হিন্দুস্তান সোশ্যালিস্ট রিপাবলিকান অ্যাসোসিয়েশন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Hindustan Socialist Republican Association
हिन्दुस्तान सोशलिस्ट रिपब्लिकन एसोसिएशन
নেতাশচীন্দ্রনাথ সান্যাল
অপারেশনের তারিখঅক্টোবর ১৯২৪ (1924-10)–১৯৩৬ (1936)
এ থেকে বিভক্তভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস
দেশ বৃটিশ ভারত
উদ্দেশ্যভারতের স্বাধীনতা আন্দোলন
মতাদর্শIndian nationalism
Revolutionary socialism
রাজনৈতিক অবস্থানFar-left
এর অংশভারতের বিপ্লবী স্বাধীনতা আন্দোলন
মিত্রঅনুশীলন সমিতি
বিপক্ষ British Empire
উত্তরসূরী
Revolutionary Socialist Party

হিন্দুস্তান সোশ্যালিস্ট রিপাবলিকান অ্যাসোসিয়েশন ( এইচএসআরএ ) প্রতিষ্ঠাকালে 'হিন্দুস্তান রিপাবলিকান আর্মি ' নামে পরিচিত, ভারতের স্বাধীনতার আন্দোলনের জন্য গঠিত এক বিপ্লবী সংগঠন। এর প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন রামপ্রসাদ বিসমিল, শচীন্দ্রনাথ বক্সীশচীন্দ্রনাথ সান্যালযোগেশচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় প্রমুখেরা। পরে ১৯২৫ খ্রিস্টাব্দে যখন কাকোরি যড়যন্ত্র মামলায় এর সংবিধান ও রিভলিউশনারি শিরোনামে ইস্তাহার প্রমাণ হিসাবে উপস্থাপন করা হয় তখন এটি হিন্দুস্তান রিপাবলিকান অ্যাসোসিয়েশন  (এইচআরএ) নামে পরিচিত হয়।

উৎপত্তি[সম্পাদনা]

পটভূমি[সম্পাদনা]

১৯২০ খ্রিস্টাব্দে মহাত্মা গান্ধীভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস পরিচালিত ভারতব্যাপী অসহযোগ আন্দোলনের সূত্রপাত হয় এবং অহিংস গণ-আইন আন্দোলন হিসাবে চলছিল, সহসাই হিংস্রতায় পরিণত হয়। চৌরী-চৌরা ঘটনা ঘটে যায় বৃটিশ  ভারতের গোরক্ষপুর জেলায় অবস্থিত চৌরী চৌরায়। আন্দোলনে হিংসার অনুপ্রবেশের কারণে গান্ধীজি অসহযোগ আন্দোলন স্থগিত করে দেন। কিন্তু জাতীয়তাবাদীদের একটি অংশ স্থগিতাদেশের ফলে সৃষ্ট শূন্যতায় ব্রিটিশ শাসনকে উৎখাত করতে বিপ্পবী আন্দোলনের দিকে পরিচালিত হয়। ১৯২৪ খ্রিস্টাব্দের অক্টোবর মাসে সংযুক্ত রাজ্যের কানপুরের  রামপ্রসাদ বিসমিল শচীন্দ্রনাথ বক্সী শচীন্দ্রনাথ সান্যাল যোগেশচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় প্রমুখেরা গঠন করেন হিন্দুস্তান রিপাবলিকান অ্যাসোসিয়েশন। [১]

গয়া কংগ্রেসে গান্ধীজির বিরোধিতা[সম্পাদনা]

১৯২২ খ্রিস্টাব্দে আন্দোলনরত কিছু কৃষক চৌরী-চৌরায় নিহত হন। এর ফলে স্থানীয়েরা চৌরী-চৌরা থানা আক্রমণ করে ও আগুন ধরিয়ে দেয়। বাইশজন পুলিশ জীবন্তদগ্ধ হয়ে মারা যান।

ঘটনার পশ্চাতে সত্যতা যাচাই না করেই  গান্ধীজি  অসহযোগ আন্দোলন প্রত্যাহার করেন। ফলস্বরূপ ১৯২২ খ্রিস্টাব্দের ডিসেম্বরে বার্ষিক  গয়া কংগ্রেসে গান্ধী বিরোধিতা  আসে রামপ্রসাদ বিসমিল ও তার সহযোগী যুব গোষ্ঠী হতে।  ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসে দুটি গোষ্ঠী ― একটি উদারপন্থী এবং অন্যটি বিপ্লবী ক্রিয়াকলাপে আগ্রহী। ১৯২৩ খ্রিস্টাব্দের জানুয়ারি  উদারপন্থীদের  দেশবন্ধু চিত্তরঞ্জন দাশ মতিলাল নেহেরুর নেতৃত্বে স্বরাজ দল ও অন্য বিপ্লবীদের রামপ্রসাদ  বিসমিলের নেতৃত্বে বিপ্লবী আন্দোলনের  প্রস্তুতি শুরু হয়।

উদ্দেশ্য ও সংবিধান[সম্পাদনা]

বিপ্লবী গোষ্ঠীর প্রধান উদ্দেশ্য তথা লক্ষ্য  হল ― দেশের স্বাধীনতা লাভ ও পরবর্তীতে এক সমাজবাদী রাষ্ট্র স্থাপনা। লালা হরদয়ালের পরামর্শে রামপ্রসাদ বিসমিল এলাহাবাদ যান এবং শচীন্দ্রনাথ সান্যাল ও বাংলার আর একজন বিপ্লবী যাদুগোপাল মুখোপাধ্যায়ের  সহায়তায় ১৯২৩ খ্রিস্টাব্দে দলের সংবিধানের খসড়া প্রণয়ন করেন। [২][পূর্ণ তথ্যসূত্র প্রয়োজন] এবং এই সংবিধান কমিটির  সভা ১৯২৪ খ্রিস্টাব্দের ৩রা অক্টোবর যুক্তরাজ্যের কানপুরে অনুষ্ঠিত হয়।

কর্মভার বন্টন[সম্পাদনা]

সভায় দলের নাম হিন্দুস্তান রিপাবলিকান  অ্যাসোসিয়েশন স্থির হয় এবং সদস্যদের মধ্যে কর্মভার বন্টিত হয়। দলটির প্রধান তিনটি বিভাগ ছিল  ― সংগঠন, প্রচার ও সামরিক সংগঠন বিভাগ। বিজয় কুমার সিনহা সংগঠনের, ভগৎ সিংহ প্রচারে এবং চন্দ্রশেখর আজাদ সামরিক বিভাগের দায়িত্ব নেন।  বিসমিল শাহজাহানপুর জেলার সংগঠক, সেনা বিভাগের প্রধান এবং আগ্রা ও অওধের যুক্ত প্রদেশের প্রাদেশিক সংগঠক হন। শচীন্দ্রনাথ সান্যাল হন জাতীয় সংগঠক। অপর এক  বরিষ্ঠ সদস্য যোগেশচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় অনুশীলন সমিতির সাথে সমন্বয় স্থাপনের দায়িত্ব পান। সভার পরই শচীন্দ্রনাথ সান্যালযোগেশচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়  সংযুক্ত রাজ্য হতে বাংলায় গমন করেন।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

হিন্দুস্তান রিপাবলিকান অ্যাসোসিয়েশনের শাখা আগ্রা এলাহাবাদ বারাণসী কানপুর লখনউ শাহারানপুর এবং শাহজাহানপুর প্রভৃতি স্থানে বিস্তার লাভ করে। তাদের বোমা তৈরির হত কলকাতার দক্ষিণেশ্বেরে ও শোভাবাজারে এবং বিহার রাজ্যের বর্তমানে ঝাড়খণ্ডের দেওঘরে। পুলিশ কলকাতার সন্ধান পায় ১৯২৫ খ্রিস্টাব্দে এবং দেওঘরের সন্ধান পায় ১৯২৭ খ্রিস্টাব্দে। [১]

বিপ্লবী তথা রিভলিউশনারি প্রকাশনা[সম্পাদনা]

শচীন্দ্রনাথ সান্যাল দলের ইস্তাহার রিভলিউশনারি নামে রচনা করেন এবং ১৯২৫ খ্রিস্টাব্দের ১লা জানুয়ারি উত্তর ভারতের প্রধান প্রধান শহরে প্রচার করা হয়। [৩] ইস্তাহারে বৃটিশ উপনিবেশের শাসন উৎখাত এবং ভারতে ফেডেরাল রিপাবলিক স্থাপনের কথা বলা হয়েছিল। এর সাথে সমাজের সর্বস্তরের মানুষের সমান অধিকার প্রদানের লক্ষ্যে সর্বজনীন  ভোটাধিকারের কথাও উল্লেখ করা হয়েছিল।[১]

প্রাথমিক কার্যক্রম[সম্পাদনা]

ভগত সিং -এর ওয়াল পেইন্টিং; রেওয়ালসার, ভারত, ২০১০

শুরুতেই দলের জন্য তহবিল সংগ্রহের প্রচেষ্টা চালিয়ে অনেক বাধা বিপত্তি এসেছে। বিশেষকরে ১৯২৩-২৪ খ্রিস্টাব্দে দ্বারিকাপুর ও বিচপুরী গ্রামে। কিন্তু সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য ছিল ১৯২৫ খ্রিস্টাব্দের ৯ ই  আগস্টের কাকোরি ট্রেন ডাকাতি

[১]

হিন্দুস্তান সোশ্যালিস্ট রিপাবলিকান অ্যাসোসিয়েশন[সম্পাদনা]

১৯২৮ খ্রিস্টাব্দে বৃটিশ সরকার ভারতের রাজনৈতিক পরিস্থিতি পর্যালোচনা করতে স্যার জন সাইমনের নেতৃত্বে কমিশন গঠন করলে, উপনিবেশকতা বিরোধী মনোভাব উত্থানে সাড়া দিতে ভগৎ সিংহ প্রস্তাবে নামে পরিবর্তন ঘটিয়ে হিন্দুস্তান সোশ্যালিস্ট রিপাবলিকান অ্যাসোসিয়েশন রাখা হয়।

দলের ইস্তাহার ''ফিলজফি অফ দি বম্ব'' রচনা করেন ভগবতীচরণ ভোরা। [৪]

উল্লেখযোগ্য সদস্য[সম্পাদনা]

নাম কিভাবে জড়িত ফলাফল
চন্দ্রশেখর আজাদ কাকোরি ষড়যন্ত্র, জন স্যান্ডার্স হত্যা (১৯২৮) কাকোরি ষড়যন্ত্রের পর আত্মগোপন । গোপন আস্তানা হতে ক্রিয়াকলাপ । ১৯৩১-এ ২৭ শে ফেব্রুয়রি নিজেকে গুলি করে হত্যা [৫]
শচীন্দ্রনাথ বক্সী কাকোরি ষড়যন্ত্র যাবজ্জীবন কারাদণ্ড। ১৯৩৭ -এ মুক্ত কংগ্রেসে যোগদান পরে কংগ্রেস ত্যাগ জনসঙ্ঘের হয়ে উত্তর প্রদেশের বিধানসভার সদস্য [৬]
সুরেশচন্দ্র ভট্টাচার্য কাকোরি ষড়যন্ত্র দশ বৎসরের সশ্রম কারাদণ্ড case[৫]
রামপ্রসাদ বিসমিল মণিপুরীষড়যন্ত্র (১৯১৮) ও কাকোরি ষড়যন্ত্র[৭] মণিপুরী ষড়যন্ত্রে আত্মগোপন, কাকোরি ষড়যন্ত্রে মৃত্যদণ্ড - গোরক্ষপুর জেলে ফাঁসি (১৯২৭)[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]
যোগেশচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় কাকোরি ষড়যন্ত্র যাবজ্জীবন কারাদণ্ড, স্বাধীনতার পর রাজ্যসভার সদস্য হন।
প্রণবেশ চট্টোপাধ্যায় কাকোরি ষড়যন্ত্র চার বৎসরের সশ্রম কারাদণ্ড [৫]
বিষ্ণুচরণ ডাবলিশ কাকোরি ষড়যন্ত্র দশ বৎসরের সশ্রম কারাদণ্ড পরে নৈনী জেলের বিচারে সশ্রম কারাদণ্ড [৫] ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসে যোগ দেন পরে লোকসভার সদস্য হন
মন্মথনাথ গুপ্ত কাকোরি ষড়যন্ত্র ১৪ বৎসরের সশ্রম কারাদণ্ড, পরে সাংবাদিকতায় জীবন কাটান। দীপাবলীর দিন ২০০০-এ মৃত্যু
গোবিন্দচরণ কর কাকোরি ষড়যন্ত্র যাবজ্জীবন কারাদণ্ড
আসফাকউল্লা খান কাকোরি ষড়যন্ত্র মৃত্যুদণ্ড [৮] ফৈজাবাদ জেলে ফাঁসি(১৯২৭)
প্রেমকৃষ্ণ খান্না কাকোরি ষড়যন্ত্র পাঁচ বৎসরের সশ্রম কারাদণ্ড [৫] পরে ১৯৬২ এবং ১৯৬৭ খ্রিস্টাব্দে লোকসভার সদস্য হন শাহজাহানপুর[৯]
রামকৃষ্ণ খাত্রী কাকোরি ষড়যন্ত্র দশ বৎসরের সশ্রম কারাদণ্ড [৫]
রাজেন্দ্র লাহিড়ী কাকোরি ষড়যন্ত্র মৃত্যদণ্ড[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] ফাঁসি গোন্ডা জেলে (১৯২৭)
বানাওয়ারীলাল কাকোরি ষড়যন্ত্র দু বৎসরের কারাদণ্ড [৫]
মুকুন্দীলাল কাকোরি ষড়যন্ত্র [১০] সাত বৎসরের সশ্রম কারাদণ্ড (মণিপুরী) ও যাবজ্জীবন কারাদণ্ড কাকোরি ষড়যন্ত্র অক্টোবর ১৯৭২-এ মৃত্যু [১১]
রামনাথ পাণ্ডে কাকোরি ষড়যন্ত্র তিন বৎসরের সশ্রম কারাদণ্ড [৫]
ভূপেন্দ্রনাথ সান্যাল কাকোরি ষড়যন্ত্র পাঁচ বৎসরের সশ্রম কারাদণ্ড

[৫]

শচীন্দ্রনাথ সান্যাল কাকোরি ষড়যন্ত্র যাবজ্জীবন কারাদণ্ড সেলুলার জেল; ১৯৪৩-এ যক্ষারোগে মৃত্যু।
ঠাকুর রোশান সিং কাকোরি ষড়যন্ত্র মৃত্যদণ্ড - ফাঁসি এলাহাবাদের নৈনি জেলে (১৯২৭)[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]
রাজ কুমার সিনহা কাকোরি ষড়যন্ত্র দশ বৎসরের সশ্রম কারাদণ্ড [৫]
রামদুলারী ত্রিবেদী কাকোরি ষড়যন্ত্র ৫ বৎসরের সশ্রম কারাদণ্ড হ[৫]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Gupta (1997). উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "FOOTNOTEGupta1997" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "FOOTNOTEGupta1997" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "FOOTNOTEGupta1997" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে
  2. Dr. Mehrotra N.C. Swatantrata Andolan Mein Shahjahanpur Ka Yogdan Page 109 & 146
  3. Balinisteanu, Tudor (২০১২)। Violence, Narrative and Myth in Joyce and Yeats: Subjective Identity and Anarcho-Syndicalist Traditions। Palgrave Macmillan। পৃষ্ঠা 60। আইএসবিএন 978-0-23029-095-2 
  4. Bowden & Davis (2009), p. 29
  5. Mahaur (1978), p. 30
  6. Mahaur (1978), p. 84
  7. Mahaur (1978), pp. 33, 65
  8. "NAUJAWAN BHARAT SABHA & HSRA" (PDF) 
  9. Mahaur (1978), p. 89
  10. Mahaur (1978), p. 65
  11. Mahaur (1978), p. 64