫ (৪৪.৪ ওভার)
জোনাথন ট্রট ৪৭ (৩৮)
আন্দ্রে রাসেল ৪/৪৯ (৮ ওভার)
  • ইংল্যান্ড টসে জয়ী হয়ে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

England had to win the game to have any realistic chance of going through to the quarter finals, and 243 all out looked like a difficult score to defend, especially with the poor fielding that had plagued England throughout the tournament. However, the West Indies collapsed to 225 all out, after a spectacluar run out by Matt Prior.

আয়ারল্যান্ড বনাম নেদারল্যান্ডস[সম্পাদনা]

১৮ মার্চ, ২০১১
০৯:৩০
[ স্কোরকার্ড]
নেদারল্যান্ডস 
৩০৬ (৫০ ওভার)
 আয়ারল্যান্ড
৩০৭/৪ (৪৭.৪ ওভার)
রায়ান টেন ডেসকাট ১০৬ (১০৮)
পল স্টার্লিং ২/৫১ (১০ ওভার)
পল স্টার্লিং ১০১ (৭২)
টম কুপার ২/৩১ (৭ ওভার)
আয়ারল্যান্ড ৬ উইকেটে বিজয়ী
ইডেন গার্ডেন্স, কলকাতা
আম্পায়ার: বিলি ডকট্রোভ (ওয়েস্ট ইন্ডিজ) ও ইয়ান গোল্ড (ইংল্যান্ড)
সেরা খেলোয়াড়: পল স্টার্লিং (আয়ারল্যান্ড)
  • আয়ারল্যান্ড টসে জিতে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেয়।

বাংলাদেশ বনাম দক্ষিণ আফ্রিকা[সম্পাদনা]

১৯ মার্চ, ২০১১
০৯:৩০
[ স্কোরকার্ড]
দক্ষিণ আফ্রিকা 
২৮৪/৮ (৫০ ওভার)
 বাংলাদেশ
৭৮ (২৮ ওভার)
জ্যাক ক্যালিস ৬৯ (৭৬)
রুবেল হোসেন ৩/৫৬ (৮ ওভার)
দক্ষিণ আফ্রিকা ২০৬ রানে জয়
শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়াম, মিরপুর, ঢাকা
আম্পায়ার: আলীম দার (পাকিস্তান) ও ড্যারিল হার্পার (অস্ট্রেলিয়া)
সেরা খেলোয়াড়: লনয়াবো সতসবে (দক্ষিণ আফ্রিকা)
  • দক্ষিণ আফ্রিকা টসে জিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়।

This is Bangladesh's second lowest score in World Cup After this victory by South Africa, India and England are qualified for Quarter-Finals from Group B.

ভারত ব ওয়েস্ট ইন্ডিজ[সম্পাদনা]

২০ মার্চ, ২০১১
১৪:৩০ (দিন/রাত)
[ স্কোরকার্ড]
ভারত 
২৬৮ (৪৯.১ ওভার)
 ওয়েস্ট ইন্ডিজ
১৮৮ (৪৩ ওভার)
যুবরাজ সিং ১১৩ (১২৩)
রবি রামপাল ৫/৫১ (১০ ওভার)
ডেভন স্মিথ ৮১ (৯৭)
জহির খান ৩/২৬ (৬ ওভার)
  • ভারত টসে জয়ী হয়ে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

Virender Sehwag did not play due to knee problems.

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]