হাতানিয়া দোয়ানিয়া সেতু

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
হাতানিয়া দোয়ানিয়া সেতু
নামখানা সেতু
হাতানিয়া দোয়ানিয়া সেতু.jpg
নির্মাণাধীন হাতানিয়া দোয়ানিয়া সেতুর ছবি
স্থানাঙ্ক২১°৪৬′ উত্তর ৮৮°১৪′ পূর্ব / ২১.৭৬° উত্তর ৮৮.২৩° পূর্ব / 21.76; 88.23স্থানাঙ্ক: ২১°৪৬′ উত্তর ৮৮°১৪′ পূর্ব / ২১.৭৬° উত্তর ৮৮.২৩° পূর্ব / 21.76; 88.23
বহন করেদুটি পথ, প্রতি পথে একটি করে যানবাহন চলাচলের উপযোগী লেন
অতিক্রম করেহাতানিয়া দোয়ানিয়া নদী
স্থাননামখানা, পশ্চিমবঙ্গ
অন্য নামনামখানা সেতু
বৈশিষ্ট্য
নকশাঝুলন্ত সেতু[১]
মোট দৈর্ঘ্য৩৪০ মিটার (১,১১৫ ফু) (নদীর উপরের অংশ)
৩.৫ কিলোমিটার (সম্পূর্ণ সেতু)
প্রস্থ১০.৫ মিটার (৩৪ ফু)
দীর্ঘতম স্প্যান১৭২ মিটার (৫৬৪ ফু)
ইতিহাস
চালু৭ মার্চ ২০১৯[২]
পরিসংখ্যান
টোলনা

হাতানিয়া দোয়ানিয়া সেতু বা নামখানা সেতু ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যে হাতানিয়া দোয়ানিয়া নদীর ওপর অবস্থিত একটি সেতু। এর মাধ্যমে নামখানানারায়াণপুর-এর মধ্যে যোগাযোগ রক্ষিত হচ্ছে। সেতুটি সব রকম যানবাহনের ক্ষেত্রেই টোল মুক্ত সেতু হিসেবে ব্যবহৃত হয়। এর মোট দৈর্ঘ্য ৩৪০ মিটার। সংযোগ সেতুর ৯৬০ মিটার দীর্ঘ। সংযোগ সেতু সহ সেতুটি ১৩০০ মিটার বা ১.৩ কিলোমিটার দীর্ঘ। সম্পূর্ণ সেতুটি ৩.৫ কিলোমিটার দীর্ঘ।[২] এটি পশ্চিমবঙ্গের দ্বিতীয় দীর্ঘতম ঝুলন্ত (কেবল-স্টেইড) সেতু এবং ভারতের দীর্ঘতম ঝুলন্ত সেতুগুলির মধ্যে একটি। সেতুটি নির্মাণ করতে মোট ২২৬ কোটি টাকা খরচ ধরা হয়েছে।[২] ৭ মার্চ ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দে সেতুটির উদ্বোধন করা হয়।"এসপি সিংলা কনস্ট্রাকশন"[১]-এর অধীনে সরকারি উদ্যোগে এই সেতুটি নির্মিত হয়েছিল।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

সেতুটির নির্মাণ ২০১৪ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে শুরু হয়। সেতুর নির্মাণ কাজ শেষ হয় ২০১৯ সালে। সেতুটি রাজ্য সরকার ও কেন্দ্র সরকারের যৌথ উদ্যোগে তৈরি হয়েছে। ২০১৯ সালের মার্চ মাসে সেতুর শুভ উদ্বোধন করেন অরূপ বিশ্বাস।

দুর্ঘটনা, বিতর্ক ও স্থানীয় জনগণের ক্ষোপ[সম্পাদনা]

নদীর ধারে সেতুর প্রধান থাম দু’টির মধ্যে নামখানার দিকের থামটিতে ঢালাইয়ের কাজ চলাকালীন সময়ে দুর্ঘটনা ঘটে। ক্রেনের মাধ্যমে তোলা হচ্ছিল সেন্টারিংয়ের লোহার শাটার। নিচে দাঁড়িয়ে কাজের দেখভাল করছিলেন সুশান্ত ও মহম্মদ নামে দুই শ্রমীক। আচমকা, প্রায় ৩০ ফুট উঁচু থেকে ক্রেনের তার ছিঁড়ে প্রায় দেড় টন ওজনের লোহার শাটার এসে পড়ে তাঁদের উপরে। ঘটনাস্থলেই মারা যান সুশান্ত। হাতানিয়া-দোয়ানিয়া নদীর উপরে সেতু তৈরির প্রথম আড়াই বছরের শেষ মাস ছ’য়েকের মধ্যে প্রাণ হারিয়েছিল দু’জন শ্রমীক। বার বারই অভিযোগ উঠেছিল শ্রমিকদের ন্যূনতম সুরক্ষার ব্যবস্থা নেই এখানে।[৩]

ঘটনার পরে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়েছিল এবং স্থানীয় মানুষজন ক্ষোভ উগরে দেন নির্মাণ সংস্থার উপরে। তাঁদের দাবি ছিল "সেতুর নিচের দেওয়ালে ফাটল ধরেছে। প্রায় আধ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে কাজ চলছে, তার মধ্যে দিয়ে ঝুঁকি নিয়ে হাঁটাচলা করতে হচ্ছে।"[৩]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "High Level Major Bridge on river Hatania-Doania West Bengal"spsingla.com। সংগ্রহের তারিখ ২৫ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  2. "খুলে গেল নামখানা সেতু, এবার বকখালি যাতায়াত আরও সহজ"। bengali.news18.com। ৭ মার্চ ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ১২ মার্চ ২০১৯ 
  3. "ঘাড়ে পড়ল দেড় টনের লোহার শাটার, থেঁতলে মৃত শ্রমিক"। www.anandabazar.com। ৯ আগস্ট ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ২৫ ডিসেম্বর ২০১৮ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]