২০১১ ক্রিকেট বিশ্বকাপ গ্রুপ এ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

বাজান এর গ্রুপ এ ২০১১ ক্রিকেট বিশ্বকাপ থেকে সংঘটিত ২০ ফেব্রুয়ারী থেকে ২০ মার্চ ২০১১। গ্রুপ সর্বক্ষমতার অধিকারী গঠিত শ্রীলঙ্কা, এবং তাদের সঙ্গে বরাবর, Pakistan, Canada, Kenya, নিউজিল্যান্ড, Australia and জিম্বাবুয়ে। টুর্নামেন্টের এই পর্যায়ে একটি সম্পূর্ণ হিসাবে অভিনয় ছিল রাউন্ড-রবিন সব সাত দল, শীর্ষ চার দল পৌছায় সঙ্গে মাঝে কোয়ার্টার ফাইনাল

দল খেলা টা এনআর এনআরআর
 পাকিস্তান +০.৭৫৮ ১০
 শ্রীলঙ্কা +২.৫৮২
 অস্ট্রেলিয়া +১.১২৯
 নিউজিল্যান্ড +১.১৩৫
 জিম্বাবুয়ে +০.০৩০
 কানাডা −১.৯৮৭
 কেনিয়া −৩.০৪২

পরিচ্ছেদসমূহ

ম্যাচ[সম্পাদনা]

কেনিয়া বনাম নিউজিল্যান্ড[সম্পাদনা]

২০ ফেব্রুয়ারি, ২০১১
০৯:৩০
[ স্কোরকার্ড]
কেনিয়া 
৬৯ (২৩.৫ ওভার)
 নিউজিল্যান্ড
৭২/০ (৮ ওভার)
নিউজিল্যান্ড ১০ উইকেটে বিজয়ী
এম. এ. চিদাম্বরম স্টেডিয়াম, চিপক, চেন্নাই
আম্পায়ার: মারাইজ ইরাসমাস (দক্ষিণ আফ্রিকা) ও রড টাকার (অস্ট্রেলিয়া)
সেরা খেলোয়াড়: হামিশ বেনেট (নিউজিল্যান্ড)
  • কেনিয়া টসে জয়ী হয়ে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

The first match of Group A saw Kenya taking on the New Zealanders. Kenya won the toss and elected to bat first on a pitch which seemed to have a lot of runs. However, the New Zealanders started very well, restricting the Kenyans for runs throughout the first 6 overs. The pressure paid off as Tim Southee trapped Alex Obanda in front with the score at 16 after 7 overs. Fellow opener Seren Waters and Collins Obuya tried to rebuild but Hamish Bennett came into the attack and got Waters lbw to make the score 40/2. Bennett then ripped through the Kenyan batting and got 3 more wickets in double-quick time to reduce the Kenyans to 49/5. The shattered Kenyans then folded, with only Rakep Patel offering resistance with 16 not out as Southee and Jacob Oram finished off the tail to get Kenya all out for 69 in 23.5 overs.

The New Zealand openers started off quickly in their small chase, with Martin Guptill doing most of the early scoring. Brendon McCullum was bowled off a free hit but got into his stride and finished off the game with two successive boundaries, as New Zealand reached their target in just eight overs without losing any wicket, to complete a ten-wicket win.

শ্রীলঙ্কা বনাম কানাডা[সম্পাদনা]

২০ ফেব্রুয়ারি, ২০১১
১৪:৩০ (দিন/রাত)
[ স্কোরকার্ড]
শ্রীলঙ্কা 
৩৩২/৭ (৫০ ওভার)
 কানাডা
১২২ (৩৬.৫ ওভার)
  • শ্রীলঙ্কা টসে জয়ী হয়ে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

Sri Lanka, one of the co-hosts started off their tournament against minnows Canada. The Sri Lankans won the toss and elected to bat first. Canada bowled well in the early overs, but did not get a wicket, as openers Upul Tharanga and Tillakaratne Dilshan reached 50 runs. When the first wicket did fall, it was a run-out when the batsmen had a mix-up with the score at 63, and Tharanga was dismissed. Dilshan got to his half-century, but fell trying to go for a big hit. The Canadians restricted Sri Lanka to 88/2 with over 19 overs bowled; but the two experienced Sri Lankan batsmen, captain Kumar Sangakkara and Mahela Jayawardene came together and got a partnership of 50. Both batsmen got the run rate to over 6 and both seemed to be coasting to their centuries, until Sangakkara on 92 gave a simple return catch to John Davison with the score at 267/2. Jayawardene reached his century but fell immediately afterwards. More wickets fell and the game got hot-tempered, with a confrontation between Angelo Mathews and Harvir Baidwan and Sri Lanka finished with 332/7.

The Canadian chase went nowhere, with Thisara Perera and Nuwan Kulasekara getting three wickets quickly. Captain Ashish Bagai tried to lead a recovery, but once Perera took his wicket to reduce Canada to 53/5, all doubts about the result finished. Big-hitter Rizwan Cheema took 37, including two huge sixes off spinner Muttiah Muralitharan, but the latter ultimately got his wicket as Canada fell to 122 all out.

অস্ট্রেলিয়া বনাম জিম্বাবুয়ে[সম্পাদনা]

২১ ফেব্রুয়ারি, ২০১১
১৪:৩০ (দিন/রাত)
[ স্কোরকার্ড]
অস্ট্রেলিয়া 
২৬২/৬ (৫০ ওভার)
 জিম্বাবুয়ে
১৭১ (৪৬.২ ওভার)
  • অস্ট্রেলিয়া টসে জিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়।

Three-time defending champions Australia opened their tournament against Zimbabwe. Australia won the toss and elected to bat; but it was the Zimbabwean spinners who dominated the early stages despite not getting a wicket; as Australia struggled to 32/0 after 13 overs. The 14th over was hit for 17 runs as the score quickly reached 50, but soon after, Prosper Utseya got Brad Haddin lbw, which was given out of referral. Shane Watson then attacked aggressively as he added 79 with captain Ricky Ponting until Watson was out lbw off Graeme Cremer in similar fashion to Haddin's. Ponting was soon run out, but Michael Clarke and Cameron White took the score past 200 until White was bowled. Clarke reached a half-century, and quick cameos by David Hussey and Steve Smith took Australia to 262/6.

The Zimbabwean reply was disappointing, as the Australian pace trio of Brett Lee, Shaun Tait and Mitchell Johnson reduced Zimbabwe to 44/4. The Zimabweans had some small partnerships going; but that was little resistance as they were all out of 171, with Johnson getting 4 wickets.

Australian captain Ricky Ponting was handed down a Level 1 charge by the ICC, after he damaged a television set in the dressing room following his run-out.

পাকিস্তান বনাম কেনিয়া[সম্পাদনা]

২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১১
১৪:৩০ (দিন/রাত)
[ স্কোরকার্ড]
পাকিস্তান 
৩১৭/৭ (৫০ ওভার)
 কেনিয়া
১১২ (৩৩.১ ওভার)
  • পাকিস্তান টসে জয়ী হয়ে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

Pakistan, who were on a poor run of form before this World Cup faced off against Kenya. Pakistan captain Shahid Afridi won the toss and elected to bat first but it was the Kenyan bowlers who struck early, getting opens Mohammad Hafeez and Ahmed Shehzad out early on, leaving Pakistan at 12/2 at the end of 7 overs. Kamran Akmal and Younis Khan then began a rebuilding partnership of 98, until Kamran fell shortly after reaching his half-century. Younis also reached a half-century and fell immediately, before Misbah-ul-Haq and Umar Akmal hit a rapid 118-run partnership, with the latter especially being severe on the bowlers in his 71 off 52 balls. Both men fell towards the end of the innings as Pakistan reached 317/7, helped quite substantially by the Kenyan bowling which conceded 46 extras.

Kenya started off solidly in their big chase, with openers Morris Ouma and Seren Waters adding 37 for the first wicket until a direct hit from Umar Akmal had the latter run out. The Kenyans fought during the first half of their innings, getting to 73/2 before Shahid Afridi bowled Steve Tikolo. He then ran through the lower middle order and the tail with ease, and ended up with figures of 5/16 from 8 overs as Kenya collapsed to 112 all out, with the only resistance offered by Collins Obuya's 47.

Afridi took the best figures for a Pakistan bowler in the World Cup, with 5/16.

অস্ট্রেলিয়া বনাম নিউজিল্যান্ড[সম্পাদনা]

২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১১
০৯:৩০
[ স্কোরকার্ড]
নিউজিল্যান্ড 
২০৬ (৪৫.১ ওভার)
 অস্ট্রেলিয়া
২০৭/৩ (৩৪ ওভার)
অস্ট্রেলিয়া ৭ উইকেটে বিজয়ী
বিদর্ভ ক্রিকেট সংস্থা স্টেডিয়াম, নাগপুর
আম্পায়ার: কুমার ধর্মসেনা (শ্রীলঙ্কা) ও বিলি ডকট্রোভ (ওয়েস্ট ইন্ডিজ)
সেরা খেলোয়াড়: মিচেল জনসন (অস্ট্রেলিয়া)
  • অস্ট্রেলিয়া টসে জিতে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেয়।

New Zealand and Australia and both won their first games easily, and now the Tasman neighbours faced off against each other where the winner would get two wins out of two. Australian captain Ricky Ponting won the toss and asked New Zealand to bat. Opener Brendon McCullum blazed away at the start of the innings until Shaun Tait had him caught at third man. New Zealand progressed at a steady run rate after that, reaching 66/2 for after 13 overs until Tait and Mitchell Johnson unleashed a good spell of bowling which resulted in a collapse of 4 wickets for 7 runs. New Zealand showed resistance after that as Nathan McCullum scored a half-century, and Daniel Vettori a quick 44, which allowed them to get 206.

Australia started rapidly in their chase thanks to Brad Haddin, who went a well over a run a ball right from the start and quickly reached his half-century. Shane Watson was quiet in the opening phase but soon got into the stride, and Australia reached 100 in just 14 overs. Watson didn't take too much longer to reach his half-century either, and although Hamish Bennett offered New Zealand a ray of hope by getting Watson and Haddin out in the same over, Michael Clarke and Cameron White guided Australia hope with ease within 34 overs, with 7 wickets to spare.

Australian batsman Michael Clarke reached 6,000 One Day International runs in his 174 innings during this match.

শ্রীলঙ্কা বনাম পাকিস্তান[সম্পাদনা]

২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১১
১৪:৩০ (দিন/রাত)
[ স্কোরকার্ড]
পাকিস্তান 
২৭৭/৭ (৫০ ওভার)
 শ্রীলঙ্কা
২৬৬/৯ (৫০ ওভার)
মিসবাহ-উল-হক ৮৩* (৯১)
রঙ্গনা হেরাথ ২/৪৬ (১০ ওভার)
চামারা সিলভা ৫৭ (৭৮)
শহীদ আফ্রিদি ৪/৩৪ (১০ ওভার)
  • পাকিস্তান টসে জয়ী হয়ে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

Pakistan captain Shahid Afridi won the toss and decided to bat first against Sri Lanka, one of the pre-tournament favorites. Sri Lanka got the wicket of Ahmed Shehzad in the sixth over, but Pakistan still managed to proceed along at a rapid run rate in the first ten overs. Mohammed Hafeez, Pakistan's other opener proceeded along at over a run a ball until a mix up with Kamran Akmal had him run out, and Kamran himself was stumped a few overs later to leave the match evenly poised at 105/3 in the 21st over. Younis Khan and Misbah-ul-Haq then built a 104 run partnership in 20 overs without taking too many risks, until Younis fell to Rangana Herath for 72 while trying to accelerate. Misbah stayed not out till the end for a well made 83, but Sri Lanka got the wickets of Umar Akmal and Abdul Razzaq cheaply, and Shahid Afridi before he did too much damage to the score to keep Pakistan to 277/7.

Sri Lanka started off with a very good reply, with their openers Upul Tharanga and Tillakaratne Dilshan accelerating steadily after a slow start to add 76 in just over 14 overs until Hafeez had Tharanga caught at point. This was the turning point of the match, as three more wickets, including that of Dilshan fell soon after to leave Sri Lanka tottering at 96/4. Kumar Sangakkara rode his luck with Kamran missing two stumpings off him, and staged a recovery with Chamara Silva, but his luck eventually ran out as the required run rate went up, with Afridi having him caught at long on one short of his fifty. Silva struggled to time the ball early in his innings, being 16 off 49 balls at one point, but he then accelerated rapidly to reach his half-century, but Afridi returned to remove dangerous looking Angelo Mathews. Silva eventually fell for 57 when Kamran did get a stumping right, and despite Nuwan Kulasekara's cameo, Sri Lanka ended up 11 short.

Pakistani all-rounder Shahid Afridi took his 300th ODI wicket during this match.

জিম্বাবুয়ে বনাম কানাডা[সম্পাদনা]

২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১১
০৯:৩০
[ স্কোরকার্ড]
 কানাডা
123 (42.1 overs)
জিম্বাবুয়ে ১৭৫ রানে বিজয়ী
বিদর্ভ ক্রিকেট সংস্থা স্টেডিয়াম, নাগপুর
আম্পায়ার: আসাদ রউফ (পাকিস্তান) ও ব্রুস অক্সেনফোর্ড (অস্ট্রেলিয়া)
সেরা খেলোয়াড়: তাতেন্দা তাইবু (জিম্বাবুয়ে)
  • জিম্বাবুয়ে টসে জিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়।

Zimbabwe's victory was their fourth biggest by runs margin in ODI cricket, and their biggest in World Cups.

শ্রীলঙ্কা বনাম কেনিয়া[সম্পাদনা]

১ মার্চ, ২০১১
১৪:৩০ (দিন/রাত)
[ স্কোরকার্ড]
কেনিয়া 
১৪২ (৪৩.৪ ওভার)
 শ্রীলঙ্কা
১৪৬/১ (১৮.৪ ওভার)
কলিন্স ওবুয়া ৫২ (১০০)
লাসিথ মালিঙ্গা ৬/৩৮ (৭.৪ ওভার)
  • কেনিয়া টসে জয়ী হয়ে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

Sri Lankan fast bowler Lasith Malinga took a hat-trick, the second in his career. He became the first bowler to take two World Cup hat-tricks, and the fourth bowler to take two career ODI hat-tricks.

পাকিস্তান বনাম কানাডা[সম্পাদনা]

৩ মার্চ, ২০১১
১৪:৩০ (দিন/রাত)
[ স্কোরকার্ড]
পাকিস্তান 
১৮৪ (৪৩ ওভার)
 কানাডা
১৩৮ (৪২.৫ ওভার)
উমর আকমল ৪৮ (৬৮)
হারভীর বাইদোয়ান ৩/৩৫ (৮ ওভার)
জিমি হংস্র ৪৩ (৭৫)
শহীদ আফ্রিদি ৫/২৩ (১০ ওভার)
  • পাকিস্তান টসে জয়ী হয়ে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

Shahid Afridi, who was named man of the match, set a new record of becoming the first player in World Cup matches to take four or more wickets in three consecutive games.

নিউজিল্যান্ড বনাম জিম্বাবুয়ে[সম্পাদনা]

৪ মার্চ, ২০১১
০৯:৩০
[ স্কোরকার্ড]
জিম্বাবুয়ে 
১৬২ (৪৬.২ ওভার)
 নিউজিল্যান্ড
১৬৬/০ (৩৩.৩ ওভার)
নিউজিল্যান্ড ১০ উইকেটে বিজয়ী
সরদার প্যাটেল স্টেডিয়াম, মোতেরা, আহমেদাবাদ
আম্পায়ার: আলীম দার (পাকিস্তান) ও মারাইজ ইরাসমাস (দক্ষিণ আফ্রিকা)
সেরা খেলোয়াড়: মার্টিন গাপটিল (নিউজিল্যান্ড)
  • জিম্বাবুয়ে টসে জয়ী হয়ে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

মার্টিন গাপটিল এবং ব্রেন্ডন ম্যাককুলাম বিশ্বকাপ ম্যাচে নিউজিল্যান্ড জন্য সর্বোচ্চ উদ্বোধনী জুটিতে নতুন রেকর্ড স্থাপন করে।

শ্রীলঙ্কা বনাম অস্ট্রেলিয়া[সম্পাদনা]

৫ মার্চ, ২০১১
১৪:৩০ (দিন/রাত)
[ স্কোরকার্ড]
শ্রীলঙ্কা 
১৪৬/৩ (৩২.৫ ওভার)
কুমার সাঙ্গাকারা ৭৩* (১০২)
শন টেইট ১/২৩ (৫ ওভার)
বৃষ্টির কারণে খেলা পরিত্যক্ত
রানাসিংহে প্রেমাদাসা স্টেডিয়াম, কলম্বো
আম্পায়ার: ইয়ান গোল্ড (ইংল্যান্ড) ও টনি হিল (নিউজিল্যান্ড)
  • শ্রীলঙ্কা টসে জয়ী হয়ে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।
  • বৃষ্টির কারণে খেলা পরিত্যক্ত; শ্রীলঙ্কা ও অস্ট্রেলিয়া প্রত্যেকেই ১ পয়েন্ট পায়।

নো ফলাফলের শেষ অস্ট্রেলিয়া বিশ্বকাপ ২৫ কষ লাভ; অস্ট্রেলিয়া যে বিশ্বকাপে এটা দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে বাঁধা সেমিফাইনাল থেকে খেলেছিলাম জিতে নিয়েছেন ১৯৯৯ ক্রিকেট বিশ্বকাপ। বিশ্বকাপ ম্যাচে অস্ট্রেলিয়ার অপরাজিত থাকার রেকর্ড ভাঙা ছিল না, এবং ৩২ পর্যন্ত বাড়ানো হয়।

কানাডা বনাম কেনিয়া[সম্পাদনা]

৭ মার্চ, ২০১১
১৪:৩০ (দিন/রাত)
[ স্কোরকার্ড]
কেনিয়া 
১৯৮ (৫০ ওভার)
 কানাডা
১৯৯/৫ (৪৫.৩ ওভার)
কানাডা ৫ উইকেটে বিজয়ী
ফিরোজ শাহ কোটলা মাঠ, নতুন দিল্লি
আম্পায়ার: আসাদ রউফ (পাকিস্তান) ও বিলি ডকট্রোভ (ওয়েস্ট ইন্ডিজ)
সেরা খেলোয়াড়: হেনরি অসিন্দে (কানাডা)
  • কেনিয়া টসে জয়ী হয়ে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

কানাডার জয় কেনিয়ার বিপক্ষে তাদের তৃতীয় জয় এবং বিশ্বকাপ তাদের দ্বিতীয় জয় ম্যাচ ছিল. তারা পূর্বে বাংলাদেশ মারধর ২০০৩ ক্রিকেট বিশ্বকাপ

পাকিস্তান বনাম নিউজিল্যান্ড[সম্পাদনা]

৮ মার্চ, ২০১১
১৪:৩০ (দিন/রাত)
[ স্কোরকার্ড]
নিউজিল্যান্ড 
৩০২/৭ (৫০ ওভার)
 পাকিস্তান
১৯২ (৪১.৪ ওভার)
রস টেলর ১৩১* (১২৪)
উমর গুল ৩/৩২ (১০ ওভার)
আব্দুল রাজ্জাক ৬২ (৭৪)
টিম সাউদি ৩/২৫ (৮ ওভার)
নিউজিল্যান্ড ১১০ রানে বিজয়ী
পাল্লেকেলে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম, ক্যান্ডি
আম্পায়ার: ড্যারিল হার্পার (অস্ট্রেলিয়া) and নাইজেল লং (ইংল্যান্ড)
সেরা খেলোয়াড়: রস টেলর (নিউজিল্যান্ড)
  • নিউজিল্যান্ড টসে জয়ী হয়ে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

শ্রীলঙ্কা বনাম জিম্বাবুয়ে[সম্পাদনা]

১০ মার্চ, ২০১১
১৪:৩০ (দিন/রাত)
[ স্কোরকার্ড]
শ্রীলঙ্কা 
৩২৭/৬ (৫০ ওভার)
 জিম্বাবুয়ে
১৮৮ (৩৯ ওভার)
  • জিম্বাবুয়ে টসে জয়ী হয়ে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

Upul Tharanga and Tillakaratne Dilshan set a new World Cup record for the opening partnership, scoring 282 runs, beating the previous record of 194. It was also the first occasion in a World Cup that both openers made a century. With their victory over Zimbabwe, Sri Lanka became the first team to qualify for the Quarter Finals of the tournament. In reply, Zimbabwe made a good start, but were dismissed for 188 runs with 11 overs spare.

কানাডা বনাম নিউজিল্যান্ড[সম্পাদনা]

১৩ মার্চ, ২০১১
০৯:৩০
[ স্কোরকার্ড]
নিউজিল্যান্ড 
৩৫৮/৬ (৫০ ওভার)
 কানাডা
২৬১/৯ (৫০ ওভার)
  • কানাডা টসে জিতে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেয়।

অস্ট্রেলিয়া বনাম কেনিয়া[সম্পাদনা]

১৩ মার্চ, ২০১১
১৪:৩০ (দিন/রাত)
[ স্কোরকার্ড]
অস্ট্রেলিয়া 
৩২৪/৬ (৫০ ওভার)
 কেনিয়া
২৬৪/৬ (৫০ ওভার)
  • অস্ট্রেলিয়া টসে জিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়।

২৬৪ কেনিয়ার মোট বিশ্বকাপে তাদের সর্বোচ্চ স্কোর ম্যাচ শ্রীলংকার বিপক্ষে ২৫৪ তাদের পূর্ববর্তী শ্রেষ্ঠ প্রহার ১৯৯৬ ক্রিকেট বিশ্বকাপ

পাকিস্তান বনাম জিম্বাবুয়ে[সম্পাদনা]

১৪ মার্চ, ২০১১
১৪:৩০ (দিন/রাত)
[ স্কোরকার্ড]
জিম্বাবুয়ে 
১৫১ (৩৯.৪ ওভার)
 পাকিস্তান
১৬৪/৩ (৩৪.১/৩৮ ওভার)
ক্রেগ আরভিন ৫২ (৮২)
উমর গুল ৩/৩৬ (৭.৪ ওভার)
আসাদ শফিক ৭৮* (৯৭)
রে প্রাইস ২/২১ (৮ ওভার)
  • জিম্বাবুয়ে টসে জয়ী হয়ে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।
  • Rain reduced the game. Zimbabwe made 151/7 in 39.4 overs; so the target for Pakistan was 162 in 38 overs

অস্ট্রেলিয়া বনাম কানাডা[সম্পাদনা]

১৬ মার্চ, ২০১১
১৪:৩০ (দিন/রাত)
[ স্কোরকার্ড]
কানাডা 
২১১ (৪৫.৪ ওভার)
 অস্ট্রেলিয়া
২১২/৩ (৩৪.৫ ওভার)
হিরল প্যাটেল ৫৪ (৪৫)
ব্রেট লি ৬/৪৬ (৮.৪ ওভার)
শেন ওয়াটসন ৯৭ (৯০)
জন ডেভিসন ১/২৯ (৪ ওভার)
অস্ট্রেলিয়া ৭ উইকেটে বিজয়ী
এম. চিন্নাস্বামী স্টেডিয়াম, বেঙ্গালুরু
আম্পায়ার: বিলি বাউডেন (নিউজিল্যান্ড) ও আমিশ সাহেবা (ভারত)
সেরা খেলোয়াড়: শেন ওয়াটসন (অস্ট্রেলিয়া)
  • কানাডা টসে জিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়।

নিউজিল্যান্ড বনাম শ্রীলঙ্কা[সম্পাদনা]

১৮ মার্চ, ২০১১
১৪:৩০ (দিন/রাত)
[ স্কোরকার্ড]
শ্রীলঙ্কা 
২৬৫/৯ (৫০ ওভার)
 নিউজিল্যান্ড
১৫৩ (৩৫ ওভার)
  • শ্রীলঙ্কা টসে জয়ী হয়ে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

অস্ট্রেলিয়া বনাম পাকিস্তান[সম্পাদনা]

১৯ মার্চ, ২০১১
১৪:৩০ (দিন/রাত)
[ স্কোরকার্ড]
অস্ট্রেলিয়া 
১৭৬ (৪৬.৪ ওভার)
 পাকিস্তান
১৭৮/৬ (৪১ ওভার)
ব্রাড হাড্ডিন ৪২ (৮০)
উমর গুল ৩/৩০ (৭.৪ ওভার)
আসাদ শফিক ৪৬ (৮১)
ব্রেট লি ৪/২৮ (৮ ওভার)
পাকিস্তান ৪ উইকেটে বিজয়ী
রানাসিংহে প্রেমাদাসা স্টেডিয়াম, কলম্বো
আম্পায়ার: মারাইজ ইরাসমাস (দক্ষিণ আফ্রিকা) ও টনি হিল (নিউজিল্যান্ড)
সেরা খেলোয়াড়: উমর আকমল (পাকিস্তান)
  • অস্ট্রেলিয়া টসে জয়ী হয়ে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

The loss was Australia's first loss in a World Cup match since 23 May 1999, when Pakistan defeated Australia at Headingley in the group stage of the 1999 World Cup. This ended a 34-match unbeaten streak (including 32 wins, a tie and a no-result).

জিম্বাবুয়ে বনাম কেনিয়া[সম্পাদনা]

২০ মার্চ, ২০১১
০৯:৩০
[ স্কোরকার্ড]
জিম্বাবুয়ে 
৩০৮/৬ (৫০ ওভার)
 কেনিয়া
১৪৭ (৩৬ ওভার)
ক্রেগ আরভিন ৬৬ (৫৪)
এলিজাহ ওটিয়েনো ২/৬১ (১০ ওভার)
জিম্বাবুয়ে ১৩১ রানে বিজয়ী
ইডেন গার্ডেন্স, কলকাতা
আম্পায়ার: অশোকা ডি সিলভা (শ্রীলঙ্কা) ও কুমার ধর্মসেনা (শ্রীলঙ্কা)
সেরা খেলোয়াড়: ক্রেগ আরভিন (জিম্বাবুয়ে)
  • জিম্বাবুয়ে টসে জিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]