১৯৮৮-এর বাংলাদেশের বন্যা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

১৯৮৮-র বন্যা ছিলো বাংলাদেশে সংঘটিত প্রলংকারী বন্যাগুলোর মধ্যে অন্যতম। আগস্ট-সেপ্টেম্বর মাস জুড়ে সংঘটিত এই বন্যায় দেশের প্রায় ৬০% এলাকা ডুবে যায় এবং স্থানভেদে এই বন্যাটি ১৫ থেকে ২০ দিন পর্যন্ত স্থায়ী ছিলো।[১] এটি ছিলো এদেশের ইতিহাসে সবচেয়ে মারাত্মক ও ক্ষয়-ক্ষতিময় প্রাকৃতিক দুর্যোগ[২] এবং বিশ্বব্যাপী গণ-মাধ্যমেও সেই সময় এই দুর্যোগটি সকলের দৃষ্টি আকর্ষন করতে সক্ষম হয়।

সংগঠিত হওয়ার কারণ[সম্পাদনা]

এই প্রলংকারী বন্যাটি সংগঠিত হওয়ার মূল কারণ ছিলো সারা দেশে প্রচুর বৃষ্টিপাত[৩][৪] এবং একই সময়ে (মাত্র তিন দিনে) দেশের তিনটি প্রধান নদীর পানি প্রবাহ একই সময় ঘটায়[১] নদীর বহন ক্ষমতার অতিরিক্ত পানি প্রবাহিত হয়।

ক্ষয়-ক্ষতির পরিমাণ[সম্পাদনা]

এই বন্যায় বাংলাদেশের প্রায় ৮২,০০০ বর্গ কিমি (সমগ্র দেশের ৬০% এরও অধিক) এলাকা সরাসরি ক্ষতিগ্রস্ত হয়।[১]

পরবর্তী পুনর্বাসন প্রক্রিয়া[সম্পাদনা]

  • ১৯৮৬ সালে পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের অধীনে গঠিত সারফেস ওয়াটার সিমুলেশন মডেলিং প্রোগ্রাম (SWSMP) ১৯৮৮-র ভয়াবহ বন্যার পরিপ্রেক্ষিতে DHI এর কারিগরী নির্দেশনায় সারফেস ওয়াটার মডেলিং সেন্টার (SWMC) নামে পেশাদারী ইন্সটিটিউট হিসাবে প্রতিষ্ঠিত হয়; যা ২০০২ সালে ১ আগস্ট থেকে ইন্সটিটিউট অব ওয়াটার মডেলিং (iwm) নামে পরিচিতি লাভ করে।[৫]
  • ১৯৮৮ সালের ভয়াবহ ও দীর্ঘস্থায়ী বন্যার পরে বাংলাদেশ সরকার বন্যার কারণ নির্ণয় ও প্রতিকারের জন্য নেয়া ২৬টি বন্যা কর্মপরিকল্পনা (ফ্যাপ) সমীক্ষায় ইউএসএআইডি-এর কারিগরি সহায়তায় সম্পাদিত পরিবেশগত সমীক্ষা (ফ্যাপ ১৬) এবং ভৌগোলিক তথ্য পদ্ধতি (জিআইএস) সমীক্ষা (ফ্যাপ ১৯)-র মাধ্যমে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে পানি খাতে পরিবেশগত প্রভাব নিরূপণের জন্য একটি নির্দেশিকা তৈরি করা হয়, যা পরবর্তীতে 'ইজিআইএস প্রকল্প'-এ পরিণত হয় এবং নেদারল্যান্ড সরকারের কারিগরি সহায়তায় ২০০২ সালে 'সেন্টার ফর এনভায়রনমেন্টাল এন্ড জিওগ্রাফিক ইনফরমেশন সার্ভিসেস' (সিইজিআইএস) ট্রাস্ট হিসাবে প্রতিষ্ঠা লাভ করে।[৬]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]